alt

সম্পাদকীয়

শিল্পকারখানা খোলার ঝুঁকি মোকাবিলায় প্রস্তুতি কী

: শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১

নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় দেশে নভেল করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার হার ৩০-এর আশপাশে। গত এক সপ্তাহ ধরে কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিনই মারা গেছে দুইশ’র বেশি মানুষ। সংক্রমণ যে হারে বাড়ছে তাতে পরিস্থিতি কিভাবে সামলানো হবে সেটা নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর চিন্তিত। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধের লক্ষ্যে চলমান বিধিনিষেধ ৫ আগস্টের পরও আরও ১০ দিন বাড়ানোর সুপারিশ করেছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর একদিকে বিধিনিষেধ বাড়ানোর সুপারিশ করেছে অন্যদিকে সরকার ১ আগস্ট থেকে গার্মেন্টসহ দেশের রপ্তানিমুখী শিল্পকলকারখানা খোলার সিদ্ধান্ত জানিয়েছে।

২৩ জুলাই থেকে শুরু হওয়া ১৪ দিনের কঠোরতম বিধিনিষেধে চামড়া, ওষুধ, খাদ্য প্রক্রিয়াজাত শিল্প ছাড়া সব ধরনের শিল্পকারখানা বন্ধ রাখার কথা বলা হয়েছে এতদিন। গত মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সভাপতিত্বে সরকারের উচ্চপর্যায়ের এক সভায়ও এমন সিদ্ধান্ত হয় যে, ৫ আগস্ট পর্যন্ত পোশাকসহ অন্যান্য শিল্পকারখানা বন্ধ থাকবে। অথচ বিধিনিষেধ শেষ হওয়ার আগেই খুলে দেয়া হচ্ছে রপ্তানিমুখী সব শিল্পকারখানা।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতির মধ্যে সরকার শিল্পকারখানা খোলার সিদ্ধান্ত নিল। শিল্পকারখানা আর দু-চার দিন বন্ধ থাকলে অর্থনীতির কি ক্ষতি হতো তার সুস্পষ্ট কোন পরিসংখ্যান কি সরকারের কাছে আছে। প্রশ্ন হচ্ছে, কিসের ভিত্তিতে শ্রমঘন শিল্পকারখানা খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এসব শিল্পকারখানায় কর্মরত সবার কি করোনার টিকা দেয়া হয়েছে। এমন কোন নিশ্চয়তা কি মিলেছে যে, কারখানায় কর্মরতদের করোনার সংক্রমণ ঘটবে না বা তাদের মাধ্যমে করোনার সংক্রমণ ছড়াবে না।

শ্রমিকদের বড় একটি অংশই রয়ে গেছে টিকা কর্মসূচির আওতায় বাইরে। কারখানা খোলার কথা জানার পর শ্রমিকদের কর্মস্থলমুখী স্রোতে স্বাস্থ্যবিধি চরমভাবে উপেক্ষিত হচ্ছে। এর ফলে কারখানা খোলার আগেই করোনার সংক্রমণ আরও ছড়িয়ে পড়ার প্রবল আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

একদিকে লকডাউন চলছে, গণপরিবহন বন্ধ অন্যদিকে শিল্পকলকারখানা খুলে দেয়া হচ্ছে। অতীতেও একই ধরনের ভ্রান্তিতে সরকারকে ঘুরপাক খেতে দেখা গেছে। শিল্পকলকারখানা খুললে শ্রমিকরা গ্রাম থেকে কর্মস্থলে ফিরবেন কিভাবে সেটা এবারও ভেবে দেখা হয়নি। আকস্মিকভাবে একেকটি ঘোষণা দিয়ে পথে পথে ভিড় তৈরি করা হচ্ছে, স্বাস্থ্যবিধি সেখানেই ভেঙে পড়ছে। সাধারণ মানুষের যাতায়াতের অবর্ণনীয় কষ্ট আর অর্থের শ্রাদ্ধ তো আছেই।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনার সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি প্রতিরোধ করতে হলে অন্তত দুই সপ্তাহের কঠোর লকডাউন মানতে হবে। তাহলে করোনা বিস্তারের চেইনটি ভাঙা সম্ভব হয়। লকডাউন দেয়ার পর দুই সপ্তাহ পার হওয়ার আগেই কলকারখানা খুলে দেয়ায় করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি আরও বাড়াবে। গণহারে টিকা দিয়ে, কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনেও উন্নত অনেক দেশের পক্ষে করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধ করা কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। শিল্পকারখানা খোলার পর করোনার সংক্রমণ কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে এর ফলে উদ্ভূত পরিস্থিতি কিভাবে সামলানো হবে, এ বিষয়ে সরকারের পরিকল্পনা কী? করোনার সংক্রমণ আগামীতে আরও বাড়লে তার চাপ সামলানোর সক্ষমতা স্বাস্থ্য খাতের কি আছে? এসব প্রশ্নের উত্তর স্পষ্ট করে মানুষদের জানাতে হবে।

কক্সবাজার সৈকতে পর্যটকদের মৃত্যু প্রসঙ্গে

ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার স্থাপনে উদ্যোগ নিন

বিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থীদের ডেঙ্গু থেকে রক্ষা করতে হবে

যানজট নিরসনে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

সব শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ে ফেরাতে হবে

ভোলায় সাম্প্রদায়িক অপপ্রচার : সতর্ক থাকতে হবে

নিউমোনিয়া থেকে শিশুদের বাঁচাতে চাই সচেতনতা

যে কোন মূল্যে বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে হবে

মহাসড়কে ধীরগতির যান চলাচল বন্ধ করুন

ট্যানারির বর্জ্যে বিপন্ন ধলেশ্বরী

চাঁদাবাজির দুষ্টচক্র থেকে পরিবহন খাতকে মুক্তি দিন

বিমানবন্দরে দ্রুত কোভিড টেস্টের ব্যবস্থা করুন

বাক্সবন্দী রোগ নির্ণয় যন্ত্র

জাতীয় শিক্ষাক্রমে পরিবর্তন

রোহিঙ্গাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট, এখনই ব্যবস্থা নিন

খুলেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্যবিধি যেন মেনে চলা হয়

বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ লাইন উন্নয়নের কাজ ত্বরান্বিত করুন

ধান সংগ্রহে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা যাচ্ছে না কেন

বাঁশখালীর বাঁশের সেতু সংস্কার করুন

ঝুমন দাশের মুক্তি কোন পথে

দুস্থদের ভাতা আত্মসাৎ, দ্রুত ব্যবস্থা নিন

খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, চালু রাখতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে দায়িত্বশীল হতে হবে

আত্মহত্যা কোন সমাধান হতে পারে না

বৃত্তাকার নৌপথের সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে হবে

অস্ত্র চোরাচালানের মূল হোতাদের ধরুন

আয়হীন প্রান্তিক নারীদের আয়কর পরিশোধের নোটিশ

এইচএসসির ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা নেয়া হচ্ছে কেন

সীমান্তহত্যা বন্ধে ভারতকে প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে হবে

‘প্রকৃতির পরিচ্ছন্নতা কর্মীকে’ বাঁচাতে হবে

সিডও সনদের ধারা দুটির ওপর থেকে সংরক্ষণ তুলে নিন

মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্রটিতে লোকবল নিয়োগ দিন

কিশোর অপরাধ রুখতে চাই সম্মিলিত চেষ্টা

পানি শোধনাগারের সক্ষমতার পূর্ণাঙ্গ ব্যবহার নিশ্চিত করুন

বন্যাদুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

দূষণের ক্রনিক রোগে ধুঁকছে রাজধানী, ভুগছে মানুষ

সর্বগ্রাসী দুর্নীতির আরেক নমুনা

tab

সম্পাদকীয়

শিল্পকারখানা খোলার ঝুঁকি মোকাবিলায় প্রস্তুতি কী

শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১

নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় দেশে নভেল করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার হার ৩০-এর আশপাশে। গত এক সপ্তাহ ধরে কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিনই মারা গেছে দুইশ’র বেশি মানুষ। সংক্রমণ যে হারে বাড়ছে তাতে পরিস্থিতি কিভাবে সামলানো হবে সেটা নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর চিন্তিত। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধের লক্ষ্যে চলমান বিধিনিষেধ ৫ আগস্টের পরও আরও ১০ দিন বাড়ানোর সুপারিশ করেছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর একদিকে বিধিনিষেধ বাড়ানোর সুপারিশ করেছে অন্যদিকে সরকার ১ আগস্ট থেকে গার্মেন্টসহ দেশের রপ্তানিমুখী শিল্পকলকারখানা খোলার সিদ্ধান্ত জানিয়েছে।

২৩ জুলাই থেকে শুরু হওয়া ১৪ দিনের কঠোরতম বিধিনিষেধে চামড়া, ওষুধ, খাদ্য প্রক্রিয়াজাত শিল্প ছাড়া সব ধরনের শিল্পকারখানা বন্ধ রাখার কথা বলা হয়েছে এতদিন। গত মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সভাপতিত্বে সরকারের উচ্চপর্যায়ের এক সভায়ও এমন সিদ্ধান্ত হয় যে, ৫ আগস্ট পর্যন্ত পোশাকসহ অন্যান্য শিল্পকারখানা বন্ধ থাকবে। অথচ বিধিনিষেধ শেষ হওয়ার আগেই খুলে দেয়া হচ্ছে রপ্তানিমুখী সব শিল্পকারখানা।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতির মধ্যে সরকার শিল্পকারখানা খোলার সিদ্ধান্ত নিল। শিল্পকারখানা আর দু-চার দিন বন্ধ থাকলে অর্থনীতির কি ক্ষতি হতো তার সুস্পষ্ট কোন পরিসংখ্যান কি সরকারের কাছে আছে। প্রশ্ন হচ্ছে, কিসের ভিত্তিতে শ্রমঘন শিল্পকারখানা খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এসব শিল্পকারখানায় কর্মরত সবার কি করোনার টিকা দেয়া হয়েছে। এমন কোন নিশ্চয়তা কি মিলেছে যে, কারখানায় কর্মরতদের করোনার সংক্রমণ ঘটবে না বা তাদের মাধ্যমে করোনার সংক্রমণ ছড়াবে না।

শ্রমিকদের বড় একটি অংশই রয়ে গেছে টিকা কর্মসূচির আওতায় বাইরে। কারখানা খোলার কথা জানার পর শ্রমিকদের কর্মস্থলমুখী স্রোতে স্বাস্থ্যবিধি চরমভাবে উপেক্ষিত হচ্ছে। এর ফলে কারখানা খোলার আগেই করোনার সংক্রমণ আরও ছড়িয়ে পড়ার প্রবল আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

একদিকে লকডাউন চলছে, গণপরিবহন বন্ধ অন্যদিকে শিল্পকলকারখানা খুলে দেয়া হচ্ছে। অতীতেও একই ধরনের ভ্রান্তিতে সরকারকে ঘুরপাক খেতে দেখা গেছে। শিল্পকলকারখানা খুললে শ্রমিকরা গ্রাম থেকে কর্মস্থলে ফিরবেন কিভাবে সেটা এবারও ভেবে দেখা হয়নি। আকস্মিকভাবে একেকটি ঘোষণা দিয়ে পথে পথে ভিড় তৈরি করা হচ্ছে, স্বাস্থ্যবিধি সেখানেই ভেঙে পড়ছে। সাধারণ মানুষের যাতায়াতের অবর্ণনীয় কষ্ট আর অর্থের শ্রাদ্ধ তো আছেই।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনার সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি প্রতিরোধ করতে হলে অন্তত দুই সপ্তাহের কঠোর লকডাউন মানতে হবে। তাহলে করোনা বিস্তারের চেইনটি ভাঙা সম্ভব হয়। লকডাউন দেয়ার পর দুই সপ্তাহ পার হওয়ার আগেই কলকারখানা খুলে দেয়ায় করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি আরও বাড়াবে। গণহারে টিকা দিয়ে, কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনেও উন্নত অনেক দেশের পক্ষে করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধ করা কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। শিল্পকারখানা খোলার পর করোনার সংক্রমণ কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে এর ফলে উদ্ভূত পরিস্থিতি কিভাবে সামলানো হবে, এ বিষয়ে সরকারের পরিকল্পনা কী? করোনার সংক্রমণ আগামীতে আরও বাড়লে তার চাপ সামলানোর সক্ষমতা স্বাস্থ্য খাতের কি আছে? এসব প্রশ্নের উত্তর স্পষ্ট করে মানুষদের জানাতে হবে।

back to top