alt

সম্পাদকীয়

সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরছে প্রাণ

: বৃহস্পতিবার, ২৫ নভেম্বর ২০২১

গণপরিবহনে ‘হাফ পাসের’ দাবিতে কয়েকদিন ধরেই শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চলছিল। তার সঙ্গে এখন নতুন করে যুক্ত হয়েছে নিরাপদ সড়কের দাবি।

গাড়িচাপায় নটর ডেম কলেজের শিক্ষার্থী নাঈম হাসানের (১৭) মৃত্যুর ঘটনায় বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা সড়কে আন্দোলন করছে। গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, গতকাল বুধবার শিক্ষার্থী নাঈম গুলিস্তানে সড়ক পার হওয়ার সময় ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) একটি ময়লার গাড়ি তাকে ধাক্কা দেয়। সঙ্গে সঙ্গে সে পড়ে যায়। এরপর গাড়িটি না থেমে তাকে চাপা দেয়।

ডিএসসিসির ভাষ্য অনুযায়ী, গাড়িটি চালাচ্ছিল একজন পরিচ্ছন্নতা কর্মী। কিন্ত পুলিশ জানিয়েছে গাড়িটি চালাচ্ছিল পরিচ্ছন্নতা কর্মীর সহকারী। অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তবে গ্রেপ্তারকৃত অভিযুক্তের বিচার হবে কি না তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

ব্যক্তি মালিকানাধীন গাড়ি ও পরিবহনে নানান অনিয়ম ঘটতে দেখা যায়। লাইসেন্স, ফিটনেস ছাড়া গাড়ি চালানো, চালকের পরিবর্তে সহকারী দিয়ে গাড়ি চালানো- এসব পুরোনো অভিযোগ। কিন্তু ডিএসসিসির মতো একটি দায়িত্বশীল প্রতিষ্ঠানের গাড়ি চালানোর ক্ষেত্রে নৈরাজ্য চলে কীভাবে- সেই প্রশ্ন উঠেছে। এক্ষত্রে কর্তৃপক্ষের কোন গাফিলতি আছে কিনা- সেটা খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।

২০১৮ সালে সড়ক দুর্ঘটনায় দুই কলেজ শিক্ষার্থীর মৃত্যুর পরে দেশব্যাপী নিরাপদ সড়কের আন্দোলন শুরু হয়। তখন নতুন করে সড়ক আইন পাসের পাশাপাশি দুর্ঘটনা অভিযুক্তদের দ্রুত বিচারেরও আশ্বাস দেয়া হয়। কিন্তু সেই দুর্ঘটনার বিচার এখনও হয়নি।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পর যে সড়ক আইন পাস হয়েছে তাতে অনেক দুর্বলতা আছে বলে অভিযোগ রয়েছে। আইনের যথাযথ প্রয়োগেও শৈথিল্য দেখা যায়। যে কারণে শিক্ষার্থীদের দাবি অনুযায়ী সড়ক নিরাপদ করা যাচ্ছে না। প্রায়ই সড়কে দুর্ঘটনা ঘটে। সেসব দুর্ঘটনায় সাধারণ মানুষসহ শিক্ষার্থীরা হতাহত হয়। আজ সকালেও চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার কড়ইয়া (বিশ্বরোড) নামক স্থানে এক সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারায় তিনজন কলেজ শিক্ষার্থী। একই দিনে রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি কমপ্লেক্সের উল্টোদিকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ময়লার গাড়ির চাপায় প্রাণ হারান আহসান কবির খান নামে একজন সংবাদ কর্মী।

সড়ক নিরাপদ করতে হলে আইনের কঠোর প্রয়োগ করতে হবে। সড়ক দুর্ঘটনার জন্য দায়ীদের বিচার করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হবে। শিক্ষার্থীরা এখন ছয়টি দাবি নিয়ে আন্দোলন করছে। তাদের দাবিগুলো সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করতে হবে।

যক্ষ্মা ও এইডস রোগ নির্মূল কর্মসূচি প্রসঙ্গে

সড়কে মৃত্যুর মিছিল বন্ধ হোক

ফিটনেসছাড়া ফেরিগুলো চলছে কীভাবে

বায়ুদূষণ রোধে সমন্বিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

রাষ্ট্রপতির সময়োপযোগী আহ্বান

অভিনন্দন সুপ্তা, নারী ক্রীড়াবিদদের জয়যাত্রা অব্যাহত থাকুক

নারীর সুরক্ষায় আইনের কঠোর প্রয়োগ ঘটাতে হবে

শিক্ষার্থীদের ‘হাফ পাসের’ দাবি বিবেচনা করুন

দুদকের কাজ কঠিন তবে অসম্ভব নয়

ড্যাপের খসড়া : অংশীজনদের যৌক্তিক মত গ্রহণ করা জরুরি

করোনার সংক্রমণ কমলেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে

দক্ষিণাঞ্চলে ফায়ার সার্ভিসের সমস্যা দূর করুন

আইসিটি শিক্ষক সংকট দূর করুন

শৌচাগার সংকট থেকে রাজধানীবাসীকে উদ্ধার করুন

শিশুর জন্য উন্নত ভবিষ্যৎ

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

মজুরি বৈষম্যের অবসান চাই

শিল্পনগরে বারবার আগুন লাগার কারণ কী

প্রতিবন্ধীদের টেকসই উন্নয়ন ও সুনির্দিষ্ট বরাদ্দ

‘মুজিবকিল্লা’ দখলমুক্ত করুন

নির্বাচনে অনিয়মের বিরুদ্ধে যদি ব্যবস্থাই না নেবে, তাহলে ইসির প্রয়োজন কী

ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় প্রস্তুতি থাকতে হবে

পদত্যাগ করার স্বাধীনতা কে কেড়ে নিয়েছে

ইঁদুরের উপদ্রব থেকে কৃষিকে রক্ষা করতে হবে

জলবায়ু সম্মেলন : প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির হিসাব কি মিলল

অনিয়ম-দুর্নীতির আরেক উদাহরণ

বাসের ড্রাইভার-হেলপারদের বেপরোয়া মনোভাব বদলাবে কীভাবে

পরীক্ষার্থীদের জন্য শুভ কামনা

ধর্ষণ মামলার রায় : আদালতের পর্যবেক্ষণ ও কিছু প্রশ্ন

সমন্বয়হীন রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ি

পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিকের কারখানা কি সরবে না

লোকালয়ে এসে হাতিগুলোকে মারা পড়তে হচ্ছে কেন

নিত্যপণ্যের বাজার : মানুষ নিঃস্ব করার কল

প্রাথমিক শিক্ষা বোর্ডের কী প্রয়োজন

দ্বিতীয় দফার ইউপি নির্বাচন

সেতু নির্মাণ আর সংস্কারের খেলা

tab

সম্পাদকীয়

সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরছে প্রাণ

বৃহস্পতিবার, ২৫ নভেম্বর ২০২১

গণপরিবহনে ‘হাফ পাসের’ দাবিতে কয়েকদিন ধরেই শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চলছিল। তার সঙ্গে এখন নতুন করে যুক্ত হয়েছে নিরাপদ সড়কের দাবি।

গাড়িচাপায় নটর ডেম কলেজের শিক্ষার্থী নাঈম হাসানের (১৭) মৃত্যুর ঘটনায় বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা সড়কে আন্দোলন করছে। গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, গতকাল বুধবার শিক্ষার্থী নাঈম গুলিস্তানে সড়ক পার হওয়ার সময় ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) একটি ময়লার গাড়ি তাকে ধাক্কা দেয়। সঙ্গে সঙ্গে সে পড়ে যায়। এরপর গাড়িটি না থেমে তাকে চাপা দেয়।

ডিএসসিসির ভাষ্য অনুযায়ী, গাড়িটি চালাচ্ছিল একজন পরিচ্ছন্নতা কর্মী। কিন্ত পুলিশ জানিয়েছে গাড়িটি চালাচ্ছিল পরিচ্ছন্নতা কর্মীর সহকারী। অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তবে গ্রেপ্তারকৃত অভিযুক্তের বিচার হবে কি না তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

ব্যক্তি মালিকানাধীন গাড়ি ও পরিবহনে নানান অনিয়ম ঘটতে দেখা যায়। লাইসেন্স, ফিটনেস ছাড়া গাড়ি চালানো, চালকের পরিবর্তে সহকারী দিয়ে গাড়ি চালানো- এসব পুরোনো অভিযোগ। কিন্তু ডিএসসিসির মতো একটি দায়িত্বশীল প্রতিষ্ঠানের গাড়ি চালানোর ক্ষেত্রে নৈরাজ্য চলে কীভাবে- সেই প্রশ্ন উঠেছে। এক্ষত্রে কর্তৃপক্ষের কোন গাফিলতি আছে কিনা- সেটা খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।

২০১৮ সালে সড়ক দুর্ঘটনায় দুই কলেজ শিক্ষার্থীর মৃত্যুর পরে দেশব্যাপী নিরাপদ সড়কের আন্দোলন শুরু হয়। তখন নতুন করে সড়ক আইন পাসের পাশাপাশি দুর্ঘটনা অভিযুক্তদের দ্রুত বিচারেরও আশ্বাস দেয়া হয়। কিন্তু সেই দুর্ঘটনার বিচার এখনও হয়নি।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পর যে সড়ক আইন পাস হয়েছে তাতে অনেক দুর্বলতা আছে বলে অভিযোগ রয়েছে। আইনের যথাযথ প্রয়োগেও শৈথিল্য দেখা যায়। যে কারণে শিক্ষার্থীদের দাবি অনুযায়ী সড়ক নিরাপদ করা যাচ্ছে না। প্রায়ই সড়কে দুর্ঘটনা ঘটে। সেসব দুর্ঘটনায় সাধারণ মানুষসহ শিক্ষার্থীরা হতাহত হয়। আজ সকালেও চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার কড়ইয়া (বিশ্বরোড) নামক স্থানে এক সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারায় তিনজন কলেজ শিক্ষার্থী। একই দিনে রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি কমপ্লেক্সের উল্টোদিকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ময়লার গাড়ির চাপায় প্রাণ হারান আহসান কবির খান নামে একজন সংবাদ কর্মী।

সড়ক নিরাপদ করতে হলে আইনের কঠোর প্রয়োগ করতে হবে। সড়ক দুর্ঘটনার জন্য দায়ীদের বিচার করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হবে। শিক্ষার্থীরা এখন ছয়টি দাবি নিয়ে আন্দোলন করছে। তাদের দাবিগুলো সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করতে হবে।

back to top