alt

সম্পাদকীয়

কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা

: শুক্রবার, ১৬ জুলাই ২০২১

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের হাসেম ফুডস কারখানায় অগ্নিকান্ডে ৫২ জনের মৃত্যুর ঘটনায় কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরসহ (ডিআইএফই) সরকারের নজরদারি প্রতিষ্ঠানের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

কারাখানার ভেতর পর্যাপ্ত স্থান, আলো-বাতাস, নিরাপত্তা, যন্ত্রপাতি ও রাসায়নিক রাখার স্থান, ওঠানামার প্রশস্ত সিঁড়ি, জরুরি বহির্গমনের সিঁড়ি ইত্যাদি ঠিক আছে কিনা-তা দেখভাল করার দায়িত্ব ডিআইএফই’র। এগুলোর ঘাটতি থাকলে অধিদপ্তর সংশ্লিষ্ট কারখানার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। হাসেম ফুডস কারখানায় আগুন লাগার পর একটি মামলা করা হয়েছে। এর আগে গত ৩০ জুন কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর শ্রম আইনের ৯টি ধারা লঙ্ঘনের অভিযোগে দন্ডবিধির তিনটি ধারায় উক্ত কারখানার বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা করেছিল।

অভিযোগ রয়েছে, লোকবল ও আনুষঙ্গিক সংকটের অজুহাতে তারা বেশিরভাগ সময়ই শিল্পকারখানা পরিদর্শন করে না। করোনা সংক্রমণ শুরুর পর অনুসন্ধানী পরিদর্শন এক প্রকার বন্ধ রয়েছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে শুধু করোনা সুরক্ষাসামগ্রী এবং মজুরি নিয়মিত কিনা-এ দুই প্রশ্নের উত্তর খোঁজার চেষ্টা করা হয়।

নিয়মিত পরিদর্শনে গিয়ে শিল্প ও বাণিজ্য প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তা এবং শ্রমজীবীর আইনগত অধিকার, নিরাপদ ও স্বাস্থ্যসম্মত কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করার দায়িত্ব ডিআইএফইর। অভিযোগ রয়েছে, পরিদর্শনে গেলেও প্রতিষ্ঠানটির কর্তাব্যক্তিরা কারখানার এসব নিশ্চিত করার চেয়ে নিজের পকেট ভারি করার কাজে ব্যস্ত থাকেন বেশি। ডিআইএফইসহ সরকারের নজরদারি প্রতিষ্ঠানগুলো টাকা খেয়ে ভুয়া সনদ দেয়ায় এমন দুর্বল অবকাঠামো নিয়ে কারখানাটি বছরের পর বছর কাজ চালিয়ে এসেছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।

দেশে গত দুই দশকে দ্রুত শিল্পায়ন হয়েছে, সেই তুলনায় প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো তৈরি হয়নি। বড় কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে সরকার বা নজরদারি কর্তৃপক্ষের টনক নড়ে, তাদের অনিয়ম সামনে আসে। চিরাচরিতভাবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ একে অপরের ওপর দোষ চাপায়, নিজেদের অনিয়মের কথা অস্বীকার করে। কর্তব্যের কথা বললে তারা নানা ঘাটতি ও সমস্যার ফিরিস্তি তুলে ধরে। তখন অজুহাত দেখায় লোকবল কম, সক্ষমতার অভাব, সব জায়গায় অফিস নেই ইত্যাদি।

রূপগঞ্জে অগ্নিকান্ডের দায় কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর কোনভাবেই এড়াতে পারে না। দুর্ঘটনার আগেই তাদের প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ করা বা বিচারের আওতায় আনার উদ্যোগ নেয়ার দরকার ছিল। এত দুর্বলতা ও দায়িত্ব অবহেলা করে কীভাবে প্রতিষ্ঠানটি এত দিন চলল, সেটা খতিয়ে দেখা উচিত। ডিআইএফই-র বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ রয়েছে সেগুলো যদি সত্য হয়; তাহলে জনবল ও সক্ষমতা বাড়িয়ে কী লাভ হবে? এখন তাদের যতটুক সক্ষমতা আছে তা সঠিকভাবে ব্যবহার করে কাজ করুক।

বায়ু ও শব্দদূষণ রোধে চাই সদিচ্ছা

ঘর নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতির আরেকটি অভিযোগ

এলপিজি বিক্রি করতে হবে নির্ধারিত দরে

অক্সিজেন সরবরাহ নিয়ে রশি টানাটানি বন্ধ করুন

পাহাড়ি ঢলে বন্যা, ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত সহায়তা দিন

শিল্পকারখানা খোলার ঝুঁকি মোকাবিলায় প্রস্তুতি কী

হুমকির মুখে থাকা বাঘ সুন্দরবনকে বাঁচাবে কী করে

পাহাড় ধসে মৃত্যু প্রতিরোধে স্থায়ী পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করুন

সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সরকারের অঙ্গীকারের বাস্তবায়ন চাই

ডেঙ্গু প্রতিরোধে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

পানিতে ডুবে শিশুমৃত্যু প্রসঙ্গে

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন কার নিরাপত্তা দিচ্ছে?

সেতু নির্মাণের নামে জনগণের অর্থের অপচয় বন্ধ করতে হবে

আয় বৈষম্য কমানোর পথ খুঁজতে হবে

নদী খননে অনিয়ম কাম্য নয়

আইসিইউ স্থাপনে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ কেন মানা হয়নি

সরকারের ত্রাণ সহায়তায় অনিয়ম বন্ধ করতে হবে

পরিকল্পনাহীনতায় মানুষের ভোগান্তি

চাষিরা যেন আম উৎপাদনের সুফল পান

কঠোর বিধিনিষেধ প্রসঙ্গে

উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি : বড় মূল্য দিতে হতে পারে

অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহার বন্ধ করতে হবে

ডেঙ্গু প্রতিরোধে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

কোরবানির পশুকেন্দ্রিক চাঁদাবাজি বন্ধ করুন

যথাসময়ে বকেয়া বেতন ও ঈদ বোনাস পরিশোধ করুন

দ্রুত সড়ক-মহাসড়ক সংস্কার করুন

হাসপাতালটি কেন সিআরবিতেই করতে হবে

অগ্নি দুর্ঘটনা প্রতিরোধে ফায়ার সার্ভিসের সুপারিশ বাস্তবায়ন করা জরুরি

চালের দামে লাগাম টানুন

অনিয়ম-দুর্নীতির পুনরাবৃত্তি রোধ করতে হবে

বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে ইউনিসেফের আহ্বান

নারায়ণগঞ্জে ‘জঙ্গি আস্তানা’ প্রসঙ্গে

স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে

গণটিকাদান শুরু : ‘হার্ড ইমিউনিটি’র লক্ষ্য অর্জন হবে কি

করোনাকালের বিষণ্ণতা: চাই সচেতনতা

ক্ষুধার মহামারী সম্পর্কে সতর্ক থাকতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা

শুক্রবার, ১৬ জুলাই ২০২১

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের হাসেম ফুডস কারখানায় অগ্নিকান্ডে ৫২ জনের মৃত্যুর ঘটনায় কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরসহ (ডিআইএফই) সরকারের নজরদারি প্রতিষ্ঠানের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

কারাখানার ভেতর পর্যাপ্ত স্থান, আলো-বাতাস, নিরাপত্তা, যন্ত্রপাতি ও রাসায়নিক রাখার স্থান, ওঠানামার প্রশস্ত সিঁড়ি, জরুরি বহির্গমনের সিঁড়ি ইত্যাদি ঠিক আছে কিনা-তা দেখভাল করার দায়িত্ব ডিআইএফই’র। এগুলোর ঘাটতি থাকলে অধিদপ্তর সংশ্লিষ্ট কারখানার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। হাসেম ফুডস কারখানায় আগুন লাগার পর একটি মামলা করা হয়েছে। এর আগে গত ৩০ জুন কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর শ্রম আইনের ৯টি ধারা লঙ্ঘনের অভিযোগে দন্ডবিধির তিনটি ধারায় উক্ত কারখানার বিরুদ্ধে আরেকটি মামলা করেছিল।

অভিযোগ রয়েছে, লোকবল ও আনুষঙ্গিক সংকটের অজুহাতে তারা বেশিরভাগ সময়ই শিল্পকারখানা পরিদর্শন করে না। করোনা সংক্রমণ শুরুর পর অনুসন্ধানী পরিদর্শন এক প্রকার বন্ধ রয়েছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে শুধু করোনা সুরক্ষাসামগ্রী এবং মজুরি নিয়মিত কিনা-এ দুই প্রশ্নের উত্তর খোঁজার চেষ্টা করা হয়।

নিয়মিত পরিদর্শনে গিয়ে শিল্প ও বাণিজ্য প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তা এবং শ্রমজীবীর আইনগত অধিকার, নিরাপদ ও স্বাস্থ্যসম্মত কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করার দায়িত্ব ডিআইএফইর। অভিযোগ রয়েছে, পরিদর্শনে গেলেও প্রতিষ্ঠানটির কর্তাব্যক্তিরা কারখানার এসব নিশ্চিত করার চেয়ে নিজের পকেট ভারি করার কাজে ব্যস্ত থাকেন বেশি। ডিআইএফইসহ সরকারের নজরদারি প্রতিষ্ঠানগুলো টাকা খেয়ে ভুয়া সনদ দেয়ায় এমন দুর্বল অবকাঠামো নিয়ে কারখানাটি বছরের পর বছর কাজ চালিয়ে এসেছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।

দেশে গত দুই দশকে দ্রুত শিল্পায়ন হয়েছে, সেই তুলনায় প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো তৈরি হয়নি। বড় কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে সরকার বা নজরদারি কর্তৃপক্ষের টনক নড়ে, তাদের অনিয়ম সামনে আসে। চিরাচরিতভাবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ একে অপরের ওপর দোষ চাপায়, নিজেদের অনিয়মের কথা অস্বীকার করে। কর্তব্যের কথা বললে তারা নানা ঘাটতি ও সমস্যার ফিরিস্তি তুলে ধরে। তখন অজুহাত দেখায় লোকবল কম, সক্ষমতার অভাব, সব জায়গায় অফিস নেই ইত্যাদি।

রূপগঞ্জে অগ্নিকান্ডের দায় কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর কোনভাবেই এড়াতে পারে না। দুর্ঘটনার আগেই তাদের প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ করা বা বিচারের আওতায় আনার উদ্যোগ নেয়ার দরকার ছিল। এত দুর্বলতা ও দায়িত্ব অবহেলা করে কীভাবে প্রতিষ্ঠানটি এত দিন চলল, সেটা খতিয়ে দেখা উচিত। ডিআইএফই-র বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ রয়েছে সেগুলো যদি সত্য হয়; তাহলে জনবল ও সক্ষমতা বাড়িয়ে কী লাভ হবে? এখন তাদের যতটুক সক্ষমতা আছে তা সঠিকভাবে ব্যবহার করে কাজ করুক।

back to top