alt

সম্পাদকীয়

বিদেশ ফেরত নারী শ্রমিকদের দুর্বিষহ জীবন

: বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

বিদেশ গিয়ে ২৩ শতাংশ নারী শ্রমিক এক বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই দেশে ফিরে আসেন। এক বছরের সামান্য বেশি সময় থাকেন ১৮ শতাংশ। তাছাড়া জবরদস্তিমূলকভাবে দেশে ফেরত আসতে হয় ৫৫ শতাংশ নারী শ্রমিককে। এমনই উদ্বেগজনক তথ্য উঠে এসেছে ‘দেশে ফিরে আসা অভিবাসী নারী শ্রমিকদের সামাজিক ও অর্থনৈতিক অবস্থা’ শীর্ষক এক গবেষণা প্রতিবেদনে। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব লেবার স্টাডিজ (বিলস) গত সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে গবেষণা প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করে। এ নিয়ে সংবাদ-এ গতকাল মঙ্গলবার বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

জরিপের তথ্য থেকে জানা যায়, বিদেশ ফেরত নারী শ্রমিকদের সামাজিকভাবেও হেয়প্রতিপন্ন হতে হয়। নিজ পরিবার ও সমাজে বৈরী ও অমানবিক আচরণের শিকার হতে হয়। ফেরত আসা ৩৮ শতাংশ প্রবাসী নারী শ্রমিক বলছেন, সমাজে তাদের নিম্ন শ্রেণীর বা চরিত্রহীন নারী বলে গণ্য করা হয়।

ভাগ্যোন্নয়নের আশায় এসব নারী শ্রমিকরা বাড়ি-ঘর, পরিবার-পরিজন ছেড়ে বিদেশ পাড়ি জমায়। কিন্তু স্বপ্ন পূরণের আগেই তাদের দেশে ফিরে আসতে হয়। সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন সময় বিদেশ ফেরত শ্রমিকদের জন্য স্বল্পসুদে ঋণ, প্রশিক্ষণসহ সামাজিক নিরাপত্তা কার্যক্রমের আওতায় নানা সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়। সাহায্য-সহযোগিতা আশ্বাসের মধ্যেই ঘুরপাক খায়।

বিভিন্ন সময়ে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, বিদেশে নারী শ্রমিক নির্যাতনের বিষয়টিকে গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে। এখন থেকে যে কোন দেশে বাংলাদেশি নারী শ্রমিক নির্যাতনের শিকার হলে সরকারের পক্ষ থেকে প্রতিকারের ব্যবস্থাসহ দোষীদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে। আমরা, এসব প্রতিশ্রুতি পূর্ণাঙ্গভাবে বাস্তবায়ন দেখতে চাই। আমরা দেখতে চাই প্রবাসী নারী শ্রমিকদের সর্বোচ্চা নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হচ্ছে।

বিদেশে যেসব শ্রমিকরা নির্যাতনের শিকার হন তাদের বেশিরভাগই মধ্যপ্রাচ্যে কর্মরত নারী গৃহকর্মী। সেসব দেশে গৃহ শ্রমিকদের অধিকার বলতে কিছুই নেই। যৌন নির্যাতনসহ বিভিন্ন নির্যাতনের অভিযোগে ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইনসহ কয়েকটি দেশ মধ্যপ্রাচ্যে নারী শ্রমিক পাঠানো বন্ধ করে দিয়েছে। আমাদেরও নারী গৃহকর্মী পাঠানো বন্ধ করা উচিত।

এখনও সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে নারীদের গৃহকর্মী হিসেবে পাঠানো হচ্ছে। ২০১৯ সালের প্রায় পুরোটা সময়ই দেশবাসীকে পীড়া দিয়েছে সৌদি ফেরত নারী শ্রমিকদের দুর্বিষহ জীবনের গল্প। এর পরিপ্রেক্ষিতে অভিবাসন নিয়ে কাজ করে এমন সংগঠনগুলো এবং নারী অধিকার নিয়ে আন্দোলনকারীরা সৌদি আরবে নারীকর্মী পাঠানো বন্ধের দাবি তোলে। সংসদ অধিবেশনেও কয়েকজন সংসদ সদস্য সৌদি আরবে নারী শ্রমিক পাঠানো বন্ধের দাবি জানিয়েছেন। বিষয়টি সরকারকে গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করতে হবে।

কথায় কথায় প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানোর অপসংস্কৃতি ত্যাগ করুন

কথা বলবার ভয় দূর করবে কে

প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে বৈষম্য দূর করা জরুরি

রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে নিরাপত্তা ও নজরদারি জোরদার করুন

নিষেধাজ্ঞা চলাকালে ইলিশ শিকার নেপথ্যের চক্রের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নদ-নদী দখলের অবসান চাই

করোনাকালে শিখন ঘাটতির ঝুঁকিতে শিক্ষার্থীরা

মুক্তিযুদ্ধের অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ রক্ষায় সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার জরুরি

নিত্যপণ্যের দাম ও অসাধু সিন্ডিকেট

সড়ক দুর্ঘটনা কি থামবে না

সাম্প্রদায়িক হামলা বন্ধে প্রশাসন কি যথাযথ ভূমিকা রাখতে পারছে

স্পিডবোট চলাচলে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করুন

করোনাকাল ও দারিদ্র্য বিমোচন দিবস

নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে

স্বাধীন দেশে কেন সাম্প্রদায়িকতাকে পরাস্ত করা যাচ্ছে না

‘মা ইলিশ’ নিধন বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মাথাপিছু আয়

আবারও সাম্প্রদায়িক হামলা

আবারও সাম্প্রদায়িক হামলা

ভবদহের জলাবদ্ধতা নিরসন করুন

বজ্রপাতের বিপদ মোকাবিলা করতে হবে

প্রকল্পগুলোর এমন পরিণতির দায় কার

নিত্যপণ্যের দাম কি নিয়ন্ত্রণহীনই থাকবে

হত্যাকান্ডগুলো ‘আত্মহত্যা’য় পরিণত হলো কীভাবে

পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র গৌরবময় অধ্যায়

ঢাকা-লক্ষ্মীপুর লঞ্চ সার্ভিস চালু করুন

তৈরি পোশাক কারখানায় ট্রেড ইউনিয়ন প্রসঙ্গে

আফগানিস্তানে শান্তির দেখা মিলবে কবে

নিত্যপণ্যের বাজারে মানুষের পকেট কাটা বন্ধ করুন

গাঙ্গেয় ডলফিন রক্ষা করুন

দক্ষতা ও মেধাভিত্তিক শ্রমবাজারে প্রবেশ করতে হবে

করোনার টিকা পেতে প্রবাসী শ্রমিকদের ভোগান্তি দূর করুন

ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিন

তাপমাত্রা ও রাজধানীবাসীর কর্মক্ষমতা

ফ্র্যাঞ্চাইজি পদ্ধতিতে বাস চালুর উদ্যোগ সফল হোক

ইলিশের অভয়াশ্রমে অর্থনৈতিক অঞ্চল নয়

tab

সম্পাদকীয়

বিদেশ ফেরত নারী শ্রমিকদের দুর্বিষহ জীবন

বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

বিদেশ গিয়ে ২৩ শতাংশ নারী শ্রমিক এক বছর পূর্ণ হওয়ার আগেই দেশে ফিরে আসেন। এক বছরের সামান্য বেশি সময় থাকেন ১৮ শতাংশ। তাছাড়া জবরদস্তিমূলকভাবে দেশে ফেরত আসতে হয় ৫৫ শতাংশ নারী শ্রমিককে। এমনই উদ্বেগজনক তথ্য উঠে এসেছে ‘দেশে ফিরে আসা অভিবাসী নারী শ্রমিকদের সামাজিক ও অর্থনৈতিক অবস্থা’ শীর্ষক এক গবেষণা প্রতিবেদনে। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব লেবার স্টাডিজ (বিলস) গত সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে গবেষণা প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করে। এ নিয়ে সংবাদ-এ গতকাল মঙ্গলবার বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

জরিপের তথ্য থেকে জানা যায়, বিদেশ ফেরত নারী শ্রমিকদের সামাজিকভাবেও হেয়প্রতিপন্ন হতে হয়। নিজ পরিবার ও সমাজে বৈরী ও অমানবিক আচরণের শিকার হতে হয়। ফেরত আসা ৩৮ শতাংশ প্রবাসী নারী শ্রমিক বলছেন, সমাজে তাদের নিম্ন শ্রেণীর বা চরিত্রহীন নারী বলে গণ্য করা হয়।

ভাগ্যোন্নয়নের আশায় এসব নারী শ্রমিকরা বাড়ি-ঘর, পরিবার-পরিজন ছেড়ে বিদেশ পাড়ি জমায়। কিন্তু স্বপ্ন পূরণের আগেই তাদের দেশে ফিরে আসতে হয়। সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন সময় বিদেশ ফেরত শ্রমিকদের জন্য স্বল্পসুদে ঋণ, প্রশিক্ষণসহ সামাজিক নিরাপত্তা কার্যক্রমের আওতায় নানা সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়। সাহায্য-সহযোগিতা আশ্বাসের মধ্যেই ঘুরপাক খায়।

বিভিন্ন সময়ে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, বিদেশে নারী শ্রমিক নির্যাতনের বিষয়টিকে গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে। এখন থেকে যে কোন দেশে বাংলাদেশি নারী শ্রমিক নির্যাতনের শিকার হলে সরকারের পক্ষ থেকে প্রতিকারের ব্যবস্থাসহ দোষীদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে। আমরা, এসব প্রতিশ্রুতি পূর্ণাঙ্গভাবে বাস্তবায়ন দেখতে চাই। আমরা দেখতে চাই প্রবাসী নারী শ্রমিকদের সর্বোচ্চা নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হচ্ছে।

বিদেশে যেসব শ্রমিকরা নির্যাতনের শিকার হন তাদের বেশিরভাগই মধ্যপ্রাচ্যে কর্মরত নারী গৃহকর্মী। সেসব দেশে গৃহ শ্রমিকদের অধিকার বলতে কিছুই নেই। যৌন নির্যাতনসহ বিভিন্ন নির্যাতনের অভিযোগে ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইনসহ কয়েকটি দেশ মধ্যপ্রাচ্যে নারী শ্রমিক পাঠানো বন্ধ করে দিয়েছে। আমাদেরও নারী গৃহকর্মী পাঠানো বন্ধ করা উচিত।

এখনও সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে নারীদের গৃহকর্মী হিসেবে পাঠানো হচ্ছে। ২০১৯ সালের প্রায় পুরোটা সময়ই দেশবাসীকে পীড়া দিয়েছে সৌদি ফেরত নারী শ্রমিকদের দুর্বিষহ জীবনের গল্প। এর পরিপ্রেক্ষিতে অভিবাসন নিয়ে কাজ করে এমন সংগঠনগুলো এবং নারী অধিকার নিয়ে আন্দোলনকারীরা সৌদি আরবে নারীকর্মী পাঠানো বন্ধের দাবি তোলে। সংসদ অধিবেশনেও কয়েকজন সংসদ সদস্য সৌদি আরবে নারী শ্রমিক পাঠানো বন্ধের দাবি জানিয়েছেন। বিষয়টি সরকারকে গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করতে হবে।

back to top