alt

সম্পাদকীয়

ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরির প্রতিকার চাই

: রোববার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

যশোরের কেশবপুরের বিভিন্ন বিল থেকে নয়টি বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার ও তিনটি সেচ পাম্প চুরি হয়েছে বলে জানা গেছে। বোরো আবাদের মৌসুমে ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরি হওয়ায় কৃষকরা বিপাকে পড়েছেন। চুরি রোধে তারা রাত জেগে পাহারা দিচ্ছেন। এ নিয়ে গত শুক্রবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

কেশবপুর উপজেলা কৃষি অফিস জানিয়েছে, এবার উপজেলায় ১৪ হাজার ৫শ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। মধ্য নভেম্বর থেকে চলতি বছরের ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত ৭ হাজার ২৬৬ হেক্টর জমিতে ধানের চারা রোপণ করা হয়েছে। আবাদি জমিতে সেচ দেয়া জরুরি কিন্তু ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরি হয়ে যাওয়ায় অনেকেই সেচ দিতে পারছেন না।

ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরির অভিযোগ আগেও পাওয়া গেছে। দেশের অনেক স্থানেই এমন চুরির ঘটনা ঘটে। ২০২২ সালের এক সমীক্ষায় দেখা গেছে দেশের পাঁচটি জেলা ও নয়টি উপজেলায় ৪১৯টি ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে।

ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরি হলে সেচব্যবস্থা বিঘ্নিত হয়। এ ধরনের চুরি বন্ধে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকেও বেগ পেতে হয়।

দেশের বেশির ভাগ জায়গায় কৃষকদের সমবায় সমিতি নেই। যে কারণে পাম্প অপারেটর বা পাহারাদারও থাকে না। আবাদি জমি অরক্ষিত থাকার কারণে সহজেই ট্রান্সফরমার বা পাম্প চুরি হয়। ট্রান্সফরমারে মূল্যবান তামার কয়েলসহ নানা সরঞ্জাম থাকে। এসব দামি কয়েলের জন্যই ট্রান্সফরমার চুরি বাড়ছে। কোনো কোনো চুরির ঘটনায় থানায় অভিযোগ জানানো হলেও কর্তৃপক্ষ যথাযথ ব্যবস্থা নেয় না বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। অপরাধের প্রতিকার করা হয় না বলে দুর্বৃত্তরা আরও বেপরোয়া হয়ে ওঠে।

কারা এই ট্রান্সফরমার বা পাম্প চুরি করেছে, কখন করেছে আর এই চুরি হওয়া ট্রান্সফরমার আর পাম্প যায় কোথায়- সেটার যদি হদিস করা হয়, তাহলে দুর্বৃত্তদের শনাক্ত করা সম্ভব হবে। দুর্বৃত্তদের শনাক্ত করা হলে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হলে ট্রান্সফরমার ও পাম্প চুরির ঘটনা হয়তো রোধ করা যেতে পারে। কাজেই সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিতে হবে। দুর্বৃত্তদের অবশ্যই শনাক্ত করতে হবে। তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হবে।

ট্রান্সফরমার ও পাম্প চুরি রোধে কৃষকদের ভেতরে সচেতনতা বাড়ানোর উদ্যোগ নিতে হবে। লিফলেট বিতরণ করে ও মাইকিংয়ের মাধ্যমে তাদের সচেতন করা যায়। পাশাপাশি টেকসই খুঁটিতে লোহার শিকল, নাট ওয়েল্ডিং দিয়ে ট্রান্সফরমার মোড়ানোর ব্যবস্থাও করা যায়। পাকা ঘর তুলে পাম্প স্থাপন করা যায় কিনা সেটা ভেবে দেখতে হবে। এছাড়া ফসলের এক মৌসুম শেষ হলে অন্য মৌসুম শুরু পর্যন্ত কৃষকরা পালাক্রমে পাহারা দেয়ার ব্যবস্থা করতে পারে। এসব ব্যবস্থা নেয়া হলে ট্রান্সফরমার ও পাম্প চুরি রোধ করা অনেকাংশে সম্ভব হবে বলে আমরা আশা করতে চাই।

ভোলাডুবা হাওরের বোরো খেতের পানি নিষ্কাশনে ব্যবস্থা নিন

কিশোর গ্যাংয়ের প্রশ্রয়দাতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে

আদমজী ইপিজেড সড়ক মেরামতে আর কত কালক্ষেপণ

নদ-নদীর নাব্য রক্ষায় কার্যকর ব্যবস্থা নিন

চকরিয়ায় পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

গরমে দুর্বিষহ জনজীবন

ভালুকায় খাবার পানির সংকট নিরসনে ব্যবস্থা নিন

সড়কে চাই সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা

লঞ্চ চালাতে হবে নিয়ম মেনে

নতুন বছররে শুভচ্ছো

বিষ ঢেলে মাছ নিধনের অভিযোগ আমলে নিন

ঈদের আনন্দ স্পর্শ করুক সবার জীবন

মীরসরাইয়ের বন রক্ষায় সমন্বিত উদ্যোগ নেয়া জরুরি

স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ বাড়ানো জরুরি

কৃষকরা কেন তামাক চাষে ঝুঁকছে

রেলক্রসিংয়ে প্রাণহানির দায় কার

আর কত অপেক্ষার পর সেতু পাবে রানিশংকৈলের মানুষ^

পাহাড়ে ব্যাংক হামলা কেন

সিসা দূষণ রোধে আইনের কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

হার্টের রিংয়ের নির্ধারিত দর বাস্তবায়নে মনিটরিং জরুরি

রইচপুর খালে সেতু নির্মাণে আর কত অপেক্ষা

রাজধানীকে যানজটমুক্ত করা যাচ্ছে না কেন

জেলেরা কেন বরাদ্দকৃত চাল পাচ্ছে না

নিয়মতান্ত্রিক সংগঠনের সুযোগ থাকা জরুরি, বন্ধ করতে হবে অপরাজনীতি

ঢাকা-ময়মনসিংহ চার লেন সড়কের ক্ষতিগ্রস্ত অংশে সংস্কার করুন

শিক্ষা খাতে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে

স্লুইসগেটের ফাটল মেরামতে উদ্যোগ নিন

পরিবেশ দূষণ বন্ধে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

রংপুর শিশু হাসপাতাল চালু হতে কালক্ষেপণ কেন

দেশে এত খাবার অপচয়ের কারণ কী

রায়গঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যাতায়াতের দুর্ভোগ দূর করুন

প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার বাইরে থাকা জনগোষ্ঠী নিয়ে ভাবতে হবে

জলাশয় দূষণের জন্য দায়ী কারখানার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নদী থেকে অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ করুন

বহরবুনিয়া স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ভবন নির্মাণে আর কত বিলম্ব

মশার উপদ্রব থেকে নগরবাসীকে মুক্তি দিন

tab

সম্পাদকীয়

ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরির প্রতিকার চাই

রোববার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

যশোরের কেশবপুরের বিভিন্ন বিল থেকে নয়টি বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার ও তিনটি সেচ পাম্প চুরি হয়েছে বলে জানা গেছে। বোরো আবাদের মৌসুমে ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরি হওয়ায় কৃষকরা বিপাকে পড়েছেন। চুরি রোধে তারা রাত জেগে পাহারা দিচ্ছেন। এ নিয়ে গত শুক্রবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

কেশবপুর উপজেলা কৃষি অফিস জানিয়েছে, এবার উপজেলায় ১৪ হাজার ৫শ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। মধ্য নভেম্বর থেকে চলতি বছরের ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত ৭ হাজার ২৬৬ হেক্টর জমিতে ধানের চারা রোপণ করা হয়েছে। আবাদি জমিতে সেচ দেয়া জরুরি কিন্তু ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরি হয়ে যাওয়ায় অনেকেই সেচ দিতে পারছেন না।

ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরির অভিযোগ আগেও পাওয়া গেছে। দেশের অনেক স্থানেই এমন চুরির ঘটনা ঘটে। ২০২২ সালের এক সমীক্ষায় দেখা গেছে দেশের পাঁচটি জেলা ও নয়টি উপজেলায় ৪১৯টি ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে।

ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরি হলে সেচব্যবস্থা বিঘ্নিত হয়। এ ধরনের চুরি বন্ধে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকেও বেগ পেতে হয়।

দেশের বেশির ভাগ জায়গায় কৃষকদের সমবায় সমিতি নেই। যে কারণে পাম্প অপারেটর বা পাহারাদারও থাকে না। আবাদি জমি অরক্ষিত থাকার কারণে সহজেই ট্রান্সফরমার বা পাম্প চুরি হয়। ট্রান্সফরমারে মূল্যবান তামার কয়েলসহ নানা সরঞ্জাম থাকে। এসব দামি কয়েলের জন্যই ট্রান্সফরমার চুরি বাড়ছে। কোনো কোনো চুরির ঘটনায় থানায় অভিযোগ জানানো হলেও কর্তৃপক্ষ যথাযথ ব্যবস্থা নেয় না বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। অপরাধের প্রতিকার করা হয় না বলে দুর্বৃত্তরা আরও বেপরোয়া হয়ে ওঠে।

কারা এই ট্রান্সফরমার বা পাম্প চুরি করেছে, কখন করেছে আর এই চুরি হওয়া ট্রান্সফরমার আর পাম্প যায় কোথায়- সেটার যদি হদিস করা হয়, তাহলে দুর্বৃত্তদের শনাক্ত করা সম্ভব হবে। দুর্বৃত্তদের শনাক্ত করা হলে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হলে ট্রান্সফরমার ও পাম্প চুরির ঘটনা হয়তো রোধ করা যেতে পারে। কাজেই সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিতে হবে। দুর্বৃত্তদের অবশ্যই শনাক্ত করতে হবে। তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হবে।

ট্রান্সফরমার ও পাম্প চুরি রোধে কৃষকদের ভেতরে সচেতনতা বাড়ানোর উদ্যোগ নিতে হবে। লিফলেট বিতরণ করে ও মাইকিংয়ের মাধ্যমে তাদের সচেতন করা যায়। পাশাপাশি টেকসই খুঁটিতে লোহার শিকল, নাট ওয়েল্ডিং দিয়ে ট্রান্সফরমার মোড়ানোর ব্যবস্থাও করা যায়। পাকা ঘর তুলে পাম্প স্থাপন করা যায় কিনা সেটা ভেবে দেখতে হবে। এছাড়া ফসলের এক মৌসুম শেষ হলে অন্য মৌসুম শুরু পর্যন্ত কৃষকরা পালাক্রমে পাহারা দেয়ার ব্যবস্থা করতে পারে। এসব ব্যবস্থা নেয়া হলে ট্রান্সফরমার ও পাম্প চুরি রোধ করা অনেকাংশে সম্ভব হবে বলে আমরা আশা করতে চাই।

back to top