alt

সম্পাদকীয়

তাপমাত্রা ও রাজধানীবাসীর কর্মক্ষমতা

: বুধবার, ০৬ অক্টোবর ২০২১

বৈশ্বিক গড় তাপমাত্রা বাড়ার প্রভাবে বিশ্বের যেসব শহরের মানুষের কর্মক্ষমতা কমছে সেগুলোর মধ্যে ঢাকার অবস্থান শীর্ষে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষকের যৌথ গবেষণা থেকে জানা গেছে এ তথ্য। দেশটির বিজ্ঞানবিষয়ক সাময়িকী প্রসিডিংস অব দ্য ন্যাশনাল একাডেমি অব সায়েন্সেস-এ গত সোমবার উক্ত গবেষণার ফল প্রকাশিত হয়েছে। এ নিয়ে দেশের গণমাধ্যমগুলো প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

এদিকে ঢাকার দাবদাহ নিয়ে সম্প্রতি ‘ফিজিবিলিটি স্টাডি অন হিট ওয়েভ ইন ঢাকা’ শীর্ষক একটি যৌথ গবেষণা করেছে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি, জার্মান রেডক্রস এবং বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর। তাদের গবেষণায় গরমের সময় পারিপার্শ্বিক অবস্থার প্রভাবে ঢাকায় তাপপ্রবাহের ফলে বেশি ঝুঁকিতে থাকা ২৫টি এলাকা চিহ্নিত করা হয়েছে। গবেষকরা এসব এলাকাকে বলছেন ‘হিট আইল্যান্ড’।

কোন স্থানে তাপমাত্রা বাড়লে তার নেতিবাচক প্রভাব সেখানকার বাসিন্দাদের ওপর পড়ে। বিশেষ করে কায়িক শ্রম দেন যেসব মানুষ নানা শারীরিক চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হন। গরমের মৌসুমে অনেকে হিটস্ট্রোকেও আক্রান্ত হন। হিটস্ট্রোকে মৃত্যুর ঘটনাও বিরল নয়। গরমজনিত নানা অসুখেও ভোগেন অনেকে।

যুক্তরাষ্ট্রের কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটির আর্থ ইনস্টিটিউটের গবেষক ক্যাসকেড টুহলস্কির মতে, চরম উষ্ণতার প্রভাবে অসুস্থতা ও মৃত্যুর হার বাড়ছে। মানুষের কর্মক্ষমতার ওপর এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। তীব্র গরমের মতো প্রতিকূল আবহাওয়ায় স্বাভাবিক অর্থনৈতিক কর্মকান্ড পরিচলনা করা দুরূহ হয়ে পড়ে। গরমের প্রভাবে ঢাকার মানুষের কর্মক্ষমতা কমার কারণে কী পরিমাণ আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে সেটা জানা জরুরি।

রাজধানী ঢাকার তাপমাত্রা বাড়ার কারণগুলো চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেয়া জরুরি। সামগ্রিকভাবে বাংলাদেশের তাপমাত্রা বাড়ার পেছনে বৈশ্বিক উষ্ণায়নের দায় ৩৭ শতাংশ। বাকি দায় অভ্যন্তরীণ। বৃক্ষনিধন, নদ-নদী দখল, অপরিকল্পিত নগরায়ন, ইটভাটা, কলকারখানা ও পরিবহনের দূষিত বায়ু প্রভৃতি কারণে তাপমাত্রা বাড়ছে। প্রাণ-প্রকৃতি রক্ষায় বিভিন্ন সময় সরকার যেসব অঙ্গীকার করেছে সেগুলোর পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন জরুরি।

তাপমাত্রা যেমন বাড়ছে, রাজধানীর জনসংখ্যাও তেমন বাড়ছে। ১৯৮৩ সালে ঢাকার জনসংখ্যা ছিল ৪০ লাখ। ২০১৬ সালে সেটা হয়েছে প্রায় দুই কোটি। ঢাকা মহানগরীর জনসংখ্যা বাড়ছে ২ দশমিক ৭ শতাংশ হারে। গবেষকরা বলছেন, বিশ্বের মধ্যে ঢাকার জনসংখ্যা সবচেয়ে দ্রুত বাড়ছে। নানা প্রয়োজনে প্রতিদিনই লাখো মানুষ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে এখানে আসে। রাজধানীতে মানুষের এই ভিড় নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি। এজন্য বিকেন্দ্রীকরণের বিকল্প নেই।

নিষেধাজ্ঞা চলাকালে ইলিশ শিকার নেপথ্যের চক্রের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নদ-নদী দখলের অবসান চাই

করোনাকালে শিখন ঘাটতির ঝুঁকিতে শিক্ষার্থীরা

মুক্তিযুদ্ধের অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ রক্ষায় সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার জরুরি

নিত্যপণ্যের দাম ও অসাধু সিন্ডিকেট

সড়ক দুর্ঘটনা কি থামবে না

সাম্প্রদায়িক হামলা বন্ধে প্রশাসন কি যথাযথ ভূমিকা রাখতে পারছে

স্পিডবোট চলাচলে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করুন

করোনাকাল ও দারিদ্র্য বিমোচন দিবস

নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে

স্বাধীন দেশে কেন সাম্প্রদায়িকতাকে পরাস্ত করা যাচ্ছে না

‘মা ইলিশ’ নিধন বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মাথাপিছু আয়

আবারও সাম্প্রদায়িক হামলা

আবারও সাম্প্রদায়িক হামলা

ভবদহের জলাবদ্ধতা নিরসন করুন

বজ্রপাতের বিপদ মোকাবিলা করতে হবে

প্রকল্পগুলোর এমন পরিণতির দায় কার

নিত্যপণ্যের দাম কি নিয়ন্ত্রণহীনই থাকবে

হত্যাকান্ডগুলো ‘আত্মহত্যা’য় পরিণত হলো কীভাবে

পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র গৌরবময় অধ্যায়

ঢাকা-লক্ষ্মীপুর লঞ্চ সার্ভিস চালু করুন

তৈরি পোশাক কারখানায় ট্রেড ইউনিয়ন প্রসঙ্গে

আফগানিস্তানে শান্তির দেখা মিলবে কবে

নিত্যপণ্যের বাজারে মানুষের পকেট কাটা বন্ধ করুন

গাঙ্গেয় ডলফিন রক্ষা করুন

দক্ষতা ও মেধাভিত্তিক শ্রমবাজারে প্রবেশ করতে হবে

করোনার টিকা পেতে প্রবাসী শ্রমিকদের ভোগান্তি দূর করুন

ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিন

ফ্র্যাঞ্চাইজি পদ্ধতিতে বাস চালুর উদ্যোগ সফল হোক

ইলিশের অভয়াশ্রমে অর্থনৈতিক অঞ্চল নয়

রোহিঙ্গাদের নিয়ে ব্যবসা করতে চাওয়া গোষ্ঠীর নাম প্রকাশ করুন

বাল্যবিয়ে বন্ধে এনআইডি ব্যবহারের প্রস্তাব

শিক্ষার্থী উপস্থিতির প্রকৃত কারণ চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নিন

উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোর সমস্যা দূর করুন

রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠানের ঋণ প্রসঙ্গে

tab

সম্পাদকীয়

তাপমাত্রা ও রাজধানীবাসীর কর্মক্ষমতা

বুধবার, ০৬ অক্টোবর ২০২১

বৈশ্বিক গড় তাপমাত্রা বাড়ার প্রভাবে বিশ্বের যেসব শহরের মানুষের কর্মক্ষমতা কমছে সেগুলোর মধ্যে ঢাকার অবস্থান শীর্ষে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একাধিক বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষকের যৌথ গবেষণা থেকে জানা গেছে এ তথ্য। দেশটির বিজ্ঞানবিষয়ক সাময়িকী প্রসিডিংস অব দ্য ন্যাশনাল একাডেমি অব সায়েন্সেস-এ গত সোমবার উক্ত গবেষণার ফল প্রকাশিত হয়েছে। এ নিয়ে দেশের গণমাধ্যমগুলো প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

এদিকে ঢাকার দাবদাহ নিয়ে সম্প্রতি ‘ফিজিবিলিটি স্টাডি অন হিট ওয়েভ ইন ঢাকা’ শীর্ষক একটি যৌথ গবেষণা করেছে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি, জার্মান রেডক্রস এবং বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর। তাদের গবেষণায় গরমের সময় পারিপার্শ্বিক অবস্থার প্রভাবে ঢাকায় তাপপ্রবাহের ফলে বেশি ঝুঁকিতে থাকা ২৫টি এলাকা চিহ্নিত করা হয়েছে। গবেষকরা এসব এলাকাকে বলছেন ‘হিট আইল্যান্ড’।

কোন স্থানে তাপমাত্রা বাড়লে তার নেতিবাচক প্রভাব সেখানকার বাসিন্দাদের ওপর পড়ে। বিশেষ করে কায়িক শ্রম দেন যেসব মানুষ নানা শারীরিক চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হন। গরমের মৌসুমে অনেকে হিটস্ট্রোকেও আক্রান্ত হন। হিটস্ট্রোকে মৃত্যুর ঘটনাও বিরল নয়। গরমজনিত নানা অসুখেও ভোগেন অনেকে।

যুক্তরাষ্ট্রের কলাম্বিয়া ইউনিভার্সিটির আর্থ ইনস্টিটিউটের গবেষক ক্যাসকেড টুহলস্কির মতে, চরম উষ্ণতার প্রভাবে অসুস্থতা ও মৃত্যুর হার বাড়ছে। মানুষের কর্মক্ষমতার ওপর এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। তীব্র গরমের মতো প্রতিকূল আবহাওয়ায় স্বাভাবিক অর্থনৈতিক কর্মকান্ড পরিচলনা করা দুরূহ হয়ে পড়ে। গরমের প্রভাবে ঢাকার মানুষের কর্মক্ষমতা কমার কারণে কী পরিমাণ আর্থিক ক্ষতি হচ্ছে সেটা জানা জরুরি।

রাজধানী ঢাকার তাপমাত্রা বাড়ার কারণগুলো চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেয়া জরুরি। সামগ্রিকভাবে বাংলাদেশের তাপমাত্রা বাড়ার পেছনে বৈশ্বিক উষ্ণায়নের দায় ৩৭ শতাংশ। বাকি দায় অভ্যন্তরীণ। বৃক্ষনিধন, নদ-নদী দখল, অপরিকল্পিত নগরায়ন, ইটভাটা, কলকারখানা ও পরিবহনের দূষিত বায়ু প্রভৃতি কারণে তাপমাত্রা বাড়ছে। প্রাণ-প্রকৃতি রক্ষায় বিভিন্ন সময় সরকার যেসব অঙ্গীকার করেছে সেগুলোর পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন জরুরি।

তাপমাত্রা যেমন বাড়ছে, রাজধানীর জনসংখ্যাও তেমন বাড়ছে। ১৯৮৩ সালে ঢাকার জনসংখ্যা ছিল ৪০ লাখ। ২০১৬ সালে সেটা হয়েছে প্রায় দুই কোটি। ঢাকা মহানগরীর জনসংখ্যা বাড়ছে ২ দশমিক ৭ শতাংশ হারে। গবেষকরা বলছেন, বিশ্বের মধ্যে ঢাকার জনসংখ্যা সবচেয়ে দ্রুত বাড়ছে। নানা প্রয়োজনে প্রতিদিনই লাখো মানুষ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে এখানে আসে। রাজধানীতে মানুষের এই ভিড় নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি। এজন্য বিকেন্দ্রীকরণের বিকল্প নেই।

back to top