alt

সম্পাদকীয়

পাখির খাদ্য সংকট ও আমাদের দায়

: শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

গ্রামীণ জনপদের চিরচেনা পাখি বক। ঝাঁক বেঁধে দিনভর খাল-বিলে খাবারের খোঁজে ঘুরেফেরে। জলাশয়ের মাছ, ব্যাঙ, সাপ ও ছোট জলজ প্রাণী দেখলেই লম্বা ঠোঁট দিয়ে ছোঁ মেরে তুলে নেয়। কিন্তু তারা এখন আর আগের মতো বিচরণ ক্ষেত্র পাচ্ছে না ।

প্রাকৃতিক জলাশয় দখল-ভরাটের কারণে বক খাদ্য সংকটে পড়েছে। গাছপালা কেটে ফেলায় তাদের বাসস্থান সংকটও দেখা দিয়েছে। এমনও দেখা যায় যে, জলাশয়ের পরিবর্তে তারা ময়লার ভাগাড়ে খাবারের সন্ধান করছে। থাকছেও সেই ভাগাড়েই । এতে পাখিদের নানা রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিও তৈরি হয়েছে। এমনই এক চিত্র দেখা গেছে চাঁদপুর শহরে। সেখানকার সবচেয়ে বড় ময়লার ভাগাড়টি স্বর্ণখোলা এলাকায়। সেখান থেকে খাবার সংগ্রহের জন্য ছুটে আসে ঝাঁকে ঝাঁকে বক। মৎস্যভোজী বকের খাদ্যের উৎস এখন ময়লার ভাগাড় কিংবা ডাস্টবিন ।

এটা পাখিদের খাবার সংকটের একটা উদাহরণ মাত্র। শুধু বক নয়, আরও অনেক পাখি এবং প্রাণী খাদ্য সংকটে ভুগছে। অনেক সময় শুকুন, চিল ও অন্যান্য পাখিকেও ভাগাড়ের ময়লা থেকে খাদ্য সংস্থান করতে দেখা যায়। খাবারের সংকট শুধু বক বা কিছু পাখিই মোকাবিলা করছে তা না। বনের হাতি, বানর ও হনুমান প্রায়ই বনে খাবার না পেয়ে লোকালয়ে চলে আসে। পশু-পাখির খাবারের সংকটের পেছনে মানুষের অবিবেচনাপ্রসূক কর্মকা-ের দায় রয়েছে। নির্বিচারে বন ও জলাশয় ধ্বংস করার কারণে পশুপাখির অস্তিত্ব সংকট দেখা দিয়েছে।

চাঁদপুর জেলায় জলাশয় কতটি রয়েছে তার হিসাব পরিবেশ অধিদপ্তরের কাছে নেই। আমরা বলতে চাই, নদী-নালা, খাল-বিল, বন-জঙ্গল সংরক্ষণ করা জরুরি। জলাশয় রক্ষা পেলে বকসহ অন্যন্য প্রাণী রক্ষা করা সম্ভব হবে। পাখির খাবার সংকট দূর করা না গেলে গোট জীববৈচিত্র্যই হুমকির মুখে পড়তে পারে। পরিবেশ বিজ্ঞানীরা বলছেন, প্রকৃতি ও পরিবেশ বাঁচলে, দেশও বাঁচবে। বিষয়টি সবাইকে মাথায় রাখতে হবে। আমাদের নিজেদের ভালোর জন্যই পরিবেশ ও প্রতিবেশ ব্যবস্থা টিকিয়ে রাখতে হবে।

কেবল সরকারের একার পক্ষে পরিবেশ-প্রকৃতি রক্ষা করা সম্ভব নয়। পরিবেশ-প্রকৃতি রক্ষার জন্য সবাইকে সচেতন হতে হবে।

ভোলাডুবা হাওরের বোরো খেতের পানি নিষ্কাশনে ব্যবস্থা নিন

কিশোর গ্যাংয়ের প্রশ্রয়দাতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে

আদমজী ইপিজেড সড়ক মেরামতে আর কত কালক্ষেপণ

নদ-নদীর নাব্য রক্ষায় কার্যকর ব্যবস্থা নিন

চকরিয়ায় পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

গরমে দুর্বিষহ জনজীবন

ভালুকায় খাবার পানির সংকট নিরসনে ব্যবস্থা নিন

সড়কে চাই সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা

লঞ্চ চালাতে হবে নিয়ম মেনে

নতুন বছররে শুভচ্ছো

বিষ ঢেলে মাছ নিধনের অভিযোগ আমলে নিন

ঈদের আনন্দ স্পর্শ করুক সবার জীবন

মীরসরাইয়ের বন রক্ষায় সমন্বিত উদ্যোগ নেয়া জরুরি

স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ বাড়ানো জরুরি

কৃষকরা কেন তামাক চাষে ঝুঁকছে

রেলক্রসিংয়ে প্রাণহানির দায় কার

আর কত অপেক্ষার পর সেতু পাবে রানিশংকৈলের মানুষ^

পাহাড়ে ব্যাংক হামলা কেন

সিসা দূষণ রোধে আইনের কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

হার্টের রিংয়ের নির্ধারিত দর বাস্তবায়নে মনিটরিং জরুরি

রইচপুর খালে সেতু নির্মাণে আর কত অপেক্ষা

রাজধানীকে যানজটমুক্ত করা যাচ্ছে না কেন

জেলেরা কেন বরাদ্দকৃত চাল পাচ্ছে না

নিয়মতান্ত্রিক সংগঠনের সুযোগ থাকা জরুরি, বন্ধ করতে হবে অপরাজনীতি

ঢাকা-ময়মনসিংহ চার লেন সড়কের ক্ষতিগ্রস্ত অংশে সংস্কার করুন

শিক্ষা খাতে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে

স্লুইসগেটের ফাটল মেরামতে উদ্যোগ নিন

পরিবেশ দূষণ বন্ধে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

রংপুর শিশু হাসপাতাল চালু হতে কালক্ষেপণ কেন

দেশে এত খাবার অপচয়ের কারণ কী

রায়গঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যাতায়াতের দুর্ভোগ দূর করুন

প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার বাইরে থাকা জনগোষ্ঠী নিয়ে ভাবতে হবে

জলাশয় দূষণের জন্য দায়ী কারখানার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নদী থেকে অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ করুন

বহরবুনিয়া স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ভবন নির্মাণে আর কত বিলম্ব

মশার উপদ্রব থেকে নগরবাসীকে মুক্তি দিন

tab

সম্পাদকীয়

পাখির খাদ্য সংকট ও আমাদের দায়

শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

গ্রামীণ জনপদের চিরচেনা পাখি বক। ঝাঁক বেঁধে দিনভর খাল-বিলে খাবারের খোঁজে ঘুরেফেরে। জলাশয়ের মাছ, ব্যাঙ, সাপ ও ছোট জলজ প্রাণী দেখলেই লম্বা ঠোঁট দিয়ে ছোঁ মেরে তুলে নেয়। কিন্তু তারা এখন আর আগের মতো বিচরণ ক্ষেত্র পাচ্ছে না ।

প্রাকৃতিক জলাশয় দখল-ভরাটের কারণে বক খাদ্য সংকটে পড়েছে। গাছপালা কেটে ফেলায় তাদের বাসস্থান সংকটও দেখা দিয়েছে। এমনও দেখা যায় যে, জলাশয়ের পরিবর্তে তারা ময়লার ভাগাড়ে খাবারের সন্ধান করছে। থাকছেও সেই ভাগাড়েই । এতে পাখিদের নানা রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিও তৈরি হয়েছে। এমনই এক চিত্র দেখা গেছে চাঁদপুর শহরে। সেখানকার সবচেয়ে বড় ময়লার ভাগাড়টি স্বর্ণখোলা এলাকায়। সেখান থেকে খাবার সংগ্রহের জন্য ছুটে আসে ঝাঁকে ঝাঁকে বক। মৎস্যভোজী বকের খাদ্যের উৎস এখন ময়লার ভাগাড় কিংবা ডাস্টবিন ।

এটা পাখিদের খাবার সংকটের একটা উদাহরণ মাত্র। শুধু বক নয়, আরও অনেক পাখি এবং প্রাণী খাদ্য সংকটে ভুগছে। অনেক সময় শুকুন, চিল ও অন্যান্য পাখিকেও ভাগাড়ের ময়লা থেকে খাদ্য সংস্থান করতে দেখা যায়। খাবারের সংকট শুধু বক বা কিছু পাখিই মোকাবিলা করছে তা না। বনের হাতি, বানর ও হনুমান প্রায়ই বনে খাবার না পেয়ে লোকালয়ে চলে আসে। পশু-পাখির খাবারের সংকটের পেছনে মানুষের অবিবেচনাপ্রসূক কর্মকা-ের দায় রয়েছে। নির্বিচারে বন ও জলাশয় ধ্বংস করার কারণে পশুপাখির অস্তিত্ব সংকট দেখা দিয়েছে।

চাঁদপুর জেলায় জলাশয় কতটি রয়েছে তার হিসাব পরিবেশ অধিদপ্তরের কাছে নেই। আমরা বলতে চাই, নদী-নালা, খাল-বিল, বন-জঙ্গল সংরক্ষণ করা জরুরি। জলাশয় রক্ষা পেলে বকসহ অন্যন্য প্রাণী রক্ষা করা সম্ভব হবে। পাখির খাবার সংকট দূর করা না গেলে গোট জীববৈচিত্র্যই হুমকির মুখে পড়তে পারে। পরিবেশ বিজ্ঞানীরা বলছেন, প্রকৃতি ও পরিবেশ বাঁচলে, দেশও বাঁচবে। বিষয়টি সবাইকে মাথায় রাখতে হবে। আমাদের নিজেদের ভালোর জন্যই পরিবেশ ও প্রতিবেশ ব্যবস্থা টিকিয়ে রাখতে হবে।

কেবল সরকারের একার পক্ষে পরিবেশ-প্রকৃতি রক্ষা করা সম্ভব নয়। পরিবেশ-প্রকৃতি রক্ষার জন্য সবাইকে সচেতন হতে হবে।

back to top