alt

সম্পাদকীয়

এইচএসসির ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা নেয়া হচ্ছে কেন

: মঙ্গলবার, ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষার্থীদের ফরম পূরণে অতিরিক্ত ফি নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ২০২১ সালে অনুষ্ঠেয় এ পরীক্ষার প্রয়োজনীয় ফি বিজ্ঞান শাখার জন্য ১১৬০ টাকা, মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা শাখার জন্য ১০৭০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, টাঙ্গাইল, খুলনা, নীলফামারী, ঠাকুরগাঁওসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার কিছু কলেজে বোর্ডের নির্ধারিত টাকার চেয়ে অতিরিক্ত টাকা আদায় করা হয়েছে। টেস্ট পরীক্ষা, অ্যাসাইনমেন্ট ও ফরম পূরণের নামে প্রতিষ্ঠান ভেদে ১ থেকে ৭ হাজার টাকা পর্যন্ত অতিরিক্ত নিয়েছে। এ নিয়ে সংবাদসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

বোর্ড নির্ধারিত ফি’র অতিরিক্ত টাকা আদায় করার ঘটনা নতুন নয়। প্রতি বছরই দেশের কোন না কোন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নানা অজুহাতে অতিরিক্ত টাকা আদায় করে। করোনা মহামারীর মধ্যেও এসব প্রতিষ্ঠান অতিরিক্ত টাকা নিচ্ছে। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্টদের নৈতিকতা ও মানবিকতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। সবকিছু বিবেচনা করেই বোর্ড ফি নির্ধারণ করা হয়। এর বাইরে নানান অজুহাতে বেশি টাকা আদায় করা অনৈতিক।

করোনা মহামারীর মধ্যে অনেক অভিভাবকই শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার খরচ জোগানোর সামর্থ্য হারিয়েছেন। এ অবস্থায় বোর্ড ফি দেয়াই তাদের জন্য কঠিন হয়ে পড়েছে। তার ওপর অতিরিক্ত ফি আদায় করার ঘটনা অমানবিক। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে বলা হয় জাতি গঠনের কারখানা, আর শিক্ষকরা হচ্ছেন তার কারিগর। সেখানে অমানবিকতা ও অনৈতিকতার চর্চা কাম্য নয়। যেসব প্রতিষ্ঠান অতিরিক্ত টাকা আদায় করছে, তারা অনিয়ম-দুর্নীতির মন্দ নজির স্থাপন করছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অনুকরণীয় আদর্শের চর্চা হবে সেটাই কাম্য।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে বাড়তি টাকা আদায়ের অনৈতিক চর্চা বন্ধ হওয়া উচিত। শিক্ষা বোর্ড বিভিন্ন সময় এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানায়। কিন্তু কার্যকর কোন ব্যবস্থা নেয়া হয় না। যে কারণে বাড়তি ফি আদায় বন্ধ করা যাচ্ছে না। শুধু মুখে হুশিয়ারি উচ্চারণ করাই যথেষ্ট নয়। বাড়তি ফি নেয়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে- এমনটা আমরা দেখতে চাই। তাহলে হয়তো তাদের বাড়তি ফি নেয়া বন্ধ হবে। যেসব শিক্ষার্থীর কাছ থেকে বাড়তি ফি নেয়া হয়েছে, সেগুলো ফেরত দিতে হবে। আর কোথাও যাতে বাড়তি ফি নেয়া না হয় সেটা মনিটরিং করতে হবে। দেশের কোন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অনিয়ম-দুর্নীতির আঁতুড় ঘরে পরিণত হোক- সেটা আমরা চাই না।

বিইআরসি’র ক্ষমতা খর্ব করা হচ্ছে কার স্বার্থে

শিক্ষার্থীদের করোনা সংক্রমণ নিয়ে আতঙ্ক নয়, সতর্ক থাকতে হবে

দশ টাকায় চাল বিক্রি কর্মসূচির পথে বাধা দূর করুন

কিন্ডারগার্টেনের অমানিশা

জনসাধারণের ব্যবহার উপযোগী পার্ক চাই

শিশুর পুষ্টির ঘাটতি মেটাতে হবে

কিশোর বাউল নির্যাতনের বিচার করে দৃষ্টান্ত তৈরি করুন

করোনার টিকা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান প্রসঙ্গে

মেয়াদের আগেই বিআরটিসির বাসের আয়ু ফুরায় কেন

সাগর-রুনি হত্যার তদন্ত : সক্ষমতা না থাকলে সেটা বলা হোক

নকল ও ভেজাল ওষুধ : আইনের কঠোর প্রয়োগই কাম্য

ইউপি নির্বাচন প্রসঙ্গে

কক্সবাজার সৈকতে পর্যটকদের মৃত্যু প্রসঙ্গে

ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার স্থাপনে উদ্যোগ নিন

বিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থীদের ডেঙ্গু থেকে রক্ষা করতে হবে

যানজট নিরসনে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

সব শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ে ফেরাতে হবে

ভোলায় সাম্প্রদায়িক অপপ্রচার : সতর্ক থাকতে হবে

নিউমোনিয়া থেকে শিশুদের বাঁচাতে চাই সচেতনতা

যে কোন মূল্যে বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে হবে

মহাসড়কে ধীরগতির যান চলাচল বন্ধ করুন

ট্যানারির বর্জ্যে বিপন্ন ধলেশ্বরী

চাঁদাবাজির দুষ্টচক্র থেকে পরিবহন খাতকে মুক্তি দিন

বিমানবন্দরে দ্রুত কোভিড টেস্টের ব্যবস্থা করুন

বাক্সবন্দী রোগ নির্ণয় যন্ত্র

জাতীয় শিক্ষাক্রমে পরিবর্তন

রোহিঙ্গাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট, এখনই ব্যবস্থা নিন

খুলেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্যবিধি যেন মেনে চলা হয়

বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ লাইন উন্নয়নের কাজ ত্বরান্বিত করুন

ধান সংগ্রহে লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা যাচ্ছে না কেন

বাঁশখালীর বাঁশের সেতু সংস্কার করুন

ঝুমন দাশের মুক্তি কোন পথে

দুস্থদের ভাতা আত্মসাৎ, দ্রুত ব্যবস্থা নিন

খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, চালু রাখতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে দায়িত্বশীল হতে হবে

আত্মহত্যা কোন সমাধান হতে পারে না

বৃত্তাকার নৌপথের সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

এইচএসসির ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা নেয়া হচ্ছে কেন

মঙ্গলবার, ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষার্থীদের ফরম পূরণে অতিরিক্ত ফি নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ২০২১ সালে অনুষ্ঠেয় এ পরীক্ষার প্রয়োজনীয় ফি বিজ্ঞান শাখার জন্য ১১৬০ টাকা, মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা শাখার জন্য ১০৭০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, টাঙ্গাইল, খুলনা, নীলফামারী, ঠাকুরগাঁওসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার কিছু কলেজে বোর্ডের নির্ধারিত টাকার চেয়ে অতিরিক্ত টাকা আদায় করা হয়েছে। টেস্ট পরীক্ষা, অ্যাসাইনমেন্ট ও ফরম পূরণের নামে প্রতিষ্ঠান ভেদে ১ থেকে ৭ হাজার টাকা পর্যন্ত অতিরিক্ত নিয়েছে। এ নিয়ে সংবাদসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

বোর্ড নির্ধারিত ফি’র অতিরিক্ত টাকা আদায় করার ঘটনা নতুন নয়। প্রতি বছরই দেশের কোন না কোন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নানা অজুহাতে অতিরিক্ত টাকা আদায় করে। করোনা মহামারীর মধ্যেও এসব প্রতিষ্ঠান অতিরিক্ত টাকা নিচ্ছে। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্টদের নৈতিকতা ও মানবিকতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। সবকিছু বিবেচনা করেই বোর্ড ফি নির্ধারণ করা হয়। এর বাইরে নানান অজুহাতে বেশি টাকা আদায় করা অনৈতিক।

করোনা মহামারীর মধ্যে অনেক অভিভাবকই শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার খরচ জোগানোর সামর্থ্য হারিয়েছেন। এ অবস্থায় বোর্ড ফি দেয়াই তাদের জন্য কঠিন হয়ে পড়েছে। তার ওপর অতিরিক্ত ফি আদায় করার ঘটনা অমানবিক। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে বলা হয় জাতি গঠনের কারখানা, আর শিক্ষকরা হচ্ছেন তার কারিগর। সেখানে অমানবিকতা ও অনৈতিকতার চর্চা কাম্য নয়। যেসব প্রতিষ্ঠান অতিরিক্ত টাকা আদায় করছে, তারা অনিয়ম-দুর্নীতির মন্দ নজির স্থাপন করছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অনুকরণীয় আদর্শের চর্চা হবে সেটাই কাম্য।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে বাড়তি টাকা আদায়ের অনৈতিক চর্চা বন্ধ হওয়া উচিত। শিক্ষা বোর্ড বিভিন্ন সময় এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানায়। কিন্তু কার্যকর কোন ব্যবস্থা নেয়া হয় না। যে কারণে বাড়তি ফি আদায় বন্ধ করা যাচ্ছে না। শুধু মুখে হুশিয়ারি উচ্চারণ করাই যথেষ্ট নয়। বাড়তি ফি নেয়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে- এমনটা আমরা দেখতে চাই। তাহলে হয়তো তাদের বাড়তি ফি নেয়া বন্ধ হবে। যেসব শিক্ষার্থীর কাছ থেকে বাড়তি ফি নেয়া হয়েছে, সেগুলো ফেরত দিতে হবে। আর কোথাও যাতে বাড়তি ফি নেয়া না হয় সেটা মনিটরিং করতে হবে। দেশের কোন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অনিয়ম-দুর্নীতির আঁতুড় ঘরে পরিণত হোক- সেটা আমরা চাই না।

back to top