alt

সম্পাদকীয়

সড়ক দুর্ঘটনা রোধে চাই সচেতনতা

: রোববার, ০২ মে ২০২১

করোনা সংক্রমণ রোধে চলমান বিধিনিষেধের মধ্যে এপ্রিল মাসে ৪৩২টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৪৬৮ জন নিহত ও ৫০৭ জন আহত হয়েছেন। আজ রোববার বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

বিধিনিষেধ চলাকালে দেশে যান চলাচল ছিল স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় অনেক কম। মানুষের চলাচল সীমিত করতে বন্ধ রাখা হয়েছিল গণপরিবহন। ব্যক্তিগত গাড়িও চলেছে তুলনামূলক কম। এমন পরিস্থিতির মধ্যেও সড়ক দুর্ঘটনা বন্ধ হয়নি। বন্ধ হয়নি সড়কে মৃত্যুর মিছিল। বিষয়টি উদ্বেগজনক।

আমাদের দেশে কী কী কারণে এত বেশি সড়ক দুঘটনা ঘটে, কী কী পদক্ষেপ নিলে দুর্ঘটনার হার কমিয়ে আনা সম্ভব- এসব বহুল আলোচিত বিষয়। অনেক গবেষণা হয়েছে, বিশেষজ্ঞদের বহু পরামর্শ আছে। তবে এর তেমন কিছুই কার্যকর হয়নি। বুয়েটের সড়ক দুর্ঘটনা গবেষণা ইনস্টিটিউটের (এআরআই) এক গবেষণা অনুযায়ী, দেশে ৫৩ শতাংশ সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে অতিরিক্ত গতিতে গাড়ি চালানোর জন্য। চালকদের বেপরোয়া মনোভাবের কারণে দুর্ঘটনা ঘটে ৩৭ শতাংশ। ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন, ভুয়া লাইসেন্সপ্রাপ্ত চালক ও বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানো বন্ধ করা হলে সড়ক দুর্ঘটনা অনেক কমতে পারে। কিন্তু এ ক্ষেত্রে ফলপ্রসূ উদ্যোগ নেই। আইনের প্রয়োগ সন্তোষজনক নয়। সড়ক দুর্ঘটনায় অভিযুক্ত চালকদের সাজা ভোগের নজিরও দেখা যায় না।

প্রশ্ন হলো, এ পরিস্থিতির উত্তরণ হবে কী করে? সড়ক দুর্ঘটনা হ্রাসের লক্ষ্যে দুর্ঘটনার জন্য দায়ী চালক এবং পরিবহন মালিকদের শাস্তি নিশ্চিত করা প্রথম কাজ। গতিসীমা মেনে গাড়ি চালানোর মানসিক সক্ষমতা নেই দেশের অধিকাংশ চালকের। কাজেই বাহ্যিক প্রশিক্ষণ দিয়ে এ সমস্যার সমাধান হবে না। চালকদের মনোভঙ্গিতে যেন ইতিবাচক পরিবর্তন আসে সেদিকে নজর দিতে হবে।

রাস্তার বাঁকগুলো সোজা করতে হবে। ভুয়া ড্রাইভিং লাইসেন্স, হেলপারদের দিয়ে গাড়ি চালানো, ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন চলাচল বন্ধ করতে হবে। রাষ্ট্রকে উপলব্ধি করতে হবে যে, এটা একটা জাতীয় সমস্যা। সরকারের পাশাপাশি পরিবহন মালিক, শ্রমিক ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকেও সচেষ্ট হতে হবে। পথচারী ও যাত্রী সাধারণের সচেতনতাও বাড়াতে হবে।

জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনে হয়রানি বন্ধ করুন

সীমান্তে করোনার সংক্রমণ কার উদাসীনতায়?

শিশুশ্রম : শ্রম আর ঘামে শৈশব যেন চুরি না হয়

মডেল মসজিদ প্রসঙ্গে

ঢাকার বাসযোগ্যতার আরেকটি করুণ চিত্র

পুঁজিবাজারে কারসাজি বন্ধে বিএসইসিকে কঠোর হতে হবে

উপকারভোগী নির্বাচন প্রক্রিয়া হতে হবে স্বচ্ছ

পাহাড়-বন কেটে আবার কেন রোহিঙ্গা ক্যাম্প

নিরীহ মানুষকে ফাঁসিয়ে মাদক নির্মূল করা যাবে না

গ্যাং কালচার থেকে শিশু-কিশোরদের ফেরাতে হবে

নিরাপদ খাদ্য প্রসঙ্গে

বস্তিতে আগুন : পুনরাবৃত্তি রোধে চাই বিদ্যুৎ-গ্যাসের বৈধ সংযোগ

নদী দূষণ বন্ধে চাই জোরালো উদ্যোগ

উদাসীন হলে চড়া মূল্য দিতে হবে

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণার বিহিত করুন

নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে কোন কারণে

পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিকের গুদামগুলো সরিয়ে নিন

টিকা দেয়ার পরিকল্পনায় গলদ থাকলে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ অর্জন করা সম্ভব হবে না

প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানোর মিছিলে ওয়াসা

সীমান্তবর্তী এলাকায় বাড়ছে করোনার সংক্রমণ : স্বাস্থ্যবিধিতে ছাড় নয়

জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে কবে

বাজেট : প্রাণ আর পেটের দায় মেটানোর অভিলাষ কি পূরণ হবে

মাদক নির্মূলে জিরো টলারেন্স নীতির কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

গৃহহীনদের ঘর নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

গ্যাসকূপ খননে বাপেক্স কেন নয়

বরাদ্দ ব্যয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের সক্ষমতা বাড়াতে হবে

সিলেটে দফায় দফায় ভূমিকম্প : সতর্ক থাকতে হবে

অনলাইন ব্যবসায় প্রতারণা বন্ধে আইনি ব্যবস্থা নিন

কার স্বার্থে বারবার কালোটাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হচ্ছে

মানুষ ও বন্যপ্রাণী উভয়কেই রক্ষা করতে হবে

উপকূলীয় অঞ্চলে টেকসই বাঁধ নির্মাণ করা হোক

করোনার পরীক্ষায় প্রতারণা প্রসঙ্গে

এখনও ডায়রিয়ায় ভুগছে মানুষ প্রতিরোধে চাই সচেতনতা

সীমান্তে শিথিল স্বাস্থ্যবিধি কঠোর হোন

tab

সম্পাদকীয়

সড়ক দুর্ঘটনা রোধে চাই সচেতনতা

রোববার, ০২ মে ২০২১

করোনা সংক্রমণ রোধে চলমান বিধিনিষেধের মধ্যে এপ্রিল মাসে ৪৩২টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৪৬৮ জন নিহত ও ৫০৭ জন আহত হয়েছেন। আজ রোববার বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

বিধিনিষেধ চলাকালে দেশে যান চলাচল ছিল স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় অনেক কম। মানুষের চলাচল সীমিত করতে বন্ধ রাখা হয়েছিল গণপরিবহন। ব্যক্তিগত গাড়িও চলেছে তুলনামূলক কম। এমন পরিস্থিতির মধ্যেও সড়ক দুর্ঘটনা বন্ধ হয়নি। বন্ধ হয়নি সড়কে মৃত্যুর মিছিল। বিষয়টি উদ্বেগজনক।

আমাদের দেশে কী কী কারণে এত বেশি সড়ক দুঘটনা ঘটে, কী কী পদক্ষেপ নিলে দুর্ঘটনার হার কমিয়ে আনা সম্ভব- এসব বহুল আলোচিত বিষয়। অনেক গবেষণা হয়েছে, বিশেষজ্ঞদের বহু পরামর্শ আছে। তবে এর তেমন কিছুই কার্যকর হয়নি। বুয়েটের সড়ক দুর্ঘটনা গবেষণা ইনস্টিটিউটের (এআরআই) এক গবেষণা অনুযায়ী, দেশে ৫৩ শতাংশ সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে অতিরিক্ত গতিতে গাড়ি চালানোর জন্য। চালকদের বেপরোয়া মনোভাবের কারণে দুর্ঘটনা ঘটে ৩৭ শতাংশ। ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন, ভুয়া লাইসেন্সপ্রাপ্ত চালক ও বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানো বন্ধ করা হলে সড়ক দুর্ঘটনা অনেক কমতে পারে। কিন্তু এ ক্ষেত্রে ফলপ্রসূ উদ্যোগ নেই। আইনের প্রয়োগ সন্তোষজনক নয়। সড়ক দুর্ঘটনায় অভিযুক্ত চালকদের সাজা ভোগের নজিরও দেখা যায় না।

প্রশ্ন হলো, এ পরিস্থিতির উত্তরণ হবে কী করে? সড়ক দুর্ঘটনা হ্রাসের লক্ষ্যে দুর্ঘটনার জন্য দায়ী চালক এবং পরিবহন মালিকদের শাস্তি নিশ্চিত করা প্রথম কাজ। গতিসীমা মেনে গাড়ি চালানোর মানসিক সক্ষমতা নেই দেশের অধিকাংশ চালকের। কাজেই বাহ্যিক প্রশিক্ষণ দিয়ে এ সমস্যার সমাধান হবে না। চালকদের মনোভঙ্গিতে যেন ইতিবাচক পরিবর্তন আসে সেদিকে নজর দিতে হবে।

রাস্তার বাঁকগুলো সোজা করতে হবে। ভুয়া ড্রাইভিং লাইসেন্স, হেলপারদের দিয়ে গাড়ি চালানো, ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন চলাচল বন্ধ করতে হবে। রাষ্ট্রকে উপলব্ধি করতে হবে যে, এটা একটা জাতীয় সমস্যা। সরকারের পাশাপাশি পরিবহন মালিক, শ্রমিক ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকেও সচেষ্ট হতে হবে। পথচারী ও যাত্রী সাধারণের সচেতনতাও বাড়াতে হবে।

back to top