alt

উপ-সম্পাদকীয়

তিতাস অববাহিকার বিপন্ন কৃষিজমিন

পাভেল পার্থ

: বৃহস্পতিবার, ২৩ মার্চ ২০২৩
image

বহুদিন ধরে তিতাস অববাহিকার নানা জায়গায় মাটি ভরাট করে বাঁধ দিয়ে প্রাকৃতিক পানি প্রবাহ ও নিষ্কাশন ব্যবস্থাকে বিনষ্ট করে কৃষিজমির ক্ষতি করা হচ্ছে

তিতাস বাংলাদেশের প্রাকৃতিক ও সাংস্কৃতিক ইতিহাসের এক অনন্য সঙ্গী। আমাদের বহু স্মৃতিময় আখ্যান ও জল-রোমন্থন জড়িয়ে আছে তিতাসের সঙ্গে। তিতাসপাড়ের জেলেজীবন নিয়ে অদ্বৈত মল্ল বর্মণ লিখেন ‘তিতাস একটি নদীর নাম’। পরবর্তীতে ঋত্বিক ঘটক নির্মাণ করেন যুগান্তকারী চলচ্চিত্র। তিতাস এক আন্তঃরাষ্ট্রিক নদ। উত্তর-পূর্ব ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের পাহাড় থেকে জন্ম নিয়ে এই নদ ত্রিপুরায় ককবরক ভাষায় সাইদ্রা ও বাংলায় হাওড়া নামে প্রবাহিত। বাংলাদেশের ছয় ভাগের এক ভাগ হলো হাওর। সাতটি প্রশাসনিক জেলার ভেতর ব্রাহ্মণবাড়িয়াও হাওরাঞ্চল। এখানকার বিশাল অঞ্চলের কৃষিজমির বৈশিষ্ট্য হলো বর্ষাকালে বিস্তীর্ণ অঞ্চল তলিয়ে যাওয়া ও হেমন্তে আবার বিল ছাড়া বিশাল জমিন জেগে ওঠা। এখানকার কৃষিপ্রতিবেশের কৃষিজমিগুলোর সঙ্গে প্রচুর খালের সংযোগ আছে। আর এসব খাল দিয়েই বর্ষায় তিতাসে পানি প্রবাহিত হয়ে যায় এবং হেমন্তে খালের পানি কৃষিতে কাজে লাগে।

কিন্তু সবুজবিপ্লব পরবর্তী কৃষি উন্নয়ন তিতাস অববাহিকার এই কৃষিপ্রতিবেশ বৈশিষ্ট্যকে গুরুত্ব দেয়নি। বরং নানাভাবে উন্নয়ন অবকাঠামো ও নগরায়ণ সম্প্রসারণের নামে কৃষিজমির শৃঙ্খলা বিনষ্ট করা হয়েছে। বহু নালা, খাল, জলাভূমি ভরাট করা হয়েছে। পানিপ্রবাহের গতি ও ধারা নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। কৃষি বাস্তুতন্ত্র হয়েছে চুরমার। উন্নয়নের নামে এসব ঘটলেও সামগ্রিকভাবে এটি দেশের জাতীয় খাদ্য নিরাপত্তাকে বারবার আঘাত করছে এবং প্রাণ-প্রতিবেশের ব্যাকরণকে বিশৃঙ্খল করে দিচ্ছে। বহুদিন ধরে তিতাস অববাহিকার নানা জায়গায় মাটি ভরাট করে বাঁধ দিয়ে প্রাকৃতিক পানি প্রবাহ ও নিষ্কাশন ব্যবস্থাকে বিনষ্ট করে কৃষিজমির ক্ষতি করা হচ্ছে। কৃষিজমি সুরক্ষায় আমরা জোরালো কোনো রাষ্ট্রীয় তৎপরতা দেখিনি। আশা করব তিতাস অববাহিকার বিশেষ কৃষিপ্রতিবেশ সুরক্ষায় রাষ্ট্র তৎপর হবে। প্রভাবশালীদের বাঁধ বাহাদুরি বা এলোপাতাড়ি উন্নয়নের চাবুক থেকে রক্তাক্ত কৃষিজমির ন্যায়বিচার নিশ্চিত করবে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ার মোগড়া ইউনিয়নের চরনারায়ণপুর মৌজায় প্রায় ৫০০ বিঘা জমিকে জবরদস্তি করে বিপন্ন করে তোলা হয়েছে। গণমাধ্যমসূত্র জানায়, মোগড়া ইউনিয়নের দরুইন গ্রামের মো. তাহের মিয়া ও মো. রাসেল মিয়া বছর পাঁচেক আগে এই বিলে কিছু জমি কেনেন। এরপর তারা একতরফাভাবে খালের পাশে এক বেড়িবাঁধ তৈরি করেন। যার ফলে হাওর থেকে তিতাস নদে পানি প্রবাহের ধারাটি বন্ধ হয়ে যায়। প্রাকৃতিক পানিপ্রবাহ বন্ধ হওয়ায় বেলুয়া বিলের জমিনগুলো বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধ ও হেমন্তে রুক্ষ পানিহীন হয়ে পড়ে। উভয় মৌসুমেই কৃষির উৎপাদন ব্যহত হচ্ছে। স্থানীয় কৃষকদের ভোগান্তি ও দুশ্চিন্তা বাড়ছে। দুই প্রভাবশালীর একতরফা এই বাহাদুরি সরাসরি জাতীয় খাদ্য নিরাপত্তাকেও বিপদে ফেলছে। বাঁধ সরিয়ে জমিগুলোকে বিপদমুক্ত করার জন্য ভূক্তভোগী কৃষকরা স্থানীয় সরকার ও স্থানীয় প্রশাসনকে বহুবার জানিয়েছে। কিন্তু কোনো ন্যায়বিচার নেই।

যে দেশে প্রতিদিন এক শতাংশ হারে জমি কমছে আর পাল্লা দিয়ে মানুষের উৎপাদন বাড়ছে সেই দেশে খাদ্য উৎপাদন বিনষ্ট করার এমন বাহাদুরি কীসের ইঙ্গিত? প্রধানমন্ত্রী নিজে চাষ করে দেখাচ্ছেন, দেশের প্রতি ইঞ্চি জায়গা ফেলে না রাখার ঘোষণা দিচ্ছেন। কিন্তু বেলুয়া বিলে কেন প্রশ্নহীনভাবে ৫০০ বিঘা কৃষিজমি সংকটে আছে? এই কৃষিজমি মুক্ত করার দায় ও দায়িত্ব কার? খাদ্য উৎপাদনে কৃষকের পাশে দাঁড়াবার দায়িত্ব কার? কৃষিবিভাগ, পানি উন্নয়ন বোর্ড, হাওর ও জলাভূমি উন্নয়ন বোর্ড, স্থানীয় প্রশাসন, স্থানীয় সরকার কিংবা স্থানীয় জনপ্রতিনিধি কী করছেন? কেন ৫০০ বিঘা কৃষিজমির সুরক্ষায় দাঁড়াতে পারছেন না? বিশেষ করে মহামারী ও যুদ্ধ সংকটে প্রতিদিন নেতিয়ে পড়া এক মুমূর্ষু দুনিয়ায় যখন কৃষিজ খাদ্য উৎপাদন নানাভাবে রক্তাক্ত, সেখানে কয়েকজন প্রভাবশালীর কারণে দেশের জমি বিনষ্ট হবে তা কেন মেনে নেয়া হচ্ছে? প্রতিকার না পেয়ে ভুক্তভোগী কৃষকরা গণমাধ্যমে বলছেন, বিষ দেন না হলে জমি থেকে পানি নিষ্কাশন করে দেন। করোনাকালে দেশ দুনিয়া লকডাউন হয়ে থাকলে কৃষকসমাজ ছিল নির্ঘুম। মহামারী ও যুদ্ধের পাশাপাশি কৃষককে প্রতিদিন সামাল দিতে হয় করপোরেট কৃষি বাজারের নিয়ন্ত্রণ, কৃষিজমি হ্রাস, দুর্যোগ ও জলবায়ু সংকট। এর ওপর যদি আবার জলাবদ্ধ বা পানিহীনতায় বিঘার পর বিঘা জমি বিনষ্ট হয় সেই ক্ষয়ক্ষতি কীভাবে সামাল দেয় গ্রামীণ কৃষক সমাজ?

বাঁধ দিয়ে কৃষিজমি বিপদাপন্নতার এই প্রসঙ্গটি নতুন নয়। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরের শ্যামনগর খালের মুখে মাটি ভরাট করে বাঁধ দিয়ে প্রায় ৩০০ হেক্টর কৃষিজমি বিনষ্ট করা হয়। এটা নিয়ে গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। জানা যায়, আখাউড়া পৌর শহর লাগোয়া সদর উপজেলার বরিশল ও শ্যামনগর মৌজায় অবস্থিত বুয়ালিয়া বিলের পানি শ্যামনগর খাল দিয়ে প্রবাহিত হয়ে তিতাস নদে মিশে। কিন্তু শ্যামনগর গ্রামের মো. হুমায়ুন কবির ভূঁইয়া খাসজমি লিজ নিয়ে খালের মুখে মাটি ভরাট করে বাঁধ দেয়ায় বর্ষাকালে জলাবদ্ধতা ও শুষ্ক মৌসুমে পানিহীনতা তৈরি হচ্ছে। বাংলাদেশে ত্রিশটি কৃষিপ্রতিবেশ অঞ্চলের ভেতর ‘আখাউড়া সোপান’ একটি বিশেষ বৈশিষ্ট্যময় কৃষিপ্রতিবেশ অঞ্চল। এমনকি এখানে হাওর প্রতিবেশগত বৈশিষ্ট্যও বিদ্যমান। প্রভাবশালীদের বাঁধ-বাহাদুরি বা উন্নয়নের নামে এভাবে একের পর এক কৃষিজমি বিপন্ন হলে তিতাস অববাহিকার এই বিশেষ কৃষিপ্রতিবেশ অঞ্চলের বৈশিষ্ট্য ও রূপ অচিরেই বদলে যাবে। যার দীর্ঘমেয়াদি পরিবেশগত, স্বাস্থ্যগত ও অর্থনৈতিক বিরূপ প্রভাব পড়বে জনপরিসরে।

রাষ্ট্রীয় পরিসংখ্যান বলছে দেশে প্রতি বছর এক শতাংশ হারে কমছে কৃষিজমি। কিন্তু কৃষিজমি সুরক্ষায় রাষ্ট্রীয় উদ্যোগ ও তৎপরতা কতখানি? চরনারায়ণপুর মৌজার ৫০০ বিঘা কৃষিজমির নিরাপত্তা কেন দেয়া সম্ভব হচ্ছে না? এ বিষয়ে নীতি, নথি ও কাঠামো আছে। তাহলে সমস্যা কোথায়? মনোজগতে নাকি রাজনৈতিক অঙ্গীকারে? নাকি দায়িত্বশীলতা ও জবাবদিহিতার অভাব? আমরা এখন কিছু আইন ও নীতি ঘেঁটে দেখব। দেশে একটি প্রস্তাবিত ‘কৃষিজমি সুরক্ষা আইন ২০২১’ আছে। আইনটি উল্লেখ করেছে, বাংলাদেশের যে স্থানে কৃষি জমি রহিয়াছে, তাহা এই আইনের মাধ্যমে সুরক্ষা করিতে হইবে এবং কোনভাবেই তাহার ব্যবহারভিত্তিক শ্রেণি পরিবর্তন করা যাইবে না। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চরনারায়ণপুর মৌজার কৃষিজমির শ্রেণি পরিবর্তন করা হয়েছে, কারণ খালের মুখে মাটি ভরাট করে জমিতে প্রাকৃতিক পানিপ্রবাহ ও নিষ্কাশন বাধাগ্রস্ত করা হয়েছে। এলাকাটির কৃষিজমির শ্রেণীর রূপ এবং এই রূপ উন্নয়নের ফলে কিভাবে বদলে যায় বিষয়টি বোঝার জন্য আমরা ‘জাতীয় পানি নীতি’ পাঠ করতে পারি।

জাতীয় পানি নীতি (১৯৯৯) এর ৪.১৩ নং অনুচ্ছেদে উল্লেখ আছে, ‘...হাওড়, বাওড় ও বিল জাতীয় জলাভূমিগুলো বাংলাদেশের আঞ্চলিক বৈশিষ্ট্যর ধারক এবং এক অনন্য প্রাকৃতিক সম্পদ। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ছাড়াও অর্থনৈতিক এবং পরিবেশগত দিক থেকে এগুলির গুরুত্ব অসীম। হাওড় এবং বাওড়গুলিতে শুষ্ক মওসুমেও যথেষ্ট গভীরতায় পানি থাকে তবে ছোট বিলগুলি সাধারনত: চূড়ান্ত পর্যায়ে আর্দ্রভূমিতে পরিণত হয়। এই বিলগুলি প্লাবনভূমির নিম্নতম অংশ। এই জলাশয়গুলো আমাদের প্রাকৃতিক মৎস্য-সম্পদের সিংহভাগের উৎস এবং নানা ধরণের জলজ সবজি ও পাখীর আবাসস্থল। তাছাড়াও শীত মওসুমে উত্তর গোলার্ধ থেকে আগত অতিথি পাখীদের নির্ভরযোগ্য আশ্রয়। হাওড় এবং বিলগুলো খালের মাধ্যমে নদীর সাথে সংযুক্ত। অতীতে প্রকৌশলগত হস্তক্ষেপের মাধ্যমে অনেক বিলকে তাৎক্ষণিক ফসল লাভের জন্য নিষ্কাাশিত আবাদী জমিতে পরিনত করা হয়েছে। কিন্তু কিছুদিন পরেই এর বিরূপ প্রতিক্রিয়া প্রকট আকার ধারণ করে। প্রথমেই মাছ এবং গ্রামীণ জনগণের খাদ্যের উৎস কচু, শাপলা, কলমী জাতীয় জলজ সবজীর বিলুপ্তি ঘটে। বর্ষা মওসুমে প্লাবনভূমির বর্জ্য প্রবাহমান খালের মাধ্যমে বাহিত ও শোধিত হয়ে নিষ্কাশিত হত। কিন্তু নিয়ন্ত্রিত অবস্থায় সেই প্রাকৃতিক শোধনক্রিয়া ব্যাহত হয়ে পরিবেশের মারাত্মক সংকট সৃষ্টি করেছে।’

চরনারায়ণপুর মৌজায় এটিই ঘটছে। বর্ষায় কৃষিজমি তেকে পানি সরতে পারছে না এবং শুষ্ক মৌসুমে জমিগুলো পানি পাচ্ছে না। কারণ জমি ও নদীর সঙ্গে সংযোগকারী খাল বন্ধ করে রাখা হয়েছে। আশা করবো রাষ্ট্র ভুক্তভোগী কৃষক ও কৃষিজমির আহাজারি শুনবে। স্থানীয় সরকার ও প্রশাসন খালের বাঁধামুক্ত করে চরনারায়ণপুরসহ তিতাস অববাহিকার সবাই কৃষিজমির সুরক্ষা ও ন্যায়বিচার নিশ্চিত করবে।

[লেখক: গবেষক]

ছবি

ইতিহাসের এক অবিস্মরণীয় নাম

বৈসাবি : ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর বর্ষবরণ উৎসব

‘ইন্ডিয়া আউট’ ক্যাম্পেইন

উদার-উদ্দাম বৈশাখ চাই

ঈদ নিয়ে আসুক শান্তি ও সমৃদ্ধি, বিস্তৃত হোক সম্প্রীতি ও সৌহার্দ

প্রসঙ্গ: বিদেশি ঋণ

ছাত্ররাজনীতি কি খারাপ?

জাকাত : বিশ্বের প্রথম সামাজিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা

বাংলাদেশ স্কাউটস দিবস : শুরুর কথা

ছবি

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দৃষ্টান্ত

প্রবাসীর ঈদ-ভাবনা

বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস

ধানের ফলন বাড়াতে ক্লাইমেট স্মার্ট গুটি ইউরিয়া প্রযুক্তি

কমিশন কিংবা ভিজিটে জমি রেজিস্ট্রির আইনি বিধান ও প্রাসঙ্গিকতা

ছবি

ঈদের অর্থনীতি

পশ্চিমবঙ্গে ভোটের রাজনীতিতে ‘পোস্ট পার্টিশন সিনড্রম’

শিক্ষকের বঞ্চনা, শিক্ষকের বেদনা

নিরাপদ সড়ক কেন চাই

রম্যগদ্য : ‘প্রহরীর সাতশ কোটি টাকা...’

ছবি

অবন্তিকাদের আত্মহনন

শিক্ষাবিষয়ক ভাবনা

অপ্রয়োজনে সিজারিয়ান নয়

পণ্য রপ্তানিতে বৈচিত্র্য আনতে হবে

আত্মহত্যা রোধে নৈতিক শিক্ষা

আউশ ধান : পরিবেশ ও কৃষকবান্ধব ফসল

ছবি

বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস

জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের আতুড়ঘর

চেক ডিজঅনার মামলার অধিক্ষেত্র ও প্রাসঙ্গিকতা

বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তন ও বাংলাদেশের কৃষি

ছবি

‘হৃৎ কলমের’ পাখি এবং আমাদের জেগে ওঠা

ছবি

ভূগর্ভস্থ পানি সুরক্ষায় বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ

প্রসঙ্গ : নিত্যপণ্যের দাম

ছবি

টঙ্ক আন্দোলনের কুমুদিনী হাজং

ঢাকাকে বাসযোগ্য করতে চাই বিকেন্দ্রীকরণ

দূষণমুক্ত পানির বিকল্প নাই

রম্যগদ্য : ‘দুনিয়ার বাঙালি এক হও”

tab

উপ-সম্পাদকীয়

তিতাস অববাহিকার বিপন্ন কৃষিজমিন

পাভেল পার্থ

image

বহুদিন ধরে তিতাস অববাহিকার নানা জায়গায় মাটি ভরাট করে বাঁধ দিয়ে প্রাকৃতিক পানি প্রবাহ ও নিষ্কাশন ব্যবস্থাকে বিনষ্ট করে কৃষিজমির ক্ষতি করা হচ্ছে

বৃহস্পতিবার, ২৩ মার্চ ২০২৩

তিতাস বাংলাদেশের প্রাকৃতিক ও সাংস্কৃতিক ইতিহাসের এক অনন্য সঙ্গী। আমাদের বহু স্মৃতিময় আখ্যান ও জল-রোমন্থন জড়িয়ে আছে তিতাসের সঙ্গে। তিতাসপাড়ের জেলেজীবন নিয়ে অদ্বৈত মল্ল বর্মণ লিখেন ‘তিতাস একটি নদীর নাম’। পরবর্তীতে ঋত্বিক ঘটক নির্মাণ করেন যুগান্তকারী চলচ্চিত্র। তিতাস এক আন্তঃরাষ্ট্রিক নদ। উত্তর-পূর্ব ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের পাহাড় থেকে জন্ম নিয়ে এই নদ ত্রিপুরায় ককবরক ভাষায় সাইদ্রা ও বাংলায় হাওড়া নামে প্রবাহিত। বাংলাদেশের ছয় ভাগের এক ভাগ হলো হাওর। সাতটি প্রশাসনিক জেলার ভেতর ব্রাহ্মণবাড়িয়াও হাওরাঞ্চল। এখানকার বিশাল অঞ্চলের কৃষিজমির বৈশিষ্ট্য হলো বর্ষাকালে বিস্তীর্ণ অঞ্চল তলিয়ে যাওয়া ও হেমন্তে আবার বিল ছাড়া বিশাল জমিন জেগে ওঠা। এখানকার কৃষিপ্রতিবেশের কৃষিজমিগুলোর সঙ্গে প্রচুর খালের সংযোগ আছে। আর এসব খাল দিয়েই বর্ষায় তিতাসে পানি প্রবাহিত হয়ে যায় এবং হেমন্তে খালের পানি কৃষিতে কাজে লাগে।

কিন্তু সবুজবিপ্লব পরবর্তী কৃষি উন্নয়ন তিতাস অববাহিকার এই কৃষিপ্রতিবেশ বৈশিষ্ট্যকে গুরুত্ব দেয়নি। বরং নানাভাবে উন্নয়ন অবকাঠামো ও নগরায়ণ সম্প্রসারণের নামে কৃষিজমির শৃঙ্খলা বিনষ্ট করা হয়েছে। বহু নালা, খাল, জলাভূমি ভরাট করা হয়েছে। পানিপ্রবাহের গতি ও ধারা নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে। কৃষি বাস্তুতন্ত্র হয়েছে চুরমার। উন্নয়নের নামে এসব ঘটলেও সামগ্রিকভাবে এটি দেশের জাতীয় খাদ্য নিরাপত্তাকে বারবার আঘাত করছে এবং প্রাণ-প্রতিবেশের ব্যাকরণকে বিশৃঙ্খল করে দিচ্ছে। বহুদিন ধরে তিতাস অববাহিকার নানা জায়গায় মাটি ভরাট করে বাঁধ দিয়ে প্রাকৃতিক পানি প্রবাহ ও নিষ্কাশন ব্যবস্থাকে বিনষ্ট করে কৃষিজমির ক্ষতি করা হচ্ছে। কৃষিজমি সুরক্ষায় আমরা জোরালো কোনো রাষ্ট্রীয় তৎপরতা দেখিনি। আশা করব তিতাস অববাহিকার বিশেষ কৃষিপ্রতিবেশ সুরক্ষায় রাষ্ট্র তৎপর হবে। প্রভাবশালীদের বাঁধ বাহাদুরি বা এলোপাতাড়ি উন্নয়নের চাবুক থেকে রক্তাক্ত কৃষিজমির ন্যায়বিচার নিশ্চিত করবে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ার মোগড়া ইউনিয়নের চরনারায়ণপুর মৌজায় প্রায় ৫০০ বিঘা জমিকে জবরদস্তি করে বিপন্ন করে তোলা হয়েছে। গণমাধ্যমসূত্র জানায়, মোগড়া ইউনিয়নের দরুইন গ্রামের মো. তাহের মিয়া ও মো. রাসেল মিয়া বছর পাঁচেক আগে এই বিলে কিছু জমি কেনেন। এরপর তারা একতরফাভাবে খালের পাশে এক বেড়িবাঁধ তৈরি করেন। যার ফলে হাওর থেকে তিতাস নদে পানি প্রবাহের ধারাটি বন্ধ হয়ে যায়। প্রাকৃতিক পানিপ্রবাহ বন্ধ হওয়ায় বেলুয়া বিলের জমিনগুলো বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধ ও হেমন্তে রুক্ষ পানিহীন হয়ে পড়ে। উভয় মৌসুমেই কৃষির উৎপাদন ব্যহত হচ্ছে। স্থানীয় কৃষকদের ভোগান্তি ও দুশ্চিন্তা বাড়ছে। দুই প্রভাবশালীর একতরফা এই বাহাদুরি সরাসরি জাতীয় খাদ্য নিরাপত্তাকেও বিপদে ফেলছে। বাঁধ সরিয়ে জমিগুলোকে বিপদমুক্ত করার জন্য ভূক্তভোগী কৃষকরা স্থানীয় সরকার ও স্থানীয় প্রশাসনকে বহুবার জানিয়েছে। কিন্তু কোনো ন্যায়বিচার নেই।

যে দেশে প্রতিদিন এক শতাংশ হারে জমি কমছে আর পাল্লা দিয়ে মানুষের উৎপাদন বাড়ছে সেই দেশে খাদ্য উৎপাদন বিনষ্ট করার এমন বাহাদুরি কীসের ইঙ্গিত? প্রধানমন্ত্রী নিজে চাষ করে দেখাচ্ছেন, দেশের প্রতি ইঞ্চি জায়গা ফেলে না রাখার ঘোষণা দিচ্ছেন। কিন্তু বেলুয়া বিলে কেন প্রশ্নহীনভাবে ৫০০ বিঘা কৃষিজমি সংকটে আছে? এই কৃষিজমি মুক্ত করার দায় ও দায়িত্ব কার? খাদ্য উৎপাদনে কৃষকের পাশে দাঁড়াবার দায়িত্ব কার? কৃষিবিভাগ, পানি উন্নয়ন বোর্ড, হাওর ও জলাভূমি উন্নয়ন বোর্ড, স্থানীয় প্রশাসন, স্থানীয় সরকার কিংবা স্থানীয় জনপ্রতিনিধি কী করছেন? কেন ৫০০ বিঘা কৃষিজমির সুরক্ষায় দাঁড়াতে পারছেন না? বিশেষ করে মহামারী ও যুদ্ধ সংকটে প্রতিদিন নেতিয়ে পড়া এক মুমূর্ষু দুনিয়ায় যখন কৃষিজ খাদ্য উৎপাদন নানাভাবে রক্তাক্ত, সেখানে কয়েকজন প্রভাবশালীর কারণে দেশের জমি বিনষ্ট হবে তা কেন মেনে নেয়া হচ্ছে? প্রতিকার না পেয়ে ভুক্তভোগী কৃষকরা গণমাধ্যমে বলছেন, বিষ দেন না হলে জমি থেকে পানি নিষ্কাশন করে দেন। করোনাকালে দেশ দুনিয়া লকডাউন হয়ে থাকলে কৃষকসমাজ ছিল নির্ঘুম। মহামারী ও যুদ্ধের পাশাপাশি কৃষককে প্রতিদিন সামাল দিতে হয় করপোরেট কৃষি বাজারের নিয়ন্ত্রণ, কৃষিজমি হ্রাস, দুর্যোগ ও জলবায়ু সংকট। এর ওপর যদি আবার জলাবদ্ধ বা পানিহীনতায় বিঘার পর বিঘা জমি বিনষ্ট হয় সেই ক্ষয়ক্ষতি কীভাবে সামাল দেয় গ্রামীণ কৃষক সমাজ?

বাঁধ দিয়ে কৃষিজমি বিপদাপন্নতার এই প্রসঙ্গটি নতুন নয়। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরের শ্যামনগর খালের মুখে মাটি ভরাট করে বাঁধ দিয়ে প্রায় ৩০০ হেক্টর কৃষিজমি বিনষ্ট করা হয়। এটা নিয়ে গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। জানা যায়, আখাউড়া পৌর শহর লাগোয়া সদর উপজেলার বরিশল ও শ্যামনগর মৌজায় অবস্থিত বুয়ালিয়া বিলের পানি শ্যামনগর খাল দিয়ে প্রবাহিত হয়ে তিতাস নদে মিশে। কিন্তু শ্যামনগর গ্রামের মো. হুমায়ুন কবির ভূঁইয়া খাসজমি লিজ নিয়ে খালের মুখে মাটি ভরাট করে বাঁধ দেয়ায় বর্ষাকালে জলাবদ্ধতা ও শুষ্ক মৌসুমে পানিহীনতা তৈরি হচ্ছে। বাংলাদেশে ত্রিশটি কৃষিপ্রতিবেশ অঞ্চলের ভেতর ‘আখাউড়া সোপান’ একটি বিশেষ বৈশিষ্ট্যময় কৃষিপ্রতিবেশ অঞ্চল। এমনকি এখানে হাওর প্রতিবেশগত বৈশিষ্ট্যও বিদ্যমান। প্রভাবশালীদের বাঁধ-বাহাদুরি বা উন্নয়নের নামে এভাবে একের পর এক কৃষিজমি বিপন্ন হলে তিতাস অববাহিকার এই বিশেষ কৃষিপ্রতিবেশ অঞ্চলের বৈশিষ্ট্য ও রূপ অচিরেই বদলে যাবে। যার দীর্ঘমেয়াদি পরিবেশগত, স্বাস্থ্যগত ও অর্থনৈতিক বিরূপ প্রভাব পড়বে জনপরিসরে।

রাষ্ট্রীয় পরিসংখ্যান বলছে দেশে প্রতি বছর এক শতাংশ হারে কমছে কৃষিজমি। কিন্তু কৃষিজমি সুরক্ষায় রাষ্ট্রীয় উদ্যোগ ও তৎপরতা কতখানি? চরনারায়ণপুর মৌজার ৫০০ বিঘা কৃষিজমির নিরাপত্তা কেন দেয়া সম্ভব হচ্ছে না? এ বিষয়ে নীতি, নথি ও কাঠামো আছে। তাহলে সমস্যা কোথায়? মনোজগতে নাকি রাজনৈতিক অঙ্গীকারে? নাকি দায়িত্বশীলতা ও জবাবদিহিতার অভাব? আমরা এখন কিছু আইন ও নীতি ঘেঁটে দেখব। দেশে একটি প্রস্তাবিত ‘কৃষিজমি সুরক্ষা আইন ২০২১’ আছে। আইনটি উল্লেখ করেছে, বাংলাদেশের যে স্থানে কৃষি জমি রহিয়াছে, তাহা এই আইনের মাধ্যমে সুরক্ষা করিতে হইবে এবং কোনভাবেই তাহার ব্যবহারভিত্তিক শ্রেণি পরিবর্তন করা যাইবে না। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চরনারায়ণপুর মৌজার কৃষিজমির শ্রেণি পরিবর্তন করা হয়েছে, কারণ খালের মুখে মাটি ভরাট করে জমিতে প্রাকৃতিক পানিপ্রবাহ ও নিষ্কাশন বাধাগ্রস্ত করা হয়েছে। এলাকাটির কৃষিজমির শ্রেণীর রূপ এবং এই রূপ উন্নয়নের ফলে কিভাবে বদলে যায় বিষয়টি বোঝার জন্য আমরা ‘জাতীয় পানি নীতি’ পাঠ করতে পারি।

জাতীয় পানি নীতি (১৯৯৯) এর ৪.১৩ নং অনুচ্ছেদে উল্লেখ আছে, ‘...হাওড়, বাওড় ও বিল জাতীয় জলাভূমিগুলো বাংলাদেশের আঞ্চলিক বৈশিষ্ট্যর ধারক এবং এক অনন্য প্রাকৃতিক সম্পদ। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ছাড়াও অর্থনৈতিক এবং পরিবেশগত দিক থেকে এগুলির গুরুত্ব অসীম। হাওড় এবং বাওড়গুলিতে শুষ্ক মওসুমেও যথেষ্ট গভীরতায় পানি থাকে তবে ছোট বিলগুলি সাধারনত: চূড়ান্ত পর্যায়ে আর্দ্রভূমিতে পরিণত হয়। এই বিলগুলি প্লাবনভূমির নিম্নতম অংশ। এই জলাশয়গুলো আমাদের প্রাকৃতিক মৎস্য-সম্পদের সিংহভাগের উৎস এবং নানা ধরণের জলজ সবজি ও পাখীর আবাসস্থল। তাছাড়াও শীত মওসুমে উত্তর গোলার্ধ থেকে আগত অতিথি পাখীদের নির্ভরযোগ্য আশ্রয়। হাওড় এবং বিলগুলো খালের মাধ্যমে নদীর সাথে সংযুক্ত। অতীতে প্রকৌশলগত হস্তক্ষেপের মাধ্যমে অনেক বিলকে তাৎক্ষণিক ফসল লাভের জন্য নিষ্কাাশিত আবাদী জমিতে পরিনত করা হয়েছে। কিন্তু কিছুদিন পরেই এর বিরূপ প্রতিক্রিয়া প্রকট আকার ধারণ করে। প্রথমেই মাছ এবং গ্রামীণ জনগণের খাদ্যের উৎস কচু, শাপলা, কলমী জাতীয় জলজ সবজীর বিলুপ্তি ঘটে। বর্ষা মওসুমে প্লাবনভূমির বর্জ্য প্রবাহমান খালের মাধ্যমে বাহিত ও শোধিত হয়ে নিষ্কাশিত হত। কিন্তু নিয়ন্ত্রিত অবস্থায় সেই প্রাকৃতিক শোধনক্রিয়া ব্যাহত হয়ে পরিবেশের মারাত্মক সংকট সৃষ্টি করেছে।’

চরনারায়ণপুর মৌজায় এটিই ঘটছে। বর্ষায় কৃষিজমি তেকে পানি সরতে পারছে না এবং শুষ্ক মৌসুমে জমিগুলো পানি পাচ্ছে না। কারণ জমি ও নদীর সঙ্গে সংযোগকারী খাল বন্ধ করে রাখা হয়েছে। আশা করবো রাষ্ট্র ভুক্তভোগী কৃষক ও কৃষিজমির আহাজারি শুনবে। স্থানীয় সরকার ও প্রশাসন খালের বাঁধামুক্ত করে চরনারায়ণপুরসহ তিতাস অববাহিকার সবাই কৃষিজমির সুরক্ষা ও ন্যায়বিচার নিশ্চিত করবে।

[লেখক: গবেষক]

back to top