alt

সম্পাদকীয়

গ্যাং কালচার থেকে শিশু-কিশোরদের ফেরাতে হবে

: বুধবার, ০৯ জুন ২০২১

দেশের অনেক জায়গাতেই কিশোর গ্যাং গড়ে উঠেছে। রাজধানীর বাইরেও দেশের বিভিন্ন জায়গায় কিশোর গ্যাংয়ের অপরাধের কথা জানা যায়। গত রোববার কিশোর গ্যাংয়ের সদস্য সন্দেহে চাঁদপুর শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে ৪০ জনকে আটক করেছে পুলিশ। তাদের সবাইকে পরে মুচলেকা নিয়ে পরিবারের জিম্মায় দেয়া হয়।

হত্যা, ধর্ষণ, মাদক ব্যবসা, ছিনতাইসহ নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা। গত এক বছরে ঢাকায় অন্তত পাঁচটি হত্যাকান্ডের পেছনে রয়েছে কিশোর গ্যাং। ডিএমপির তথ্য অনুযায়ী, রাজধানীতে কিশোর গ্যাং রয়েছে কমবেশি ৪০টি।

প্রশ্ন হচ্ছে, কিশোর গ্যাং গড়ে ওঠে কীভাবে, সেখানে যোগ দেয় কারা, আর তাদের আশ্রয়-প্রশয়ইবা দেয় কারা। অভিযোগ রয়েছে, স্থানীয় প্রভাবশালী একশ্রেণীর রাজনৈতিক নেতাসহ স্বার্থান্বেষী একটি গোষ্ঠী কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের ব্যবহার করে। সম্প্রতি ‘ডি কোম্পানি’ নামক টঙ্গীর একটি কিশোর গ্যাংকে পৃষ্ঠপোষকতা করার অভিযোগে লন্ডন ফেরত এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

দেশে মাদক আর অস্ত্র সহজলভ্য হয়ে পড়েছে। যেসব কিশোর অপরাধ জগতে পা বাড়ায় তাদের বড় একটি অংশই কোন না কোনভাবে মাদকসেবী বলে জানা যায়।

পরিবার, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বা আপন পরিবেশে যথেষ্ট মনোযোগ না পাওয়া শিশু-কিশোররা গ্যাং কালচারে জড়িয়ে পড়ছে। বৈশ্বিক মহামারী করোনার কারণে দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় গ্যাং কালচার আরও তীব্র হয়েছে।

গ্যাং কালচার থেকে শিশু-কিশোরদের ফেরাতে হবে। কিশোর গ্যাং দমনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নজরদারি বাড়াতে হবে। তাদের মদতদাতাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে। মাদকমুক্ত এমন এক সমাজ ব্যবস্থা গড়ে তুলতে হবে যেখানে শিশু-কিশোররা অপরাধী হওয়ার সুযোগ পাবে না। সমাজ ও রাষ্ট্রে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করা জরুরি। রাজনৈতিক ক্ষমতার অপব্যবহার করে কেউ যেন শিশু-কিশোরদের বিপথগামী করতে না পারে সেজন্য রাজনৈতিক দলগুলোর অঙ্গীকার থাকতে হবে। সমাজে মূল্যবোধ ও নৈতিকতার চর্চা বাড়াতে হবে।

শিশু-কিশোরদের অপরাধপ্রবণতা থেকে রক্ষা করতে পরিবারগুলোরও দায়িত্ব রয়েছে। সন্তান যেন একা বা বিচ্ছিন্ন হয়ে না পড়ে সেদিকে নজর দিতে হবে অভিভাবকদেরকেই। সন্তান যেন গুণগত সময় ও আদর্শ পরিবেশ পায় সেটা নিশ্চিত করতে হবে মা-বাবাকে।

রাজধানীর বৃত্তাকার নৌপথে চলুক ওয়াটার বাস

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের দুর্দশা দূর করুন

সাইবার বুলিং প্রতিরোধে আইনের প্রয়োগ ও সচেতনতা জরুরি

শিশুটিকে হত্যা করল কে

উপকূলে দ্রুত টেকসই বাঁধ নির্মাণ করুন

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে জাতিসংঘকে দৃশ্যমান ভূমিকা রাখতে হবে

বুড়িগঙ্গার আদি চ্যানেলে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ, নিয়মিত নজরদারি চালাতে হবে

সুন্দরবনের বিস্তৃতি প্রসঙ্গে

জলাবদ্ধতা থেকে ফতুল্লাবাসীকে মুক্তি দিন

থামছে না মানব পাচার : গডফাদারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

জি-৭ নেতাদের টিকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি প্রসঙ্গে

অগ্রহণযোগ্য

অবৈধ দখল উচ্ছেদ না করে সীমানা খুঁটি কার স্বার্থে

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা থাকতে হবে

জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনে হয়রানি বন্ধ করুন

সীমান্তে করোনার সংক্রমণ কার উদাসীনতায়?

শিশুশ্রম : শ্রম আর ঘামে শৈশব যেন চুরি না হয়

মডেল মসজিদ প্রসঙ্গে

ঢাকার বাসযোগ্যতার আরেকটি করুণ চিত্র

পুঁজিবাজারে কারসাজি বন্ধে বিএসইসিকে কঠোর হতে হবে

উপকারভোগী নির্বাচন প্রক্রিয়া হতে হবে স্বচ্ছ

পাহাড়-বন কেটে আবার কেন রোহিঙ্গা ক্যাম্প

নিরীহ মানুষকে ফাঁসিয়ে মাদক নির্মূল করা যাবে না

নিরাপদ খাদ্য প্রসঙ্গে

বস্তিতে আগুন : পুনরাবৃত্তি রোধে চাই বিদ্যুৎ-গ্যাসের বৈধ সংযোগ

নদী দূষণ বন্ধে চাই জোরালো উদ্যোগ

উদাসীন হলে চড়া মূল্য দিতে হবে

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণার বিহিত করুন

নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে কোন কারণে

পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিকের গুদামগুলো সরিয়ে নিন

টিকা দেয়ার পরিকল্পনায় গলদ থাকলে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ অর্জন করা সম্ভব হবে না

প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানোর মিছিলে ওয়াসা

সীমান্তবর্তী এলাকায় বাড়ছে করোনার সংক্রমণ : স্বাস্থ্যবিধিতে ছাড় নয়

জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে কবে

বাজেট : প্রাণ আর পেটের দায় মেটানোর অভিলাষ কি পূরণ হবে

মাদক নির্মূলে জিরো টলারেন্স নীতির কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

tab

সম্পাদকীয়

গ্যাং কালচার থেকে শিশু-কিশোরদের ফেরাতে হবে

বুধবার, ০৯ জুন ২০২১

দেশের অনেক জায়গাতেই কিশোর গ্যাং গড়ে উঠেছে। রাজধানীর বাইরেও দেশের বিভিন্ন জায়গায় কিশোর গ্যাংয়ের অপরাধের কথা জানা যায়। গত রোববার কিশোর গ্যাংয়ের সদস্য সন্দেহে চাঁদপুর শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে ৪০ জনকে আটক করেছে পুলিশ। তাদের সবাইকে পরে মুচলেকা নিয়ে পরিবারের জিম্মায় দেয়া হয়।

হত্যা, ধর্ষণ, মাদক ব্যবসা, ছিনতাইসহ নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা। গত এক বছরে ঢাকায় অন্তত পাঁচটি হত্যাকান্ডের পেছনে রয়েছে কিশোর গ্যাং। ডিএমপির তথ্য অনুযায়ী, রাজধানীতে কিশোর গ্যাং রয়েছে কমবেশি ৪০টি।

প্রশ্ন হচ্ছে, কিশোর গ্যাং গড়ে ওঠে কীভাবে, সেখানে যোগ দেয় কারা, আর তাদের আশ্রয়-প্রশয়ইবা দেয় কারা। অভিযোগ রয়েছে, স্থানীয় প্রভাবশালী একশ্রেণীর রাজনৈতিক নেতাসহ স্বার্থান্বেষী একটি গোষ্ঠী কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের ব্যবহার করে। সম্প্রতি ‘ডি কোম্পানি’ নামক টঙ্গীর একটি কিশোর গ্যাংকে পৃষ্ঠপোষকতা করার অভিযোগে লন্ডন ফেরত এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

দেশে মাদক আর অস্ত্র সহজলভ্য হয়ে পড়েছে। যেসব কিশোর অপরাধ জগতে পা বাড়ায় তাদের বড় একটি অংশই কোন না কোনভাবে মাদকসেবী বলে জানা যায়।

পরিবার, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বা আপন পরিবেশে যথেষ্ট মনোযোগ না পাওয়া শিশু-কিশোররা গ্যাং কালচারে জড়িয়ে পড়ছে। বৈশ্বিক মহামারী করোনার কারণে দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় গ্যাং কালচার আরও তীব্র হয়েছে।

গ্যাং কালচার থেকে শিশু-কিশোরদের ফেরাতে হবে। কিশোর গ্যাং দমনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নজরদারি বাড়াতে হবে। তাদের মদতদাতাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে। মাদকমুক্ত এমন এক সমাজ ব্যবস্থা গড়ে তুলতে হবে যেখানে শিশু-কিশোররা অপরাধী হওয়ার সুযোগ পাবে না। সমাজ ও রাষ্ট্রে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করা জরুরি। রাজনৈতিক ক্ষমতার অপব্যবহার করে কেউ যেন শিশু-কিশোরদের বিপথগামী করতে না পারে সেজন্য রাজনৈতিক দলগুলোর অঙ্গীকার থাকতে হবে। সমাজে মূল্যবোধ ও নৈতিকতার চর্চা বাড়াতে হবে।

শিশু-কিশোরদের অপরাধপ্রবণতা থেকে রক্ষা করতে পরিবারগুলোরও দায়িত্ব রয়েছে। সন্তান যেন একা বা বিচ্ছিন্ন হয়ে না পড়ে সেদিকে নজর দিতে হবে অভিভাবকদেরকেই। সন্তান যেন গুণগত সময় ও আদর্শ পরিবেশ পায় সেটা নিশ্চিত করতে হবে মা-বাবাকে।

back to top