alt

সারাদেশ

ভালুকায় বোরো ধানে চিটা কৃষকের মাথায় হাত

প্রতিনিধি, ভালুকা (ময়মনসিংহ) : বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪

চলতি বোরো মৌসুমে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে থোরধান চিটায় পরিণত হয়ে মরে যাচ্ছে। এতে কৃষকরা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে পরছেন।

১৭ এপ্রিল বুধবার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার মেদুয়ারী গ্রামে গিয়ে দেখা যায় কৃষকের বোরো ধান খেত মরে সাদা হয়ে গেছে। দূর থেকে দেখে মনে হয় সবুজ ধান খেতের মাঝখানে সাদা চিটা ধানের শিষ বাতাসে দুলছে। আসলে ধানের শিষ গুলোতে কোন চাল নেই শুধুই পাতলা ধানের চোঁচা। হাত দিয়ে স্পর্শ করলে মনে হয় ধানগুলো সম্পূর্ণ চিটায় পাতলা হয়ে গেছে।

মরা চিটা ধান হাতে কৃষক বিধান বাবু জানান তিনি ৩২ শতাংশ জমিতে ব্রি-ধান ২৮ জাতের আবাদ করেছিলেন। এতে তিনি হালচাষ বাবদ ১৬০০ টাকা, রোপন ২০০০ টাকা, এক হাজার টাকার সার, বীজ ৩০০ টাকা, পানি সেচ বাবদ ৩২০০ টাকা ও ৩০০ টাকার কীটনাশক দিয়েছেন। তার খেতের ধান সম্পূর্ণ মরে চিটা হওয়ায় ২০ মণ ধানের খেতে ২০ কেজি ধানও পাবেন না বলে তিনি জানান।

তিনি জানান, তার ও আশপাশের অনেকের ধান মরে চিটা হলেও কৃষি বিভাগের কেউ খেতের কাছে আসেননি। তিনি একটি ধান গাছের গোড়ার অংশ বের করে দেখান যেখানে মাইজ কাটা কালো দাগ রয়েছে। মাইজ কাটার কারণে ধানের শিষ মরে চিটা হয়ে ছড়া গুলো সাদা হয়ে গছে। প্রতিষেধক হিসেবে কৃষি বিভাগের পরামর্শ না পাওয়ায় তারা স্থানীয় কীটনাশক দোকানির পরামর্শে খেতে ওষুধ দিয়েও কোন ফল পাননি। ওই গ্রামের কৃষক বুইশ্যার ৫৬ শতাংশ জমির ধান চিটা হওয়ার কারণে কেটে গোখাদ্য হিসেবে বাজারে বিক্রি করেছেন বলে জানা গেছে।

একই এলাকার কৃষক বাছির উদ্দীন জানান তার ২৪ শতাংশ জমির বোরো ধান সম্পূর্ণ শীষ মরে চিটা হয়ে গেছে। স্থানীয় কীটনাশক দোকান হতে ওষুধ দিয়েও কোন ফল পাননি। একই গ্রামের লাল মিয়ার ১১ কাঠা (৭৭) শতাংশ জমির ধান মরে সম্পুর্ণ চিটা হয়ে গেছে। একই এলাকার খলিলের ৫৬ শতাংশ, আতাবদ্দির (৪২) শতাংশ, মিন্টুর (৩৫) শতাংশ, বাবুল মিয়ার (২১) শতাংশ ও সফিকুল ইসলামের (২৮) শতাংশ সহ আরও অনেকের ধান চিটা হয়ে গেছে।

এসব কৃষকদের ঘরে একমুঠো বোরো ধান উঠবেনা বলে তারা জানিয়েছে। কৃষকদের অভিযোগ সঠিক পরামর্শে আক্রান্ত ফসলে ওষুধ প্রয়োগ করতে না পারায় তাদের ধান নষ্ট হয়েছে।

এ ব্যাপারে জানতে বুধবার সকাল সোয়া ১২টার দিকে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নুসরাত জাহানকে অফিসে না পেয়ে সরকারি নাম্বারে বার বার ফোন দিলে তা বন্ধ দেখানোয় ব্যক্তিগত নাম্বারে ফোন দিলে রিসিভ না করায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

ছবি

কক্সবাজারের তিন উপজেলায় শান্তিপূর্ণভাবে চলছে ভোট গ্রহণ

ছবি

পেটে গজ রেখেই সেলাই, রোগী আইসিইউতে

রামেকে দুদকের আকস্মিক অভিযান মিলেছে বহু অভিযোগের সত্যতা

রংপুরে জঙ্গি তৎপরতার দায়ে তিন জনের ৪ বছরের দণ্ড

ছবি

দোহারে ব্রি ধান-৮৯ এর ওপর মাঠ দিবস ও কারিগরি সেশন

ছবি

হাওরের প্রায় শতভাগ বোরো ধান কাটা শেষ

ছবি

সুন্দরগঞ্জে ইটভাটায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান, ভাটা বন্ধের নির্দেশ

ছবি

রায়গঞ্জে ভাঙা ব্রিজে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল, ঘটছে দুর্ঘটনা

ছবি

পোরশায় সড়ক দুর্ঘটনায় শিশু নিহত

ছবি

চট্টগ্রামে প্রবাসীর স্বর্ণ ছিনতাইকালে এসআই গ্রেপ্তার

ছবি

ডিমলায় সংস্কারের দুদিন পরই উঠে যাচ্ছে কোটি টাকার কার্পেটিং

ছবি

সিরাজগঞ্জে শিশু ধর্ষণ মামলায় বৃদ্ধের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

পেটে গজ রেখেই সেলাই, সংকটাপূর্ণ রোগী আইসিইউতে

ছবি

বাগাতিপাড়ায় চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকের বাড়িতে হামলা

জমি বিবাদে গৃহবধূকে হত্যা, গ্রেপ্তার ৪

ছবি

ইন্দুরকানীতে সংস্কারের অভাবে সড়ক বেহাল

সংবাদ-এর ৭৪ বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে আলোচনা

ছবি

কুড়িগ্রামে এক টাকায় ১০টি হাতপাখা বিক্রি

ছবি

করলা চাষে দ্বিগুণ লাভে খুশি কৃষক

ছবি

দেশ ছাড়িয়ে বিদেশেও কাউখালীর ঐতিহ্যবাহী শীতলপাটির কদর

ছবি

সাড়ে ৮ বিঘা জমির ফসল কাটল দুর্বৃত্তরা

ছবি

বগুড়ায় আলুর হিমাগার থেকে এক লাখ ডিম উদ্ধার

ছবি

মৌলভীবাজার সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাচন স্থগিত

ছবি

সাটুরিয়া উপজেলা নির্বাচন এমপি এক প্রার্থীকে সমর্থন উদ্বেগ উৎকণ্ঠায় ভোটাররা

ছবি

সিরাজগঞ্জে হেরোইন রাখার দায়ে দুই যুবকের যাবজ্জীবন

সংবাদ প্রতিনিধি হারাধন পেলেন মাদার তেরেসা অ্যাওয়ার্ড

ছবি

আনোয়ারায় অধ্যক্ষের রুমে দুই শিক্ষকের মারামারি, শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

ছবি

মুন্সীগঞ্জ আব্দুল আজহার উচ্চ বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনে দশগুণ বেশি মূল্যে মনোনয়নপত্র বিক্রি

ছবি

মুকসুদপুরে অজ্ঞাত নারীর মরদেহ উদ্ধার

ছবি

ডাকাতি করতে গিয়ে দলবেঁধে ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ৪

ছবি

লক্ষ্মীছড়ির স্থগিত দুই কেন্দ্রের ভোট ২৯ মে

ছবি

অটোরিকশা চালকদের তাণ্ডবের ঘটনায় ৪ মামলা, আসামি প্রায় ২৫০০

ছবি

র‍্যাব হেফাজতে নারী মৃত্যুর ঘটনায় ক্যাম্প কমান্ডার প্রত্যাহার

ছবি

লিচু : তাপপ্রবাহে লোকসানের আশঙ্কায় বাগানি ও ব্যবসায়ীরা

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম ‘নিখোঁজ’ দাবি পরিবারের

ছবি

বান্দরবানে ৩ ‘কেএনএফ সদস্যের’ মরদেহ উদ্ধার

tab

সারাদেশ

ভালুকায় বোরো ধানে চিটা কৃষকের মাথায় হাত

প্রতিনিধি, ভালুকা (ময়মনসিংহ)

বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪

চলতি বোরো মৌসুমে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে থোরধান চিটায় পরিণত হয়ে মরে যাচ্ছে। এতে কৃষকরা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে পরছেন।

১৭ এপ্রিল বুধবার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার মেদুয়ারী গ্রামে গিয়ে দেখা যায় কৃষকের বোরো ধান খেত মরে সাদা হয়ে গেছে। দূর থেকে দেখে মনে হয় সবুজ ধান খেতের মাঝখানে সাদা চিটা ধানের শিষ বাতাসে দুলছে। আসলে ধানের শিষ গুলোতে কোন চাল নেই শুধুই পাতলা ধানের চোঁচা। হাত দিয়ে স্পর্শ করলে মনে হয় ধানগুলো সম্পূর্ণ চিটায় পাতলা হয়ে গেছে।

মরা চিটা ধান হাতে কৃষক বিধান বাবু জানান তিনি ৩২ শতাংশ জমিতে ব্রি-ধান ২৮ জাতের আবাদ করেছিলেন। এতে তিনি হালচাষ বাবদ ১৬০০ টাকা, রোপন ২০০০ টাকা, এক হাজার টাকার সার, বীজ ৩০০ টাকা, পানি সেচ বাবদ ৩২০০ টাকা ও ৩০০ টাকার কীটনাশক দিয়েছেন। তার খেতের ধান সম্পূর্ণ মরে চিটা হওয়ায় ২০ মণ ধানের খেতে ২০ কেজি ধানও পাবেন না বলে তিনি জানান।

তিনি জানান, তার ও আশপাশের অনেকের ধান মরে চিটা হলেও কৃষি বিভাগের কেউ খেতের কাছে আসেননি। তিনি একটি ধান গাছের গোড়ার অংশ বের করে দেখান যেখানে মাইজ কাটা কালো দাগ রয়েছে। মাইজ কাটার কারণে ধানের শিষ মরে চিটা হয়ে ছড়া গুলো সাদা হয়ে গছে। প্রতিষেধক হিসেবে কৃষি বিভাগের পরামর্শ না পাওয়ায় তারা স্থানীয় কীটনাশক দোকানির পরামর্শে খেতে ওষুধ দিয়েও কোন ফল পাননি। ওই গ্রামের কৃষক বুইশ্যার ৫৬ শতাংশ জমির ধান চিটা হওয়ার কারণে কেটে গোখাদ্য হিসেবে বাজারে বিক্রি করেছেন বলে জানা গেছে।

একই এলাকার কৃষক বাছির উদ্দীন জানান তার ২৪ শতাংশ জমির বোরো ধান সম্পূর্ণ শীষ মরে চিটা হয়ে গেছে। স্থানীয় কীটনাশক দোকান হতে ওষুধ দিয়েও কোন ফল পাননি। একই গ্রামের লাল মিয়ার ১১ কাঠা (৭৭) শতাংশ জমির ধান মরে সম্পুর্ণ চিটা হয়ে গেছে। একই এলাকার খলিলের ৫৬ শতাংশ, আতাবদ্দির (৪২) শতাংশ, মিন্টুর (৩৫) শতাংশ, বাবুল মিয়ার (২১) শতাংশ ও সফিকুল ইসলামের (২৮) শতাংশ সহ আরও অনেকের ধান চিটা হয়ে গেছে।

এসব কৃষকদের ঘরে একমুঠো বোরো ধান উঠবেনা বলে তারা জানিয়েছে। কৃষকদের অভিযোগ সঠিক পরামর্শে আক্রান্ত ফসলে ওষুধ প্রয়োগ করতে না পারায় তাদের ধান নষ্ট হয়েছে।

এ ব্যাপারে জানতে বুধবার সকাল সোয়া ১২টার দিকে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নুসরাত জাহানকে অফিসে না পেয়ে সরকারি নাম্বারে বার বার ফোন দিলে তা বন্ধ দেখানোয় ব্যক্তিগত নাম্বারে ফোন দিলে রিসিভ না করায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

back to top