alt

উপ-সম্পাদকীয়

হাঁস-মুরগির রোগ ও চিকিৎসা

আরাফাত রহমান

: মঙ্গলবার, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

এভিয়ান টিউবারকুলোসিস, মাইকোব্যাকটেরিয়াম টিউবারকুলোসিস ঘটিত হাঁস-মুরগির একটি ব্যাকটেরিয়াজনিত রোগ। রোগটি খুবই মারাত্মক, তবে যেসব সাধারণ খামার ও বাড়িতে দীর্ঘকাল হাঁস-মুরগি প্রতিপালিত হচ্ছে সেখানেই এ রোগের প্রাদুর্ভাব বেশি। আধুনিক হাঁস-মুরগির খামারে রোগটির প্রকোপ কম, কারণ সেখানে সাধারণত দু’বছরের বেশি সময় এদের রাখা হয় না। দেশি মোরগ-মুরগি, টার্কি ও গিনি ফাউল জীবাণু দ্বারা সহজে আক্রান্ত হয়, কিন্তু হাঁসে সচরাচর সংক্রমণ কম। তিন থেকে ছয় মাস বয়সের বাচ্চাদের মধ্যে এ রোগপ্রবণতা বেশি। রোগটি বাংলাদেশের হাঁস-মুরগির খামারের জন্য তেমন কোন হুমকি নয়। শীতকালে মাঝে মধ্যে যক্ষ্মার প্রাদুর্ভাব দেখা যায়, রোগ ধীরে ধীরে বাড়ে এবং আক্রমণের অনেক দিন পর মুরগি মারা যায়। কখনও কখনও আক্রান্ত মুরগির দেহের ওজন কমে যায় এবং সেটি খুঁড়িয়ে হাঁটে।

কক্সিডিওসিস, এইমেরিয়া গনের কতিপয় প্রজাতির প্রোটোজোয়া দ্বারা সংক্রমিত এক রোগ। অন্তত সাতটি প্রজাতির মধ্যে E. tenella প্রধানত বাংলাদেশে কক্সিডিওসিস রোগ সৃষ্টির জন্য দায়ী। এ রোগে পশুপাখিগুলো ঝিমিয়ে পড়ে, খাওয়া বন্ধ করে এবং বিষ্ঠায় রক্ত দেখা যায়। আক্রান্ত পাখির মৃত্যুর হার যথেষ্ট বেশি। মুরগির কলেরা Pasteurella নামের ব্যাকটেরিয়াজনিত মুরগির মারাত্মক সংক্রামক রোগ। এটি হিমোরেজিক সেপটিসেমিয়া নামেও পরিচিত। বাংলাদেশে মাঝে-মধ্যে এ রোগের মড়ক দেখা দেয়। তিন থেকে ছয় মাস বয়সী মুরগিই অধিক আক্রান্ত হয়। রুগ্ণ পাখি দ্বারা দূষিত মাটি, খাদ্য ও পানির মাধ্যমে রোগটি ছড়ায়।

পাখির বসন্ত মুরগির ভাইরাসজনিত ব্যাধি। এর লক্ষণ আঁচিলের মতো গন্ডিকা, যা নানা আকারের হতে পারে। কোনটি শিমের দানা আবার কোনটি এর চেয়ে অপেক্ষাকৃত কিছুটা বড় হয়ে থাকে। গন্ডিকাগুলো মুরগির ঝুঁটি, চোখের পাতা এবং নাকের ও কানের ছিদ্রের প্রবেশ পথে বা মাথার অন্যান্য অংশে তৈরি হয়। বাংলাদেশে সচরাচর শীতকালে রোগটির প্রাদুর্ভাব ঘটে। অপেক্ষাকৃত বয়স্ক পাখির তুলনায় কমবয়সী পাখি এ রোগে বেশি ভুগে। মৃত্যুহার খুব একটা উল্লেখ করার মতো নয়। পাখির টাইফয়েড গৃহপালিত পাখির রক্তদূষণজনিত ব্যাধি। এর আক্রমণ তীব্র এবং এতে মৃত্যুহার অধিক। রোগের কারণ Bacillus gallinarum ব্যাকটেরিয়া। আক্রান্ত পাখির মল দ্বারা দূষিত খাদ্য ও পানির মাধ্যমে প্রাকৃতিকভাবে এ রোগের সংক্রমণ ঘটে। বাংলাদেশে গ্রীষ্মকালে এর প্রাদুর্ভাব বেশি। মৃত্যুর হার শতকরা ২০-৮০ ভাগ।

বাংলাদেশের হাঁস-মুরগির প্রচুর পরজীবী শনাক্ত করা হয়েছে, আর এগুলোর বেশিরভাগই সন্ধিপদ ও চ্যাপ্টা-কৃমির দলভুক্ত। এক জাতের এঁটেল থাকে মুরগির খোয়ার ও খামারঘরের চিড় ও ফাটলে। পরজীবী হাঁস-মুরগির অনিদ্রা ও রক্তস্বল্পতা ঘটায়, উৎপাদন ক্ষমতা কমায় এবং এদের মধ্যে স্পাইরোকিটোসিস ও রিকেটসিয়ার মতো রোগ ছড়ায়। উকুন হাঁস-মুরগির ত্বকের উপরিভাগে বাস করে এবং চুলকানি, ওজন-হ্রাস, দুর্বলতা, ডিম পাড়ার ক্ষমতাহানি এমনকি ছানাদের মৃত্যু পর্যন্ত ঘটাতে পারে। বাংলাদেশে হাঁস-মুরগির প্রধানত ১২ প্রজাতির কৃমির মধ্যে A. galli ও Raillietina প্রজাতিগুলো আর্থিক দিক থেকে ক্ষতিকর রোগ ঘটায়। এতে সংক্রমণের স্থান অত্যধিক ফুলে ওঠে। গ্রামীণ পরিবেশে এ পরজীবী বেশি দেখা যায়।

রানিক্ষেত মুরগির একটি তীব্র ভাইরাস রোগ। দৃশ্যত মুরগির প্লেগের মতো হলেও এটি পৃথক ও অনাক্রম্যতা অনুসারে সুচিহ্নিত আরেকটি ভাইরাসজনিত রোগ। ১৯২৬ সালে ইংল্যান্ডের নিউক্যাস্লেস অঞ্চলে প্রথম শনাক্ত হওয়ার জন্যই এ নামকরণ। রোগের প্রাথমিক লক্ষণ হাঁচি-কাশি, জবুথবু অবস্থা, অতঃপর কাঁপুনি, পাক খাওয়া, পড়ে যাওয়া, মাথা ও গলা মোড়ানো বা সম্পূর্ণ পক্ষাঘাত। সব ব্রয়লার মোরগ এ রোগপ্রবণ হলেও ৩-৮ সপ্তাহ বয়সীরাই বেশি আক্রান্ত হয়। মৃত্যুহার ৮০-১০০%। প্রধান লক্ষণ হলুদ-সাদা রঙের চুনের মতো দুর্গন্ধযুক্ত উদরাময়। আরেকটি বিশিষ্ট লক্ষণ মুখে হাঁপিয়ে হাঁপিয়ে দীর্ঘশ্বাস নেয়া। বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চলে এ রোগের প্রকোপ অত্যধিক এবং মোরগ মড়কের প্রধান হেতু। আক্রান্ত ডিম পাড়া মুরগির ডিমের সংখ্যা ও মান দ্রুত হ্রাস পায়। চিকিৎসার জন্য এখন টিকা পাওয়া যায়।

[লেখক : সহকারী কর্মকর্তা, ক্যারিয়ার অ্যান্ড প্রফেশনাল ডেভেলপমেন্ট সার্ভিসেস বিভাগ, সাউথইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়]

ধনী হওয়ার মন্ত্র ও বোকা বানানোর যন্ত্র

মুজিব বাহিনী ও মুজিববাদ

দেশের ইস্পাত শিল্প

আদিবাসীদের শ্মশানও দখল হয়ে গেল

অন্ধকার অতল গহ্বরে আফগান জনগণ

সংকটে রবিদাস জনগোষ্ঠী

প্রশাসনকে মাটির কাছাকাছি আসতে হবে

তালেবানদের সরকার গঠন

যেখানে সময় এসে মানুষকে ধরা দেয়

পশ্চিমবঙ্গে বিরোধী রাজনীতির ঘূর্ণাবর্ত

ছবি

শিক্ষা দিবস

সাংস্কৃতিক কার্যক্রম শূন্যতা ও জঙ্গিবাদ

ঐতিহাসিক সত্য উন্মোচনে ট্রুথ কমিশন

’৬২-এর শিক্ষা আন্দোলন ও আজকের শিক্ষা

আন্তর্জাতিক ওজন দিবস

ভূমিসংক্রান্ত অপরাধ দমনে আইন প্রণয়ন জরুরি

ছবি

শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা

বেশি দামে সার বিক্রিতে প্রতারিত হচ্ছেন কৃষক

দুর্নীতিতে জিরো টলারেন্স

ছবি

রাষ্ট্রনায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব

মহামারীকালে মানসিক স্বাস্থ্য

করোনার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রস্তুতি

ছবি

টিকা বিভ্রান্তি ও রাজনীতি

আফগানিস্তানে তালেবান ও বাংলাদেশে এর প্রভাব

মহামারী, প্রতারণার ফাঁদ এবং রেমিট্যান্স যোদ্ধাদের যুদ্ধ

নেতিবাচক খবরের প্রাধান্য

ই কমার্স : আমাদের ভরসা যেন কাচের দেয়াল

স্কুল খোলার পর শিক্ষার্থীদের আচরণগত প্রতিক্রিয়া ও প্রতিকার

ভারতে পুলিশের সফট টার্গেট মুসলমান

শেয়ারবাজারে আস্থা যেন অনাস্থায় পরিণত না হয়

মেডিকেল বর্জ্য অব্যবস্থাপনা, দায় কার?

ছবি

মেট্রোরেল : রূপকথা নয়, দৃশ্যমান বাস্তবতা

ছবি

মানুষে মানুষে বন্ধন গড়ার কারিগর

ছবি

কৃষি-উদ্যোক্তা হতে করণীয়

ছবি

খুলছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, মানতে হবে স্বাস্থ্যবিধি

শিক্ষকদের স্বতন্ত্র বেতন স্কেল বাস্তবায়ন প্রসঙ্গে

tab

উপ-সম্পাদকীয়

হাঁস-মুরগির রোগ ও চিকিৎসা

আরাফাত রহমান

মঙ্গলবার, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

এভিয়ান টিউবারকুলোসিস, মাইকোব্যাকটেরিয়াম টিউবারকুলোসিস ঘটিত হাঁস-মুরগির একটি ব্যাকটেরিয়াজনিত রোগ। রোগটি খুবই মারাত্মক, তবে যেসব সাধারণ খামার ও বাড়িতে দীর্ঘকাল হাঁস-মুরগি প্রতিপালিত হচ্ছে সেখানেই এ রোগের প্রাদুর্ভাব বেশি। আধুনিক হাঁস-মুরগির খামারে রোগটির প্রকোপ কম, কারণ সেখানে সাধারণত দু’বছরের বেশি সময় এদের রাখা হয় না। দেশি মোরগ-মুরগি, টার্কি ও গিনি ফাউল জীবাণু দ্বারা সহজে আক্রান্ত হয়, কিন্তু হাঁসে সচরাচর সংক্রমণ কম। তিন থেকে ছয় মাস বয়সের বাচ্চাদের মধ্যে এ রোগপ্রবণতা বেশি। রোগটি বাংলাদেশের হাঁস-মুরগির খামারের জন্য তেমন কোন হুমকি নয়। শীতকালে মাঝে মধ্যে যক্ষ্মার প্রাদুর্ভাব দেখা যায়, রোগ ধীরে ধীরে বাড়ে এবং আক্রমণের অনেক দিন পর মুরগি মারা যায়। কখনও কখনও আক্রান্ত মুরগির দেহের ওজন কমে যায় এবং সেটি খুঁড়িয়ে হাঁটে।

কক্সিডিওসিস, এইমেরিয়া গনের কতিপয় প্রজাতির প্রোটোজোয়া দ্বারা সংক্রমিত এক রোগ। অন্তত সাতটি প্রজাতির মধ্যে E. tenella প্রধানত বাংলাদেশে কক্সিডিওসিস রোগ সৃষ্টির জন্য দায়ী। এ রোগে পশুপাখিগুলো ঝিমিয়ে পড়ে, খাওয়া বন্ধ করে এবং বিষ্ঠায় রক্ত দেখা যায়। আক্রান্ত পাখির মৃত্যুর হার যথেষ্ট বেশি। মুরগির কলেরা Pasteurella নামের ব্যাকটেরিয়াজনিত মুরগির মারাত্মক সংক্রামক রোগ। এটি হিমোরেজিক সেপটিসেমিয়া নামেও পরিচিত। বাংলাদেশে মাঝে-মধ্যে এ রোগের মড়ক দেখা দেয়। তিন থেকে ছয় মাস বয়সী মুরগিই অধিক আক্রান্ত হয়। রুগ্ণ পাখি দ্বারা দূষিত মাটি, খাদ্য ও পানির মাধ্যমে রোগটি ছড়ায়।

পাখির বসন্ত মুরগির ভাইরাসজনিত ব্যাধি। এর লক্ষণ আঁচিলের মতো গন্ডিকা, যা নানা আকারের হতে পারে। কোনটি শিমের দানা আবার কোনটি এর চেয়ে অপেক্ষাকৃত কিছুটা বড় হয়ে থাকে। গন্ডিকাগুলো মুরগির ঝুঁটি, চোখের পাতা এবং নাকের ও কানের ছিদ্রের প্রবেশ পথে বা মাথার অন্যান্য অংশে তৈরি হয়। বাংলাদেশে সচরাচর শীতকালে রোগটির প্রাদুর্ভাব ঘটে। অপেক্ষাকৃত বয়স্ক পাখির তুলনায় কমবয়সী পাখি এ রোগে বেশি ভুগে। মৃত্যুহার খুব একটা উল্লেখ করার মতো নয়। পাখির টাইফয়েড গৃহপালিত পাখির রক্তদূষণজনিত ব্যাধি। এর আক্রমণ তীব্র এবং এতে মৃত্যুহার অধিক। রোগের কারণ Bacillus gallinarum ব্যাকটেরিয়া। আক্রান্ত পাখির মল দ্বারা দূষিত খাদ্য ও পানির মাধ্যমে প্রাকৃতিকভাবে এ রোগের সংক্রমণ ঘটে। বাংলাদেশে গ্রীষ্মকালে এর প্রাদুর্ভাব বেশি। মৃত্যুর হার শতকরা ২০-৮০ ভাগ।

বাংলাদেশের হাঁস-মুরগির প্রচুর পরজীবী শনাক্ত করা হয়েছে, আর এগুলোর বেশিরভাগই সন্ধিপদ ও চ্যাপ্টা-কৃমির দলভুক্ত। এক জাতের এঁটেল থাকে মুরগির খোয়ার ও খামারঘরের চিড় ও ফাটলে। পরজীবী হাঁস-মুরগির অনিদ্রা ও রক্তস্বল্পতা ঘটায়, উৎপাদন ক্ষমতা কমায় এবং এদের মধ্যে স্পাইরোকিটোসিস ও রিকেটসিয়ার মতো রোগ ছড়ায়। উকুন হাঁস-মুরগির ত্বকের উপরিভাগে বাস করে এবং চুলকানি, ওজন-হ্রাস, দুর্বলতা, ডিম পাড়ার ক্ষমতাহানি এমনকি ছানাদের মৃত্যু পর্যন্ত ঘটাতে পারে। বাংলাদেশে হাঁস-মুরগির প্রধানত ১২ প্রজাতির কৃমির মধ্যে A. galli ও Raillietina প্রজাতিগুলো আর্থিক দিক থেকে ক্ষতিকর রোগ ঘটায়। এতে সংক্রমণের স্থান অত্যধিক ফুলে ওঠে। গ্রামীণ পরিবেশে এ পরজীবী বেশি দেখা যায়।

রানিক্ষেত মুরগির একটি তীব্র ভাইরাস রোগ। দৃশ্যত মুরগির প্লেগের মতো হলেও এটি পৃথক ও অনাক্রম্যতা অনুসারে সুচিহ্নিত আরেকটি ভাইরাসজনিত রোগ। ১৯২৬ সালে ইংল্যান্ডের নিউক্যাস্লেস অঞ্চলে প্রথম শনাক্ত হওয়ার জন্যই এ নামকরণ। রোগের প্রাথমিক লক্ষণ হাঁচি-কাশি, জবুথবু অবস্থা, অতঃপর কাঁপুনি, পাক খাওয়া, পড়ে যাওয়া, মাথা ও গলা মোড়ানো বা সম্পূর্ণ পক্ষাঘাত। সব ব্রয়লার মোরগ এ রোগপ্রবণ হলেও ৩-৮ সপ্তাহ বয়সীরাই বেশি আক্রান্ত হয়। মৃত্যুহার ৮০-১০০%। প্রধান লক্ষণ হলুদ-সাদা রঙের চুনের মতো দুর্গন্ধযুক্ত উদরাময়। আরেকটি বিশিষ্ট লক্ষণ মুখে হাঁপিয়ে হাঁপিয়ে দীর্ঘশ্বাস নেয়া। বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চলে এ রোগের প্রকোপ অত্যধিক এবং মোরগ মড়কের প্রধান হেতু। আক্রান্ত ডিম পাড়া মুরগির ডিমের সংখ্যা ও মান দ্রুত হ্রাস পায়। চিকিৎসার জন্য এখন টিকা পাওয়া যায়।

[লেখক : সহকারী কর্মকর্তা, ক্যারিয়ার অ্যান্ড প্রফেশনাল ডেভেলপমেন্ট সার্ভিসেস বিভাগ, সাউথইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়]

back to top