alt

সম্পাদকীয়

জি-৭ নেতাদের টিকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি প্রসঙ্গে

: মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১

বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে দরিদ্র দেশগুলোকে ১০০ কোটি ডোজ টিকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন শীর্ষ শিল্পোন্নত দেশগুলোর জোট-৭ এর নেতারা। সম্মেলন শেষে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেন, টিকা পাওয়ার ক্ষেত্রে দেশগুলো যে ‘জাতীয়তাবাদী আচরণ’ করছিল, জি-৭ এর নেতারা তা প্রত্যাখ্যান করেছেন। কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি, জাপান, যুক্তরাজ্য এবং যুক্তরাষ্ট্র জি-৭ জোটের সদস্য দেশ। এছাড়া ইউরোপীয় ইউনিয়ন এ জোটের একটি অংশ। জোটভুক্ত দেশগুলো প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী টিকা নিজ থেকে দরিদ্র দেশগুলোর হাতে তুলে দেবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কোভ্যাক্স কর্মসূচিতেও এসব টিকা দেয়া হতে পারে।

মহামারী নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণের যে ধরন তাতে একে প্রতিরোধ করতে হলে বিশ্বের প্রতিটি মানুষকেই টিকার আওতায় আনতে হবে। টিকা আবিষ্কার করা দেশগুলো ইতোমধ্যে তাদের নাগরিকদের টিকা দেয়া শুরু করেছে। আর্থিকভাবে সক্ষম অনেক দেশও আমদানি করে টিকাদান কর্মসূচি শুরু করে। তবে বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে বলেছিলেন, দরিদ্র দেশগুলোকে পেছনে ফেলে বিশ্ব ভালোভাবে করোনাকে মোকাবিলা করতে পারবে না। জি-৭ যে পরিমাণ টিকা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে সেটা দরিদ্র দেশগুলোর জন্য যথেষ্ট নয়। ১০০ কোটি ডোজ দেয়ার পরও দরিদ্র দেশগুলোর জনসংখ্যার বড় অংশই টিকা থেকে বঞ্চিত হবে। জাতিসংঘের মানবিক ত্রাণ বিষয়ক প্রধান সমন্বয়ক মার্ক লোকক বলেছেন, ‘দরিদ্র দেশগুলোর জন্য বিক্ষিপ্ত, ছোট আকারের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে মহামারীর অবসান ঘটবে না।’

বরিস জনসন বলেছেন, ‘মহামারী মোকাবিলায় আমরা স্বার্থপরতা আর জাতীয়তাবাদী আচরণ থেকে বেরিয়ে আসব এমন দৃশ্য দেখার জন্য বিশ্ব আমাদের দিকে তাকিয়ে ছিল। করোনাভাইরাস মোকাবিলায় স্বার্থপরতা, জাতীয়তাবাদী আচরণ আমাদের ক্ষতি করেছে।’ আমরা বলতে চাই, টিকা নিয়ে দরিদ্র দেশগুলো যেন কোন রাজনীতির শিকার না হয় সেটা নিশ্চিত করতে হবে জোটভুক্ত দেশগুলোকেই। টিকার আড়ালে যেন নতুন কোন স্বার্থ তৈরি না হয় সেটা আমাদের চাওয়া। এটা স্বার্থ দিয়ে বিশ্বকে বিভক্ত করার সময় নয়। বৈশ্বিক মহামারী থেকে মানবজাতিকে রক্ষা করতে হলে চাই- সম্প্রীতি আর মানবতার দৃঢ় বন্ধন।

কোভিড-১৯ রোগের টিকার অপেক্ষায় আছে বিশ্বের বহু দেশ। হাতেগোনা কয়েকটি দেশ টিকা উৎপাদন করছে। বিশ্বের চাহিদার তুলনায় যথেষ্ট উৎপাদন করা সম্ভব হচ্ছে না। সব দেশের মানুষকে দ্রুত টিকার আওতায় আনার লক্ষ্যে টিকার মেধাস্বত্ব উন্মুক্ত করার দাবি উঠেছে। তবে এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট দেশগুলো একমত হতে পারেনি এখনো। জার্মানির টিকা প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান বায়োএনটেক ও যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠান ফাইজারের টিকা বিশ্বজুড়েই ব্যবহৃত হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্র রাজি হলেও জার্মানি মেধাস্বত্ব ছাড়তে চাচ্ছে না। জার্মানি মেধাস্বত্ব না ছাড়লে টিকা সহজলভ্য করার প্রক্রিয়া হোঁচট খাবে। আশার কথা, যুক্তরাষ্ট্র ছাড়াও আরও কিছু দেশ মেধাস্বত্ব ছাড়ার বিষয়ে ইতিবাচক সাড়া দিয়েছে। আমরা টিকার বৈশ্বিক উৎপাদন বাড়ানোর পক্ষে। আমরা মনে করি, বিশ্ব মানবতার স্বার্থে টিকার মেধাস্বত্বে ছাড় দেয়া জরুরি। সেটা হলে অনেক প্রতিষ্ঠানই জীবনরক্ষাকারী টিকা তৈরি করতে পারবে। তখন দরিদ্র দেশগুলোর মানুষের কাছে সুলভে টিকা পৌঁছানো যাবে। এ বিষয়ে বিশ্ব নেতারা দ্রুতই ঐকমত্যে পৌঁছাবে সেই প্রত্যাশা করি।

পাহাড়ি ঢলে বন্যা, ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত সহায়তা দিন

শিল্পকারখানা খোলার ঝুঁকি মোকাবিলায় প্রস্তুতি কী

হুমকির মুখে থাকা বাঘ সুন্দরবনকে বাঁচাবে কী করে

পাহাড় ধসে মৃত্যু প্রতিরোধে স্থায়ী পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করুন

সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সরকারের অঙ্গীকারের বাস্তবায়ন চাই

ডেঙ্গু প্রতিরোধে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

পানিতে ডুবে শিশুমৃত্যু প্রসঙ্গে

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন কার নিরাপত্তা দিচ্ছে?

সেতু নির্মাণের নামে জনগণের অর্থের অপচয় বন্ধ করতে হবে

আয় বৈষম্য কমানোর পথ খুঁজতে হবে

নদী খননে অনিয়ম কাম্য নয়

আইসিইউ স্থাপনে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ কেন মানা হয়নি

সরকারের ত্রাণ সহায়তায় অনিয়ম বন্ধ করতে হবে

পরিকল্পনাহীনতায় মানুষের ভোগান্তি

চাষিরা যেন আম উৎপাদনের সুফল পান

কঠোর বিধিনিষেধ প্রসঙ্গে

উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি : বড় মূল্য দিতে হতে পারে

অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহার বন্ধ করতে হবে

ডেঙ্গু প্রতিরোধে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

কোরবানির পশুকেন্দ্রিক চাঁদাবাজি বন্ধ করুন

যথাসময়ে বকেয়া বেতন ও ঈদ বোনাস পরিশোধ করুন

দ্রুত সড়ক-মহাসড়ক সংস্কার করুন

কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা

হাসপাতালটি কেন সিআরবিতেই করতে হবে

অগ্নি দুর্ঘটনা প্রতিরোধে ফায়ার সার্ভিসের সুপারিশ বাস্তবায়ন করা জরুরি

চালের দামে লাগাম টানুন

অনিয়ম-দুর্নীতির পুনরাবৃত্তি রোধ করতে হবে

বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে ইউনিসেফের আহ্বান

নারায়ণগঞ্জে ‘জঙ্গি আস্তানা’ প্রসঙ্গে

স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে

গণটিকাদান শুরু : ‘হার্ড ইমিউনিটি’র লক্ষ্য অর্জন হবে কি

করোনাকালের বিষণ্ণতা: চাই সচেতনতা

ক্ষুধার মহামারী সম্পর্কে সতর্ক থাকতে হবে

জয় হোক মানবতার

শ্রমিক মৃত্যুর দায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এড়াতে পারে না

সাঁকো সংস্কার করে জনগণের দুর্ভোগ লাঘব করুন

tab

সম্পাদকীয়

জি-৭ নেতাদের টিকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি প্রসঙ্গে

মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১

বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে দরিদ্র দেশগুলোকে ১০০ কোটি ডোজ টিকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন শীর্ষ শিল্পোন্নত দেশগুলোর জোট-৭ এর নেতারা। সম্মেলন শেষে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেন, টিকা পাওয়ার ক্ষেত্রে দেশগুলো যে ‘জাতীয়তাবাদী আচরণ’ করছিল, জি-৭ এর নেতারা তা প্রত্যাখ্যান করেছেন। কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি, জাপান, যুক্তরাজ্য এবং যুক্তরাষ্ট্র জি-৭ জোটের সদস্য দেশ। এছাড়া ইউরোপীয় ইউনিয়ন এ জোটের একটি অংশ। জোটভুক্ত দেশগুলো প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী টিকা নিজ থেকে দরিদ্র দেশগুলোর হাতে তুলে দেবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কোভ্যাক্স কর্মসূচিতেও এসব টিকা দেয়া হতে পারে।

মহামারী নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণের যে ধরন তাতে একে প্রতিরোধ করতে হলে বিশ্বের প্রতিটি মানুষকেই টিকার আওতায় আনতে হবে। টিকা আবিষ্কার করা দেশগুলো ইতোমধ্যে তাদের নাগরিকদের টিকা দেয়া শুরু করেছে। আর্থিকভাবে সক্ষম অনেক দেশও আমদানি করে টিকাদান কর্মসূচি শুরু করে। তবে বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে বলেছিলেন, দরিদ্র দেশগুলোকে পেছনে ফেলে বিশ্ব ভালোভাবে করোনাকে মোকাবিলা করতে পারবে না। জি-৭ যে পরিমাণ টিকা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে সেটা দরিদ্র দেশগুলোর জন্য যথেষ্ট নয়। ১০০ কোটি ডোজ দেয়ার পরও দরিদ্র দেশগুলোর জনসংখ্যার বড় অংশই টিকা থেকে বঞ্চিত হবে। জাতিসংঘের মানবিক ত্রাণ বিষয়ক প্রধান সমন্বয়ক মার্ক লোকক বলেছেন, ‘দরিদ্র দেশগুলোর জন্য বিক্ষিপ্ত, ছোট আকারের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে মহামারীর অবসান ঘটবে না।’

বরিস জনসন বলেছেন, ‘মহামারী মোকাবিলায় আমরা স্বার্থপরতা আর জাতীয়তাবাদী আচরণ থেকে বেরিয়ে আসব এমন দৃশ্য দেখার জন্য বিশ্ব আমাদের দিকে তাকিয়ে ছিল। করোনাভাইরাস মোকাবিলায় স্বার্থপরতা, জাতীয়তাবাদী আচরণ আমাদের ক্ষতি করেছে।’ আমরা বলতে চাই, টিকা নিয়ে দরিদ্র দেশগুলো যেন কোন রাজনীতির শিকার না হয় সেটা নিশ্চিত করতে হবে জোটভুক্ত দেশগুলোকেই। টিকার আড়ালে যেন নতুন কোন স্বার্থ তৈরি না হয় সেটা আমাদের চাওয়া। এটা স্বার্থ দিয়ে বিশ্বকে বিভক্ত করার সময় নয়। বৈশ্বিক মহামারী থেকে মানবজাতিকে রক্ষা করতে হলে চাই- সম্প্রীতি আর মানবতার দৃঢ় বন্ধন।

কোভিড-১৯ রোগের টিকার অপেক্ষায় আছে বিশ্বের বহু দেশ। হাতেগোনা কয়েকটি দেশ টিকা উৎপাদন করছে। বিশ্বের চাহিদার তুলনায় যথেষ্ট উৎপাদন করা সম্ভব হচ্ছে না। সব দেশের মানুষকে দ্রুত টিকার আওতায় আনার লক্ষ্যে টিকার মেধাস্বত্ব উন্মুক্ত করার দাবি উঠেছে। তবে এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট দেশগুলো একমত হতে পারেনি এখনো। জার্মানির টিকা প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান বায়োএনটেক ও যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠান ফাইজারের টিকা বিশ্বজুড়েই ব্যবহৃত হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্র রাজি হলেও জার্মানি মেধাস্বত্ব ছাড়তে চাচ্ছে না। জার্মানি মেধাস্বত্ব না ছাড়লে টিকা সহজলভ্য করার প্রক্রিয়া হোঁচট খাবে। আশার কথা, যুক্তরাষ্ট্র ছাড়াও আরও কিছু দেশ মেধাস্বত্ব ছাড়ার বিষয়ে ইতিবাচক সাড়া দিয়েছে। আমরা টিকার বৈশ্বিক উৎপাদন বাড়ানোর পক্ষে। আমরা মনে করি, বিশ্ব মানবতার স্বার্থে টিকার মেধাস্বত্বে ছাড় দেয়া জরুরি। সেটা হলে অনেক প্রতিষ্ঠানই জীবনরক্ষাকারী টিকা তৈরি করতে পারবে। তখন দরিদ্র দেশগুলোর মানুষের কাছে সুলভে টিকা পৌঁছানো যাবে। এ বিষয়ে বিশ্ব নেতারা দ্রুতই ঐকমত্যে পৌঁছাবে সেই প্রত্যাশা করি।

back to top