alt

সম্পাদকীয়

মীরসরাইয়ের বন রক্ষায় সমন্বিত উদ্যোগ নেয়া জরুরি

: সোমবার, ০৮ এপ্রিল ২০২৪

জলবায়ুর বিরূপ প্রভাব ও অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার কারণে চট্টগ্রামের মীরসরাইয়ে প্রায় ৭০ শতাংশ উপকূলীয় বনাঞ্চল নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির মূল্যবান গাছ। ফলদ ও ওষুধি গাছও এখন শূন্যের কোটায়। কমে গেছে লবণাক্ততা সহিষ্ণু গাছের সংখ্যা।

বন কাটাও থেমে নেই। দুর্বৃত্তরা প্রকাশ্যে উপকূলীয় বনাঞ্চলের গাছ কেটে নিয়ে যাচ্ছে। এক্ষেত্রে বনবিভাগ কী ভূমিকা পালন করছে সেই প্রশ্ন উঠেছে। দুর্বৃত্তরা বনের গাছ কেটে নিয়ে যাচ্ছে বলে যে অভিযোগ উঠেছে, সেটা আমলে নিতে হবে। অভিযোগের সত্যতা মিললে দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে বন কর্তৃপক্ষকে।

বনভূমি কমে যাওয়ায় পাখিদের অভয়ারণ্য কমে এসেছে। কমে গেছে বন্যপ্রাণীদের চারণ ও বাসভূমি। খাদ্য ও পানির সংকটের হুমকির মুখে পড়েছে জীববৈচিত্র্য। আগে এখানকার পাহাড়ি ও উপকূলীয় বনে বিভিন্ন প্রজাতির বন মোরগ, হরিণ, বাঘ, হনুমান, শুকর, মহিষ, ছাগল, সাপ, গুঁইসাপ, কচ্ছপ, বনবিড়াল ও বন্য হাতির দেখা যেত। কিন্তু এখন সচরাচর এসব প্রাণী আর দেখা যায় না।

প্রাকৃতিক প্রতিকূলতা মোকাবিলায় বনভূমির পরিমাণ বাড়ানোর জন্য প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে গাছের চারা লাগানোর কথা থাকলেও তা করা হয়নি। জলবায়ুর বিরূপ প্রভাবের কারণে বন বিভাগ সেটা পারছে না বলে জানিয়েছে মীরসরাই উপকূলীয় বন কর্তৃপক্ষ। তারা আরও বলেছে তাদের জনবল সংকট রয়েছে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ ‘বেজা’র ভূমিকা বড়। কিন্তু তারা কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না। তাদের শরণাপন্ন হয়েও সহযোগিতা পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে।

কৃত্রিম বনভূমি গড়ে তোলার কথা থাকলেও সেটা চোখে পড়ার মতো নয়। ফলে ভবিষ্যতে এ অঞ্চলে পরিবেশ বিপর্যয় দেখা দিতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। উপকূলীয় বন কর্তৃপক্ষ বলছে নতুন কৃত্রিম বনায়ন সৃষ্টিতে ‘বেজা’র ভূমিকা বেশি। আবার ‘বেজা’ও আগ্রহ দেখাচ্ছে না। আমরা বলতে চাই, এভাবে চলতে পারে না। উন্নয়নের দরকার আছে। উন্নয়ন করতে হবে পরিবেশকে রক্ষা করে। পরিবেশ টিকে থাকলে উন্নয়নও টেকসই হবে। এই বিষয়টি মাথায় রেখে সংশ্লিষ্টদের সমন্বয় করে কাজ করতে হবে।

ধনাগোদা নদী সংস্কার করুন

স্কুলের খেলার মাঠ রক্ষা করুন

চাটখিলের ‘জাতীয় তথ্য বাতায়ন’ হালনাগাদ করুন

মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের অভিনন্দন, যারা ভালো করেনি তাদের পাশে থাকতে হবে

মিঠাপুকুরে ফসলি জমির টপসয়েল কাটা বন্ধের উদ্যোগ নিন

সড়কে নসিমন, করিমন ও ভটভটি চলাচল বন্ধ করুন

কালীহাতির খরশীলা সেতুর সংযোগ সড়ক সংস্কারে আর কত অপেক্ষা

গতিসীমা মেনে যান চলাচল নিশ্চিত করতে হবে

সাটুরিয়ার সমিতির গ্রাহকদের টাকা আদায়ে ব্যবস্থা নিন

ইভটিজারদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিন

ধোবাউড়ায় ঋণের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আমলে নিন

বজ্রপাত থেকে বাঁচতে চাই সচেতনতা

ডুমুরিয়ার বেড়িবাঁধের দখল হওয়া জমি উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

পুড়ছে সুন্দরবন

কাজ না করে প্রকল্পের টাকা তুলে নেয়ার অভিযোগ সুরাহা করুন

সরকারি খালে বাঁধ কেন

কৃষকদের ভুট্টার ন্যায্য দাম পেতে ব্যবস্থা নিন

সরকারি হাসপাতালে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ দিন

কালীগঞ্জে ফসলিজমির মাটি কাটায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নির্বিচারে বালু তোলা বন্ধ করুন

খাবার পানির সংকট দূর করুন

গরম কমছে না কেন

মধুপুর বন রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

সড়ক দুর্ঘটনার হতাশাজনক চিত্র

সখীপুরে বংশাই নদীতে সেতু চাই

ইটভাটায় ফসলের ক্ষতি : এর দায় কার

টাঙ্গাইলে জলাশয় দখলের অভিযোগের সুরাহা করুন

অবৈধ বালু তোলা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

টিসিবির পণ্য : ওজনে কম দেয়ার অভিযোগ আমলে নিন

ভৈরব নদে সেতু নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

ডায়রিয়া প্রতিরোধে চাই জনসচেতনতা

ফিটনেসবিহীন গণপরিবহন সড়কে চলছে কীভাবে

গোবিন্দগঞ্জে নিয়মনীতি উপেক্ষা করে গাছ কাটার অভিযোগ আমলে নিন

নিষেধাজ্ঞা চলাকালে জেলেদের বিকল্প কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা জরুরি

অগ্নিনির্বাপণ সরঞ্জাম ব্যবহারে চাই সচেতনতা

অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

tab

সম্পাদকীয়

মীরসরাইয়ের বন রক্ষায় সমন্বিত উদ্যোগ নেয়া জরুরি

সোমবার, ০৮ এপ্রিল ২০২৪

জলবায়ুর বিরূপ প্রভাব ও অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার কারণে চট্টগ্রামের মীরসরাইয়ে প্রায় ৭০ শতাংশ উপকূলীয় বনাঞ্চল নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির মূল্যবান গাছ। ফলদ ও ওষুধি গাছও এখন শূন্যের কোটায়। কমে গেছে লবণাক্ততা সহিষ্ণু গাছের সংখ্যা।

বন কাটাও থেমে নেই। দুর্বৃত্তরা প্রকাশ্যে উপকূলীয় বনাঞ্চলের গাছ কেটে নিয়ে যাচ্ছে। এক্ষেত্রে বনবিভাগ কী ভূমিকা পালন করছে সেই প্রশ্ন উঠেছে। দুর্বৃত্তরা বনের গাছ কেটে নিয়ে যাচ্ছে বলে যে অভিযোগ উঠেছে, সেটা আমলে নিতে হবে। অভিযোগের সত্যতা মিললে দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে বন কর্তৃপক্ষকে।

বনভূমি কমে যাওয়ায় পাখিদের অভয়ারণ্য কমে এসেছে। কমে গেছে বন্যপ্রাণীদের চারণ ও বাসভূমি। খাদ্য ও পানির সংকটের হুমকির মুখে পড়েছে জীববৈচিত্র্য। আগে এখানকার পাহাড়ি ও উপকূলীয় বনে বিভিন্ন প্রজাতির বন মোরগ, হরিণ, বাঘ, হনুমান, শুকর, মহিষ, ছাগল, সাপ, গুঁইসাপ, কচ্ছপ, বনবিড়াল ও বন্য হাতির দেখা যেত। কিন্তু এখন সচরাচর এসব প্রাণী আর দেখা যায় না।

প্রাকৃতিক প্রতিকূলতা মোকাবিলায় বনভূমির পরিমাণ বাড়ানোর জন্য প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে গাছের চারা লাগানোর কথা থাকলেও তা করা হয়নি। জলবায়ুর বিরূপ প্রভাবের কারণে বন বিভাগ সেটা পারছে না বলে জানিয়েছে মীরসরাই উপকূলীয় বন কর্তৃপক্ষ। তারা আরও বলেছে তাদের জনবল সংকট রয়েছে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ ‘বেজা’র ভূমিকা বড়। কিন্তু তারা কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না। তাদের শরণাপন্ন হয়েও সহযোগিতা পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে।

কৃত্রিম বনভূমি গড়ে তোলার কথা থাকলেও সেটা চোখে পড়ার মতো নয়। ফলে ভবিষ্যতে এ অঞ্চলে পরিবেশ বিপর্যয় দেখা দিতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। উপকূলীয় বন কর্তৃপক্ষ বলছে নতুন কৃত্রিম বনায়ন সৃষ্টিতে ‘বেজা’র ভূমিকা বেশি। আবার ‘বেজা’ও আগ্রহ দেখাচ্ছে না। আমরা বলতে চাই, এভাবে চলতে পারে না। উন্নয়নের দরকার আছে। উন্নয়ন করতে হবে পরিবেশকে রক্ষা করে। পরিবেশ টিকে থাকলে উন্নয়নও টেকসই হবে। এই বিষয়টি মাথায় রেখে সংশ্লিষ্টদের সমন্বয় করে কাজ করতে হবে।

back to top