alt

সম্পাদকীয়

পানি শোধনাগারের সক্ষমতার পূর্ণাঙ্গ ব্যবহার নিশ্চিত করুন

: শনিবার, ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

পদ্মা নদীর পানি পরিশোধন করে রাজধানীবাসীকে সরবরাহ করার জন্য মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে ‘পদ্মা-যশলদিয়া পানি শোধনাগার’ নির্মাণ করেছে ঢাকা ওয়াসা। শোধনাগারটি দৈনিক ৪৫ কোটি লিটার পানি সরবরাহ করতে সক্ষম। সমস্যা হচ্ছে সক্ষমতার পূর্ণাঙ্গ ব্যবহার করা যাচ্ছে না। মাত্র ২৪ কোটি লিটার পানি সরবরাহ করা হচ্ছে।

সক্ষমতার পূর্ণাঙ্গ ব্যবহার করতে না পারার বড় কারণ হলো সরবরাহ লাইনের সংকট। ঢাকা-মাওয়া হাইওয়ে বরাবর ৩৪ কিলোমিটার দীর্ঘ পাইপলাইনের মাধ্যমে শোধনাগারের পানি ঢাকায় আনা হচ্ছে। পরিশোধিত পানি মিটফোর্ড এলাকা দিয়ে ঢাকায় প্রবেশ করার পর পানির পাইপ এখানে এসে সরু হয়ে গেছে। ফলে পানি সরবরাহের লাইন প্রস্তুত না থাকায় পূর্ণ ক্ষমতায় চালানো হচ্ছে না শোধনাগারটি। এ নিয়ে গতকাল শুক্রবার একটি জাতীয় দৈনিকে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

প্রতিবেদনে জানা গেছে, নতুন করে সরবরাহ লাইন তৈরি করতে আরও ৬৩২ কোটি টাকার নতুন প্রকল্প নিতে যাচ্ছে ওয়াসা। শোধনাগার প্রকল্পের অর্ধেকেরও বেশি টাকা ব্যয় হয়েছে পাইপলাইন নির্মাণে। সে হিসাবে অঙ্কটা কম নয়। ওয়াসা এখন যে নতুন প্রকল্প নিতে যাচ্ছে তার চেয়ে ঢের বেশি টাকা খরচ করা হয়েছে। এখন জানা যাচ্ছে, পাইপলাইন যা তৈরি করা হয়েছে তা অপর্যাপ্ত, আবার কোথাও সরু।

পানি শোধনাগার নির্মাণের মান নিয়ে শুরু থেকেই প্রশ্ন ছিল। পানি সরবরাহ লাইনই যদি না থাকে তাহলে হাজার হাজার কোটি টাকার প্রকল্প নিয়ে লাভ হলো কী? প্রকল্প গ্রহণের সময় শুধু পানির চাহিদা নিরুপণ করা হয়েছে, নাকি এর সক্ষমতা অনুযায়ী পানি কীভাবে সরবরাহ করা হবে তা ভাবা হয়েছে সেটা একটা প্রশ্ন। অভিযোগ রয়েছে, ওয়াসার প্রকল্পটির মাধ্যমে নাগরিক সুবিধা মিলুক বা নাই মিলুক; একটি গোষ্ঠী ঠিকই লাভবান হয়েছে।

শোধনাগারের সক্ষমতার পূর্ণাঙ্গ ব্যবহার করতে হলে সরবরাহ ব্যবস্থা উন্নত হতে হবে। এক্ষেত্রে নতুন কোন প্রকল্প নেয়ার আগে পূর্বের প্রকল্পে কী কাজ হয়েছে সেটা জানতে হবে। ওয়াসার ব্যর্থতার যেমন শেষ নেই, তেমনি তাদের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগেরও শেষ নেই। প্রকল্পের অধীনে কেন সরবরাহ ব্যবস্থার পূর্ণাঙ্গ রূপ পায়নি সেজন্য সংশ্লিষ্ট কর্তাব্যক্তিদের জবাবদিহি আদায় করতে হবে। এত বড় একটি প্রকল্পের হাজার হাজার কোটি টাকার কতটা শোধনাগার এবং পাইপলাইন স্থাপনের কাজে ব্যয় হয়েছে তার হিসাব নিতে হবে।

পানি শোধনাগারের সক্ষমতার পূর্ণাঙ্গ ব্যবহার আমরা দেখতে চাই। এর সুফল মানুষ ভোগ করুক এমনটাই আমাদের প্রত্যাশা। এটা অবশ্যই ঢাকা ওয়াসাকে সম্পন্ন করতে হবে। কাজটি তারা কীভাবে করবে সেটা তাদেরকেই ঠিক করতে হবে।

চাঁদাবাজির দুষ্টচক্র থেকে পরিবহন খাতকে মুক্তি দিন

বিমানবন্দরে দ্রুত কোভিড টেস্টের ব্যবস্থা করুন

বাক্সবন্দী রোগ নির্ণয় যন্ত্র

জাতীয় শিক্ষাক্রমে পরিবর্তন

রোহিঙ্গাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট, এখনই ব্যবস্থা নিন

খুলেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্যবিধি যেন মেনে চলা হয়

বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ লাইন উন্নয়নের কাজ ত্বরান্বিত করুন

ধান সংগ্রহে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা যাচ্ছে না কেন

বাঁশখালীর বাঁশের সেতু সংস্কার করুন

ঝুমন দাশের মুক্তি কোন পথে

দুস্থদের ভাতা আত্মসাৎ, দ্রুত ব্যবস্থা নিন

খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, চালু রাখতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে দায়িত্বশীল হতে হবে

আত্মহত্যা কোন সমাধান হতে পারে না

বৃত্তাকার নৌপথের সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে হবে

অস্ত্র চোরাচালানের মূল হোতাদের ধরুন

আয়হীন প্রান্তিক নারীদের আয়কর পরিশোধের নোটিশ

এইচএসসির ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা নেয়া হচ্ছে কেন

সীমান্তহত্যা বন্ধে ভারতকে প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে হবে

‘প্রকৃতির পরিচ্ছন্নতা কর্মীকে’ বাঁচাতে হবে

সিডও সনদের ধারা দুটির ওপর থেকে সংরক্ষণ তুলে নিন

মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্রটিতে লোকবল নিয়োগ দিন

কিশোর অপরাধ রুখতে চাই সম্মিলিত চেষ্টা

বন্যাদুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

দূষণের ক্রনিক রোগে ধুঁকছে রাজধানী, ভুগছে মানুষ

সর্বগ্রাসী দুর্নীতির আরেক নমুনা

বন্যপ্রাণী ও ফসল দুটোই রক্ষা পাক

সাম্প্রদায়িক হামলা : এখন আর রাতের আঁধারের অপেক্ষায় থাকতে হয় না

দুর্গম চরে গুচ্ছগ্রাম

স্বাস্থ্যবিধি না মানলে ঝুঁকি আছে

প্রণোদনার অর্থ বিতরণে নয়ছয় কাম্য নয়

প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানোর অপসংস্কৃতি বন্ধ করতে হবে

গুমের কারণ খুঁজে বের করে ব্যবস্থা নিন

ডেঙ্গু চিকিৎসায় হাসপাতালগুলোকে দ্রুত প্রস্তুত করুন

ঝুঁকিপূর্ণ ও অবৈধ ভবন এবার কি ভাঙা হবে

ঋণের ফাঁদ থেকে কৃষকদের উদ্ধার করুন

ধর্ষণ চেষ্টার মামলা না তোলায় নির্যাতন প্রসঙ্গে

tab

সম্পাদকীয়

পানি শোধনাগারের সক্ষমতার পূর্ণাঙ্গ ব্যবহার নিশ্চিত করুন

শনিবার, ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

পদ্মা নদীর পানি পরিশোধন করে রাজধানীবাসীকে সরবরাহ করার জন্য মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে ‘পদ্মা-যশলদিয়া পানি শোধনাগার’ নির্মাণ করেছে ঢাকা ওয়াসা। শোধনাগারটি দৈনিক ৪৫ কোটি লিটার পানি সরবরাহ করতে সক্ষম। সমস্যা হচ্ছে সক্ষমতার পূর্ণাঙ্গ ব্যবহার করা যাচ্ছে না। মাত্র ২৪ কোটি লিটার পানি সরবরাহ করা হচ্ছে।

সক্ষমতার পূর্ণাঙ্গ ব্যবহার করতে না পারার বড় কারণ হলো সরবরাহ লাইনের সংকট। ঢাকা-মাওয়া হাইওয়ে বরাবর ৩৪ কিলোমিটার দীর্ঘ পাইপলাইনের মাধ্যমে শোধনাগারের পানি ঢাকায় আনা হচ্ছে। পরিশোধিত পানি মিটফোর্ড এলাকা দিয়ে ঢাকায় প্রবেশ করার পর পানির পাইপ এখানে এসে সরু হয়ে গেছে। ফলে পানি সরবরাহের লাইন প্রস্তুত না থাকায় পূর্ণ ক্ষমতায় চালানো হচ্ছে না শোধনাগারটি। এ নিয়ে গতকাল শুক্রবার একটি জাতীয় দৈনিকে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

প্রতিবেদনে জানা গেছে, নতুন করে সরবরাহ লাইন তৈরি করতে আরও ৬৩২ কোটি টাকার নতুন প্রকল্প নিতে যাচ্ছে ওয়াসা। শোধনাগার প্রকল্পের অর্ধেকেরও বেশি টাকা ব্যয় হয়েছে পাইপলাইন নির্মাণে। সে হিসাবে অঙ্কটা কম নয়। ওয়াসা এখন যে নতুন প্রকল্প নিতে যাচ্ছে তার চেয়ে ঢের বেশি টাকা খরচ করা হয়েছে। এখন জানা যাচ্ছে, পাইপলাইন যা তৈরি করা হয়েছে তা অপর্যাপ্ত, আবার কোথাও সরু।

পানি শোধনাগার নির্মাণের মান নিয়ে শুরু থেকেই প্রশ্ন ছিল। পানি সরবরাহ লাইনই যদি না থাকে তাহলে হাজার হাজার কোটি টাকার প্রকল্প নিয়ে লাভ হলো কী? প্রকল্প গ্রহণের সময় শুধু পানির চাহিদা নিরুপণ করা হয়েছে, নাকি এর সক্ষমতা অনুযায়ী পানি কীভাবে সরবরাহ করা হবে তা ভাবা হয়েছে সেটা একটা প্রশ্ন। অভিযোগ রয়েছে, ওয়াসার প্রকল্পটির মাধ্যমে নাগরিক সুবিধা মিলুক বা নাই মিলুক; একটি গোষ্ঠী ঠিকই লাভবান হয়েছে।

শোধনাগারের সক্ষমতার পূর্ণাঙ্গ ব্যবহার করতে হলে সরবরাহ ব্যবস্থা উন্নত হতে হবে। এক্ষেত্রে নতুন কোন প্রকল্প নেয়ার আগে পূর্বের প্রকল্পে কী কাজ হয়েছে সেটা জানতে হবে। ওয়াসার ব্যর্থতার যেমন শেষ নেই, তেমনি তাদের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগেরও শেষ নেই। প্রকল্পের অধীনে কেন সরবরাহ ব্যবস্থার পূর্ণাঙ্গ রূপ পায়নি সেজন্য সংশ্লিষ্ট কর্তাব্যক্তিদের জবাবদিহি আদায় করতে হবে। এত বড় একটি প্রকল্পের হাজার হাজার কোটি টাকার কতটা শোধনাগার এবং পাইপলাইন স্থাপনের কাজে ব্যয় হয়েছে তার হিসাব নিতে হবে।

পানি শোধনাগারের সক্ষমতার পূর্ণাঙ্গ ব্যবহার আমরা দেখতে চাই। এর সুফল মানুষ ভোগ করুক এমনটাই আমাদের প্রত্যাশা। এটা অবশ্যই ঢাকা ওয়াসাকে সম্পন্ন করতে হবে। কাজটি তারা কীভাবে করবে সেটা তাদেরকেই ঠিক করতে হবে।

back to top