alt

সম্পাদকীয়

ড্যাপের খসড়া : অংশীজনদের যৌক্তিক মত গ্রহণ করা জরুরি

: সোমবার, ২২ নভেম্বর ২০২১

ঢাকা মহানগরী গড়ে উঠেছে অপরিকল্পিতভাবে। এ অবস্থার অবসান ঘটাতে চাচ্ছে সরকার। রাজধানীকে পরিকল্পিতভাবে গড়ে তুলতে ড্যাপ প্রণয়ন করা হয়েছিল। এর উদ্দেশ্য ছিল, ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটি নিরাপদ ও বাসযোগ্য নগরী গড়ে তোলা। ড্যাপ বাস্তবায়নে সরকারের সাফল্য নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। এ অবস্থাতেই আবার নতুন ড্যাপের খসড়া করা হয়েছে।

খসড়া ড্যাপ (২০১৬-২০৩৫) চূড়ান্ত করার লক্ষ্যে গত শনিবার রাজধানীতে সেমিনারের আয়োজন করে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক)। খসড়ায় নতুন করে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর জেলার কিছু অংশ সংযোজন করা হয়েছে।

ভবিষ্যৎ প্রজন্মের নিরাপদ আবাসস্থলের জন্য নগর পরিকল্পনার দৃষ্টিকোণ থেকে ও বাস্তবতার নিরিখে ড্যাপ প্রণয়ন করা হয়েছে বলে দাবি করছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। তারা বলছেন, ড্যাপের মাধ্যমে সুনির্দিষ্ট ভূমি ব্যবহারসহ সামাজিক চাহিদার জন্য প্রয়োজনীয় স্থানসমূহ চিহ্নিত করা হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন এলাকার নিজস্ব বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য সংরক্ষণের ব্যবস্থাও নেয়া হচ্ছে।

রাজউকের দেওয়া তথ্যানুযায়ী, ঢাকা স্ট্রাকচার প্ল্যান (১৯৯৫-২০১৫) এর আওতায় সমগ্র রাজউক এলাকার জন্য ২০০৪ সালে ড্যাপ (২০১০-২০১৫) প্রণয়নের কাজ শুরু হয়। এই ড্যাপ অনুযায়ী রাজউক বিভিন্ন উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ ও উন্নয়ন নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম করেছিল। কিন্তু পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন ও সমন্বয়হীতার অভাবে নগরবাসী এর সুফল থেকে বঞ্চিত হয়েছে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন।

নতুন ড্যাপ প্রণয়ন করার কথা ছিল আরো পাঁচ বছর আগে। অথচ এখনও এর খসড়াই চূড়ান্ত করা যায়নি। তাহলে এর বাস্তবায়ন শুরু হবে কবে আর এর সুফলই মিলবে কবে থেকে। পরিকল্পনা হতে হয় সময়োপযোগী ও বাস্তবসম্মত। তাহলে সেটা বাস্তবায়ন করা সহজ হয়। দেশে পরিকল্পনা করা হয় বহু। কিন্তু তার বাস্তবায়নের হার নগন্য।

খসড়ায় বলা হয়েছে-পূর্বের ড্যাপের ত্রুটি-বিচ্যুতি সংশোধন এবং স্থানীয় জনসাধারণকে সম্পৃক্ত করে একটি জনবান্ধব, বাস্তবসম্মত ড্যাপ প্রণয়ন করা হবে। নিশ্চয়ই খসড়াও এ লক্ষ্যে প্রণয়ন করা হয়েছে। কিন্তু খসড়ার বিভিন্ন দিক নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন রাজনীতিবিদ, নগর পরিকল্পনাবিদ, পরিবেশবাদীসহ নানান অংশীজনরা। অভিযোগ উঠেছে যে, খসড়ায় প্লাবন ভূমির অযাচিত শ্রেণী বিন্যাস রাখা হয়েছে।

খসড়ায় মিশ্র এলাকা ও নদীর চারপাশে ভারি ও মাঝারি ধরনের শিল্প কল-কারখানা করতে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এর মাধ্যমে অনেক দখলদারদের বৈধতা দেওয়ার যাত্রা শুরু হচ্ছে বলে মতপ্রকাশ করেছেন অনেকে। আমরা বলতে চাই, দখলদারিত্বের অবসান ঘটানো না গেলে রাজধানীর পরিবেশ রক্ষা করা সম্ভব হবে না। ড্যাপ চূড়ান্ত করার আগে এসব বিষয় আমলে নেয়া হবে বলে আমরা আশা করি। সংশ্লিষ্টদের ডেকে শুধু মতামত নিলেই হবে না। যৌক্তিক মত গ্রহণ করা জরুরি। ড্যাপ প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে অতীতের মতো কারও কাছে নতি স্বীকার করা যাবে না।

যক্ষ্মা ও এইডস রোগ নির্মূল কর্মসূচি প্রসঙ্গে

সড়কে মৃত্যুর মিছিল বন্ধ হোক

ফিটনেসছাড়া ফেরিগুলো চলছে কীভাবে

বায়ুদূষণ রোধে সমন্বিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরছে প্রাণ

রাষ্ট্রপতির সময়োপযোগী আহ্বান

অভিনন্দন সুপ্তা, নারী ক্রীড়াবিদদের জয়যাত্রা অব্যাহত থাকুক

নারীর সুরক্ষায় আইনের কঠোর প্রয়োগ ঘটাতে হবে

শিক্ষার্থীদের ‘হাফ পাসের’ দাবি বিবেচনা করুন

দুদকের কাজ কঠিন তবে অসম্ভব নয়

করোনার সংক্রমণ কমলেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে

দক্ষিণাঞ্চলে ফায়ার সার্ভিসের সমস্যা দূর করুন

আইসিটি শিক্ষক সংকট দূর করুন

শৌচাগার সংকট থেকে রাজধানীবাসীকে উদ্ধার করুন

শিশুর জন্য উন্নত ভবিষ্যৎ

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

মজুরি বৈষম্যের অবসান চাই

শিল্পনগরে বারবার আগুন লাগার কারণ কী

প্রতিবন্ধীদের টেকসই উন্নয়ন ও সুনির্দিষ্ট বরাদ্দ

‘মুজিবকিল্লা’ দখলমুক্ত করুন

নির্বাচনে অনিয়মের বিরুদ্ধে যদি ব্যবস্থাই না নেবে, তাহলে ইসির প্রয়োজন কী

ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় প্রস্তুতি থাকতে হবে

পদত্যাগ করার স্বাধীনতা কে কেড়ে নিয়েছে

ইঁদুরের উপদ্রব থেকে কৃষিকে রক্ষা করতে হবে

জলবায়ু সম্মেলন : প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির হিসাব কি মিলল

অনিয়ম-দুর্নীতির আরেক উদাহরণ

বাসের ড্রাইভার-হেলপারদের বেপরোয়া মনোভাব বদলাবে কীভাবে

পরীক্ষার্থীদের জন্য শুভ কামনা

ধর্ষণ মামলার রায় : আদালতের পর্যবেক্ষণ ও কিছু প্রশ্ন

সমন্বয়হীন রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ি

পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিকের কারখানা কি সরবে না

লোকালয়ে এসে হাতিগুলোকে মারা পড়তে হচ্ছে কেন

নিত্যপণ্যের বাজার : মানুষ নিঃস্ব করার কল

প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ডের কী প্রয়োজন

দ্বিতীয় দফার ইউপি নির্বাচন

সেতু নির্মাণ আর সংস্কারের খেলা

tab

সম্পাদকীয়

ড্যাপের খসড়া : অংশীজনদের যৌক্তিক মত গ্রহণ করা জরুরি

সোমবার, ২২ নভেম্বর ২০২১

ঢাকা মহানগরী গড়ে উঠেছে অপরিকল্পিতভাবে। এ অবস্থার অবসান ঘটাতে চাচ্ছে সরকার। রাজধানীকে পরিকল্পিতভাবে গড়ে তুলতে ড্যাপ প্রণয়ন করা হয়েছিল। এর উদ্দেশ্য ছিল, ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটি নিরাপদ ও বাসযোগ্য নগরী গড়ে তোলা। ড্যাপ বাস্তবায়নে সরকারের সাফল্য নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। এ অবস্থাতেই আবার নতুন ড্যাপের খসড়া করা হয়েছে।

খসড়া ড্যাপ (২০১৬-২০৩৫) চূড়ান্ত করার লক্ষ্যে গত শনিবার রাজধানীতে সেমিনারের আয়োজন করে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক)। খসড়ায় নতুন করে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর জেলার কিছু অংশ সংযোজন করা হয়েছে।

ভবিষ্যৎ প্রজন্মের নিরাপদ আবাসস্থলের জন্য নগর পরিকল্পনার দৃষ্টিকোণ থেকে ও বাস্তবতার নিরিখে ড্যাপ প্রণয়ন করা হয়েছে বলে দাবি করছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। তারা বলছেন, ড্যাপের মাধ্যমে সুনির্দিষ্ট ভূমি ব্যবহারসহ সামাজিক চাহিদার জন্য প্রয়োজনীয় স্থানসমূহ চিহ্নিত করা হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন এলাকার নিজস্ব বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য সংরক্ষণের ব্যবস্থাও নেয়া হচ্ছে।

রাজউকের দেওয়া তথ্যানুযায়ী, ঢাকা স্ট্রাকচার প্ল্যান (১৯৯৫-২০১৫) এর আওতায় সমগ্র রাজউক এলাকার জন্য ২০০৪ সালে ড্যাপ (২০১০-২০১৫) প্রণয়নের কাজ শুরু হয়। এই ড্যাপ অনুযায়ী রাজউক বিভিন্ন উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ ও উন্নয়ন নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম করেছিল। কিন্তু পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন ও সমন্বয়হীতার অভাবে নগরবাসী এর সুফল থেকে বঞ্চিত হয়েছে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন।

নতুন ড্যাপ প্রণয়ন করার কথা ছিল আরো পাঁচ বছর আগে। অথচ এখনও এর খসড়াই চূড়ান্ত করা যায়নি। তাহলে এর বাস্তবায়ন শুরু হবে কবে আর এর সুফলই মিলবে কবে থেকে। পরিকল্পনা হতে হয় সময়োপযোগী ও বাস্তবসম্মত। তাহলে সেটা বাস্তবায়ন করা সহজ হয়। দেশে পরিকল্পনা করা হয় বহু। কিন্তু তার বাস্তবায়নের হার নগন্য।

খসড়ায় বলা হয়েছে-পূর্বের ড্যাপের ত্রুটি-বিচ্যুতি সংশোধন এবং স্থানীয় জনসাধারণকে সম্পৃক্ত করে একটি জনবান্ধব, বাস্তবসম্মত ড্যাপ প্রণয়ন করা হবে। নিশ্চয়ই খসড়াও এ লক্ষ্যে প্রণয়ন করা হয়েছে। কিন্তু খসড়ার বিভিন্ন দিক নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন রাজনীতিবিদ, নগর পরিকল্পনাবিদ, পরিবেশবাদীসহ নানান অংশীজনরা। অভিযোগ উঠেছে যে, খসড়ায় প্লাবন ভূমির অযাচিত শ্রেণী বিন্যাস রাখা হয়েছে।

খসড়ায় মিশ্র এলাকা ও নদীর চারপাশে ভারি ও মাঝারি ধরনের শিল্প কল-কারখানা করতে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এর মাধ্যমে অনেক দখলদারদের বৈধতা দেওয়ার যাত্রা শুরু হচ্ছে বলে মতপ্রকাশ করেছেন অনেকে। আমরা বলতে চাই, দখলদারিত্বের অবসান ঘটানো না গেলে রাজধানীর পরিবেশ রক্ষা করা সম্ভব হবে না। ড্যাপ চূড়ান্ত করার আগে এসব বিষয় আমলে নেয়া হবে বলে আমরা আশা করি। সংশ্লিষ্টদের ডেকে শুধু মতামত নিলেই হবে না। যৌক্তিক মত গ্রহণ করা জরুরি। ড্যাপ প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে অতীতের মতো কারও কাছে নতি স্বীকার করা যাবে না।

back to top