alt

সম্পাদকীয়

দক্ষতা ও মেধাভিত্তিক শ্রমবাজারে প্রবেশ করতে হবে

: শুক্রবার, ০৮ অক্টোবর ২০২১

বাংলাদেশি কর্মীদের জন্য বিদেশের শ্রমবাজার সংকুচিত হচ্ছে গত চার বছর ধরে। বৈশ্বিক মহামারী নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণের মধ্যে বিদেশের শ্রমবাজার ছোট হতে থাকে আরও দ্রুত। জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের প্রথম আট মাসে বিদেশে গেছেন প্রায় ২ লাখ ৭৬ হাজার জন। অথচ ২০১৭ সালে বিদেশে গিয়েছিলেন ১০ লাখের বেশি কর্মী।

মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার বন্ধ হয়ে গেছে ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে। আর ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুয়ার। যদিও গত বছর বাংলাদেশিদের জন্য আমিরাত আবার সীমিত আকারে দ্বার খুলেছে। আগের মতো সৌদি আরবই এখনো বাংলাদেশি শ্রমিকদের মূল গন্তব্যস্থল। বিএমইটির হিসাব মোতাবেক, ১৯৭৫ সাল থেকে যত কর্মী বিদেশ গেছেন তার মধ্যে ৩৩ শতাংশই গেছেন সৌদি আরব। আর চলতি বছরের প্রথম আট মাসে বিদেশে যাওয়া কর্মীদের মধ্যে ৭৮ ভাগই গেছেন সৌদিতে। পুরোনো শ্রমবাজারে মন্দা, একই গন্ডিতে ঘুরপাক খাওয়া এবং কাক্সিক্ষত হারে নতুন শ্রমবাজারে প্রবেশ করতে না পারার কারণে বাংলাদেশি কর্মীদের বিদেশে কাজ করার সুযোগ সংকুচিত হচ্ছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের বড় উৎস প্রবাসী শ্রমিক। দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা করে বলেছিলেন, মহামারীর সময় প্রবাসী আয় কমবে। কিন্তু তাদের ধারণাকে ভুল প্রমাণিত করে প্রবাসীরা দেশে রেকর্ড পরিমাণ টাকা পাঠিয়েছেন। কিন্তু প্রবাসী আয়ে ভাটা পড়তে শুরু করেছে। টানা তিন মাস ধরে কমছে প্রবাসী আয়। মহামারীর কারণে অনেক প্রবাসী বাধ্য হয়ে দেশে ফিরে আসছেন। অনেকে বলছেন, রেমিটেন্সের জাদু এখন আর নেই। বিষয়টি সরকারকে এখনই গুরুত্ব সহকারে নিতে হবে।

শ্রমবাজার প্রসারিত করতে কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে। বন্ধ হওয়া মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার আবার খুলবে বলে জানা যাচ্ছে। তবে বিদ্যমান শ্রমবাজারের ওপর নির্ভরশীল হয়ে থাকলে চলবে না। নতুন নতুন শ্রমবাজার খুঁজতে হবে। এ লক্ষ্যে সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে।

বাংলাদেশি যেসব শ্রমিক কাজ নিয়ে বিদেশে যান তাদের বেশিরভাগই অদক্ষ। নির্মাণ খাতে, রেস্তোরাঁ, দোকানপাট আর গৃহকর্মই তাদের মূল ভরসা। সমস্যা হচ্ছে, অদক্ষ জনশক্তির চাহিদা বিশ্ববাজারে দিন দিন কমছে। দক্ষতা ও মেধাভিত্তিক শ্রমবাজারে প্রবেশ করার লক্ষ্য নিয়ে এখন থেকেই কাজ শুরু করতে হবে। এজন্য দক্ষ জনশক্তি তৈরির বিকল্প নেই। আন্তর্জাতিক শ্রমবাজারের প্রয়োজনকে বিবেচনায় রেখে সে অনুযায়ী প্রশিক্ষত জনবল গড়ে তোলা জরুরি। এজন্য দরকার মানসম্মত প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও যোগ্য প্রশিক্ষক।

নিষেধাজ্ঞা চলাকালে ইলিশ শিকার নেপথ্যের চক্রের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নদ-নদী দখলের অবসান চাই

করোনাকালে শিখন ঘাটতির ঝুঁকিতে শিক্ষার্থীরা

মুক্তিযুদ্ধের অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ রক্ষায় সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার জরুরি

নিত্যপণ্যের দাম ও অসাধু সিন্ডিকেট

সড়ক দুর্ঘটনা কি থামবে না

সাম্প্রদায়িক হামলা বন্ধে প্রশাসন কি যথাযথ ভূমিকা রাখতে পারছে

স্পিডবোট চলাচলে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠা করুন

করোনাকাল ও দারিদ্র্য বিমোচন দিবস

নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে

স্বাধীন দেশে কেন সাম্প্রদায়িকতাকে পরাস্ত করা যাচ্ছে না

‘মা ইলিশ’ নিধন বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মাথাপিছু আয়

আবারও সাম্প্রদায়িক হামলা

আবারও সাম্প্রদায়িক হামলা

ভবদহের জলাবদ্ধতা নিরসন করুন

বজ্রপাতের বিপদ মোকাবিলা করতে হবে

প্রকল্পগুলোর এমন পরিণতির দায় কার

নিত্যপণ্যের দাম কি নিয়ন্ত্রণহীনই থাকবে

হত্যাকান্ডগুলো ‘আত্মহত্যা’য় পরিণত হলো কীভাবে

পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র গৌরবময় অধ্যায়

ঢাকা-লক্ষ্মীপুর লঞ্চ সার্ভিস চালু করুন

তৈরি পোশাক কারখানায় ট্রেড ইউনিয়ন প্রসঙ্গে

আফগানিস্তানে শান্তির দেখা মিলবে কবে

নিত্যপণ্যের বাজারে মানুষের পকেট কাটা বন্ধ করুন

গাঙ্গেয় ডলফিন রক্ষা করুন

করোনার টিকা পেতে প্রবাসী শ্রমিকদের ভোগান্তি দূর করুন

ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিন

তাপমাত্রা ও রাজধানীবাসীর কর্মক্ষমতা

ফ্র্যাঞ্চাইজি পদ্ধতিতে বাস চালুর উদ্যোগ সফল হোক

ইলিশের অভয়াশ্রমে অর্থনৈতিক অঞ্চল নয়

রোহিঙ্গাদের নিয়ে ব্যবসা করতে চাওয়া গোষ্ঠীর নাম প্রকাশ করুন

বাল্যবিয়ে বন্ধে এনআইডি ব্যবহারের প্রস্তাব

শিক্ষার্থী উপস্থিতির প্রকৃত কারণ চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নিন

উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোর সমস্যা দূর করুন

রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠানের ঋণ প্রসঙ্গে

tab

সম্পাদকীয়

দক্ষতা ও মেধাভিত্তিক শ্রমবাজারে প্রবেশ করতে হবে

শুক্রবার, ০৮ অক্টোবর ২০২১

বাংলাদেশি কর্মীদের জন্য বিদেশের শ্রমবাজার সংকুচিত হচ্ছে গত চার বছর ধরে। বৈশ্বিক মহামারী নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণের মধ্যে বিদেশের শ্রমবাজার ছোট হতে থাকে আরও দ্রুত। জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের প্রথম আট মাসে বিদেশে গেছেন প্রায় ২ লাখ ৭৬ হাজার জন। অথচ ২০১৭ সালে বিদেশে গিয়েছিলেন ১০ লাখের বেশি কর্মী।

মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার বন্ধ হয়ে গেছে ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে। আর ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুয়ার। যদিও গত বছর বাংলাদেশিদের জন্য আমিরাত আবার সীমিত আকারে দ্বার খুলেছে। আগের মতো সৌদি আরবই এখনো বাংলাদেশি শ্রমিকদের মূল গন্তব্যস্থল। বিএমইটির হিসাব মোতাবেক, ১৯৭৫ সাল থেকে যত কর্মী বিদেশ গেছেন তার মধ্যে ৩৩ শতাংশই গেছেন সৌদি আরব। আর চলতি বছরের প্রথম আট মাসে বিদেশে যাওয়া কর্মীদের মধ্যে ৭৮ ভাগই গেছেন সৌদিতে। পুরোনো শ্রমবাজারে মন্দা, একই গন্ডিতে ঘুরপাক খাওয়া এবং কাক্সিক্ষত হারে নতুন শ্রমবাজারে প্রবেশ করতে না পারার কারণে বাংলাদেশি কর্মীদের বিদেশে কাজ করার সুযোগ সংকুচিত হচ্ছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের বড় উৎস প্রবাসী শ্রমিক। দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা করে বলেছিলেন, মহামারীর সময় প্রবাসী আয় কমবে। কিন্তু তাদের ধারণাকে ভুল প্রমাণিত করে প্রবাসীরা দেশে রেকর্ড পরিমাণ টাকা পাঠিয়েছেন। কিন্তু প্রবাসী আয়ে ভাটা পড়তে শুরু করেছে। টানা তিন মাস ধরে কমছে প্রবাসী আয়। মহামারীর কারণে অনেক প্রবাসী বাধ্য হয়ে দেশে ফিরে আসছেন। অনেকে বলছেন, রেমিটেন্সের জাদু এখন আর নেই। বিষয়টি সরকারকে এখনই গুরুত্ব সহকারে নিতে হবে।

শ্রমবাজার প্রসারিত করতে কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে। বন্ধ হওয়া মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার আবার খুলবে বলে জানা যাচ্ছে। তবে বিদ্যমান শ্রমবাজারের ওপর নির্ভরশীল হয়ে থাকলে চলবে না। নতুন নতুন শ্রমবাজার খুঁজতে হবে। এ লক্ষ্যে সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে।

বাংলাদেশি যেসব শ্রমিক কাজ নিয়ে বিদেশে যান তাদের বেশিরভাগই অদক্ষ। নির্মাণ খাতে, রেস্তোরাঁ, দোকানপাট আর গৃহকর্মই তাদের মূল ভরসা। সমস্যা হচ্ছে, অদক্ষ জনশক্তির চাহিদা বিশ্ববাজারে দিন দিন কমছে। দক্ষতা ও মেধাভিত্তিক শ্রমবাজারে প্রবেশ করার লক্ষ্য নিয়ে এখন থেকেই কাজ শুরু করতে হবে। এজন্য দক্ষ জনশক্তি তৈরির বিকল্প নেই। আন্তর্জাতিক শ্রমবাজারের প্রয়োজনকে বিবেচনায় রেখে সে অনুযায়ী প্রশিক্ষত জনবল গড়ে তোলা জরুরি। এজন্য দরকার মানসম্মত প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও যোগ্য প্রশিক্ষক।

back to top