alt

সম্পাদকীয়

করোনাকালের বিষণ্ণতা: চাই সচেতনতা

: রোববার, ১১ জুলাই ২০২১

করোনাকালে দেশের ৬১ শতাংশ তরুণ বিষণ্ণতায় ভুগছে। তাদের মধ্যে ৫০ দশমিক ১ শতাংশই আত্মহত্যা করার কথা ভেবেছে। আঁচল ফাউন্ডেশন নামক একটি সংগঠনের ‘আত্মহত্যা ও মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে তরুণদের ভাবনা’ শীর্ষক এক জরিপ প্রতিবেদনের ফলাফলে এ তথ্য উঠে এসেছে। চলতি বছরের ১ থেকে ১৫ জুন অনলাইনের মাধ্যমে চালানো এ জরিপে ১৮-৩৫ বছর বয়সী দুই হাজারেরও বেশি তরুণ-তরুণী অংশ নেয়।

তরুণ-তরুণীদের বিষণ্ণতার জন্য কোন একক কারণ দায়ী নয়। নানা কারণেই তারা বিষণ্ণ হয়ে পড়তে পারে। মহামারীকালে করোনা তাদের বিষণ্ণতার অন্যতম কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। করোনার কারণে দীর্ঘদিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। দেশের অধিকাংশ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে অনির্ধারিত সেশনজটে পড়েছে শিক্ষার্থীরা। ফলে তাদের অনেকেই ক্যরিয়ার নিয়ে হতাশ হয়ে পড়েছে এবং কাজে মনযোগ হারিয়েছে। কোন কাজ না থাকায় বা খন্ডকালীন কাজ হারিয়ে অনেকে পড়েছে আর্থিক সমস্যায়। আবার পরিবার থেকে বিয়ের চাপ দেয়া হচ্ছে কাউকে। তাছাড়া এ সময় মোবাইল ফোনের প্রতি অতিরিক্ত আসক্তিও মানসিক সমস্যার বড় একটি কারণ।

সমস্যা হচ্ছে বিষণ্ণতা থেকে বের হওয়ার পথই জানে না অনেক তরুণ-তরুণী। এমনকি তারা যে বিষণ্ণ এটাও বুঝে উঠতে পারে না অনেক সময়। বিষণ্ণতা এক ধরনের মানসিক অসুস্থতা, এটার চিকিৎসা না করালে যে কেউ নিজেদের শারীরিক ক্ষতিসহ আত্মহত্যার পথ বেছে নিতে পারে, সে সম্পর্কেও খুব কম মানুষের স্বচ্ছ ধারণা আছে। জরিপের তথ্যানুযায়ী, মানসিক চাপে পড়ে ২৯ দশমিক ২ শতাংশ তরুণ-তরুণী শারীরিক বা অন্যান্য উপায়ে নিজেদের ক্ষতি করেছে। মনরোগ বিশেষজ্ঞদের পরামর্শের মাধ্যমে এ ধরনের মানসিক রোগ থেকে সুস্থ হওয়া সম্ভব হলেও মাত্র সাড়ে আট শতাংশ চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়।

শারীরিক সুস্থতার পাশাপাশি মনেরও সুস্থতার প্রয়োজন আছে। একটু সচেতন হলে বিষণ্ণতার মতো মানসিক রোগকে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়। তখন চিকিৎসার পথটাও সহজ হয়। মানসিক সুস্থতার জন্য ব্যক্তিকেন্দ্রিক সচেতনতা অত্যন্ত জরুরি। জরিপকারী প্রতিষ্ঠান যে সুপারিশ করছে সেখানেও বিষয়টি উঠে এসেছে। সচেতনতা সৃষ্টির জন্য সরকারি-বেসরকারি পর্যায় সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে কাজ করতে হবে। পরিবারের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করা সবচেয়ে জরুরি। তরুণ-তরুণীর মানসিক স্বাস্থ্য সম্পর্কে অভিভাবকদের সচেতন থাকতে হবে। বিষণ্ণতা যে একটি মানসিক রোগ এবং এই রোগের কারণে তরুণ-তরুণীরা আত্মহত্যার মতো ধ্বংসাত্মক পথও বেছে নিতে পারে সে বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সচেতন হতে হবে, যেহেতু বিষণ্ণতায় ভোগা তরুণ-তরুণীদের অধিকাংশই শিক্ষার্থী। তাই তাদের গঠনমূলক কাজে উৎসাহ ও সুযোগ দিতে হবে।

দেশে মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যার তুলনায় হাসপাতাল ও চিকিৎসক খুবই কম। তাছাড়া হাসপাতালগুলো রাজধানী বা বড় শহরকেন্দ্রিক। মানসিক চিকিৎসা হাসপাতালের সংখ্যা বাড়াতে হবে। সব শহরে বিশেষ করে, সরকারি-বেসরকারি প্রত্যেকটি হাসপাতালে মানসিক চিকিৎসার জন্য স্বতন্ত্র বিভাগ চালু করা যায় কিনা সেটা বিবেচনা করে দেখতে হবে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, করোনার প্রভাব বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের ওপর ভিন্ন ভিন্নভাবে পড়ছে। করোনা মহামারী শুধু তরুণদের নয়- চিকিৎসক, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী, রাজনীতিক, বিচারক, রিকশাচালক, দিনমজুর, গৃহিণী, শিক্ষকসহ সব পেশা-শ্রেণীর মানুষের ওপর গভীর মানসিক চাপ তৈরি করেছে। জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তেনিও গুতেরেসের মতে, মানসিক স্বাস্থ্যের সুরক্ষা, উন্নতি ও যত্নে গোটা সমাজকে যুক্ত করতে হবে। মানসিক স্বাস্থ্যের জরুরি চিকিৎসার ব্যবস্থা থাকতে হবে। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা মানসিক খাতে বরাদ্দ বাড়াতে বলেছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে এদিকে বিশেষ দৃষ্টি দিতে হবে।

সড়ক ও সেতু দুটির নির্মাণকাজ সম্পন্ন করুন

গণটিকা : ব্যবস্থাপনা হতে হবে সুষ্ঠু

বিইআরসি’র ক্ষমতা খর্ব করা হচ্ছে কার স্বার্থে

শিক্ষার্থীদের করোনা সংক্রমণ নিয়ে আতঙ্ক নয়, সতর্ক থাকতে হবে

দশ টাকায় চাল বিক্রি কর্মসূচির পথে বাধা দূর করুন

কিন্ডারগার্টেনের অমানিশা

জনসাধারণের ব্যবহার উপযোগী পার্ক চাই

শিশুর পুষ্টির ঘাটতি মেটাতে হবে

কিশোর বাউল নির্যাতনের বিচার করে দৃষ্টান্ত তৈরি করুন

করোনার টিকা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান প্রসঙ্গে

মেয়াদের আগেই বিআরটিসির বাসের আয়ু ফুরায় কেন

সাগর-রুনি হত্যার তদন্ত : সক্ষমতা না থাকলে সেটা বলা হোক

নকল ও ভেজাল ওষুধ : আইনের কঠোর প্রয়োগই কাম্য

ইউপি নির্বাচন প্রসঙ্গে

কক্সবাজার সৈকতে পর্যটকদের মৃত্যু প্রসঙ্গে

ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার স্থাপনে উদ্যোগ নিন

বিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থীদের ডেঙ্গু থেকে রক্ষা করতে হবে

যানজট নিরসনে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

সব শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ে ফেরাতে হবে

ভোলায় সাম্প্রদায়িক অপপ্রচার : সতর্ক থাকতে হবে

নিউমোনিয়া থেকে শিশুদের বাঁচাতে চাই সচেতনতা

যে কোন মূল্যে বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে হবে

মহাসড়কে ধীরগতির যান চলাচল বন্ধ করুন

ট্যানারির বর্জ্যে বিপন্ন ধলেশ্বরী

চাঁদাবাজির দুষ্টচক্র থেকে পরিবহন খাতকে মুক্তি দিন

বিমানবন্দরে দ্রুত কোভিড টেস্টের ব্যবস্থা করুন

বাক্সবন্দী রোগ নির্ণয় যন্ত্র

জাতীয় শিক্ষাক্রমে পরিবর্তন

রোহিঙ্গাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট, এখনই ব্যবস্থা নিন

খুলেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্যবিধি যেন মেনে চলা হয়

বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ লাইন উন্নয়নের কাজ ত্বরান্বিত করুন

ধান সংগ্রহে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা যাচ্ছে না কেন

বাঁশখালীর বাঁশের সেতু সংস্কার করুন

ঝুমন দাশের মুক্তি কোন পথে

দুস্থদের ভাতা আত্মসাৎ, দ্রুত ব্যবস্থা নিন

খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, চালু রাখতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে দায়িত্বশীল হতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

করোনাকালের বিষণ্ণতা: চাই সচেতনতা

রোববার, ১১ জুলাই ২০২১

করোনাকালে দেশের ৬১ শতাংশ তরুণ বিষণ্ণতায় ভুগছে। তাদের মধ্যে ৫০ দশমিক ১ শতাংশই আত্মহত্যা করার কথা ভেবেছে। আঁচল ফাউন্ডেশন নামক একটি সংগঠনের ‘আত্মহত্যা ও মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে তরুণদের ভাবনা’ শীর্ষক এক জরিপ প্রতিবেদনের ফলাফলে এ তথ্য উঠে এসেছে। চলতি বছরের ১ থেকে ১৫ জুন অনলাইনের মাধ্যমে চালানো এ জরিপে ১৮-৩৫ বছর বয়সী দুই হাজারেরও বেশি তরুণ-তরুণী অংশ নেয়।

তরুণ-তরুণীদের বিষণ্ণতার জন্য কোন একক কারণ দায়ী নয়। নানা কারণেই তারা বিষণ্ণ হয়ে পড়তে পারে। মহামারীকালে করোনা তাদের বিষণ্ণতার অন্যতম কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। করোনার কারণে দীর্ঘদিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। দেশের অধিকাংশ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে অনির্ধারিত সেশনজটে পড়েছে শিক্ষার্থীরা। ফলে তাদের অনেকেই ক্যরিয়ার নিয়ে হতাশ হয়ে পড়েছে এবং কাজে মনযোগ হারিয়েছে। কোন কাজ না থাকায় বা খন্ডকালীন কাজ হারিয়ে অনেকে পড়েছে আর্থিক সমস্যায়। আবার পরিবার থেকে বিয়ের চাপ দেয়া হচ্ছে কাউকে। তাছাড়া এ সময় মোবাইল ফোনের প্রতি অতিরিক্ত আসক্তিও মানসিক সমস্যার বড় একটি কারণ।

সমস্যা হচ্ছে বিষণ্ণতা থেকে বের হওয়ার পথই জানে না অনেক তরুণ-তরুণী। এমনকি তারা যে বিষণ্ণ এটাও বুঝে উঠতে পারে না অনেক সময়। বিষণ্ণতা এক ধরনের মানসিক অসুস্থতা, এটার চিকিৎসা না করালে যে কেউ নিজেদের শারীরিক ক্ষতিসহ আত্মহত্যার পথ বেছে নিতে পারে, সে সম্পর্কেও খুব কম মানুষের স্বচ্ছ ধারণা আছে। জরিপের তথ্যানুযায়ী, মানসিক চাপে পড়ে ২৯ দশমিক ২ শতাংশ তরুণ-তরুণী শারীরিক বা অন্যান্য উপায়ে নিজেদের ক্ষতি করেছে। মনরোগ বিশেষজ্ঞদের পরামর্শের মাধ্যমে এ ধরনের মানসিক রোগ থেকে সুস্থ হওয়া সম্ভব হলেও মাত্র সাড়ে আট শতাংশ চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়।

শারীরিক সুস্থতার পাশাপাশি মনেরও সুস্থতার প্রয়োজন আছে। একটু সচেতন হলে বিষণ্ণতার মতো মানসিক রোগকে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়। তখন চিকিৎসার পথটাও সহজ হয়। মানসিক সুস্থতার জন্য ব্যক্তিকেন্দ্রিক সচেতনতা অত্যন্ত জরুরি। জরিপকারী প্রতিষ্ঠান যে সুপারিশ করছে সেখানেও বিষয়টি উঠে এসেছে। সচেতনতা সৃষ্টির জন্য সরকারি-বেসরকারি পর্যায় সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে কাজ করতে হবে। পরিবারের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করা সবচেয়ে জরুরি। তরুণ-তরুণীর মানসিক স্বাস্থ্য সম্পর্কে অভিভাবকদের সচেতন থাকতে হবে। বিষণ্ণতা যে একটি মানসিক রোগ এবং এই রোগের কারণে তরুণ-তরুণীরা আত্মহত্যার মতো ধ্বংসাত্মক পথও বেছে নিতে পারে সে বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সচেতন হতে হবে, যেহেতু বিষণ্ণতায় ভোগা তরুণ-তরুণীদের অধিকাংশই শিক্ষার্থী। তাই তাদের গঠনমূলক কাজে উৎসাহ ও সুযোগ দিতে হবে।

দেশে মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যার তুলনায় হাসপাতাল ও চিকিৎসক খুবই কম। তাছাড়া হাসপাতালগুলো রাজধানী বা বড় শহরকেন্দ্রিক। মানসিক চিকিৎসা হাসপাতালের সংখ্যা বাড়াতে হবে। সব শহরে বিশেষ করে, সরকারি-বেসরকারি প্রত্যেকটি হাসপাতালে মানসিক চিকিৎসার জন্য স্বতন্ত্র বিভাগ চালু করা যায় কিনা সেটা বিবেচনা করে দেখতে হবে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, করোনার প্রভাব বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের ওপর ভিন্ন ভিন্নভাবে পড়ছে। করোনা মহামারী শুধু তরুণদের নয়- চিকিৎসক, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী, রাজনীতিক, বিচারক, রিকশাচালক, দিনমজুর, গৃহিণী, শিক্ষকসহ সব পেশা-শ্রেণীর মানুষের ওপর গভীর মানসিক চাপ তৈরি করেছে। জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তেনিও গুতেরেসের মতে, মানসিক স্বাস্থ্যের সুরক্ষা, উন্নতি ও যত্নে গোটা সমাজকে যুক্ত করতে হবে। মানসিক স্বাস্থ্যের জরুরি চিকিৎসার ব্যবস্থা থাকতে হবে। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা মানসিক খাতে বরাদ্দ বাড়াতে বলেছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে এদিকে বিশেষ দৃষ্টি দিতে হবে।

back to top