alt

উপ-সম্পাদকীয়

‘মানসম্মত হেলমেট’ পরুন

তামান্না মিজান

: মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট ২০২২

ইদানীং মোটরসাইকেল যানবাহন হিসেবে খুবই জনপ্রিয়। কাক্সিক্ষত গন্তব্যে পৌঁছাতে ‘মোটরসাইকেল’ সময় বাঁচায় এবং খুব দ্রুত গন্তব্যস্থলে পৌঁছানো যায়। এই কারণে, মোটরসাইকেল বাহন হিসাবে দিন দিন খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। আমরা দেখেছি বেশির ভাগ সময় মোটরসাইকেলের চালক যে হেলমেট পরে সেটি মোটামুটি মানের এবং যাত্রীরাও হেলমেট পরে যা দামে খুবই সস্তা এবং খুব হালকা হেলমেট।

দেশে সড়ক দুর্ঘটনা এবং দুর্ঘটনায় আহত ও নিহতের হার দুই-ই ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কর্তৃক প্রণীত “গ্লোবাল স্ট্যাটাস রিপোর্ট অন রোড সেফটি ২০১৮-এর তথ্য মতে, বিশ্বে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতি বছর প্রায় ১০ লাখ ৩৫ হাজার মানুষ মারা যায় এবং ২০ থেকে ৫০ লাখ মানুষ আহত বা পঙ্গুত্ববরণ করে।

বিশ্বব্যাপী আঘাত জনিত মৃত্যুর ৮ম প্রধান কারণ সড়ক দুর্ঘটনা যার শিকার ৫-২৯ বছর বয়সী এবং তার চেয়ে কম বয়সী মানুষের মৃত্যুরও অন্যতম প্রধান কারণ। সড়ক দুর্ঘটনার শতকরা ৯০ ভাগ সংঘটিত হয় নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশে। প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে যে বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতি বছর আনুমানিক প্রায় ২৫ হাজার মানুষ মারা যায়।

দুই এবং তিন চাকার মোটরযানের ব্যবহার মাথায় আঘাতজনিত মৃত্যু ও ট্রমার অন্যতম প্রধান কারণ। দ্রুততম সময়ের মধ্যে গন্তব্যস্থলে পৌঁছার জন্য বহু মানুষ মোটরাটরসাইকেলকে বেছে নিচ্ছে। ফলে সাম্প্রতিক সময়ে দেশে এর ব্যবহার অত্যধিক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে গতির পাশাপাশি মানসম্মত হেলমেট পরিধানের বিষয়টি অত্যন্ত গরুত্বপূর্ণ। মানসম্মত হেলমেট পরিধান না করা সরাসরি দুর্ঘটনার কারণ না হলেও দুর্ঘটনায় আহত ব্যক্তির আঘাতের মাত্রা হ্রাসে কার্যকর ভূমিকা পালন করে। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে গবেষণায় এটাও দেখে গেছে যে, নিরাপদ বা মানসম্মত হেলমেট যথাযথ নিয়মে ব্যবহারে দুর্ঘটনায় মৃত্যু ঝুঁকি শতকরা ৪০ ভাগ এবং মাথায় আঘাতের ঝুঁকি শতকরা ৭০ ভাগ হ্রাস করে।

সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮-এর আলোকে প্রণীত সড়ক পরিবহন বিধিমালা-২০২১ হালনাগাদ করণের মাধ্যমে সড়ক নিরাপত্তা জোরদারের প্রচেষ্টা গ্রহণ সরকারের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ এবং অন্যতম প্রশংসনীয় উদ্যোগ। এ প্রসঙ্গে জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় (এসডিজি) সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ে দুটি বৈশ্বিক লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। লক্ষ্যমাত্রার ৩.৬ নম্বরে ২০৩০ সালের মধ্যে বিশ্বব্যাপী সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু এবং আহত মানুষের সংখ্যা অর্ধেক হ্রাস করার আহ্বান জানানো হয়েছে। ১১.২ নম্বরে বলা হয়েছে যে, ২০৩০ সালের মধ্যে গণপরিবহন ব্যবহারে জনগণের অংশগ্রহণ বৃদ্ধির পাশাপাশি গণপরিবহন সেবার সম্প্রসারণ করতে হবে। উল্লেখিত এসডিজিগুলোর লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ ‘সড়ক পরিবহন বিধিমালা- ২০২১’ এ বেশ কিছু উল্লেখযাগ্য বিধান সংযুক্তিপূর্বক গেজেট প্রকাশ করেছে। এ বিধিমালার কার্যকর প্রয়োগের মাধ্যমে বাংলাদেশের সড়ক নিরাপত্তাকে জোড়দার করে তোলাই সরকারের প্রধান উদ্দেশ্য। তাই এ ধরনের কার্যকর ও সময়োপযোগী সড়ক পরিবহন বিধিমালা জারির জন্য বাংলাদেশ সরকার নিঃসন্দেহে প্রশংসার।

বিধিমালার একই অধ্যায়ে নিরাপদ হেলমেট পরিধান-সংক্রান্ত নির্দেশনাও অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। নির্দেশনাগুলো জারির মাধ্যমে হেলমেটের গুণগত মান নির্ধারণ করা ও যথাযথ পদ্ধতিতে হেলমেট পরিধানের মাধ্যমে মোটরসাইকেল চালক ও আরোহীদের অধিকতর সুরক্ষা নিশ্চিত হবে।

[লেখক : সিনিয়র কমিউনিকেশন অফিসার, রোড সেইফটি প্রোগ্রাম, ব্র্যাক]

উত্তরবঙ্গের পর্যটন ও সম্ভাবনা : একটি অনুভাবনা

জাগো বহ্নিশিখা

মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের আচরণ প্রসঙ্গে

ছবি

শাকিব খান, দুষ্মন্ত-শকুন্তলা এবং নায়িকা সমাচার

ছোটদের লেখাপড়ায় নিতে হবে মেগা প্রকল্প

ছবি

সার্বজনীন দুর্গাৎসব

বেদিয়া ও কুর্মি জাতিসত্তার হোক স্বতন্ত্র পরিচয়

ডিজিটাল শিল্পযুগ ও অন্যান্য প্রসঙ্গ

ছবি

সর্বজনীন থেকে বিশ্বজনীন হয়ে ওঠা দুর্গোৎসব

যে কারণে শিক্ষাব্যবস্থার জাতীয়করণ প্রয়োজন

সীমান্তে উত্তেজনা, কী চায় মায়ানমার

সত্যি ওরা পেরেছে

শিশু নির্যাতনের প্রতিকারের পথে বাধা কী

আত্মগোপন, নিখোঁজ আর গুম

আন্তর্জাতিক প্রবীণ দিবস

বাঁচো, বাঁচো এবং বাঁচো

কন্যাশিশুকে শিক্ষায়ও এগিয়ে থাকতে হবে 

বুদ্ধিজীবিতার দায়

আদিবাসীর তালিকা নিয়ে বিতর্ক কেন

সত্য কাজে কেউ নয় রাজি

মেগা প্রকল্প ঘিরে পর্যটনের সম্ভাবনা

বিশ্বব্যাপী ক্ষুধার্ত মানুষের সংখ্যা বাড়ছে

শেষ আফ্রিকান টিক ওক গাছটি কি মারা গেছে?

তথ্যপ্রযুক্তির যুগে জনগণের তথ্য অধিকার নিশ্চিত হোক

ছবি

সময়মতো শিক্ষার্থীদের হাতে পৌঁছাক পাঠ্যবই

ডিজিটাল শিল্পযুগ ও অন্যান্য প্রসঙ্গ

আঞ্চলিক যোগাযোগের গুরুত্ব

কৃষি ও কম্পিউটার শিক্ষা বাস্তবমুখী হওয়া প্রয়োজন

জনপ্রিয়তা, সম্মান এবং সৃষ্টি সুখের গোপন তরিকা

ছবি

বছরে ১০ বিলিয়ন ডলার চামড়া রপ্তানি করা সম্ভব

ছবি

স্বপ্নছোঁয়া জয় ও এগিয়ে যাওয়ার পথনকশা

সড়ক দুর্ঘটনার মূল্য কত

ছবি

হার না মানা লাল-সবুজের মেয়েরা

ছবি

জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধু

নারী ফুটবল দলকে অভিনন্দন

সেলিম : ভারতে বামপন্থার পুনর্জাগরণের ঋত্ত্বিক

tab

উপ-সম্পাদকীয়

‘মানসম্মত হেলমেট’ পরুন

তামান্না মিজান

মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট ২০২২

ইদানীং মোটরসাইকেল যানবাহন হিসেবে খুবই জনপ্রিয়। কাক্সিক্ষত গন্তব্যে পৌঁছাতে ‘মোটরসাইকেল’ সময় বাঁচায় এবং খুব দ্রুত গন্তব্যস্থলে পৌঁছানো যায়। এই কারণে, মোটরসাইকেল বাহন হিসাবে দিন দিন খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। আমরা দেখেছি বেশির ভাগ সময় মোটরসাইকেলের চালক যে হেলমেট পরে সেটি মোটামুটি মানের এবং যাত্রীরাও হেলমেট পরে যা দামে খুবই সস্তা এবং খুব হালকা হেলমেট।

দেশে সড়ক দুর্ঘটনা এবং দুর্ঘটনায় আহত ও নিহতের হার দুই-ই ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কর্তৃক প্রণীত “গ্লোবাল স্ট্যাটাস রিপোর্ট অন রোড সেফটি ২০১৮-এর তথ্য মতে, বিশ্বে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতি বছর প্রায় ১০ লাখ ৩৫ হাজার মানুষ মারা যায় এবং ২০ থেকে ৫০ লাখ মানুষ আহত বা পঙ্গুত্ববরণ করে।

বিশ্বব্যাপী আঘাত জনিত মৃত্যুর ৮ম প্রধান কারণ সড়ক দুর্ঘটনা যার শিকার ৫-২৯ বছর বয়সী এবং তার চেয়ে কম বয়সী মানুষের মৃত্যুরও অন্যতম প্রধান কারণ। সড়ক দুর্ঘটনার শতকরা ৯০ ভাগ সংঘটিত হয় নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশে। প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে যে বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতি বছর আনুমানিক প্রায় ২৫ হাজার মানুষ মারা যায়।

দুই এবং তিন চাকার মোটরযানের ব্যবহার মাথায় আঘাতজনিত মৃত্যু ও ট্রমার অন্যতম প্রধান কারণ। দ্রুততম সময়ের মধ্যে গন্তব্যস্থলে পৌঁছার জন্য বহু মানুষ মোটরাটরসাইকেলকে বেছে নিচ্ছে। ফলে সাম্প্রতিক সময়ে দেশে এর ব্যবহার অত্যধিক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে গতির পাশাপাশি মানসম্মত হেলমেট পরিধানের বিষয়টি অত্যন্ত গরুত্বপূর্ণ। মানসম্মত হেলমেট পরিধান না করা সরাসরি দুর্ঘটনার কারণ না হলেও দুর্ঘটনায় আহত ব্যক্তির আঘাতের মাত্রা হ্রাসে কার্যকর ভূমিকা পালন করে। সংশ্লিষ্ট বিষয়ে গবেষণায় এটাও দেখে গেছে যে, নিরাপদ বা মানসম্মত হেলমেট যথাযথ নিয়মে ব্যবহারে দুর্ঘটনায় মৃত্যু ঝুঁকি শতকরা ৪০ ভাগ এবং মাথায় আঘাতের ঝুঁকি শতকরা ৭০ ভাগ হ্রাস করে।

সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮-এর আলোকে প্রণীত সড়ক পরিবহন বিধিমালা-২০২১ হালনাগাদ করণের মাধ্যমে সড়ক নিরাপত্তা জোরদারের প্রচেষ্টা গ্রহণ সরকারের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ এবং অন্যতম প্রশংসনীয় উদ্যোগ। এ প্রসঙ্গে জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় (এসডিজি) সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ে দুটি বৈশ্বিক লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে। লক্ষ্যমাত্রার ৩.৬ নম্বরে ২০৩০ সালের মধ্যে বিশ্বব্যাপী সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু এবং আহত মানুষের সংখ্যা অর্ধেক হ্রাস করার আহ্বান জানানো হয়েছে। ১১.২ নম্বরে বলা হয়েছে যে, ২০৩০ সালের মধ্যে গণপরিবহন ব্যবহারে জনগণের অংশগ্রহণ বৃদ্ধির পাশাপাশি গণপরিবহন সেবার সম্প্রসারণ করতে হবে। উল্লেখিত এসডিজিগুলোর লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ ‘সড়ক পরিবহন বিধিমালা- ২০২১’ এ বেশ কিছু উল্লেখযাগ্য বিধান সংযুক্তিপূর্বক গেজেট প্রকাশ করেছে। এ বিধিমালার কার্যকর প্রয়োগের মাধ্যমে বাংলাদেশের সড়ক নিরাপত্তাকে জোড়দার করে তোলাই সরকারের প্রধান উদ্দেশ্য। তাই এ ধরনের কার্যকর ও সময়োপযোগী সড়ক পরিবহন বিধিমালা জারির জন্য বাংলাদেশ সরকার নিঃসন্দেহে প্রশংসার।

বিধিমালার একই অধ্যায়ে নিরাপদ হেলমেট পরিধান-সংক্রান্ত নির্দেশনাও অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। নির্দেশনাগুলো জারির মাধ্যমে হেলমেটের গুণগত মান নির্ধারণ করা ও যথাযথ পদ্ধতিতে হেলমেট পরিধানের মাধ্যমে মোটরসাইকেল চালক ও আরোহীদের অধিকতর সুরক্ষা নিশ্চিত হবে।

[লেখক : সিনিয়র কমিউনিকেশন অফিসার, রোড সেইফটি প্রোগ্রাম, ব্র্যাক]

back to top