alt

সম্পাদকীয়

লোকালয়ে বন্যহাতি

: শনিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২৩

গত বৃহস্পতিবার কক্সবাজারের রামু উপজেলায় বন্যহাতির একটি দল লোকালয়ে প্রবেশ করেছে। হাতির আক্রমণে দুই ব্যক্তি আহত হয়েছেন। আহতদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যপন্ত হাতির দলটিকে বনে ফেরত পাঠানোর লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ চেষ্টা চালাচ্ছে। তবে উৎসুক মানুষের ভিড়ের কারণে হাতির দলকে বনে ফেরানোর কাজ কঠিন হয়ে পড়েছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

প্রায়ই বন্যহাতি লোকালয়ে ঢুকে পড়ে। হাতির আক্রমণে অতীতে মানুষ মারাও গেছে। আবার মানুষের আক্রমণে হাতিও মারা গেছে। সাধারণত খাবারের খোজে বন্যহাতির দল লোকালয়ে আসে। অনেক সময় হাতির পদচারণায় ফসলের খেত নষ্ট হয়। কৃষকরা ফসল রক্ষা করতে চাইবে সেটাই স্বাভাবিক; কিন্তু বন্যহাতির কবল থেকে ফসল রক্ষা করতে তারা যে পথ বেছে নেয় সেটা হিতে বিপরীত হয়। দেখা যায় যে, ফসল রক্ষার জন্য স্থানীয় বাসিন্দারা হাতি তাড়াতে লাঠি ও মশাল নিয়ে মাঠে নামে। এই অবস্থায় হাতি আতঙ্কিত হয়ে পড়ে, কখনো বা ক্ষুব্ধ হয়। তখন হাতির পায়ে পিষ্ট হয়ে মানুষ হতাহতের ঘটনা ঘটে।

সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞদের মতে, বন্যহাতি খাদ্য সংকটে লোকালয়ে আসে। খাদ্যসংস্থান হলে তারা আপনাতেই বনে ফিরে যায়। বন্যপ্রাণী তখনই আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠে যখন আতঙ্কিত মানুষ তাদের স্বাভাবিক চলাচলের পথে বাধা সৃষ্টি করে। একেকটি হাতির দলের সঙ্গে সাধারণত তাদের বাচ্চা থাকে। মানুষ যখন হাতি তাড়ানোর বিভিন্ন কৌশল ব্যবহার করে তখন তারা ধারণা করে বাচ্চাদের ওপর আক্রমণ হচ্ছে ফলে হিংস্র হয়ে ওঠে।

বনে হাতির নিরাপদ আবাস, খাদ্য ও পানির সংকট তীব্র। নেহায়েত ক্ষুধার তাড়নায় বন থেকে হাতি লোকালয়ে এসে হাজির হয়। বন যদি রক্ষা পেত, সেখানে পর্যাপ্ত খাবার মিলত, তাহলে হাতি লোকালয়ে আসত না। দেশের বনগুলো রক্ষা করা জরুরি।

কখনো যদি হাতি লোকালয়ে চলে আসে তাহলে স্থানীয় জনগোষ্ঠীকে রক্ষা করতে আধুনিক প্রযুক্তি ও কৌশল ব্যবহারের সক্ষমতা অর্জন করাও জরুরি। মানুষ বা ফসল রক্ষা, বন্যপ্রাণী তাড়ানোর আধুনিক কৌশল বা বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি সম্পর্কে সংশ্লিষ্টদের প্রশিক্ষণ দেয়া জরুরি। তাড়ানোর সময় হাতির দল যাতে আটকা না পড়ে সেই বিষয়ে দৃষ্টি রাখতে হবে।

এখনো কেন চালু হলো না ট্রমা সেন্টার

এত উদ্যোগের পরও অর্থপাচার বাড়ল কীভাবে

চুড়িহাট্টা অগ্নিকাণ্ড : বিচারে ধীরগতি কেন

অমর একুশে

শিক্ষা ক্যাডারে পদোন্নতি নিয়ে অসন্তোষ কেন

কিশোর গ্যাং কালচারের অবসান ঘটাতে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

সরকারি খাল উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

ধীরগতির যানবাহন কেন মহাসড়কে

নদীর দখলদারদের কেন ‘পুরস্কৃত’ করা হবে

ফের ঊর্ধ্বমুখী মূল্যস্ফীতি

প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকায় বরফকল কেন

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যের ওষুধ কেন মিলছে না

রেলক্রসিং হোক সুরক্ষিত

বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিক্রির বিহিত করুন

জিকে সেচ প্রকল্পের খালে পানি সরবরাহ নিশ্চিত করুন

পোরশার স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ দিন

সাগর-রুনি হত্যার বিচারে আর কত অপেক্ষা

চাঁদপুর শহর রক্ষা বাঁধ প্রকল্পের কাজ দ্রুত শুরু হোক

দেশি পণ্যের জিআই স্বীকৃতির জন্য উদ্যোগী হয়ে কাজ করতে হবে

উখিয়ায় আবাদি ও বনের জমি রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

সড়ক নির্মাণ ও সংস্কারে অনিয়ম-দুর্নীতির অবসান ঘটাতে হবে

একটি পাকা সেতুর জন্য আর কত অপেক্ষা করতে হবে

নির্ভুল জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা কোথায়

পাখির খাদ্য সংকট ও আমাদের দায়

কাবিখা-কাবিটা প্রকল্পের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ আমলে নিন

কৃষিতে তামাক চাষের ক্ষতিকর প্রভাব

এলপিজি বিক্রি করতে হবে নির্ধারিত দরে

সাঘাটায় বিএমডিএর সেচ সংযোগে ঘুষ দাবি, তদন্ত করুন

সরকারি খাল দখলমুক্ত করুন

সাতক্ষীরার মরিচ্চাপ নদী খননে অনিয়মের অভিযোগ খতিয়ে দেখুন

ব্যাংক খাত সংস্কারের ভালো উদ্যোগ, বাস্তবায়ন জরুরি

ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরির প্রতিকার চাই

ক্যান্সারের চিকিৎসায় বৈষম্য দূর হোক

মোরেলগঞ্জের ঢুলিগাতি খাল দখলমুক্ত করুন

কর্মসৃজন প্রকল্পে শ্রমিকের মজুরি পরিশোধে বিলম্ব কেন

tab

সম্পাদকীয়

লোকালয়ে বন্যহাতি

শনিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২৩

গত বৃহস্পতিবার কক্সবাজারের রামু উপজেলায় বন্যহাতির একটি দল লোকালয়ে প্রবেশ করেছে। হাতির আক্রমণে দুই ব্যক্তি আহত হয়েছেন। আহতদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যপন্ত হাতির দলটিকে বনে ফেরত পাঠানোর লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ চেষ্টা চালাচ্ছে। তবে উৎসুক মানুষের ভিড়ের কারণে হাতির দলকে বনে ফেরানোর কাজ কঠিন হয়ে পড়েছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

প্রায়ই বন্যহাতি লোকালয়ে ঢুকে পড়ে। হাতির আক্রমণে অতীতে মানুষ মারাও গেছে। আবার মানুষের আক্রমণে হাতিও মারা গেছে। সাধারণত খাবারের খোজে বন্যহাতির দল লোকালয়ে আসে। অনেক সময় হাতির পদচারণায় ফসলের খেত নষ্ট হয়। কৃষকরা ফসল রক্ষা করতে চাইবে সেটাই স্বাভাবিক; কিন্তু বন্যহাতির কবল থেকে ফসল রক্ষা করতে তারা যে পথ বেছে নেয় সেটা হিতে বিপরীত হয়। দেখা যায় যে, ফসল রক্ষার জন্য স্থানীয় বাসিন্দারা হাতি তাড়াতে লাঠি ও মশাল নিয়ে মাঠে নামে। এই অবস্থায় হাতি আতঙ্কিত হয়ে পড়ে, কখনো বা ক্ষুব্ধ হয়। তখন হাতির পায়ে পিষ্ট হয়ে মানুষ হতাহতের ঘটনা ঘটে।

সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞদের মতে, বন্যহাতি খাদ্য সংকটে লোকালয়ে আসে। খাদ্যসংস্থান হলে তারা আপনাতেই বনে ফিরে যায়। বন্যপ্রাণী তখনই আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠে যখন আতঙ্কিত মানুষ তাদের স্বাভাবিক চলাচলের পথে বাধা সৃষ্টি করে। একেকটি হাতির দলের সঙ্গে সাধারণত তাদের বাচ্চা থাকে। মানুষ যখন হাতি তাড়ানোর বিভিন্ন কৌশল ব্যবহার করে তখন তারা ধারণা করে বাচ্চাদের ওপর আক্রমণ হচ্ছে ফলে হিংস্র হয়ে ওঠে।

বনে হাতির নিরাপদ আবাস, খাদ্য ও পানির সংকট তীব্র। নেহায়েত ক্ষুধার তাড়নায় বন থেকে হাতি লোকালয়ে এসে হাজির হয়। বন যদি রক্ষা পেত, সেখানে পর্যাপ্ত খাবার মিলত, তাহলে হাতি লোকালয়ে আসত না। দেশের বনগুলো রক্ষা করা জরুরি।

কখনো যদি হাতি লোকালয়ে চলে আসে তাহলে স্থানীয় জনগোষ্ঠীকে রক্ষা করতে আধুনিক প্রযুক্তি ও কৌশল ব্যবহারের সক্ষমতা অর্জন করাও জরুরি। মানুষ বা ফসল রক্ষা, বন্যপ্রাণী তাড়ানোর আধুনিক কৌশল বা বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি সম্পর্কে সংশ্লিষ্টদের প্রশিক্ষণ দেয়া জরুরি। তাড়ানোর সময় হাতির দল যাতে আটকা না পড়ে সেই বিষয়ে দৃষ্টি রাখতে হবে।

back to top