alt

সম্পাদকীয়

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

: মঙ্গলবার, ০১ জুন ২০২১

পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তের পদ্মা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু তুলছে একটি প্রতিষ্ঠান। কিন্তু বালুমহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০-এর ৪-এর খ ও গ ধারা অনুযায়ী সেতু, কালভার্ট, বাঁধ, সড়ক, রেল লাইন ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনার এক কিলোমিটার এলাকার মধ্যে বালু তোলা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। অথচ পদ্মা সেতুর মতো বড় একটি প্রকল্পেও তা উপেক্ষিত হচ্ছে।

এটা অত্যন্ত দুঃখজনক যে, পদ্মা সেতুর মতো মেগা প্রকল্পের কাছেই অবৈধভাবে বালু তোলা হচ্ছে। এবং সেটা সংশ্লিষ্টদের নজরে পড়ছে না। জানা গেছে, পদ্মা সেতুর ঠিক ৩৯তম স্প্যানের নিচে খনন যন্ত্র বসিয়ে বিরতিহীনভাবে কাটা হচ্ছে বালু। অথচ নদীতে নির্মাণ করা প্রকল্পের কাছ থেকে বালু উত্তোলন করা মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যদি প্রকল্পের স্বার্থে বালু কাটার প্রয়োজন হয় সেক্ষেত্রে সমীক্ষা করে নকশা অনুযায়ী পরিকল্পিতভাবে খনন করা যেতে পারে। কিন্তু এসব বিবেচনা না করেই কোন ধরনের নকশা ছাড়া পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা হচ্ছে।

অবৈধভাবে বালু তোলার এ চিত্র শুধু পদ্মায় নয়, সাম্প্রতিক সময়ে দেশের প্রায় সব নদীতেই দৃশ্যমান হচ্ছে। এর ফলে অনেক বড় বড় স্থাপনা ও সড়ক-মহাসড়ক হুমকির মুখে পড়ছে। অবৈধ বালু উত্তোলনের মাধ্যমে স্থানীয় প্রভাবশালীরা ব্যাপকভাবে লাভবান হলেও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন নদীপাড়ের মানুষ। এর ফলে নদীগর্ভের গঠনপ্রক্রিয়া বদলে যাচ্ছে। নদী ভাঙছে। মাটির ক্ষয় হচ্ছে। উর্বরতা নষ্ট হচ্ছে।

অবকাঠামো নির্মাণে বালু একটি অপরিহার্য সামগ্রী। দেশে যেহেতু শিল্প-কারখানাসহ বিভিন্ন স্থাপনা ও ভবনের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে, সেহেতু বালুর ব্যবহার বাড়বে, এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু এজন্য যেখানে-সেখানে অপরিকল্পিতভাবে বালু তোলা যাবে না। সমীক্ষা ও নকশা ছাড়া খননযন্ত্র বসিয়ে বালু কাটা যাবে না। নিয়ম মেনে একটি নির্দিষ্ট মাত্রায় বালু তোলার ব্যবস্থা করতে হবে। বালু তোলার ক্ষেত্রে স্থান, সময়, সংশ্লিষ্ট এলাকার জীববৈচিত্র্য ও উত্তোলনের প্রযুক্তিক ব্যবস্থা বিবেচনায় নিতে হবে। যারা এ নিয়ম ভাঙবে তাদের আইনের আওতায় কঠোর সাজা দিতে হবে।

শিশুশ্রম : শ্রম আর ঘামে শৈশব যেন চুরি না হয়

মডেল মসজিদ প্রসঙ্গে

ঢাকার বাসযোগ্যতার আরেকটি করুণ চিত্র

পুঁজিবাজারে কারসাজি বন্ধে বিএসইসিকে কঠোর হতে হবে

উপকারভোগী নির্বাচন প্রক্রিয়া হতে হবে স্বচ্ছ

পাহাড়-বন কেটে আবার কেন রোহিঙ্গা ক্যাম্প

নিরীহ মানুষকে ফাঁসিয়ে মাদক নির্মূল করা যাবে না

গ্যাং কালচার থেকে শিশু-কিশোরদের ফেরাতে হবে

নিরাপদ খাদ্য প্রসঙ্গে

বস্তিতে আগুন : পুনরাবৃত্তি রোধে চাই বিদ্যুৎ-গ্যাসের বৈধ সংযোগ

নদী দূষণ বন্ধে চাই জোরালো উদ্যোগ

উদাসীন হলে চড়া মূল্য দিতে হবে

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণার বিহিত করুন

নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে কোন কারণে

পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিকের গুদামগুলো সরিয়ে নিন

টিকা দেয়ার পরিকল্পনায় গলদ থাকলে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ অর্জন করা সম্ভব হবে না

প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানোর মিছিলে ওয়াসা

সীমান্তবর্তী এলাকায় বাড়ছে করোনার সংক্রমণ : স্বাস্থ্যবিধিতে ছাড় নয়

জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে কবে

বাজেট : প্রাণ আর পেটের দায় মেটানোর অভিলাষ কি পূরণ হবে

মাদক নির্মূলে জিরো টলারেন্স নীতির কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

গৃহহীনদের ঘর নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

গ্যাসকূপ খননে বাপেক্স কেন নয়

বরাদ্দ ব্যয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের সক্ষমতা বাড়াতে হবে

সিলেটে দফায় দফায় ভূমিকম্প : সতর্ক থাকতে হবে

অনলাইন ব্যবসায় প্রতারণা বন্ধে আইনি ব্যবস্থা নিন

কার স্বার্থে বারবার কালোটাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হচ্ছে

মানুষ ও বন্যপ্রাণী উভয়কেই রক্ষা করতে হবে

উপকূলীয় অঞ্চলে টেকসই বাঁধ নির্মাণ করা হোক

করোনার পরীক্ষায় প্রতারণা প্রসঙ্গে

এখনও ডায়রিয়ায় ভুগছে মানুষ প্রতিরোধে চাই সচেতনতা

সীমান্তে শিথিল স্বাস্থ্যবিধি কঠোর হোন

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত পুনর্বাসন করুন

পানির দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত অমানবিক

আতঙ্ক নয়, চাই সতর্কতা

tab

সম্পাদকীয়

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

মঙ্গলবার, ০১ জুন ২০২১

পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তের পদ্মা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু তুলছে একটি প্রতিষ্ঠান। কিন্তু বালুমহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০-এর ৪-এর খ ও গ ধারা অনুযায়ী সেতু, কালভার্ট, বাঁধ, সড়ক, রেল লাইন ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনার এক কিলোমিটার এলাকার মধ্যে বালু তোলা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। অথচ পদ্মা সেতুর মতো বড় একটি প্রকল্পেও তা উপেক্ষিত হচ্ছে।

এটা অত্যন্ত দুঃখজনক যে, পদ্মা সেতুর মতো মেগা প্রকল্পের কাছেই অবৈধভাবে বালু তোলা হচ্ছে। এবং সেটা সংশ্লিষ্টদের নজরে পড়ছে না। জানা গেছে, পদ্মা সেতুর ঠিক ৩৯তম স্প্যানের নিচে খনন যন্ত্র বসিয়ে বিরতিহীনভাবে কাটা হচ্ছে বালু। অথচ নদীতে নির্মাণ করা প্রকল্পের কাছ থেকে বালু উত্তোলন করা মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যদি প্রকল্পের স্বার্থে বালু কাটার প্রয়োজন হয় সেক্ষেত্রে সমীক্ষা করে নকশা অনুযায়ী পরিকল্পিতভাবে খনন করা যেতে পারে। কিন্তু এসব বিবেচনা না করেই কোন ধরনের নকশা ছাড়া পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা হচ্ছে।

অবৈধভাবে বালু তোলার এ চিত্র শুধু পদ্মায় নয়, সাম্প্রতিক সময়ে দেশের প্রায় সব নদীতেই দৃশ্যমান হচ্ছে। এর ফলে অনেক বড় বড় স্থাপনা ও সড়ক-মহাসড়ক হুমকির মুখে পড়ছে। অবৈধ বালু উত্তোলনের মাধ্যমে স্থানীয় প্রভাবশালীরা ব্যাপকভাবে লাভবান হলেও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন নদীপাড়ের মানুষ। এর ফলে নদীগর্ভের গঠনপ্রক্রিয়া বদলে যাচ্ছে। নদী ভাঙছে। মাটির ক্ষয় হচ্ছে। উর্বরতা নষ্ট হচ্ছে।

অবকাঠামো নির্মাণে বালু একটি অপরিহার্য সামগ্রী। দেশে যেহেতু শিল্প-কারখানাসহ বিভিন্ন স্থাপনা ও ভবনের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে, সেহেতু বালুর ব্যবহার বাড়বে, এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু এজন্য যেখানে-সেখানে অপরিকল্পিতভাবে বালু তোলা যাবে না। সমীক্ষা ও নকশা ছাড়া খননযন্ত্র বসিয়ে বালু কাটা যাবে না। নিয়ম মেনে একটি নির্দিষ্ট মাত্রায় বালু তোলার ব্যবস্থা করতে হবে। বালু তোলার ক্ষেত্রে স্থান, সময়, সংশ্লিষ্ট এলাকার জীববৈচিত্র্য ও উত্তোলনের প্রযুক্তিক ব্যবস্থা বিবেচনায় নিতে হবে। যারা এ নিয়ম ভাঙবে তাদের আইনের আওতায় কঠোর সাজা দিতে হবে।

back to top