alt

সম্পাদকীয়

উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি : বড় মূল্য দিতে হতে পারে

: সোমবার, ১৯ জুলাই ২০২১

করোনার ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। প্রায় প্রতিদিনই দুই শতাধিক মানুষ মৃত্যুবরণ করছে, সংক্রমিত হচ্ছে ১০ হাজারের বেশি। এই ভয়াবহ পরিস্থিতির মধ্যেও কোরবানির পশুর হাটে স্থাস্থ্যবিধির মানা হচ্ছে না। পশুর হাটে স্বাস্থ্যবিধি পরিপালন করা যাবে কি না-এ নিয়ে আশঙ্কা ছিল। বাস্তবে দেখা যাচ্ছে, রাজধানী থেকে শুরু করে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল-কোথাও স্বাস্থ্যবিধি মানার বালাই নেই। হাটে ক্রেতা-বিক্রেতা কেউই সামাজিক দূরত্ব রক্ষা করার চেষ্টা করছে না। অনেকের মুখেই নেই মাস্ক। হ্যান্ড স্যানিটাইজের কথা সবাই ভুলেই গেছে।

হাটের ধারণক্ষমতা অনুযায়ী নির্দিষ্ট-সংখ্যক ক্রেতা প্রবেশ করবে, বাকিরা বাইরে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে অপেক্ষা করবে-এই নিয়ম মানা হচ্ছে না। অনেক হাটের নির্দিষ্ট কোন সীমানা বা সুরক্ষিত এলাকা নেই। বিক্রেতাদের যেখানে খুশি সেখানে বসছে, ক্রেতাও যাচ্ছে। ইজাদারদের যেসব স্বাস্থ্যবিধির শর্ত দিয়ে হাট ইজারা দেয়া হয়েছিল সেসবের ধারে-কাছেও নেই তারা।

কোরবানির হাটে একটা কাজই শুধু ঠিকমতো করা হচ্ছে-মাইকিং। মাইকিং করে পশু কেনা-বেচার শর্তগুলো ঠিকই বলা হচ্ছে। কিন্তু সেসব কথা কারও কানে যাচ্ছে বলে মনে হয় না। ক্রেতা-বিক্রেতা কারও স্বাস্থ্যবিধি মানার কোন গরজ নাই। কেউ স্বাস্থ্যবিধি না মানলে সেটা মানানোর বা তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য কোন কর্তৃপক্ষ আছে বলে মনে হয় না।

এভাবে চলতে থাকলে সংক্রমণ আরও ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। করোনা নিযন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে, ঈদের পরে দুই সপ্তাহ কঠোর লকডাইন বা টিকা দিয়েও পরিস্থিতি সামাল দেয়া কঠিন হয়ে যাবে। কারণ অনেক দেশকেই টিকা দেয়ার পরও করোনার দ্বিতীয় বা তৃতীয় ঢেউ সামাল দিতে ভীষণ বেগ পেতে হয়েছে। তাদের অনেক সময় লেগেছে, বহু প্রাণ ক্ষয় হয়েছে। আমরা চাই না বাংলাদেশও তেমন পরিস্থিতির শিকার হোক, মহাবিপর্যয়ে পড়–ক।

এখনও সময় আছে, সবাইকে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। নিয়মকানুন মেনে করোনা প্রতিরোধ করাই হবে তুলনামূলকভাবে ভালো পথ। পশুর হাটসহ সব জায়গায় যাতে স্বাস্থ্যবিধি মানা হয় সেজন্য সরকারকেই ব্যবস্থা নিতে হবে, সবাইকে সচেতন করতে হবে। কেউ স্বাস্থ্যবিধি না মানলে তাকে সেটা মানানোর জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।

বায়ু ও শব্দদূষণ রোধে চাই সদিচ্ছা

ঘর নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতির আরেকটি অভিযোগ

এলপিজি বিক্রি করতে হবে নির্ধারিত দরে

অক্সিজেন সরবরাহ নিয়ে রশি টানাটানি বন্ধ করুন

পাহাড়ি ঢলে বন্যা, ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত সহায়তা দিন

শিল্পকারখানা খোলার ঝুঁকি মোকাবিলায় প্রস্তুতি কী

হুমকির মুখে থাকা বাঘ সুন্দরবনকে বাঁচাবে কী করে

পাহাড় ধসে মৃত্যু প্রতিরোধে স্থায়ী পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করুন

সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সরকারের অঙ্গীকারের বাস্তবায়ন চাই

ডেঙ্গু প্রতিরোধে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

পানিতে ডুবে শিশুমৃত্যু প্রসঙ্গে

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন কার নিরাপত্তা দিচ্ছে?

সেতু নির্মাণের নামে জনগণের অর্থের অপচয় বন্ধ করতে হবে

আয় বৈষম্য কমানোর পথ খুঁজতে হবে

নদী খননে অনিয়ম কাম্য নয়

আইসিইউ স্থাপনে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ কেন মানা হয়নি

সরকারের ত্রাণ সহায়তায় অনিয়ম বন্ধ করতে হবে

পরিকল্পনাহীনতায় মানুষের ভোগান্তি

চাষিরা যেন আম উৎপাদনের সুফল পান

কঠোর বিধিনিষেধ প্রসঙ্গে

অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহার বন্ধ করতে হবে

ডেঙ্গু প্রতিরোধে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

কোরবানির পশুকেন্দ্রিক চাঁদাবাজি বন্ধ করুন

যথাসময়ে বকেয়া বেতন ও ঈদ বোনাস পরিশোধ করুন

দ্রুত সড়ক-মহাসড়ক সংস্কার করুন

কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা

হাসপাতালটি কেন সিআরবিতেই করতে হবে

অগ্নি দুর্ঘটনা প্রতিরোধে ফায়ার সার্ভিসের সুপারিশ বাস্তবায়ন করা জরুরি

চালের দামে লাগাম টানুন

অনিয়ম-দুর্নীতির পুনরাবৃত্তি রোধ করতে হবে

বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে ইউনিসেফের আহ্বান

নারায়ণগঞ্জে ‘জঙ্গি আস্তানা’ প্রসঙ্গে

স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে

গণটিকাদান শুরু : ‘হার্ড ইমিউনিটি’র লক্ষ্য অর্জন হবে কি

করোনাকালের বিষণ্ণতা: চাই সচেতনতা

ক্ষুধার মহামারী সম্পর্কে সতর্ক থাকতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি : বড় মূল্য দিতে হতে পারে

সোমবার, ১৯ জুলাই ২০২১

করোনার ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। প্রায় প্রতিদিনই দুই শতাধিক মানুষ মৃত্যুবরণ করছে, সংক্রমিত হচ্ছে ১০ হাজারের বেশি। এই ভয়াবহ পরিস্থিতির মধ্যেও কোরবানির পশুর হাটে স্থাস্থ্যবিধির মানা হচ্ছে না। পশুর হাটে স্বাস্থ্যবিধি পরিপালন করা যাবে কি না-এ নিয়ে আশঙ্কা ছিল। বাস্তবে দেখা যাচ্ছে, রাজধানী থেকে শুরু করে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল-কোথাও স্বাস্থ্যবিধি মানার বালাই নেই। হাটে ক্রেতা-বিক্রেতা কেউই সামাজিক দূরত্ব রক্ষা করার চেষ্টা করছে না। অনেকের মুখেই নেই মাস্ক। হ্যান্ড স্যানিটাইজের কথা সবাই ভুলেই গেছে।

হাটের ধারণক্ষমতা অনুযায়ী নির্দিষ্ট-সংখ্যক ক্রেতা প্রবেশ করবে, বাকিরা বাইরে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে অপেক্ষা করবে-এই নিয়ম মানা হচ্ছে না। অনেক হাটের নির্দিষ্ট কোন সীমানা বা সুরক্ষিত এলাকা নেই। বিক্রেতাদের যেখানে খুশি সেখানে বসছে, ক্রেতাও যাচ্ছে। ইজাদারদের যেসব স্বাস্থ্যবিধির শর্ত দিয়ে হাট ইজারা দেয়া হয়েছিল সেসবের ধারে-কাছেও নেই তারা।

কোরবানির হাটে একটা কাজই শুধু ঠিকমতো করা হচ্ছে-মাইকিং। মাইকিং করে পশু কেনা-বেচার শর্তগুলো ঠিকই বলা হচ্ছে। কিন্তু সেসব কথা কারও কানে যাচ্ছে বলে মনে হয় না। ক্রেতা-বিক্রেতা কারও স্বাস্থ্যবিধি মানার কোন গরজ নাই। কেউ স্বাস্থ্যবিধি না মানলে সেটা মানানোর বা তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য কোন কর্তৃপক্ষ আছে বলে মনে হয় না।

এভাবে চলতে থাকলে সংক্রমণ আরও ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। করোনা নিযন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে, ঈদের পরে দুই সপ্তাহ কঠোর লকডাইন বা টিকা দিয়েও পরিস্থিতি সামাল দেয়া কঠিন হয়ে যাবে। কারণ অনেক দেশকেই টিকা দেয়ার পরও করোনার দ্বিতীয় বা তৃতীয় ঢেউ সামাল দিতে ভীষণ বেগ পেতে হয়েছে। তাদের অনেক সময় লেগেছে, বহু প্রাণ ক্ষয় হয়েছে। আমরা চাই না বাংলাদেশও তেমন পরিস্থিতির শিকার হোক, মহাবিপর্যয়ে পড়–ক।

এখনও সময় আছে, সবাইকে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। নিয়মকানুন মেনে করোনা প্রতিরোধ করাই হবে তুলনামূলকভাবে ভালো পথ। পশুর হাটসহ সব জায়গায় যাতে স্বাস্থ্যবিধি মানা হয় সেজন্য সরকারকেই ব্যবস্থা নিতে হবে, সবাইকে সচেতন করতে হবে। কেউ স্বাস্থ্যবিধি না মানলে তাকে সেটা মানানোর জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।

back to top