alt

সম্পাদকীয়

শৌচাগার সংকট থেকে রাজধানীবাসীকে উদ্ধার করুন

: শনিবার, ২০ নভেম্বর ২০২১

জনসংখ্যার বিবেচনায় ঢাকা বিশ্বের একাদশতম বৃহত্তম মহানগরী। রাজধানীর জনসংখ্যা দুই কোটি ছুঁই ছুঁই। এর বাইরে প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে নানা কাজে আসা-যাওয়া করে অনেকে। দেশের বাইরে থেকেও উল্লেখযোগ্যসংখ্যক মানুষ রাজধানী আসছে। শহরে বসবাসরত ও বহিরাগত মিলিয়ে প্রায় ৫০ লাখ মানুষ প্রতিদিন চলাচল করে।

এত মানুষের জন্য ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন এলাকায় মোট গণশৌচাগার রয়েছে মাত্র ১০১টি। ঢাকায় পথচারী ও বস্তির বাসিন্দারা এখনও স্বাস্থ্যসম্মত শৌচাগার সুবিধা পাচ্ছেন না। একটি শৌচাগার ভাগাভাগি করে ব্যবহার করতে হয় বহু বস্তিবাসীকে। এ পরিসংখ্যান থেকেই বোঝা যায় রাজধানীতে গণশৌচাগারের অবস্থা কত করুণ।

রাজধানীতে গণশৌচাগারের এমন হতশ্রী অবস্থার মধ্য গতকাল শুক্রবার পালিত হয়েছে বিশ্ব শৌচাগার দিবস। এবার দিবসটির প্রতিপাদ্য ছিল, শৌচাগারের মূল্যায়ন।

রাজধানীবাসীকে দিনের অনেকটা সময় নানা কাজে ঘরের বাইরে অবস্থান করতে হয়। এ সময়ই সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়তে হয় তাদের। ঘরের বাইরে গেলে গণশৌচাগারের সংকটের কারণে নানা সমস্যা পোহাতে হয়। এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পরে নারী, শিশু ও প্রতিবন্ধীরা।

শৌচাগারের মতো জনগুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় বছরের পর বছর কর্তৃপক্ষের নজর এড়িয়ে যায় কীভাবে-সেটা ভেবে আমরা বিস্মিত হই। রাজধানীতে গণশৌচাগার যে স্থাপন করা হচ্ছে না তা নয়। কিন্তু সেগুলো প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। আবার যেসব গণশৌচাগার আছে, তার বেশিরভাগই ব্যবহারের অনুপযোগী। দুর্বল ব্যবস্থাপনার কারণে এগুলো কাক্সিক্ষত সেবা দিতে পারছে না। শৌচাগার ইজারা দিয়ে সিটি করপোরেশনের রাজস্ব আয় বাড়লেও সেবার মানের দিকে তাদের নজর নেই বলে অভিযোগ নগরবাসীর।

গণশৌচাগার নিয়ে রাজধানীর বাসিন্দারা একবারেই স্বস্তিতে নেই। বিষয়টিকে হালকাভাবে নেয়ার সুযোগ নেই। ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে মানসম্মত গণশৌচাগারের সংখ্যা বাড়াতে হবে। বিশেষ করে, ঘনবসতি বা বস্তি এলাকা এবং বেশি লোক সমাগম হয় এমন স্থানে প্রয়োজনীয়সংখ্যক গণশৌচাগার স্থাপন করতে হবে। সেগুলোকে নগরবাসীর চাহিদা অনুযায়ী ব্যবহারের উপযোগী করতে হবে। পাশাপাশি বিদ্যমান গণশৌচাগারগুলো সংস্কার করতে হবে।

বস্তিবাসীদের প্রয়োজনের কথা ভুললে চলবে না। তাদের স্বাস্থ্যসম্মত শৌচাগার সুবিধা দিতে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগ প্রয়োজন।

সংকটে সংবাদপত্রশিল্প প্রয়োজন প্রণোদনা

প্রান্তিক মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করুন

উপকূলে জলদস্যুদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে

পুরুষতান্ত্রিক সমাজের একজন প্রতিনিধি

পিইসি পরীক্ষা নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করুন

জননিরাপত্তাকে অগ্রাধিকার দিয়ে রেলক্রসিংগুলো সুরক্ষিত করুন

বিমানবন্দরগুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন

সড়কে শৃঙ্খলা ফিরবে নাকি যেমন আছে তেমনই থাকবে

রেলের উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ কতকাল ধরে চলতে থাকবে

‘বন্দুকযুদ্ধ’ কোন সমাধান নয়

এইডস প্রতিরোধে চাই জনসচেতনতা

সীমান্ত হত্যা বন্ধে প্রতিশ্রুতি রক্ষা করুন

পার্বত্য চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন জরুরি

শর্তযুক্ত ‘হাফ পাস’

সড়ক দুর্ঘটনায় এত শিক্ষার্থী মারা যাচ্ছে কেন

পশুর চ্যানেলে বাল্কহেড চলাচল বন্ধ করুন

ইউপি নির্বাচনে সহিংসতা ও ইসি’র দাবি

ফ্রাঞ্চাইজিভিত্তিক বাস সার্ভিস কবে আলোর মুখ দেখবে

করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ‘ওমিক্রন’ মোকাবিলায় চাই সার্বিক প্রস্তুতি

পাহাড় দখল কি চলতেই থাকবে

নারী ক্রিকেটের আরেকটি মাইলফলক

যক্ষ্মা ও এইডস রোগ নির্মূল কর্মসূচি প্রসঙ্গে

সড়কে মৃত্যুর মিছিল বন্ধ হোক

ফিটনেসছাড়া ফেরিগুলো চলছে কীভাবে

বায়ুদূষণ রোধে সমন্বিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

সড়ক দুর্ঘটনায় ঝরছে প্রাণ

রাষ্ট্রপতির সময়োপযোগী আহ্বান

অভিনন্দন সুপ্তা, নারী ক্রীড়াবিদদের জয়যাত্রা অব্যাহত থাকুক

নারীর সুরক্ষায় আইনের কঠোর প্রয়োগ ঘটাতে হবে

শিক্ষার্থীদের ‘হাফ পাসের’ দাবি বিবেচনা করুন

দুদকের কাজ কঠিন তবে অসম্ভব নয়

ড্যাপের খসড়া : অংশীজনদের যৌক্তিক মত গ্রহণ করা জরুরি

করোনার সংক্রমণ কমলেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে

দক্ষিণাঞ্চলে ফায়ার সার্ভিসের সমস্যা দূর করুন

আইসিটি শিক্ষক সংকট দূর করুন

শিশুর জন্য উন্নত ভবিষ্যৎ

tab

সম্পাদকীয়

শৌচাগার সংকট থেকে রাজধানীবাসীকে উদ্ধার করুন

শনিবার, ২০ নভেম্বর ২০২১

জনসংখ্যার বিবেচনায় ঢাকা বিশ্বের একাদশতম বৃহত্তম মহানগরী। রাজধানীর জনসংখ্যা দুই কোটি ছুঁই ছুঁই। এর বাইরে প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে নানা কাজে আসা-যাওয়া করে অনেকে। দেশের বাইরে থেকেও উল্লেখযোগ্যসংখ্যক মানুষ রাজধানী আসছে। শহরে বসবাসরত ও বহিরাগত মিলিয়ে প্রায় ৫০ লাখ মানুষ প্রতিদিন চলাচল করে।

এত মানুষের জন্য ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন এলাকায় মোট গণশৌচাগার রয়েছে মাত্র ১০১টি। ঢাকায় পথচারী ও বস্তির বাসিন্দারা এখনও স্বাস্থ্যসম্মত শৌচাগার সুবিধা পাচ্ছেন না। একটি শৌচাগার ভাগাভাগি করে ব্যবহার করতে হয় বহু বস্তিবাসীকে। এ পরিসংখ্যান থেকেই বোঝা যায় রাজধানীতে গণশৌচাগারের অবস্থা কত করুণ।

রাজধানীতে গণশৌচাগারের এমন হতশ্রী অবস্থার মধ্য গতকাল শুক্রবার পালিত হয়েছে বিশ্ব শৌচাগার দিবস। এবার দিবসটির প্রতিপাদ্য ছিল, শৌচাগারের মূল্যায়ন।

রাজধানীবাসীকে দিনের অনেকটা সময় নানা কাজে ঘরের বাইরে অবস্থান করতে হয়। এ সময়ই সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়তে হয় তাদের। ঘরের বাইরে গেলে গণশৌচাগারের সংকটের কারণে নানা সমস্যা পোহাতে হয়। এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পরে নারী, শিশু ও প্রতিবন্ধীরা।

শৌচাগারের মতো জনগুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় বছরের পর বছর কর্তৃপক্ষের নজর এড়িয়ে যায় কীভাবে-সেটা ভেবে আমরা বিস্মিত হই। রাজধানীতে গণশৌচাগার যে স্থাপন করা হচ্ছে না তা নয়। কিন্তু সেগুলো প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। আবার যেসব গণশৌচাগার আছে, তার বেশিরভাগই ব্যবহারের অনুপযোগী। দুর্বল ব্যবস্থাপনার কারণে এগুলো কাক্সিক্ষত সেবা দিতে পারছে না। শৌচাগার ইজারা দিয়ে সিটি করপোরেশনের রাজস্ব আয় বাড়লেও সেবার মানের দিকে তাদের নজর নেই বলে অভিযোগ নগরবাসীর।

গণশৌচাগার নিয়ে রাজধানীর বাসিন্দারা একবারেই স্বস্তিতে নেই। বিষয়টিকে হালকাভাবে নেয়ার সুযোগ নেই। ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে মানসম্মত গণশৌচাগারের সংখ্যা বাড়াতে হবে। বিশেষ করে, ঘনবসতি বা বস্তি এলাকা এবং বেশি লোক সমাগম হয় এমন স্থানে প্রয়োজনীয়সংখ্যক গণশৌচাগার স্থাপন করতে হবে। সেগুলোকে নগরবাসীর চাহিদা অনুযায়ী ব্যবহারের উপযোগী করতে হবে। পাশাপাশি বিদ্যমান গণশৌচাগারগুলো সংস্কার করতে হবে।

বস্তিবাসীদের প্রয়োজনের কথা ভুললে চলবে না। তাদের স্বাস্থ্যসম্মত শৌচাগার সুবিধা দিতে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগ প্রয়োজন।

back to top