alt

সম্পাদকীয়

নির্ভুল জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা কোথায়

: রোববার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় দেয়া হচ্ছে স্মার্ট এনআইডি কার্ড। উৎসাহ নিয়ে অনেকেই স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র তুলছেন। তবে পরিচয়পত্র হাতে পেয়ে অনেকের মুখই হয়ে যাচ্ছে ম্লান। কারণ অনেকের কার্ডেই রয়েছে পীড়াদায়ক ভুল। এ নিয়ে গত শনিবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

স্মার্ট কার্ডে নানান ভুল থাকায় বিপাকে পড়েছেন ভাঙ্গুড়ার অনেক মানুষ। কোনো স্মার্ট কার্ডে কার্ডধারী ব্যক্তির নামের বানান ভুল তো কোনো কার্ডে বাবার নাম বা স্বামীর নামের বানান ভুল। জন্ম সালের তথ্যেও গড়মিল রয়েছে। এই ভোগান্তির জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগের দায়িত্বহীনতা ও উদাসীনতাকে দায়ী করেছেন ভুক্তভোগীরা।

এনআইডিতে ভুলের এই রোগ নতুন নয়। আর পাবনার কেবল একটি এলাকার মানুষ এই রোগের যন্ত্রণা পোহাচ্ছেন না। এনআইডির জন্মলগ্ন থেকে ভুলের রোগ পেয়ে বসেছে। এ কারণে যে এখন পর্যন্ত কত মানুষ কতভাবে দুর্ভোগের শিকার হয়েছে সেটা একটা গবেষণার বিষয় হতে পারে।

নাগরিকদের জীবনে এনআইডি এখন অপরিহার্য প্রয়োজনে পরিণত হয়েছে। কেবল নির্ভুল ভোটার তালিকা প্রণয়নেই এটি কাজে লাগে না। বিভিন্ন চাকরি, জমি রেজিস্ট্রেশন, পাসপোর্ট তৈরি, ব্যাংক হিসাব খোলা, মোবাইল সিম কার্ড কেনা, বিদ্যুৎ, পানি ও গ্যাসের সংযোগসহ রাষ্ট্রীয় সুযোগ-সুবিধাসহ গুরুত্বপূর্ণ অনেক কাজেই জাতীয় পরিচয়পত্রের ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

কিন্তু ভুলত্রুটিপূর্ণ এনআইডির কারণে তাদের সমস্যায় পড়তে হয়। নামের বানান, জন্ম তারিখ, ঠিকানাসহ বিভিন্ন তথ্যে ভুল থাকলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে পড়তে হয় ভোগান্তিতে। জাতীয় পরিচয়পত্রে ছেলের চেয়ে বাবার বয়স কম, স্বামীর নামের জায়গায় বাবার নাম, নামের বানানে ভুলের মতো অনেক ত্রুটিই দেখা যায়। আর এ ধরনের ভুলের কারণে নাগরিকরা পদে পদে ভোগান্তির শিকার হন। মানুষকে রাষ্ট্রীয় ও প্রাতিষ্ঠানিক সেবা পেতে হয়রানির শিকার হতে হয়। এমনও দেখা যায় যে, পারিবারিক সম্পত্তির ভাগ-বাঁটোয়ারা নিয়েও বিপত্তিতে পড়তে হয় অনেককে।

ভুল থাকলে সেটা সংশোধন করা হবে সেটা স্বাভাবিক। সমস্যা হচ্ছে, ভুল সংশোধনের জন্য নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হলে শুরু হয় আরেক ভোগান্তি। যারা ভোগান্তি পোহাতে চান না বা পারেন না তারা বাধ্য হয়ে এনআইডির ভুল বছরের পর বছর বয়ে বেড়ান।

নির্ভুল জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা কোথায় সেটা জানতে হবে। সমস্যা চিহ্নিত করে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে। নাগরিকদের জাতীয় পরিচয়পত্র নির্ভুল ও ত্রুটিমুক্ত হওয়া বাঞ্চনীয়। এ কাজে সংশ্লিষ্টরা পেশাদারত্বের স্বাক্ষর রাখবে সেটাই আমাদের চাওয়া।

এখনো কেন চালু হলো না ট্রমা সেন্টার

এত উদ্যোগের পরও অর্থপাচার বাড়ল কীভাবে

চুড়িহাট্টা অগ্নিকাণ্ড : বিচারে ধীরগতি কেন

অমর একুশে

শিক্ষা ক্যাডারে পদোন্নতি নিয়ে অসন্তোষ কেন

কিশোর গ্যাং কালচারের অবসান ঘটাতে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

সরকারি খাল উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

ধীরগতির যানবাহন কেন মহাসড়কে

নদীর দখলদারদের কেন ‘পুরস্কৃত’ করা হবে

ফের ঊর্ধ্বমুখী মূল্যস্ফীতি

প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকায় বরফকল কেন

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যের ওষুধ কেন মিলছে না

রেলক্রসিং হোক সুরক্ষিত

বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিক্রির বিহিত করুন

জিকে সেচ প্রকল্পের খালে পানি সরবরাহ নিশ্চিত করুন

পোরশার স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ দিন

সাগর-রুনি হত্যার বিচারে আর কত অপেক্ষা

চাঁদপুর শহর রক্ষা বাঁধ প্রকল্পের কাজ দ্রুত শুরু হোক

দেশি পণ্যের জিআই স্বীকৃতির জন্য উদ্যোগী হয়ে কাজ করতে হবে

উখিয়ায় আবাদি ও বনের জমি রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

সড়ক নির্মাণ ও সংস্কারে অনিয়ম-দুর্নীতির অবসান ঘটাতে হবে

একটি পাকা সেতুর জন্য আর কত অপেক্ষা করতে হবে

পাখির খাদ্য সংকট ও আমাদের দায়

কাবিখা-কাবিটা প্রকল্পের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ আমলে নিন

কৃষিতে তামাক চাষের ক্ষতিকর প্রভাব

এলপিজি বিক্রি করতে হবে নির্ধারিত দরে

সাঘাটায় বিএমডিএর সেচ সংযোগে ঘুষ দাবি, তদন্ত করুন

সরকারি খাল দখলমুক্ত করুন

সাতক্ষীরার মরিচ্চাপ নদী খননে অনিয়মের অভিযোগ খতিয়ে দেখুন

ব্যাংক খাত সংস্কারের ভালো উদ্যোগ, বাস্তবায়ন জরুরি

ট্রান্সফরমার ও সেচ পাম্প চুরির প্রতিকার চাই

ক্যান্সারের চিকিৎসায় বৈষম্য দূর হোক

মোরেলগঞ্জের ঢুলিগাতি খাল দখলমুক্ত করুন

কর্মসৃজন প্রকল্পে শ্রমিকের মজুরি পরিশোধে বিলম্ব কেন

মোরেলগঞ্জের ঢুলিগাতি খাল দখলমুক্ত করুন

tab

সম্পাদকীয়

নির্ভুল জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা কোথায়

রোববার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় দেয়া হচ্ছে স্মার্ট এনআইডি কার্ড। উৎসাহ নিয়ে অনেকেই স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র তুলছেন। তবে পরিচয়পত্র হাতে পেয়ে অনেকের মুখই হয়ে যাচ্ছে ম্লান। কারণ অনেকের কার্ডেই রয়েছে পীড়াদায়ক ভুল। এ নিয়ে গত শনিবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

স্মার্ট কার্ডে নানান ভুল থাকায় বিপাকে পড়েছেন ভাঙ্গুড়ার অনেক মানুষ। কোনো স্মার্ট কার্ডে কার্ডধারী ব্যক্তির নামের বানান ভুল তো কোনো কার্ডে বাবার নাম বা স্বামীর নামের বানান ভুল। জন্ম সালের তথ্যেও গড়মিল রয়েছে। এই ভোগান্তির জন্য সংশ্লিষ্ট বিভাগের দায়িত্বহীনতা ও উদাসীনতাকে দায়ী করেছেন ভুক্তভোগীরা।

এনআইডিতে ভুলের এই রোগ নতুন নয়। আর পাবনার কেবল একটি এলাকার মানুষ এই রোগের যন্ত্রণা পোহাচ্ছেন না। এনআইডির জন্মলগ্ন থেকে ভুলের রোগ পেয়ে বসেছে। এ কারণে যে এখন পর্যন্ত কত মানুষ কতভাবে দুর্ভোগের শিকার হয়েছে সেটা একটা গবেষণার বিষয় হতে পারে।

নাগরিকদের জীবনে এনআইডি এখন অপরিহার্য প্রয়োজনে পরিণত হয়েছে। কেবল নির্ভুল ভোটার তালিকা প্রণয়নেই এটি কাজে লাগে না। বিভিন্ন চাকরি, জমি রেজিস্ট্রেশন, পাসপোর্ট তৈরি, ব্যাংক হিসাব খোলা, মোবাইল সিম কার্ড কেনা, বিদ্যুৎ, পানি ও গ্যাসের সংযোগসহ রাষ্ট্রীয় সুযোগ-সুবিধাসহ গুরুত্বপূর্ণ অনেক কাজেই জাতীয় পরিচয়পত্রের ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

কিন্তু ভুলত্রুটিপূর্ণ এনআইডির কারণে তাদের সমস্যায় পড়তে হয়। নামের বানান, জন্ম তারিখ, ঠিকানাসহ বিভিন্ন তথ্যে ভুল থাকলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে পড়তে হয় ভোগান্তিতে। জাতীয় পরিচয়পত্রে ছেলের চেয়ে বাবার বয়স কম, স্বামীর নামের জায়গায় বাবার নাম, নামের বানানে ভুলের মতো অনেক ত্রুটিই দেখা যায়। আর এ ধরনের ভুলের কারণে নাগরিকরা পদে পদে ভোগান্তির শিকার হন। মানুষকে রাষ্ট্রীয় ও প্রাতিষ্ঠানিক সেবা পেতে হয়রানির শিকার হতে হয়। এমনও দেখা যায় যে, পারিবারিক সম্পত্তির ভাগ-বাঁটোয়ারা নিয়েও বিপত্তিতে পড়তে হয় অনেককে।

ভুল থাকলে সেটা সংশোধন করা হবে সেটা স্বাভাবিক। সমস্যা হচ্ছে, ভুল সংশোধনের জন্য নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হলে শুরু হয় আরেক ভোগান্তি। যারা ভোগান্তি পোহাতে চান না বা পারেন না তারা বাধ্য হয়ে এনআইডির ভুল বছরের পর বছর বয়ে বেড়ান।

নির্ভুল জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা কোথায় সেটা জানতে হবে। সমস্যা চিহ্নিত করে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে। নাগরিকদের জাতীয় পরিচয়পত্র নির্ভুল ও ত্রুটিমুক্ত হওয়া বাঞ্চনীয়। এ কাজে সংশ্লিষ্টরা পেশাদারত্বের স্বাক্ষর রাখবে সেটাই আমাদের চাওয়া।

back to top