alt

উপ-সম্পাদকীয়

আউশ ধান : পরিবেশ ও কৃষকবান্ধব ফসল

আবদুর রহমান

: মঙ্গলবার, ০২ এপ্রিল ২০২৪

আউশ ধানের চাষ বাংলাদেশের প্রাচীনতম চাষের অন্যতম। আউশ শব্দের অর্থ আগাম। বাংলা ‘আশু’ শব্দ থেকে আউশ শব্দের উৎপত্তি। দ্রুত (আশু) ফসল উৎপন্ন হওয়ার কারণে এ ধানের নামকরণ করা হয়েছে আউশ।

খনার বচনে আছে ‘আউশ ধানের চাষ, লাগে তিন মাস, কোল পাতলা ডাগর গুছি, লক্ষ্মী বলে হেথায় আছি’ অর্থাৎ আউশ ধান চাষে তিন মাস লাগে। ফাঁক ফাঁক করে লাগালে গোছা মোটা হয় এবং ফলনও বেশি হয়। কথায় আছে- ‘জ্যৈষ্ঠে খরা ধানে ভরা’। অর্থাৎ জ্যৈষ্ঠ মাসে একটু বৃষ্টি পেলেই আউশের জমি সবুজ ধানে ভরে যায়। রোপা আমন ও বোরো ধানের মতো আউশের যতœ নিলে ভালো ফলন পাওয়া যায়। আউশ ধান বেশ পরিবেশবান্ধব এবং কৃষকবান্ধবও বটে! তাই আউশ ধানের আবাদ সম্প্রসারণের ওপর গুরুত্ব দেয়া প্রয়োজন।

এক সময় বাংলাদেশে ব্যাপক এলাকায় আউশ ধানের আবাদ হতো। আশির দশক থেকে বোরো ধানের চাষ বাড়ার কারণে আউশের আবাদ ক্রমশ কমে গেছে। এমনকি আউশ ধানের অনেক জাত ইতোমধ্যে বিলুপ্ত হয়ে গেছে। ষাট দশকে উৎপাদনের দিক থেকে রোপা আমন ছিল প্রধান মৌসুম, আউশ ছিল দ্বিতীয়, তৃতীয় অবস্থানে ছিল বোরো, বোনা আমন ছিল চতুর্থ অবস্থানে। বর্তমানে বোরো প্রথম, রোপা আমন দ্বিতীয়, তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে আউশ। আর বোনা আমন তার আদি অবস্থান ধরে রেখেছে। জনশ্রুতি ছিল যে আউশের ভাত অধিক পুষ্টিকর ও পেটে অনেকক্ষণ থাকে অর্থাৎ হজম হতে সময় লাগে।

আমাদের দেশে রবি মৌসুমে বোরো ধান চাষে সেচকাজে পানির চাহিদা ব্যাপকভাবে বেড়ে যায়; যা মেটাতে ভূ-গর্ভস্থ পানি অধিক উত্তোলন করা হয়। ফলে ভূ-গর্ভস্থ পানির ওপর ব্যাপক চাপ পড়ে ও ভৌগোলিক পরিবেশ বিঘিœত হয়। বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের (ব্রি) গবেষণায় দেখা যায়, প্রতি কেজি চাল উৎপাদনে ২০০০-২৫০০ লিটার পানির প্রয়োজন; যা অত্যন্ত ব্যয়বহুল। তাই ভূ-গর্ভস্থ পানির ওপর চাপ কমাতে ও ভৌগোলিক পরিবেশ অক্ষুণœ রাখার স্বার্থে বোরো আবাদে আবাদি এলাকা যথাসম্ভব কমিয়ে পানি সাশ্রয়ী আউশ ধানের আবাদ বৃদ্ধি করা একান্ত আবশ্যক।

আউশ ধান চাষের অনেক সুবিধা রয়েছে। আউশ ধানে সালোক সংশ্লেষণ বেশি হয়, জীবনকাল কম এবং পানি সাশ্রয়ী। এ ধানের আবাদ বৃষ্টিনির্ভর। তাই আউশ ধান চাষে বৃষ্টি ছাড়া অতিরিক্ত পানির তেমন দরকার হয় না। এজন্য এ ধান উৎপাদনে সেচ খরচ সাশ্রয় হয়। আউশ ধান চাষের সময় মৌসুমের শুরুসহ পুরো সময় ধরে প্রায়ই বৃষ্টিপাত হয়। বিধায় ভূ-গর্ভস্থ পানি উত্তোলনের প্রয়োজনও নগণ্য অর্থাৎ জ্বালানি খরচ নেই বললেই চলে।

তদুপরি আউশ ধানের জাতগুলো স্বল্প জীবনকাল বিশিষ্ট হওয়ায় বায়ুম-লে বৈশ্বিক উষ্ণায়নে দায়ী (গ্রিন হাউস অ্যাফেক্ট) মিথেন গ্যাস অপেক্ষাকৃত কম পরিমাণে উদগিরণ করে থাকে।

অন্যদিকে ভূ-গর্ভস্থ পানি উত্তোলনের প্রয়োজনীয়তা না থাকায় আউশ ধানের চাষ পরিবেশবান্ধব।

কৃষি উপকরণ তথা সার, সেচ ও বালাইনাশকের প্রয়োজনীয়তা বোরোর চেয়ে কম।

শ্রমিক খরচ কম।

আউশ ধান আবাদে চাষ খরচও কম।

আউশ মৌসুমে সুস্থ-সবল চারা উৎপন্ন করা অপেক্ষাকৃত সহজ।

উক্ত মৌসুমে ধান উৎপাদনের জন্য মোটামুটি উপযুক্ত তাপমাত্রা বিরাজমান থাকায় সর্বোচ্চ ১০০ থেকে ১১০ দিনের মধ্যে এ ধান কেটে ঘরে তোলা যায়।

এ মৌসুমে উৎপাদিত ধানের ভালো দাম পাওয়া যায় এবং প্রাপ্ত খড়ে গোখাদ্যের অভাব দূর হওয়ার বিরাট সুযোগ রয়েছে।

এ ধানের চালের গুণগতমান ভালো এবং চাহিদা রয়েছে।

বোনা ও রোপা উভয় পদ্ধতিতে আউশ ধানের চাষ করা যায়। আগে আউশ আবাদ স্থানীয় জাত নির্ভর ছিল। স্থানীয় জাতের গড় ফলন ছিল হেক্টরপ্রতি ২.০০ টন থেকে ২.৩৫ টন পর্যন্ত। ব্যতিক্রম ছিল কেবল কটকতারা, যার হেক্টরপ্রতি ফলন ছিল ৩.৩৫ টন। তবে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) কর্তৃক উদ্ভাবিত উচ্চফলনশীল জাতের আউশ ধানের মধ্যে বোনা হিসেবে বিআর-২০, বি.আর-২১, বি.আর-২৪, ব্রিধান-২৭, ব্রিধান-৪২, বিধ্রান-৪৩, ব্রিধান-৬৫ ও ব্রিধান -৮৩ এবং রোপা হিসেবে বিআর-২৬, ব্রিধান-২৭, ব্রিধান-৪৮, ব্রিধান-৫৫, ব্রিধান-৮২, ব্রিধান-৮৫, ব্রিধান-৯৮, ব্রিধান-১০৬, বিনা ধান-১৯ ও বিনা ধান-২১ এসব জাতগুলোর ফলন কটকতারার চেয়ে অনেক বেশি।

আবাদি জমির সীমাবদ্ধতা থাকার পরিপ্রেক্ষিতে বর্তমানে বোরো চাষের আওতায় অপেক্ষাকৃত কিছু উঁচু জমি রবি ফসল বিশেষ করে ডাল, তেল বীজ ও মসলা উৎপাদনের জন্য ছেড়ে দিলে সে জমিই আবার রোপা আউশের আওতায় আনার মাধ্যমে ধানের মোট উৎপাদন অক্ষুণœ রেখেও খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা এবং কৃষকের আয় বৃদ্ধি করা সম্ভব। ডাল, তেলবীজ ও মসলা উৎপাদনে সাধারণত পানি কম লাগে। এতে কৃষি আরও পরিবেশবান্ধব ও সাশ্রয়ী হয়ে উঠবে। ফলে শস্য নিবিড়তা ও বহুমুখীকরণ নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।

ধান আমাদের দেশে খাদ্য নিরাপত্তা ও সমৃদ্ধির প্রতীক হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে। কাজেই সবার সহযোগিতা ও প্রচেষ্টার ফলে পরিবেশবান্ধব আউশ ধানের উৎপাদন বৃদ্ধির মাধ্যমে দেশের খাদ্য নিরাপত্তা আরও টেকসই ও সুনিশ্চিত হবে বলে আশা করা যায়।

[লেখক : উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা (পিআরএল), উপজেলা কৃষি অফিস, রূপসা, খুলনা]

কোন দিকে মোড় নিচ্ছে মধ্যপ্রাচ্যের সংকট?

কৃষিগুচ্ছ : ভর্তির আবেদনের নূ্যূনতম যোগ্যতা ও ফলাফল প্রস্তুতিতে বৈষম্য

ছবি

গণপরিবহনে নৈরাজ্যের শেষ কোথায়

ছাত্র রাজনীতি : পক্ষে-বিপক্ষে

ছবি

বি আর আম্বেদকর : নিম্নবর্গের মানুষের প্রতিনিধি

চেকের মামলায় আসামির মুক্তির পথ কী

রাম-নবমী : হিন্দুত্বের নয়া গবেষণাগার

‘একটি গ্রাম একটি পণ্য’ উদ্যোগ কি সফল হবে

কিশোর গ্যাং : সমস্যার মূলে যেতে হবে

গীতি চলচ্চিত্র ‘কাজল রেখা’ : সুস্থধারার চলচ্চিত্র বিকাশ ঘটুক

ছবি

ঋতুভিত্তিক চিরায়ত বাঙালি সংস্কৃতি

ছবি

স্মরণ : কাঙ্গাল হরিনাথ মজুমদার

ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস

দাবদাহে সুস্থ থাকবেন কীভাবে

কত দিন পরে এলে, একটু শোনো

রম্যগদ্য : আনন্দ, দ্বিগুণ আনন্দ...

ছবি

ইতিহাসের এক অবিস্মরণীয় নাম

বৈসাবি : ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর বর্ষবরণ উৎসব

‘ইন্ডিয়া আউট’ ক্যাম্পেইন

উদার-উদ্দাম বৈশাখ চাই

ঈদ নিয়ে আসুক শান্তি ও সমৃদ্ধি, বিস্তৃত হোক সম্প্রীতি ও সৌহার্দ

প্রসঙ্গ: বিদেশি ঋণ

ছাত্ররাজনীতি কি খারাপ?

জাকাত : বিশ্বের প্রথম সামাজিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা

বাংলাদেশ স্কাউটস দিবস : শুরুর কথা

ছবি

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দৃষ্টান্ত

প্রবাসীর ঈদ-ভাবনা

বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস

ধানের ফলন বাড়াতে ক্লাইমেট স্মার্ট গুটি ইউরিয়া প্রযুক্তি

কমিশন কিংবা ভিজিটে জমি রেজিস্ট্রির আইনি বিধান ও প্রাসঙ্গিকতা

ছবি

ঈদের অর্থনীতি

পশ্চিমবঙ্গে ভোটের রাজনীতিতে ‘পোস্ট পার্টিশন সিনড্রম’

শিক্ষকের বঞ্চনা, শিক্ষকের বেদনা

নিরাপদ সড়ক কেন চাই

রম্যগদ্য : ‘প্রহরীর সাতশ কোটি টাকা...’

ছবি

অবন্তিকাদের আত্মহনন

tab

উপ-সম্পাদকীয়

আউশ ধান : পরিবেশ ও কৃষকবান্ধব ফসল

আবদুর রহমান

মঙ্গলবার, ০২ এপ্রিল ২০২৪

আউশ ধানের চাষ বাংলাদেশের প্রাচীনতম চাষের অন্যতম। আউশ শব্দের অর্থ আগাম। বাংলা ‘আশু’ শব্দ থেকে আউশ শব্দের উৎপত্তি। দ্রুত (আশু) ফসল উৎপন্ন হওয়ার কারণে এ ধানের নামকরণ করা হয়েছে আউশ।

খনার বচনে আছে ‘আউশ ধানের চাষ, লাগে তিন মাস, কোল পাতলা ডাগর গুছি, লক্ষ্মী বলে হেথায় আছি’ অর্থাৎ আউশ ধান চাষে তিন মাস লাগে। ফাঁক ফাঁক করে লাগালে গোছা মোটা হয় এবং ফলনও বেশি হয়। কথায় আছে- ‘জ্যৈষ্ঠে খরা ধানে ভরা’। অর্থাৎ জ্যৈষ্ঠ মাসে একটু বৃষ্টি পেলেই আউশের জমি সবুজ ধানে ভরে যায়। রোপা আমন ও বোরো ধানের মতো আউশের যতœ নিলে ভালো ফলন পাওয়া যায়। আউশ ধান বেশ পরিবেশবান্ধব এবং কৃষকবান্ধবও বটে! তাই আউশ ধানের আবাদ সম্প্রসারণের ওপর গুরুত্ব দেয়া প্রয়োজন।

এক সময় বাংলাদেশে ব্যাপক এলাকায় আউশ ধানের আবাদ হতো। আশির দশক থেকে বোরো ধানের চাষ বাড়ার কারণে আউশের আবাদ ক্রমশ কমে গেছে। এমনকি আউশ ধানের অনেক জাত ইতোমধ্যে বিলুপ্ত হয়ে গেছে। ষাট দশকে উৎপাদনের দিক থেকে রোপা আমন ছিল প্রধান মৌসুম, আউশ ছিল দ্বিতীয়, তৃতীয় অবস্থানে ছিল বোরো, বোনা আমন ছিল চতুর্থ অবস্থানে। বর্তমানে বোরো প্রথম, রোপা আমন দ্বিতীয়, তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে আউশ। আর বোনা আমন তার আদি অবস্থান ধরে রেখেছে। জনশ্রুতি ছিল যে আউশের ভাত অধিক পুষ্টিকর ও পেটে অনেকক্ষণ থাকে অর্থাৎ হজম হতে সময় লাগে।

আমাদের দেশে রবি মৌসুমে বোরো ধান চাষে সেচকাজে পানির চাহিদা ব্যাপকভাবে বেড়ে যায়; যা মেটাতে ভূ-গর্ভস্থ পানি অধিক উত্তোলন করা হয়। ফলে ভূ-গর্ভস্থ পানির ওপর ব্যাপক চাপ পড়ে ও ভৌগোলিক পরিবেশ বিঘিœত হয়। বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের (ব্রি) গবেষণায় দেখা যায়, প্রতি কেজি চাল উৎপাদনে ২০০০-২৫০০ লিটার পানির প্রয়োজন; যা অত্যন্ত ব্যয়বহুল। তাই ভূ-গর্ভস্থ পানির ওপর চাপ কমাতে ও ভৌগোলিক পরিবেশ অক্ষুণœ রাখার স্বার্থে বোরো আবাদে আবাদি এলাকা যথাসম্ভব কমিয়ে পানি সাশ্রয়ী আউশ ধানের আবাদ বৃদ্ধি করা একান্ত আবশ্যক।

আউশ ধান চাষের অনেক সুবিধা রয়েছে। আউশ ধানে সালোক সংশ্লেষণ বেশি হয়, জীবনকাল কম এবং পানি সাশ্রয়ী। এ ধানের আবাদ বৃষ্টিনির্ভর। তাই আউশ ধান চাষে বৃষ্টি ছাড়া অতিরিক্ত পানির তেমন দরকার হয় না। এজন্য এ ধান উৎপাদনে সেচ খরচ সাশ্রয় হয়। আউশ ধান চাষের সময় মৌসুমের শুরুসহ পুরো সময় ধরে প্রায়ই বৃষ্টিপাত হয়। বিধায় ভূ-গর্ভস্থ পানি উত্তোলনের প্রয়োজনও নগণ্য অর্থাৎ জ্বালানি খরচ নেই বললেই চলে।

তদুপরি আউশ ধানের জাতগুলো স্বল্প জীবনকাল বিশিষ্ট হওয়ায় বায়ুম-লে বৈশ্বিক উষ্ণায়নে দায়ী (গ্রিন হাউস অ্যাফেক্ট) মিথেন গ্যাস অপেক্ষাকৃত কম পরিমাণে উদগিরণ করে থাকে।

অন্যদিকে ভূ-গর্ভস্থ পানি উত্তোলনের প্রয়োজনীয়তা না থাকায় আউশ ধানের চাষ পরিবেশবান্ধব।

কৃষি উপকরণ তথা সার, সেচ ও বালাইনাশকের প্রয়োজনীয়তা বোরোর চেয়ে কম।

শ্রমিক খরচ কম।

আউশ ধান আবাদে চাষ খরচও কম।

আউশ মৌসুমে সুস্থ-সবল চারা উৎপন্ন করা অপেক্ষাকৃত সহজ।

উক্ত মৌসুমে ধান উৎপাদনের জন্য মোটামুটি উপযুক্ত তাপমাত্রা বিরাজমান থাকায় সর্বোচ্চ ১০০ থেকে ১১০ দিনের মধ্যে এ ধান কেটে ঘরে তোলা যায়।

এ মৌসুমে উৎপাদিত ধানের ভালো দাম পাওয়া যায় এবং প্রাপ্ত খড়ে গোখাদ্যের অভাব দূর হওয়ার বিরাট সুযোগ রয়েছে।

এ ধানের চালের গুণগতমান ভালো এবং চাহিদা রয়েছে।

বোনা ও রোপা উভয় পদ্ধতিতে আউশ ধানের চাষ করা যায়। আগে আউশ আবাদ স্থানীয় জাত নির্ভর ছিল। স্থানীয় জাতের গড় ফলন ছিল হেক্টরপ্রতি ২.০০ টন থেকে ২.৩৫ টন পর্যন্ত। ব্যতিক্রম ছিল কেবল কটকতারা, যার হেক্টরপ্রতি ফলন ছিল ৩.৩৫ টন। তবে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) কর্তৃক উদ্ভাবিত উচ্চফলনশীল জাতের আউশ ধানের মধ্যে বোনা হিসেবে বিআর-২০, বি.আর-২১, বি.আর-২৪, ব্রিধান-২৭, ব্রিধান-৪২, বিধ্রান-৪৩, ব্রিধান-৬৫ ও ব্রিধান -৮৩ এবং রোপা হিসেবে বিআর-২৬, ব্রিধান-২৭, ব্রিধান-৪৮, ব্রিধান-৫৫, ব্রিধান-৮২, ব্রিধান-৮৫, ব্রিধান-৯৮, ব্রিধান-১০৬, বিনা ধান-১৯ ও বিনা ধান-২১ এসব জাতগুলোর ফলন কটকতারার চেয়ে অনেক বেশি।

আবাদি জমির সীমাবদ্ধতা থাকার পরিপ্রেক্ষিতে বর্তমানে বোরো চাষের আওতায় অপেক্ষাকৃত কিছু উঁচু জমি রবি ফসল বিশেষ করে ডাল, তেল বীজ ও মসলা উৎপাদনের জন্য ছেড়ে দিলে সে জমিই আবার রোপা আউশের আওতায় আনার মাধ্যমে ধানের মোট উৎপাদন অক্ষুণœ রেখেও খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা এবং কৃষকের আয় বৃদ্ধি করা সম্ভব। ডাল, তেলবীজ ও মসলা উৎপাদনে সাধারণত পানি কম লাগে। এতে কৃষি আরও পরিবেশবান্ধব ও সাশ্রয়ী হয়ে উঠবে। ফলে শস্য নিবিড়তা ও বহুমুখীকরণ নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।

ধান আমাদের দেশে খাদ্য নিরাপত্তা ও সমৃদ্ধির প্রতীক হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছে। কাজেই সবার সহযোগিতা ও প্রচেষ্টার ফলে পরিবেশবান্ধব আউশ ধানের উৎপাদন বৃদ্ধির মাধ্যমে দেশের খাদ্য নিরাপত্তা আরও টেকসই ও সুনিশ্চিত হবে বলে আশা করা যায়।

[লেখক : উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা (পিআরএল), উপজেলা কৃষি অফিস, রূপসা, খুলনা]

back to top