alt

সম্পাদকীয়

এলপিজি বিক্রি করতে হবে নির্ধারিত দরে

: মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারী ২০২১

নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে দেড় থেকে দুই গুণ বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে লিকুইড পেট্রোলিয়াম গ্যাস (এলপিজি)। যে সিলিন্ডারের সরকারি মূল্য ৬০০ টাকা সেটার দাম বেসরকারি পর্যায়ে ৯৫০ থেকে ১২০০ টাকা। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর যথেচ্ছাচারের শিকার হচ্ছেন ভোক্তা সাধারণ।

আবাসিক খাতেই এলপিজির ব্যবহার বেশি। আগামীতে এর ব্যবহার আরো বাড়বে। কারণ আবাসিকে প্রাকৃতিক গ্যাসের সংযোগ স্থায়ীভাবে বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। দেশে এখন এলপিজির বার্ষিক চাহিদা প্রায় ১৫ লাখ মেট্রিক টন। এর বিপরীতে বছরে আমদানি ও বিক্রি হচ্ছে প্রায় ১০ লাখ মেট্রিক টন। চাহিদা ও জোগানে ভারসাম্য না থাকায় এর দাম যৌক্তিক পর্যায়ে নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। আগামীতে চাহিদা বাড়লে এবং সে অনুপাতে আমদানি না বাড়লে এর দাম কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে সেটা একটা প্রশ্ন।

বিইআরসি থেকে লাইসেন্স নেয়া এলপিজি কোম্পানি ২৭টি। এর মধ্যে গ্যাস সরবরাহ করছে ১৮টি কোম্পানি। বাকিগুলো সরবরাহ কাজ শুরু করেনি কেন, সেটা জানা দরকার। সব কোম্পানিকে সক্রিয় করা গেলে চাহিদা-সরবরাহের ফারাক কমানো যেত। সরকারিভাবে আমদানি-বিক্রি বাড়িয়েও দাম নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করা যায়। বর্তমানে মাত্র ২০ হাজার মেট্রিক টন এলপিজি সরকারিভাবে বিক্রি হয়, যা মোট চাহিদার মাত্র ২ শতাংশ।

বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) এলপিজির মূল্যহার পুনঃনির্ধারণের উদ্যোগ নিয়েছে। জানা গেছে, বেসরকারি কোম্পানিগুলো সরকারি কোম্পানির চেয়ে ৫৬ ভাগ বেশি দাম নির্ধারণের প্রস্তাব দিয়েছে। অযৌক্তিক দর যেন নির্ধারিত না হয় সেটা বিইআরসির গণশুনানিতে নিশ্চিত করতে হবে। সিলিন্ডারের ওপর সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য লিখতে বাধ্য করতে হবে। এক্ষেত্রে কারো কোন ওজর-আপত্তি থাকতে পারে না।

সব ভোক্তা যেন নির্ধারিত মূল্যে এলপিজি গ্যাস পান সেটা নিশ্চিত করা জরুরি। ভোক্তা যদি নির্ধারিত দরে গ্যাস না পান তাহলে দর নির্ধারণের প্রয়োজন কী? ব্যবসায়ীরাই কি খেয়াল-খুশিমতো এর দাম নিয়ন্ত্রণ করবেন?

এলপিজি আমদানি বা বিক্রির ক্ষেত্রে পরিবহন ও বিপণন ব্যয় কীভাবে কমানো যায় সেটা খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। কবে এলপিজি টার্মিনাল নির্মাণ হবে, তারপর এর দাম কমবে- সেই আশায় বসে থাকলে চলবে না।

সংকটে সংবাদপত্রশিল্প প্রয়োজন প্রণোদনা

প্রান্তিক মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করুন

উপকূলে জলদস্যুদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে

পুরুষতান্ত্রিক সমাজের একজন প্রতিনিধি

পিইসি পরীক্ষা নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করুন

জননিরাপত্তাকে অগ্রাধিকার দিয়ে রেলক্রসিংগুলো সুরক্ষিত করুন

বিমানবন্দরগুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন

সড়কে শৃঙ্খলা ফিরবে নাকি যেমন আছে তেমনই থাকবে

রেলের উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ কতকাল ধরে চলতে থাকবে

‘বন্দুকযুদ্ধ’ কোন সমাধান নয়

এইডস প্রতিরোধে চাই জনসচেতনতা

সীমান্ত হত্যা বন্ধে প্রতিশ্রুতি রক্ষা করুন

পার্বত্য চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন জরুরি

শর্তযুক্ত ‘হাফ পাস’

সড়ক দুর্ঘটনায় এত শিক্ষার্থী মারা যাচ্ছে কেন

পশুর চ্যানেলে বাল্কহেড চলাচল বন্ধ করুন

ইউপি নির্বাচনে সহিংসতা ও ইসি’র দাবি

ফ্রাঞ্চাইজিভিত্তিক বাস সার্ভিস কবে আলোর মুখ দেখবে

করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’ মোকাবিলায় চাই সার্বিক প্রস্তুতি

পাহাড় দখল কি চলতেই থাকবে

নারী ক্রিকেটের আরেকটি মাইলফলক

যক্ষ্মা ও এইডস রোগ নির্মূল কর্মসূচি প্রসঙ্গে

সড়কে মৃত্যুর মিছিল বন্ধ হোক

ফিটনেসছাড়া ফেরিগুলো চলছে কীভাবে

বায়ুদূষণ রোধে সমন্বিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরছে প্রাণ

রাষ্ট্রপতির সময়োপযোগী আহ্বান

অভিনন্দন সুপ্তা, নারী ক্রীড়াবিদদের জয়যাত্রা অব্যাহত থাকুক

নারীর সুরক্ষায় আইনের কঠোর প্রয়োগ ঘটাতে হবে

শিক্ষার্থীদের ‘হাফ পাসের’ দাবি বিবেচনা করুন

দুদকের কাজ কঠিন তবে অসম্ভব নয়

ড্যাপের খসড়া : অংশীজনদের যৌক্তিক মত গ্রহণ করা জরুরি

করোনার সংক্রমণ কমলেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে

দক্ষিণাঞ্চলে ফায়ার সার্ভিসের সমস্যা দূর করুন

আইসিটি শিক্ষক সংকট দূর করুন

শৌচাগার সংকট থেকে রাজধানীবাসীকে উদ্ধার করুন

tab

সম্পাদকীয়

এলপিজি বিক্রি করতে হবে নির্ধারিত দরে

মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারী ২০২১

নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে দেড় থেকে দুই গুণ বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে লিকুইড পেট্রোলিয়াম গ্যাস (এলপিজি)। যে সিলিন্ডারের সরকারি মূল্য ৬০০ টাকা সেটার দাম বেসরকারি পর্যায়ে ৯৫০ থেকে ১২০০ টাকা। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর যথেচ্ছাচারের শিকার হচ্ছেন ভোক্তা সাধারণ।

আবাসিক খাতেই এলপিজির ব্যবহার বেশি। আগামীতে এর ব্যবহার আরো বাড়বে। কারণ আবাসিকে প্রাকৃতিক গ্যাসের সংযোগ স্থায়ীভাবে বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। দেশে এখন এলপিজির বার্ষিক চাহিদা প্রায় ১৫ লাখ মেট্রিক টন। এর বিপরীতে বছরে আমদানি ও বিক্রি হচ্ছে প্রায় ১০ লাখ মেট্রিক টন। চাহিদা ও জোগানে ভারসাম্য না থাকায় এর দাম যৌক্তিক পর্যায়ে নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। আগামীতে চাহিদা বাড়লে এবং সে অনুপাতে আমদানি না বাড়লে এর দাম কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে সেটা একটা প্রশ্ন।

বিইআরসি থেকে লাইসেন্স নেয়া এলপিজি কোম্পানি ২৭টি। এর মধ্যে গ্যাস সরবরাহ করছে ১৮টি কোম্পানি। বাকিগুলো সরবরাহ কাজ শুরু করেনি কেন, সেটা জানা দরকার। সব কোম্পানিকে সক্রিয় করা গেলে চাহিদা-সরবরাহের ফারাক কমানো যেত। সরকারিভাবে আমদানি-বিক্রি বাড়িয়েও দাম নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করা যায়। বর্তমানে মাত্র ২০ হাজার মেট্রিক টন এলপিজি সরকারিভাবে বিক্রি হয়, যা মোট চাহিদার মাত্র ২ শতাংশ।

বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) এলপিজির মূল্যহার পুনঃনির্ধারণের উদ্যোগ নিয়েছে। জানা গেছে, বেসরকারি কোম্পানিগুলো সরকারি কোম্পানির চেয়ে ৫৬ ভাগ বেশি দাম নির্ধারণের প্রস্তাব দিয়েছে। অযৌক্তিক দর যেন নির্ধারিত না হয় সেটা বিইআরসির গণশুনানিতে নিশ্চিত করতে হবে। সিলিন্ডারের ওপর সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য লিখতে বাধ্য করতে হবে। এক্ষেত্রে কারো কোন ওজর-আপত্তি থাকতে পারে না।

সব ভোক্তা যেন নির্ধারিত মূল্যে এলপিজি গ্যাস পান সেটা নিশ্চিত করা জরুরি। ভোক্তা যদি নির্ধারিত দরে গ্যাস না পান তাহলে দর নির্ধারণের প্রয়োজন কী? ব্যবসায়ীরাই কি খেয়াল-খুশিমতো এর দাম নিয়ন্ত্রণ করবেন?

এলপিজি আমদানি বা বিক্রির ক্ষেত্রে পরিবহন ও বিপণন ব্যয় কীভাবে কমানো যায় সেটা খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। কবে এলপিজি টার্মিনাল নির্মাণ হবে, তারপর এর দাম কমবে- সেই আশায় বসে থাকলে চলবে না।

back to top