alt

সম্পাদকীয়

শৌচাগার সংকট থেকে রাজধানীবাসীকে উদ্ধার করুন

: শনিবার, ২০ নভেম্বর ২০২১

জনসংখ্যার বিবেচনায় ঢাকা বিশ্বের একাদশতম বৃহত্তম মহানগরী। রাজধানীর জনসংখ্যা দুই কোটি ছুঁই ছুঁই। এর বাইরে প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে নানা কাজে আসা-যাওয়া করে অনেকে। দেশের বাইরে থেকেও উল্লেখযোগ্যসংখ্যক মানুষ রাজধানী আসছে। শহরে বসবাসরত ও বহিরাগত মিলিয়ে প্রায় ৫০ লাখ মানুষ প্রতিদিন চলাচল করে।

এত মানুষের জন্য ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন এলাকায় মোট গণশৌচাগার রয়েছে মাত্র ১০১টি। ঢাকায় পথচারী ও বস্তির বাসিন্দারা এখনও স্বাস্থ্যসম্মত শৌচাগার সুবিধা পাচ্ছেন না। একটি শৌচাগার ভাগাভাগি করে ব্যবহার করতে হয় বহু বস্তিবাসীকে। এ পরিসংখ্যান থেকেই বোঝা যায় রাজধানীতে গণশৌচাগারের অবস্থা কত করুণ।

রাজধানীতে গণশৌচাগারের এমন হতশ্রী অবস্থার মধ্য গতকাল শুক্রবার পালিত হয়েছে বিশ্ব শৌচাগার দিবস। এবার দিবসটির প্রতিপাদ্য ছিল, শৌচাগারের মূল্যায়ন।

রাজধানীবাসীকে দিনের অনেকটা সময় নানা কাজে ঘরের বাইরে অবস্থান করতে হয়। এ সময়ই সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়তে হয় তাদের। ঘরের বাইরে গেলে গণশৌচাগারের সংকটের কারণে নানা সমস্যা পোহাতে হয়। এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পরে নারী, শিশু ও প্রতিবন্ধীরা।

শৌচাগারের মতো জনগুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় বছরের পর বছর কর্তৃপক্ষের নজর এড়িয়ে যায় কীভাবে-সেটা ভেবে আমরা বিস্মিত হই। রাজধানীতে গণশৌচাগার যে স্থাপন করা হচ্ছে না তা নয়। কিন্তু সেগুলো প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। আবার যেসব গণশৌচাগার আছে, তার বেশিরভাগই ব্যবহারের অনুপযোগী। দুর্বল ব্যবস্থাপনার কারণে এগুলো কাক্সিক্ষত সেবা দিতে পারছে না। শৌচাগার ইজারা দিয়ে সিটি করপোরেশনের রাজস্ব আয় বাড়লেও সেবার মানের দিকে তাদের নজর নেই বলে অভিযোগ নগরবাসীর।

গণশৌচাগার নিয়ে রাজধানীর বাসিন্দারা একবারেই স্বস্তিতে নেই। বিষয়টিকে হালকাভাবে নেয়ার সুযোগ নেই। ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে মানসম্মত গণশৌচাগারের সংখ্যা বাড়াতে হবে। বিশেষ করে, ঘনবসতি বা বস্তি এলাকা এবং বেশি লোক সমাগম হয় এমন স্থানে প্রয়োজনীয়সংখ্যক গণশৌচাগার স্থাপন করতে হবে। সেগুলোকে নগরবাসীর চাহিদা অনুযায়ী ব্যবহারের উপযোগী করতে হবে। পাশাপাশি বিদ্যমান গণশৌচাগারগুলো সংস্কার করতে হবে।

বস্তিবাসীদের প্রয়োজনের কথা ভুললে চলবে না। তাদের স্বাস্থ্যসম্মত শৌচাগার সুবিধা দিতে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগ প্রয়োজন।

বায়ুদূষণে শীর্ষে ঢাকা : এই শিরোপা আমরা চাই না

গণপরিবহন শ্রমিকদের মনোজগতে কী ঘটছে

ইমিগ্রেশন পুলিশকে পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হবে

অবৈধ ইটভাটা বন্ধের নির্দেশের বাস্তবায়ন দেখতে চাই

প্রেরণাদায়ী সাফল্য

কিশোর গ্যাং : দায়িত্ব নিতে হবে সবাইকেই

রেণু চিংড়ি আহরণ বন্ধ করুন

গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব কিসের জন্য

বঙ্গবন্ধু রেল সেতু : যথাসময়ে প্রকল্পের কাজ শেষ করুন

শাবিপ্রবির এ পরিস্থিতির দায় কার

ফগলাইট কেনায় দুর্নীতি

ভালো নির্বাচনের উদাহরণ

দিবাযত্ন কেন্দ্র হোক শিশুবান্ধব

পুলিশ কেন নিখোঁজ ব্যক্তিদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে

গ্যাস সিলিন্ডারে বেলুন ফোলানো বন্ধে অভিযান চালান

পাসপোর্ট পেতে কেন ঘুষ দিতে হবে

যাত্রী ছাউনিগুলো ব্যবহারের উপযোগী করুন

উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসকের উপস্থিতি নিশ্চিত করুন

সড়ক দখলের অপসংস্কৃতি

প্রশ্নবিদ্ধ কারাগারের নিরাপত্তা

সেচ প্রকল্পের পুকুর ভরাট প্রসঙ্গে

কারখানা পরিদর্শন : সব পক্ষের পারস্পরিক সহযোগিতা প্রয়োজন

ভবদহের জলাবদ্ধতা : স্থানীয় বাসিন্দাদের আস্থায় নিয়ে কাজ করুন

বিধিনিষেধ ও গণপরিবহনের ভাড়া

হালদা রক্ষায় সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

অনেক শিক্ষার্থী এখনো কেন পাঠ্যবই পায়নি

আতশবাজি ও পটকা : শব্দ দূষণের আরেক রূপ

সড়কে শৃঙ্খলা ফিরবে কবে

রক্ষিত বনের লক্ষ্য অর্জনে বাধা কোথায়

ফেলানী হত্যার বিচার প্রতীক্ষার অবসান ঘটুক

এই কি নিরাময় কেন্দ্র, না টর্চার সেল?

পরিবেশ অধিদপ্তরের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নিন

ডিএসসিসির খাল পরিষ্কার প্রসঙ্গে

ইটভাটা চালাতে হবে আইন মেনে

নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের বিরুদ্ধে সবাইকে সোচ্চার হতে হবে

এই যুগে এভাবে কোন কাজে কি জনসমর্থন মেলে?

tab

সম্পাদকীয়

শৌচাগার সংকট থেকে রাজধানীবাসীকে উদ্ধার করুন

শনিবার, ২০ নভেম্বর ২০২১

জনসংখ্যার বিবেচনায় ঢাকা বিশ্বের একাদশতম বৃহত্তম মহানগরী। রাজধানীর জনসংখ্যা দুই কোটি ছুঁই ছুঁই। এর বাইরে প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে নানা কাজে আসা-যাওয়া করে অনেকে। দেশের বাইরে থেকেও উল্লেখযোগ্যসংখ্যক মানুষ রাজধানী আসছে। শহরে বসবাসরত ও বহিরাগত মিলিয়ে প্রায় ৫০ লাখ মানুষ প্রতিদিন চলাচল করে।

এত মানুষের জন্য ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন এলাকায় মোট গণশৌচাগার রয়েছে মাত্র ১০১টি। ঢাকায় পথচারী ও বস্তির বাসিন্দারা এখনও স্বাস্থ্যসম্মত শৌচাগার সুবিধা পাচ্ছেন না। একটি শৌচাগার ভাগাভাগি করে ব্যবহার করতে হয় বহু বস্তিবাসীকে। এ পরিসংখ্যান থেকেই বোঝা যায় রাজধানীতে গণশৌচাগারের অবস্থা কত করুণ।

রাজধানীতে গণশৌচাগারের এমন হতশ্রী অবস্থার মধ্য গতকাল শুক্রবার পালিত হয়েছে বিশ্ব শৌচাগার দিবস। এবার দিবসটির প্রতিপাদ্য ছিল, শৌচাগারের মূল্যায়ন।

রাজধানীবাসীকে দিনের অনেকটা সময় নানা কাজে ঘরের বাইরে অবস্থান করতে হয়। এ সময়ই সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়তে হয় তাদের। ঘরের বাইরে গেলে গণশৌচাগারের সংকটের কারণে নানা সমস্যা পোহাতে হয়। এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পরে নারী, শিশু ও প্রতিবন্ধীরা।

শৌচাগারের মতো জনগুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় বছরের পর বছর কর্তৃপক্ষের নজর এড়িয়ে যায় কীভাবে-সেটা ভেবে আমরা বিস্মিত হই। রাজধানীতে গণশৌচাগার যে স্থাপন করা হচ্ছে না তা নয়। কিন্তু সেগুলো প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। আবার যেসব গণশৌচাগার আছে, তার বেশিরভাগই ব্যবহারের অনুপযোগী। দুর্বল ব্যবস্থাপনার কারণে এগুলো কাক্সিক্ষত সেবা দিতে পারছে না। শৌচাগার ইজারা দিয়ে সিটি করপোরেশনের রাজস্ব আয় বাড়লেও সেবার মানের দিকে তাদের নজর নেই বলে অভিযোগ নগরবাসীর।

গণশৌচাগার নিয়ে রাজধানীর বাসিন্দারা একবারেই স্বস্তিতে নেই। বিষয়টিকে হালকাভাবে নেয়ার সুযোগ নেই। ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে মানসম্মত গণশৌচাগারের সংখ্যা বাড়াতে হবে। বিশেষ করে, ঘনবসতি বা বস্তি এলাকা এবং বেশি লোক সমাগম হয় এমন স্থানে প্রয়োজনীয়সংখ্যক গণশৌচাগার স্থাপন করতে হবে। সেগুলোকে নগরবাসীর চাহিদা অনুযায়ী ব্যবহারের উপযোগী করতে হবে। পাশাপাশি বিদ্যমান গণশৌচাগারগুলো সংস্কার করতে হবে।

বস্তিবাসীদের প্রয়োজনের কথা ভুললে চলবে না। তাদের স্বাস্থ্যসম্মত শৌচাগার সুবিধা দিতে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগ প্রয়োজন।

back to top