alt

সম্পাদকীয়

বাল্যবিয়ে বন্ধে এনআইডি ব্যবহারের প্রস্তাব

: সোমবার, ০৪ অক্টোবর ২০২১

বাল্যবিয়ে বন্ধে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে নতুন একটি প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়েছে। প্রস্তাব অনুযায়ী, বিয়ের আগে পাত্র-পাত্রীর বয়স যাচাইয়ের জন্য এনআইডি সার্ভারের তথ্য ব্যবহার করে বিয়ের ‘ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট’ নিতে হবে। গতকাল রোববার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এ সংক্রান্ত প্রস্তাব দেয়া হয়। কমিটি প্রস্তাবটি আমলে নিয়েছে বলে গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর থেকে জানা গেছে। সংশ্লিষ্টরা আশা করছেন, তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় বাল্যবিয়ে বন্ধ করা সম্ভব হবে।

বাল্যবিয়ে দেশের দীর্ঘদিনের এক সমস্যা। ইউনিসেফের তথ্য অনুযায়ী, দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি বাল্যবিয়ে হয়। মহামারীকালে আর্থিক সংকট আর দীর্ঘদিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় এ সমস্যা আরও বেড়েছে। বাল্যবিয়ে বন্ধে নতুন নতুন সুপারিশ বা প্রস্তাব আসছে। কোন পরিবারে বাল্যবিয়ে থাকলে সেই পরিবারকে ভিজিডি সহায়তা না দেয়ার সুপারিশ করেছে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। গত ২২ সেপ্টেম্বর এ সুপারিশ করা হয়। এখন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এনআইডি যাচাইয়ের প্রস্তাব করা হলো। সমস্যা হচ্ছে, বয়স ১৮ পূর্ণ হওয়ার পরও অনেকে জাতীয় পরিচয়পত্র পায় না। প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়া সত্ত্বেও জাতীয় পরিচয়পত্র না পাওয়া বা না নেয়া মানুষের সংখ্যা কম নয়। এ ধরনের মানুষের বয়স যাচাই করা হবে কীভাবে সেটা একটা প্রশ্ন।

নির্বাচন কমিশন আঠারো বছরের কম বয়সী নাগরিকদের জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার কথা বহুদিন ধরেই বলছে। কিন্তু এ নিয়ে বাস্তবে কোন অগ্রগতি নেই। শিশুর জন্মনিবন্ধনের কাজটি যদি যথাযথভাবে করা যেত তাহলেও বাল্যবিয়েসহ অনেক সমস্যারই সহজ সমাধান মিলত। কিন্তু অনেক পরিবারই বিশেষ করে দরিদ্র জনগোষ্ঠী এখনও শিশুর জন্মনিবন্ধন করে না। আবার অনেক পরিবার অসৎ উদ্দেশে একটি শিশুর একাধিক জন্মনিবন্ধন করায়। জন্মনিবন্ধন নিয়ে নানান অনিয়মের অভিযোগ মেলে। নাগরিকদের বিনামূল্যে ভোগান্তিহীন জন্মনিবন্ধনের ব্যবস্থা করতে হবে। প্রতিটি শিশুর জন্মের সঙ্গে সঙ্গে যেন তার জন্মনিবন্ধন করা হয় সেটা কঠোরভাবে নিশ্চিত করা জরুরি।

বাল্যবিয়ে বন্ধে সংশ্লিষ্টদের এখন গলদঘর্ম হতে হচ্ছে। কীভাবে বাল্যবিয়ে বন্ধ করা যায় তা নিয়ে নতুন নতুন প্রস্তাব, সুপারিশ, পরিকল্পনা হচ্ছে। অথচ ২০১৭ সালে প্রণয়ন করা বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনে ‘বিশেষ প্রেক্ষাপটে অপ্রাপ্ত বয়স্কের সর্বোত্তম স্বার্থে’ বিয়ের সুযোগ রাখা হয়। অভিযোগ উঠেছিল যে, এর মাধ্যমে বাল্যবিয়ের সুযোগ তৈরি করা হয়েছে। তখন এ নিয়ে কোন আপত্তি বা সমালোচনায় সরকার কান দেয়নি। আমরা বলতে চাই, বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে হলে আইনের ফাঁকফোকর বন্ধ করতে হবে। পাশাপাশি নারীর প্রতি সমাজের দৃষ্টিভঙ্গি বদলানোও জরুরি। কন্যা শিশুকে পরিবারের বোঝা হিসেবে দেখার প্রবণতা থেকে সমাজকে বের করে আনতে হবে।

কথায় কথায় প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানোর অপসংস্কৃতি ত্যাগ করুন

কথা বলবার ভয় দূর করবে কে

প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে বৈষম্য দূর করা জরুরি

রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে নিরাপত্তা ও নজরদারি জোরদার করুন

নিষেধাজ্ঞা চলাকালে ইলিশ শিকার নেপথ্যের চক্রের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নদ-নদী দখলের অবসান চাই

করোনাকালে শিখন ঘাটতির ঝুঁকিতে শিক্ষার্থীরা

মুক্তিযুদ্ধের অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ রক্ষায় সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার জরুরি

নিত্যপণ্যের দাম ও অসাধু সিন্ডিকেট

সড়ক দুর্ঘটনা কি থামবে না

সাম্প্রদায়িক হামলা বন্ধে প্রশাসন কি যথাযথ ভূমিকা রাখতে পারছে

স্পিডবোট চলাচলে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করুন

করোনাকাল ও দারিদ্র্য বিমোচন দিবস

নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে

স্বাধীন দেশে কেন সাম্প্রদায়িকতাকে পরাস্ত করা যাচ্ছে না

‘মা ইলিশ’ নিধন বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মাথাপিছু আয়

আবারও সাম্প্রদায়িক হামলা

আবারও সাম্প্রদায়িক হামলা

ভবদহের জলাবদ্ধতা নিরসন করুন

বজ্রপাতের বিপদ মোকাবিলা করতে হবে

প্রকল্পগুলোর এমন পরিণতির দায় কার

নিত্যপণ্যের দাম কি নিয়ন্ত্রণহীনই থাকবে

হত্যাকান্ডগুলো ‘আত্মহত্যা’য় পরিণত হলো কীভাবে

পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র গৌরবময় অধ্যায়

ঢাকা-লক্ষ্মীপুর লঞ্চ সার্ভিস চালু করুন

তৈরি পোশাক কারখানায় ট্রেড ইউনিয়ন প্রসঙ্গে

আফগানিস্তানে শান্তির দেখা মিলবে কবে

নিত্যপণ্যের বাজারে মানুষের পকেট কাটা বন্ধ করুন

গাঙ্গেয় ডলফিন রক্ষা করুন

দক্ষতা ও মেধাভিত্তিক শ্রমবাজারে প্রবেশ করতে হবে

করোনার টিকা পেতে প্রবাসী শ্রমিকদের ভোগান্তি দূর করুন

ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিন

তাপমাত্রা ও রাজধানীবাসীর কর্মক্ষমতা

ফ্র্যাঞ্চাইজি পদ্ধতিতে বাস চালুর উদ্যোগ সফল হোক

ইলিশের অভয়াশ্রমে অর্থনৈতিক অঞ্চল নয়

tab

সম্পাদকীয়

বাল্যবিয়ে বন্ধে এনআইডি ব্যবহারের প্রস্তাব

সোমবার, ০৪ অক্টোবর ২০২১

বাল্যবিয়ে বন্ধে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে নতুন একটি প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়েছে। প্রস্তাব অনুযায়ী, বিয়ের আগে পাত্র-পাত্রীর বয়স যাচাইয়ের জন্য এনআইডি সার্ভারের তথ্য ব্যবহার করে বিয়ের ‘ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট’ নিতে হবে। গতকাল রোববার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এ সংক্রান্ত প্রস্তাব দেয়া হয়। কমিটি প্রস্তাবটি আমলে নিয়েছে বলে গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর থেকে জানা গেছে। সংশ্লিষ্টরা আশা করছেন, তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় বাল্যবিয়ে বন্ধ করা সম্ভব হবে।

বাল্যবিয়ে দেশের দীর্ঘদিনের এক সমস্যা। ইউনিসেফের তথ্য অনুযায়ী, দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি বাল্যবিয়ে হয়। মহামারীকালে আর্থিক সংকট আর দীর্ঘদিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় এ সমস্যা আরও বেড়েছে। বাল্যবিয়ে বন্ধে নতুন নতুন সুপারিশ বা প্রস্তাব আসছে। কোন পরিবারে বাল্যবিয়ে থাকলে সেই পরিবারকে ভিজিডি সহায়তা না দেয়ার সুপারিশ করেছে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। গত ২২ সেপ্টেম্বর এ সুপারিশ করা হয়। এখন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এনআইডি যাচাইয়ের প্রস্তাব করা হলো। সমস্যা হচ্ছে, বয়স ১৮ পূর্ণ হওয়ার পরও অনেকে জাতীয় পরিচয়পত্র পায় না। প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়া সত্ত্বেও জাতীয় পরিচয়পত্র না পাওয়া বা না নেয়া মানুষের সংখ্যা কম নয়। এ ধরনের মানুষের বয়স যাচাই করা হবে কীভাবে সেটা একটা প্রশ্ন।

নির্বাচন কমিশন আঠারো বছরের কম বয়সী নাগরিকদের জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার কথা বহুদিন ধরেই বলছে। কিন্তু এ নিয়ে বাস্তবে কোন অগ্রগতি নেই। শিশুর জন্মনিবন্ধনের কাজটি যদি যথাযথভাবে করা যেত তাহলেও বাল্যবিয়েসহ অনেক সমস্যারই সহজ সমাধান মিলত। কিন্তু অনেক পরিবারই বিশেষ করে দরিদ্র জনগোষ্ঠী এখনও শিশুর জন্মনিবন্ধন করে না। আবার অনেক পরিবার অসৎ উদ্দেশে একটি শিশুর একাধিক জন্মনিবন্ধন করায়। জন্মনিবন্ধন নিয়ে নানান অনিয়মের অভিযোগ মেলে। নাগরিকদের বিনামূল্যে ভোগান্তিহীন জন্মনিবন্ধনের ব্যবস্থা করতে হবে। প্রতিটি শিশুর জন্মের সঙ্গে সঙ্গে যেন তার জন্মনিবন্ধন করা হয় সেটা কঠোরভাবে নিশ্চিত করা জরুরি।

বাল্যবিয়ে বন্ধে সংশ্লিষ্টদের এখন গলদঘর্ম হতে হচ্ছে। কীভাবে বাল্যবিয়ে বন্ধ করা যায় তা নিয়ে নতুন নতুন প্রস্তাব, সুপারিশ, পরিকল্পনা হচ্ছে। অথচ ২০১৭ সালে প্রণয়ন করা বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনে ‘বিশেষ প্রেক্ষাপটে অপ্রাপ্ত বয়স্কের সর্বোত্তম স্বার্থে’ বিয়ের সুযোগ রাখা হয়। অভিযোগ উঠেছিল যে, এর মাধ্যমে বাল্যবিয়ের সুযোগ তৈরি করা হয়েছে। তখন এ নিয়ে কোন আপত্তি বা সমালোচনায় সরকার কান দেয়নি। আমরা বলতে চাই, বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে হলে আইনের ফাঁকফোকর বন্ধ করতে হবে। পাশাপাশি নারীর প্রতি সমাজের দৃষ্টিভঙ্গি বদলানোও জরুরি। কন্যা শিশুকে পরিবারের বোঝা হিসেবে দেখার প্রবণতা থেকে সমাজকে বের করে আনতে হবে।

back to top