alt

সম্পাদকীয়

বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিক্রির বিহিত করুন

: বৃহস্পতিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

ষষ্ঠ ও অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থীরা পরবর্তী ক্লাসে উত্তীর্ণ হলে তাদের পাঠ্যবইগুলো ফেরত নেন প্রধান শিক্ষক। তিনি সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষা করে নতুন ও পুরোনো মিলিয়ে ৩৬০ কেজি বই বাজারে নিয়ে কেজি দরে বিক্রি করে দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার বাইটকামারী উচ্চ বিদ্যালয়ে।

শুধু পাঠ্যবই বিক্রিই নয় স্কুলে ইচ্ছামতো ভর্তি ফি, পুনর্ভর্তি ফি, পরীক্ষার ফি, রেজিস্ট্রেশন ফি ও ফরম পূরণ ফির নামে অতিরিক্ত টাকাও আদায় করার অভিযোগ উঠেছে। নির্ধারিত ফি পরিশোধ না করা পর্যন্ত ভর্তি খাতায় শিক্ষার্থীর নাম তোলা হয় না, এমনকি নতুন বইও দেয়া হয় না।

মাধ্যমিক শিক্ষা দপ্তরের একাডেমিক কর্তৃপক্ষ বলছে, বিদ্যালয়ে সরকারি বই উদ্বৃত্ত থাকলে তা ফেরত দিতে হবে। বই সংরক্ষণে সরকারি গুদামও রয়েছে। সরকারি বই বিক্রি করা আইনত দ-নীয় অপরাধ।

রৌমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিধিমোতাবেক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উপজেলা মাধ্যমিক কর্মকর্তাকে দায়িত্ব অর্পণ করেছেন। তিনি বলেছেন, বিনামূল্যের নতুুন কিংবা পুরাতন পাঠ্যবই কোনোক্রমেই বিক্রি করা যাবে না। এটা আইনত দ-নীয় অপরাধ।

পুরাতন পাঠ্যবই বাজারে নিয়ে কেজি দরে বিক্রি করার অভিযোগ এটাই প্রথম নয়। এরকম অভিযোগ আরও অন্যান্য জায়গা থেকেও পাওয়া যায়। প্রসঙ্গক্রমে ২০২১ সালে রাজশাহীর গোদাগাড়ীর মাটিকাটা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিক ৪০ মণ সরকারি পাঠ্যবই গোপনে বিক্রি করে দেয়ার কথা বলা যায়। এসব অভিযোগ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আমলে নিতে হবে। রৌমারীতে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ তদন্ত করতে হবে। তদন্তে অভিযোগের সত্যতা মিললে তাকে আইনের আওতায় আনতে হবে। নিয়ম লঙ্ঘন করে যারা সরকারি পাঠ্যবই বিক্রি করেন তাদের জবাবদিহির আওতায় আনা জরুরি বলে আমরা মনে করি।

এছাড়াও উক্ত ইচ্ছামতো ভর্তি ফি, পুনর্ভর্তি ফি, পরীক্ষার ফি, রেজিস্ট্রেশন ফি ও ফরমপূরণ ফির নামে অতিরিক্ত টাকাও আদায় করেন বলে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা অভিযোগ তুলেছে। আমরা চাইব, শিক্ষাসংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এসব অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগও খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেবে।

লঞ্চ চালাতে হবে নিয়ম মেনে

নতুন বছররে শুভচ্ছো

বিষ ঢেলে মাছ নিধনের অভিযোগ আমলে নিন

ঈদের আনন্দ স্পর্শ করুক সবার জীবন

মীরসরাইয়ের বন রক্ষায় সমন্বিত উদ্যোগ নেয়া জরুরি

স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ বাড়ানো জরুরি

কৃষকরা কেন তামাক চাষে ঝুঁকছে

রেলক্রসিংয়ে প্রাণহানির দায় কার

আর কত অপেক্ষার পর সেতু পাবে রানিশংকৈলের মানুষ^

পাহাড়ে ব্যাংক হামলা কেন

সিসা দূষণ রোধে আইনের কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

হার্টের রিংয়ের নির্ধারিত দর বাস্তবায়নে মনিটরিং জরুরি

রইচপুর খালে সেতু নির্মাণে আর কত অপেক্ষা

রাজধানীকে যানজটমুক্ত করা যাচ্ছে না কেন

জেলেরা কেন বরাদ্দকৃত চাল পাচ্ছে না

নিয়মতান্ত্রিক সংগঠনের সুযোগ থাকা জরুরি, বন্ধ করতে হবে অপরাজনীতি

ঢাকা-ময়মনসিংহ চার লেন সড়কের ক্ষতিগ্রস্ত অংশে সংস্কার করুন

শিক্ষা খাতে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে

স্লুইসগেটের ফাটল মেরামতে উদ্যোগ নিন

পরিবেশ দূষণ বন্ধে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

রংপুর শিশু হাসপাতাল চালু হতে কালক্ষেপণ কেন

দেশে এত খাবার অপচয়ের কারণ কী

রায়গঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যাতায়াতের দুর্ভোগ দূর করুন

প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার বাইরে থাকা জনগোষ্ঠী নিয়ে ভাবতে হবে

জলাশয় দূষণের জন্য দায়ী কারখানার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নদী থেকে অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ করুন

বহরবুনিয়া স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ভবন নির্মাণে আর কত বিলম্ব

মশার উপদ্রব থেকে নগরবাসীকে মুক্তি দিন

সিলেট ‘ইইডি’ কার্যালয়ের অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ

পাহাড় কাটা বন্ধ করুন

স্বাধীনতার ৫৪ বছর : মানুষের আশা-আকাক্সক্ষা কতটা পূরণ হলো

চিকিৎসক সংকট দূর করুন

আজ সেই কালরাত্রি : গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আদায়ে প্রচেষ্টা চালাতে হবে

সাতক্ষীরা হাসপাতালের ডায়ালাসিস মেশিন সংকট দূর করুন

পানি সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা জরুরি

আর কত অপেক্ষার পর বিধবা ছালেহার ভাগ্যে ঘর মিলবে

tab

সম্পাদকীয়

বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিক্রির বিহিত করুন

বৃহস্পতিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

ষষ্ঠ ও অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থীরা পরবর্তী ক্লাসে উত্তীর্ণ হলে তাদের পাঠ্যবইগুলো ফেরত নেন প্রধান শিক্ষক। তিনি সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষা করে নতুন ও পুরোনো মিলিয়ে ৩৬০ কেজি বই বাজারে নিয়ে কেজি দরে বিক্রি করে দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার বাইটকামারী উচ্চ বিদ্যালয়ে।

শুধু পাঠ্যবই বিক্রিই নয় স্কুলে ইচ্ছামতো ভর্তি ফি, পুনর্ভর্তি ফি, পরীক্ষার ফি, রেজিস্ট্রেশন ফি ও ফরম পূরণ ফির নামে অতিরিক্ত টাকাও আদায় করার অভিযোগ উঠেছে। নির্ধারিত ফি পরিশোধ না করা পর্যন্ত ভর্তি খাতায় শিক্ষার্থীর নাম তোলা হয় না, এমনকি নতুন বইও দেয়া হয় না।

মাধ্যমিক শিক্ষা দপ্তরের একাডেমিক কর্তৃপক্ষ বলছে, বিদ্যালয়ে সরকারি বই উদ্বৃত্ত থাকলে তা ফেরত দিতে হবে। বই সংরক্ষণে সরকারি গুদামও রয়েছে। সরকারি বই বিক্রি করা আইনত দ-নীয় অপরাধ।

রৌমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিধিমোতাবেক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উপজেলা মাধ্যমিক কর্মকর্তাকে দায়িত্ব অর্পণ করেছেন। তিনি বলেছেন, বিনামূল্যের নতুুন কিংবা পুরাতন পাঠ্যবই কোনোক্রমেই বিক্রি করা যাবে না। এটা আইনত দ-নীয় অপরাধ।

পুরাতন পাঠ্যবই বাজারে নিয়ে কেজি দরে বিক্রি করার অভিযোগ এটাই প্রথম নয়। এরকম অভিযোগ আরও অন্যান্য জায়গা থেকেও পাওয়া যায়। প্রসঙ্গক্রমে ২০২১ সালে রাজশাহীর গোদাগাড়ীর মাটিকাটা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিক ৪০ মণ সরকারি পাঠ্যবই গোপনে বিক্রি করে দেয়ার কথা বলা যায়। এসব অভিযোগ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আমলে নিতে হবে। রৌমারীতে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ তদন্ত করতে হবে। তদন্তে অভিযোগের সত্যতা মিললে তাকে আইনের আওতায় আনতে হবে। নিয়ম লঙ্ঘন করে যারা সরকারি পাঠ্যবই বিক্রি করেন তাদের জবাবদিহির আওতায় আনা জরুরি বলে আমরা মনে করি।

এছাড়াও উক্ত ইচ্ছামতো ভর্তি ফি, পুনর্ভর্তি ফি, পরীক্ষার ফি, রেজিস্ট্রেশন ফি ও ফরমপূরণ ফির নামে অতিরিক্ত টাকাও আদায় করেন বলে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা অভিযোগ তুলেছে। আমরা চাইব, শিক্ষাসংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এসব অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগও খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেবে।

back to top