alt

সম্পাদকীয়

শিশুশ্রম : শ্রম আর ঘামে শৈশব যেন চুরি না হয়

: শনিবার, ১২ জুন ২০২১

পরিবারের ছায়াতলে থাকবে, বিদ্যালয়ে আনন্দচিত্তে আগামীর পাঠ নেবে, ছুটে বেড়াবে খেলার মাঠে- শিশুমাত্রই এমন স্বপ্ন লালন করে। কিন্তু দেশের শিশুদের বড় একটি অংশের এই স্বপ্ন থেকে যায় অধরা। যে সময় তাদের বিদ্যালয়ে বা খেলার মাঠে থাকার কথা সে সময় তারা শ্রমে-ঘামে নিঃশেষ করছে শৈশব-কৈশর। পরিবারের অভাব-অনটনে করছে ঝুঁকিপূর্ণ কাজ।

‘মুজিব বর্ষের আহ্বান, শিশুশ্রমের অবসান’ জাতীয় প্রতিপাদ্য নিয়ে (আজ) শনিবার পালিত হয়েছে বিশ্ব শিশুশ্রম প্রতিরোধ দিবস। একদিকে শিশুশ্রমের অবসানের আহ্বান জানানো হচ্ছে, আরেকদিকে শিশুশ্রম বেড়ে যাচ্ছে বলে খবর মিলছে। সম্প্রতি বেসরকারি সংস্থা মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন (এমজেএফ) শিশুশ্রমের ওপর একটি জরিপ করেছে। জরিপে দেখা গেছে, কাজ ছেড়ে স্কুলে ভর্তি হয়েছিল এমন অনেক শিশু করোনাকালে পরিবারকে সহায়তা করতে আবার কাজে ফিরে গেছে।

দেশের অনেক শিশুকেই শৈশব বা কৈশোর পেরোনোর আগেই কোন না কোন কাজে যুক্ত হয়ে পরিবারের দায়িত্ব নিতে হয়। এদের মধ্যে অনেকেই আবার ঝুঁকিপূর্ণ শ্রমের কাজ করে। একটি শিশুকে কেন কাজ করতে হয়? সাধারণত দরিদ্র পরিবারগুলো বাধ্য হয়ে তাদের শিশুকে কাজে পাঠায়। দারিদ্র্য বাড়লে শিশুশ্রমও বাড়ে। করোনা মহামারীর সময়ও এ কারণে শিশুশ্রম বেড়েছে। এক বছরেরও বেশি সময় ধরে বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় শিশুশ্রম বেড়ে যাওয়ার আরও একটি অন্যতম কারণ বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। এ সুযোগে অস্বচ্ছল বা দরিদ্র পরিবার শিশুদের কাজে পাঠিয়ে আয়ের পথ খুঁজছেন। সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তাব্যক্তিরা অবশ্য মনে করছেন, বিদ্যালয় খুললে সমস্যা কেটে যাবে। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, যখন আবার ক্লাস শুরু হবে তখন অনেক বাবা-মায়ের হয়তো তাদের সন্তানকে স্কুলে দেয়ার সক্ষমতা থাকবে না। সরকারি প্রণোদনা তাদের বিদ্যালয়ে ফেরানোর জন্য যথেষ্ট নাও হতে পারে। তাই শিশুশ্রম নিয়ে আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। দেরিতে হলেও হয়তো বিদ্যালয় একসময় খুলবে। কিন্তু করোনার সময় যারা যারা দরিদ্র হয়েছে তাদের দারিদ্র্য সহসা কাটবে বলে আশা করা যায় না।

দেশের কত শিশু দারিদ্রের কারণে কাজে যুক্ত হয়েছে সেটা নিয়ে জরিপ হওয়া দরকার। তাদের কত শতাংশ ঝুঁকিপূর্ণ কাজে যুক্ত সেটাও জানতে হবে। শিশু শ্রমিকদের একটি স্বচ্ছ ও পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরি করতে হবে। তাদের স্বাভাবিক জীবনে ফেরানোর উদ্যোগ নিতে হবে। এজন্য সংশ্লিষ্ট পরিবারগুলোকে অর্থিক প্রণোদনা দেয়া যেতে পারে। করোনার অভিঘাত মোকাবিলা করে পরিবারগুলো যেন টিকে থাকতে পারে সেজন্য লম্বা সময়ের ত্রাণ দেয়ার ব্যবস্থা করা যেতে পারে। বিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীরা যেসব সুযোগ-সুবিধা পেত করোনাকালে তা যেন বন্ধ না হয় বা তাদের কাছে নির্দিষ্ট সময়ে সেটা পৌঁছায় সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে। আমরা প্রতিটি শিশুর নিরাপদ ও উজ্জ্বল ভবিষ্যত কামনা করি। শ্রম আর ঘামে তাদের শৈশব চুরি যাক সেটা আমরা চাই না। পরিবারের স্নেহ-মমতা, বিদ্যালয়ের আনন্দময় পাঠ আর খেলার মাঠের উদ্দামতা- সব শিশুর এই স্বপ্ন পূরণ হোক।

হুমকির মুখে থাকা বাঘ সুন্দরবনকে বাঁচাবে কী করে

পাহাড় ধসে মৃত্যু প্রতিরোধে স্থায়ী পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করুন

সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সরকারের অঙ্গীকারের বাস্তবায়ন চাই

ডেঙ্গু প্রতিরোধে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

পানিতে ডুবে শিশুমৃত্যু প্রসঙ্গে

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন কার নিরাপত্তা দিচ্ছে?

সেতু নির্মাণের নামে জনগণের অর্থের অপচয় বন্ধ করতে হবে

আয় বৈষম্য কমানোর পথ খুঁজতে হবে

নদী খননে অনিয়ম কাম্য নয়

আইসিইউ স্থাপনে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ কেন মানা হয়নি

সরকারের ত্রাণ সহায়তায় অনিয়ম বন্ধ করতে হবে

পরিকল্পনাহীনতায় মানুষের ভোগান্তি

চাষিরা যেন আম উৎপাদনের সুফল পান

কঠোর বিধিনিষেধ প্রসঙ্গে

উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি : বড় মূল্য দিতে হতে পারে

অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহার বন্ধ করতে হবে

ডেঙ্গু প্রতিরোধে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

কোরবানির পশুকেন্দ্রিক চাঁদাবাজি বন্ধ করুন

যথাসময়ে বকেয়া বেতন ও ঈদ বোনাস পরিশোধ করুন

দ্রুত সড়ক-মহাসড়ক সংস্কার করুন

কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা

হাসপাতালটি কেন সিআরবিতেই করতে হবে

অগ্নি দুর্ঘটনা প্রতিরোধে ফায়ার সার্ভিসের সুপারিশ বাস্তবায়ন করা জরুরি

চালের দামে লাগাম টানুন

অনিয়ম-দুর্নীতির পুনরাবৃত্তি রোধ করতে হবে

বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে ইউনিসেফের আহ্বান

নারায়ণগঞ্জে ‘জঙ্গি আস্তানা’ প্রসঙ্গে

স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে

গণটিকাদান শুরু : ‘হার্ড ইমিউনিটি’র লক্ষ্য অর্জন হবে কি

করোনাকালের বিষণ্ণতা: চাই সচেতনতা

ক্ষুধার মহামারী সম্পর্কে সতর্ক থাকতে হবে

জয় হোক মানবতার

শ্রমিক মৃত্যুর দায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এড়াতে পারে না

সাঁকো সংস্কার করে জনগণের দুর্ভোগ লাঘব করুন

করোনা-রোগীদের খাবারের বরাদ্দ যায় কোথায়

টিসিবিকে মান বজায় রেখে পণ্যের সরবরাহ বাড়াতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

শিশুশ্রম : শ্রম আর ঘামে শৈশব যেন চুরি না হয়

শনিবার, ১২ জুন ২০২১

পরিবারের ছায়াতলে থাকবে, বিদ্যালয়ে আনন্দচিত্তে আগামীর পাঠ নেবে, ছুটে বেড়াবে খেলার মাঠে- শিশুমাত্রই এমন স্বপ্ন লালন করে। কিন্তু দেশের শিশুদের বড় একটি অংশের এই স্বপ্ন থেকে যায় অধরা। যে সময় তাদের বিদ্যালয়ে বা খেলার মাঠে থাকার কথা সে সময় তারা শ্রমে-ঘামে নিঃশেষ করছে শৈশব-কৈশর। পরিবারের অভাব-অনটনে করছে ঝুঁকিপূর্ণ কাজ।

‘মুজিব বর্ষের আহ্বান, শিশুশ্রমের অবসান’ জাতীয় প্রতিপাদ্য নিয়ে (আজ) শনিবার পালিত হয়েছে বিশ্ব শিশুশ্রম প্রতিরোধ দিবস। একদিকে শিশুশ্রমের অবসানের আহ্বান জানানো হচ্ছে, আরেকদিকে শিশুশ্রম বেড়ে যাচ্ছে বলে খবর মিলছে। সম্প্রতি বেসরকারি সংস্থা মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন (এমজেএফ) শিশুশ্রমের ওপর একটি জরিপ করেছে। জরিপে দেখা গেছে, কাজ ছেড়ে স্কুলে ভর্তি হয়েছিল এমন অনেক শিশু করোনাকালে পরিবারকে সহায়তা করতে আবার কাজে ফিরে গেছে।

দেশের অনেক শিশুকেই শৈশব বা কৈশোর পেরোনোর আগেই কোন না কোন কাজে যুক্ত হয়ে পরিবারের দায়িত্ব নিতে হয়। এদের মধ্যে অনেকেই আবার ঝুঁকিপূর্ণ শ্রমের কাজ করে। একটি শিশুকে কেন কাজ করতে হয়? সাধারণত দরিদ্র পরিবারগুলো বাধ্য হয়ে তাদের শিশুকে কাজে পাঠায়। দারিদ্র্য বাড়লে শিশুশ্রমও বাড়ে। করোনা মহামারীর সময়ও এ কারণে শিশুশ্রম বেড়েছে। এক বছরেরও বেশি সময় ধরে বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় শিশুশ্রম বেড়ে যাওয়ার আরও একটি অন্যতম কারণ বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। এ সুযোগে অস্বচ্ছল বা দরিদ্র পরিবার শিশুদের কাজে পাঠিয়ে আয়ের পথ খুঁজছেন। সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তাব্যক্তিরা অবশ্য মনে করছেন, বিদ্যালয় খুললে সমস্যা কেটে যাবে। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, যখন আবার ক্লাস শুরু হবে তখন অনেক বাবা-মায়ের হয়তো তাদের সন্তানকে স্কুলে দেয়ার সক্ষমতা থাকবে না। সরকারি প্রণোদনা তাদের বিদ্যালয়ে ফেরানোর জন্য যথেষ্ট নাও হতে পারে। তাই শিশুশ্রম নিয়ে আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। দেরিতে হলেও হয়তো বিদ্যালয় একসময় খুলবে। কিন্তু করোনার সময় যারা যারা দরিদ্র হয়েছে তাদের দারিদ্র্য সহসা কাটবে বলে আশা করা যায় না।

দেশের কত শিশু দারিদ্রের কারণে কাজে যুক্ত হয়েছে সেটা নিয়ে জরিপ হওয়া দরকার। তাদের কত শতাংশ ঝুঁকিপূর্ণ কাজে যুক্ত সেটাও জানতে হবে। শিশু শ্রমিকদের একটি স্বচ্ছ ও পূর্ণাঙ্গ তালিকা তৈরি করতে হবে। তাদের স্বাভাবিক জীবনে ফেরানোর উদ্যোগ নিতে হবে। এজন্য সংশ্লিষ্ট পরিবারগুলোকে অর্থিক প্রণোদনা দেয়া যেতে পারে। করোনার অভিঘাত মোকাবিলা করে পরিবারগুলো যেন টিকে থাকতে পারে সেজন্য লম্বা সময়ের ত্রাণ দেয়ার ব্যবস্থা করা যেতে পারে। বিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীরা যেসব সুযোগ-সুবিধা পেত করোনাকালে তা যেন বন্ধ না হয় বা তাদের কাছে নির্দিষ্ট সময়ে সেটা পৌঁছায় সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে। আমরা প্রতিটি শিশুর নিরাপদ ও উজ্জ্বল ভবিষ্যত কামনা করি। শ্রম আর ঘামে তাদের শৈশব চুরি যাক সেটা আমরা চাই না। পরিবারের স্নেহ-মমতা, বিদ্যালয়ের আনন্দময় পাঠ আর খেলার মাঠের উদ্দামতা- সব শিশুর এই স্বপ্ন পূরণ হোক।

back to top