alt

সম্পাদকীয়

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত পুনর্বাসন করুন

: বৃহস্পতিবার, ২৭ মে ২০২১

ঘূর্ণিঝড় ইয়াস বাংলাদেশে আঘাত না হানলেও জলোচ্ছ্বাস ও বেড়িবাঁধ ভেঙে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। এর মধ্যে খুলনা, সাতক্ষীরা, কক্সবাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় ধসে গেছে প্রায় শতাধিক বেড়িবাঁধ। এছাড়া জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে বরগুনার ২৬টি গ্রাম, বেড়িবাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে পটুয়াখালীর ৩৪টি গ্রাম, ৩-৪ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসে ফেনীতে পানিতে ডুবে মারা গেছেন এক জেলে। চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে নিম্নাঞ্চল ও ঝিনাইদহে ঝড়ো হাওয়ায় অর্ধশত বাড়িঘর লন্ডভন্ড হয়ে গেছে। এতে সারা দেশে প্রায় ২ লাখ মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন বলে স্থানীয় প্রতিনিধিরা জানান।

আগে থেকেই ধারণা করা হচ্ছিল যে, ইয়াস সরাসরি বাংলাদেশে প্রবেশ করবে না। তবে এর প্রভাব পড়বে। তারপরেও উপকূলের বিভিন্ন অঞ্চলে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে উল্লেখ করার মতো। এর প্রভাবে জোয়ারের পানিতে উপকূলের বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

করোনাকালে এ ঘূর্ণিঝড়ের প্রকোপ দেশের উপকূলীয় জনগোষ্ঠীর জন্য এক বাড়তি দুর্যোগ। আয় কমে যাওয়ার এই সময়ে ক্ষেতের ফল-ফসল, বাড়িঘর ঝড়ের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যা মানুষকে সমস্যায় ফেলেছে। দুর্যোগ মোকাবিলায় মানবিক সহায়তা প্রদানের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে সাড়ে ১৬ হাজার প্যাকেট খাদ্যসামগ্রী বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত বিবেচনায় এর পরিমাণ যথেষ্ট নয়। পানিবন্দী সব মানুষের জীবনধারণের জন্য পর্যাপ্ত খাদ্য ও ত্রাণসামগ্রী বরাদ্দ দিতে হবে। এক্ষেত্রে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি সংস্থা, সামাজিক সংগঠন ও অবস্থাসম্পন্নদের এগিয়ে আসা উচিত।

ঘূর্ণিঝড়ের কারণে যারা আশ্রয়হীন হয়েছেন তাদের পুনর্বাসন করতে হবে। দ্রুততার সঙ্গে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি মেরামত করতে হবে। ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়িগুলোর বেশিরভাগই কাঁচা। উপকূলীয় এলাকায় পাকা ঘর গড়ে তোলা গেলে মানুষের আশ্রয়স্থল আরও নিরাপদ হতে পারে। বিষয়টি সরকারকে সক্রিয়ভাবে ভেবে দেখতে হবে।

কোন ঘূর্ণিঝড়ের পরে ক্ষতিগ্রস্ত ও অরক্ষিত বাঁধগুলো দিয়ে জোয়ারের পানি অবাধে ঢুকে আরেকটি বিপর্যয় তৈরি করে। যা আইলা ও সিডরের পরে উপকূলবাসীকে বেশ ভুগিয়েছে। এবারও একই ঘটনা ঘটছে। ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধগুলো দ্রুত সংস্কার করা উচিত। বাঁধ সংস্কারে যেন অনিয়ম-দুর্নীতি না হয় সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে। বহু কৃষক ও খামারি ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। আমরা চাইব, সরকার ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের পাশে দাঁড়াক। কোন কৃষক বা খামারির যদি ঋণ থাকে তবে সে ঋণ মওকুফ করতে হবে।

উপকূলে সুপেয় পানির সংকট দিন দিন তীব্র হচ্ছে। এ সংকট দূর করার জন্য পানির প্ল্যান্ট স্থাপনের দাবি উঠেছে। এ দাবি সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করা হবে সেটা আমাদের প্রত্যাশা। বৃষ্টির পানি ধরে রেখে উদ্ভূত সমস্যার সমাধান করা যেতে পারে।

টকা নিন, স্বাস্থ্যবিধিও মানুন

স্বাধীন মতপ্রকাশের পথে বাধা দূর করুন

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যের গরমিল

গণটিকাদান কর্মসূচি

বায়ু ও শব্দদূষণ রোধে চাই সদিচ্ছা

ঘর নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতির আরেকটি অভিযোগ

এলপিজি বিক্রি করতে হবে নির্ধারিত দরে

অক্সিজেন সরবরাহ নিয়ে রশি টানাটানি বন্ধ করুন

পাহাড়ি ঢলে বন্যা, ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত সহায়তা দিন

শিল্পকারখানা খোলার ঝুঁকি মোকাবিলায় প্রস্তুতি কী

হুমকির মুখে থাকা বাঘ সুন্দরবনকে বাঁচাবে কী করে

পাহাড় ধসে মৃত্যু প্রতিরোধে স্থায়ী পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করুন

সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সরকারের অঙ্গীকারের বাস্তবায়ন চাই

ডেঙ্গু প্রতিরোধে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

পানিতে ডুবে শিশুমৃত্যু প্রসঙ্গে

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন কার নিরাপত্তা দিচ্ছে?

সেতু নির্মাণের নামে জনগণের অর্থের অপচয় বন্ধ করতে হবে

আয় বৈষম্য কমানোর পথ খুঁজতে হবে

নদী খননে অনিয়ম কাম্য নয়

আইসিইউ স্থাপনে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ কেন মানা হয়নি

সরকারের ত্রাণ সহায়তায় অনিয়ম বন্ধ করতে হবে

পরিকল্পনাহীনতায় মানুষের ভোগান্তি

চাষিরা যেন আম উৎপাদনের সুফল পান

কঠোর বিধিনিষেধ প্রসঙ্গে

উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি : বড় মূল্য দিতে হতে পারে

অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহার বন্ধ করতে হবে

ডেঙ্গু প্রতিরোধে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

কোরবানির পশুকেন্দ্রিক চাঁদাবাজি বন্ধ করুন

যথাসময়ে বকেয়া বেতন ও ঈদ বোনাস পরিশোধ করুন

দ্রুত সড়ক-মহাসড়ক সংস্কার করুন

কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা

হাসপাতালটি কেন সিআরবিতেই করতে হবে

অগ্নি দুর্ঘটনা প্রতিরোধে ফায়ার সার্ভিসের সুপারিশ বাস্তবায়ন করা জরুরি

চালের দামে লাগাম টানুন

অনিয়ম-দুর্নীতির পুনরাবৃত্তি রোধ করতে হবে

বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে ইউনিসেফের আহ্বান

tab

সম্পাদকীয়

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত পুনর্বাসন করুন

বৃহস্পতিবার, ২৭ মে ২০২১

ঘূর্ণিঝড় ইয়াস বাংলাদেশে আঘাত না হানলেও জলোচ্ছ্বাস ও বেড়িবাঁধ ভেঙে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। এর মধ্যে খুলনা, সাতক্ষীরা, কক্সবাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় ধসে গেছে প্রায় শতাধিক বেড়িবাঁধ। এছাড়া জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে বরগুনার ২৬টি গ্রাম, বেড়িবাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে পটুয়াখালীর ৩৪টি গ্রাম, ৩-৪ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসে ফেনীতে পানিতে ডুবে মারা গেছেন এক জেলে। চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে নিম্নাঞ্চল ও ঝিনাইদহে ঝড়ো হাওয়ায় অর্ধশত বাড়িঘর লন্ডভন্ড হয়ে গেছে। এতে সারা দেশে প্রায় ২ লাখ মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন বলে স্থানীয় প্রতিনিধিরা জানান।

আগে থেকেই ধারণা করা হচ্ছিল যে, ইয়াস সরাসরি বাংলাদেশে প্রবেশ করবে না। তবে এর প্রভাব পড়বে। তারপরেও উপকূলের বিভিন্ন অঞ্চলে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে উল্লেখ করার মতো। এর প্রভাবে জোয়ারের পানিতে উপকূলের বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

করোনাকালে এ ঘূর্ণিঝড়ের প্রকোপ দেশের উপকূলীয় জনগোষ্ঠীর জন্য এক বাড়তি দুর্যোগ। আয় কমে যাওয়ার এই সময়ে ক্ষেতের ফল-ফসল, বাড়িঘর ঝড়ের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যা মানুষকে সমস্যায় ফেলেছে। দুর্যোগ মোকাবিলায় মানবিক সহায়তা প্রদানের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে সাড়ে ১৬ হাজার প্যাকেট খাদ্যসামগ্রী বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত বিবেচনায় এর পরিমাণ যথেষ্ট নয়। পানিবন্দী সব মানুষের জীবনধারণের জন্য পর্যাপ্ত খাদ্য ও ত্রাণসামগ্রী বরাদ্দ দিতে হবে। এক্ষেত্রে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি সংস্থা, সামাজিক সংগঠন ও অবস্থাসম্পন্নদের এগিয়ে আসা উচিত।

ঘূর্ণিঝড়ের কারণে যারা আশ্রয়হীন হয়েছেন তাদের পুনর্বাসন করতে হবে। দ্রুততার সঙ্গে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি মেরামত করতে হবে। ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়িগুলোর বেশিরভাগই কাঁচা। উপকূলীয় এলাকায় পাকা ঘর গড়ে তোলা গেলে মানুষের আশ্রয়স্থল আরও নিরাপদ হতে পারে। বিষয়টি সরকারকে সক্রিয়ভাবে ভেবে দেখতে হবে।

কোন ঘূর্ণিঝড়ের পরে ক্ষতিগ্রস্ত ও অরক্ষিত বাঁধগুলো দিয়ে জোয়ারের পানি অবাধে ঢুকে আরেকটি বিপর্যয় তৈরি করে। যা আইলা ও সিডরের পরে উপকূলবাসীকে বেশ ভুগিয়েছে। এবারও একই ঘটনা ঘটছে। ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধগুলো দ্রুত সংস্কার করা উচিত। বাঁধ সংস্কারে যেন অনিয়ম-দুর্নীতি না হয় সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে। বহু কৃষক ও খামারি ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। আমরা চাইব, সরকার ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের পাশে দাঁড়াক। কোন কৃষক বা খামারির যদি ঋণ থাকে তবে সে ঋণ মওকুফ করতে হবে।

উপকূলে সুপেয় পানির সংকট দিন দিন তীব্র হচ্ছে। এ সংকট দূর করার জন্য পানির প্ল্যান্ট স্থাপনের দাবি উঠেছে। এ দাবি সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করা হবে সেটা আমাদের প্রত্যাশা। বৃষ্টির পানি ধরে রেখে উদ্ভূত সমস্যার সমাধান করা যেতে পারে।

back to top