alt

সম্পাদকীয়

সওজের জমি দখল করে মসজিদ নির্মাণের অভিযোগ আমলে নিন

: শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর ২০২৩

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে সড়ক ও জনপথের এবং কিছু ব্যক্তি মালিকানার জায়গা দখল করে মসজিদ নির্মাণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। একটি প্রভাবশালী চক্র এটি করেছে বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন। এ নিয়ে গত বৃহস্পতিবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

মসজিদের মতো প্রার্থনালয় প্রতিষ্ঠার প্রয়োজন কেউ অনুভব করতেই পারেন। নিতে পারেন মসজিদ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ। তবে সেই মসজিদ নির্মাণের নির্দিষ্ট প্রক্রিয়া রয়েছে। এক্ষেত্রে নীতিমালাও রয়েছে। স্থানীয় সরকার বিভাগের ‘মসজিদ ব্যবস্থাপনা নীতিমালা-২০০৬’ অনুযায়ী, স্থানীয় কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ছাড়া কোনো মসজিদ নির্মাণ করা যাবে না। প্রতিযোগিতামূলকভাবেও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করা যাবে না। নির্মাণ করতে হলে সেই এলাকার জনসংখ্যা ও পারিপার্শ্বিক অবস্থা বিবেচনায় নিতে হবে। নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। গজারিয়ায় মসজিদ নির্মাণে নীতিমালা অনুসরণ করা হয়েছে কিনা, সেটা জানা দরকার।

প্রশ্ন হচ্ছে, যে কেউ চাইলেই যে কোনো স্থানেই খেয়ালখুশি মতো মসজিদ নির্মাণ করা যায় কিনা। মসজিদের নামে সড়ক ও জনপথের ৪৭ শতাংশ জমি দখল করা হয়েছে। যার বাজার মূল্য সাড়ে পাঁচ কোটি টাকা। জমির মালিকরা কেউ মসজিদের নামে জায়গা লিখে দেননি। তবুও জোর করে তাদের জায়গা দখল করেছে প্রভাবশালী চক্রটি। মসজিদঘেঁষে রয়েছে ৩৫টি পরিবার। যার বেশির ভাগই হিন্দু পরিবার। সামনে মসজিদ থাকলে সেখানকার জায়গায় গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করতে আসবে না কেউ- এমন পরিকল্পনা থেকেই মসজিদটি নির্মাণ করেছে প্রভাবশালী চক্র। এসব অভিযোগ করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

কোনো ব্যক্তির বা রাষ্ট্রের জায়গা দখল করে মসজিদ নির্মাণ করা যায় বলে আমাদের জানা নেই। এটা দেশের কোনো আইন সমর্থন করে না। আর ইসলাম ধর্মও এটা অনুমোদন করে না। কিন্তু মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় সওজ ও ব্যক্তি মালিকানাধীন জমি দখল করে প্রভাবশালী চক্রের মসজিদ নির্মাণ করার অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয়দের অভিযোগের বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আমলে নিতে হবে। যদি সওজের জায়গা দখল করে থাকে এবং এর সঙ্গে অন্য কারও জমি দখল করা হয়ে থাকে, তাহলে তা অবশ্যই উদ্ধার করতে হবে।

নারায়ণগঞ্জ সড়ক বিভাগ কর্তৃপক্ষ বলেছে, সড়ক ও জনপথের জায়গা কেউ দখল করতে পারে না। সরেজমিনে ঘটনাটির সত্যতা যাচাইয়ের জন্য কর্মকর্তা পাঠানো হয়েছে। প্রতিবেদন হাতে আসুক। কেউ যদি এটা করে থাকে তাহলে সেটি দখলমুক্ত করতে যা যা করা দরকার তা-ই করা হবে।

আমরা আশা করব, নারায়ণগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগ কর্তৃপক্ষ যে কথা বলেছে, সে অনুযায়ী দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে। কালক্ষেপণের কারণে যেন সওজ বা কোনো ব্যক্তির জমি দখল না হয়ে যায়, তা নিশ্চিত করতে হবে।

এখনো কেন চালু হলো না ট্রমা সেন্টার

এত উদ্যোগের পরও অর্থপাচার বাড়ল কীভাবে

চুড়িহাট্টা অগ্নিকাণ্ড : বিচারে ধীরগতি কেন

অমর একুশে

শিক্ষা ক্যাডারে পদোন্নতি নিয়ে অসন্তোষ কেন

কিশোর গ্যাং কালচারের অবসান ঘটাতে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

সরকারি খাল উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

ধীরগতির যানবাহন কেন মহাসড়কে

নদীর দখলদারদের কেন ‘পুরস্কৃত’ করা হবে

ফের ঊর্ধ্বমুখী মূল্যস্ফীতি

প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকায় বরফকল কেন

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যের ওষুধ কেন মিলছে না

রেলক্রসিং হোক সুরক্ষিত

বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিক্রির বিহিত করুন

জিকে সেচ প্রকল্পের খালে পানি সরবরাহ নিশ্চিত করুন

পোরশার স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ দিন

সাগর-রুনি হত্যার বিচারে আর কত অপেক্ষা

চাঁদপুর শহর রক্ষা বাঁধ প্রকল্পের কাজ দ্রুত শুরু হোক

দেশি পণ্যের জিআই স্বীকৃতির জন্য উদ্যোগী হয়ে কাজ করতে হবে

উখিয়ায় আবাদি ও বনের জমি রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

সড়ক নির্মাণ ও সংস্কারে অনিয়ম-দুর্নীতির অবসান ঘটাতে হবে

একটি পাকা সেতুর জন্য আর কত অপেক্ষা করতে হবে

নির্ভুল জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা কোথায়

পাখির খাদ্য সংকট ও আমাদের দায়

কাবিখা-কাবিটা প্রকল্পের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ আমলে নিন

কৃষিতে তামাক চাষের ক্ষতিকর প্রভাব

এলপিজি বিক্রি করতে হবে নির্ধারিত দরে

সাঘাটায় বিএমডিএর সেচ সংযোগে ঘুষ দাবি, তদন্ত করুন

সরকারি খাল দখলমুক্ত করুন

সাতক্ষীরার মরিচ্চাপ নদী খননে অনিয়মের অভিযোগ খতিয়ে দেখুন

ব্যাংক খাত সংস্কারের ভালো উদ্যোগ, বাস্তবায়ন জরুরি

ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরির প্রতিকার চাই

ক্যান্সারের চিকিৎসায় বৈষম্য দূর হোক

মোরেলগঞ্জের ঢুলিগাতি খাল দখলমুক্ত করুন

কর্মসৃজন প্রকল্পে শ্রমিকের মজুরি পরিশোধে বিলম্ব কেন

tab

সম্পাদকীয়

সওজের জমি দখল করে মসজিদ নির্মাণের অভিযোগ আমলে নিন

শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর ২০২৩

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে সড়ক ও জনপথের এবং কিছু ব্যক্তি মালিকানার জায়গা দখল করে মসজিদ নির্মাণ করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। একটি প্রভাবশালী চক্র এটি করেছে বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন। এ নিয়ে গত বৃহস্পতিবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

মসজিদের মতো প্রার্থনালয় প্রতিষ্ঠার প্রয়োজন কেউ অনুভব করতেই পারেন। নিতে পারেন মসজিদ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ। তবে সেই মসজিদ নির্মাণের নির্দিষ্ট প্রক্রিয়া রয়েছে। এক্ষেত্রে নীতিমালাও রয়েছে। স্থানীয় সরকার বিভাগের ‘মসজিদ ব্যবস্থাপনা নীতিমালা-২০০৬’ অনুযায়ী, স্থানীয় কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ছাড়া কোনো মসজিদ নির্মাণ করা যাবে না। প্রতিযোগিতামূলকভাবেও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করা যাবে না। নির্মাণ করতে হলে সেই এলাকার জনসংখ্যা ও পারিপার্শ্বিক অবস্থা বিবেচনায় নিতে হবে। নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। গজারিয়ায় মসজিদ নির্মাণে নীতিমালা অনুসরণ করা হয়েছে কিনা, সেটা জানা দরকার।

প্রশ্ন হচ্ছে, যে কেউ চাইলেই যে কোনো স্থানেই খেয়ালখুশি মতো মসজিদ নির্মাণ করা যায় কিনা। মসজিদের নামে সড়ক ও জনপথের ৪৭ শতাংশ জমি দখল করা হয়েছে। যার বাজার মূল্য সাড়ে পাঁচ কোটি টাকা। জমির মালিকরা কেউ মসজিদের নামে জায়গা লিখে দেননি। তবুও জোর করে তাদের জায়গা দখল করেছে প্রভাবশালী চক্রটি। মসজিদঘেঁষে রয়েছে ৩৫টি পরিবার। যার বেশির ভাগই হিন্দু পরিবার। সামনে মসজিদ থাকলে সেখানকার জায়গায় গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করতে আসবে না কেউ- এমন পরিকল্পনা থেকেই মসজিদটি নির্মাণ করেছে প্রভাবশালী চক্র। এসব অভিযোগ করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

কোনো ব্যক্তির বা রাষ্ট্রের জায়গা দখল করে মসজিদ নির্মাণ করা যায় বলে আমাদের জানা নেই। এটা দেশের কোনো আইন সমর্থন করে না। আর ইসলাম ধর্মও এটা অনুমোদন করে না। কিন্তু মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় সওজ ও ব্যক্তি মালিকানাধীন জমি দখল করে প্রভাবশালী চক্রের মসজিদ নির্মাণ করার অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয়দের অভিযোগের বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আমলে নিতে হবে। যদি সওজের জায়গা দখল করে থাকে এবং এর সঙ্গে অন্য কারও জমি দখল করা হয়ে থাকে, তাহলে তা অবশ্যই উদ্ধার করতে হবে।

নারায়ণগঞ্জ সড়ক বিভাগ কর্তৃপক্ষ বলেছে, সড়ক ও জনপথের জায়গা কেউ দখল করতে পারে না। সরেজমিনে ঘটনাটির সত্যতা যাচাইয়ের জন্য কর্মকর্তা পাঠানো হয়েছে। প্রতিবেদন হাতে আসুক। কেউ যদি এটা করে থাকে তাহলে সেটি দখলমুক্ত করতে যা যা করা দরকার তা-ই করা হবে।

আমরা আশা করব, নারায়ণগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগ কর্তৃপক্ষ যে কথা বলেছে, সে অনুযায়ী দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে। কালক্ষেপণের কারণে যেন সওজ বা কোনো ব্যক্তির জমি দখল না হয়ে যায়, তা নিশ্চিত করতে হবে।

back to top