alt

সম্পাদকীয়

যক্ষ্মা ও এইডস রোগ নির্মূল কর্মসূচি প্রসঙ্গে

: শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১

চতুর্থ স্বাস্থ্য, জনসংখ্যা ও পুষ্টি সেক্টর কর্মসূচির আওতায় ২০১৭ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত ১ হাজার ৬৫৬ কোটি ৭২ লাখ টাকা ব্যয়ে যক্ষ্মা ও এইডস রোগ নির্মূলে কর্মসূচি গ্রহণ করে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এ কর্মসূচি বাস্তবায়নে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তেমন কোন পরিকল্পনা নেই বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কর্মসূচি বাস্তবায়নের নামে যথাযথ অনুমোদন ছাড়াই দুর্নীতির মাধ্যমে একক উৎস থেকে অতিরিক্ত দামে ওষুধ সংগ্রহেরও অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের উদ্যোগে টিবি-লেপ্রোসি অ্যান্ড এইডস/এসটিডি প্রোগ্রাম শীর্ষক অপারেশনাল প্লান বাস্তবায়ন কমিটির সভায় এসব অভিযোগ উঠে আসে। এ নিয়ে আজ শনিবার গণমাধ্যমে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বের মোট ২২টি দেশে যক্ষ্মার প্রকোপ বেশি। দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ষষ্ঠ। সর্বশেষ ২০২০ সালে দেশে নতুন যক্ষ্মা রোগী শনাক্ত হয় ২ লাখ ৯২ হাজার ৯৪০ জন। সরকারের হিসেবে জানা যায়, প্রতি বছর যক্ষ্মায় দেশে প্রায় ৩৯ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়। সে হিসেবে প্রতিদিন মারা যায় ১০৭ জন।

জাতীয় এইডস নিয়ন্ত্রণ-এসটিডি কর্মসূচির তথ্যমতে, ২০২০ সাল পর্যন্ত দেশে এইডস সংক্রমিত মানুষের অনুমিত সংখ্যা প্রায় ১৪ হাজার। এ পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছে ৮ হাজার ৩২ জন, আর মারা গেছে এক ৩৮৩ জন। এদের মধ্যে ২০২০ সালেই মারা গেছে ১৪১ জন এবং শনাক্ত হয়েছে ৬৫৮ জন। দিন আশঙ্কাজনকভাবে বাড়ছে শনাক্ত ও মৃত্যুর হার।

যক্ষ্মা ও এইডস রোগ নির্মূলে গৃহীত কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রশ্ন হচ্ছে, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট বিভাগ সেটি উপলব্ধি করছে কিনা। কর্মসূচি বাস্তবায়নের বাকি আছে মাত্র ছয় মাস। এখনও চলতি অর্থবছরের পরিকল্পনাই করা হয়নি। সংশ্লিষ্টদের গদাইলস্করি চাল দেখে মনে হয়, দেশ থেকে যক্ষ্মা ও এইডসের মতো ভয়াবহ রোগগুলো নির্মূলে তারা গুরুত্ব দিচ্ছে না। তাদের এমন উদাসীনতা ও অবহেলা জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকি সৃষ্টি করছে। আমরা চাই না কারও উদাসীনতা বা অবহেলায় কর্মসূচিটি বিঘ্নিত হোক।

চলতি অর্থবছরের যতটুক সময় আছে এর মধ্যে পরিকল্পনা করে কর্মসূচি বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিতে হবে। এতদিনেও কেন এই পরিকল্পনা করা হলো না সেটা খতিয়ে দেখে সংশ্লিষ্টদের কাজে স্বচ্ছতা ও জাবাবদিহিতা আদায় করা জরুরি।

চিঠি চালাচালি করে কি ঢাবির জমি উদ্ধার করা যাবে

নদী খননে থাকতে হবে পরিকল্পনা, করতে হবে সমন্বয়

রংপুরে এলইডি বাতি স্থাপনে দুর্নীতি

অবৈধ গ্যাস সংযোগের নেপথ্যে কারা

অপ্রয়োজনে সেতু, প্রয়োজনে নাই

শাবিপ্রবি সংকট : প্রকৃত কারণ কি জানা যাবে

বাঘ রক্ষায় বাংলাদেশের অর্জন কী

প্রশ্নফাঁস চক্রের শেকড় অনুসন্ধান করতে হবে

বায়ুদূষণে শীর্ষে ঢাকা : এই শিরোপা আমরা চাই না

গণপরিবহন শ্রমিকদের মনোজগতে কী ঘটছে

ইমিগ্রেশন পুলিশকে পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হবে

অবৈধ ইটভাটা বন্ধের নির্দেশের বাস্তবায়ন দেখতে চাই

প্রেরণাদায়ী সাফল্য

কিশোর গ্যাং : দায়িত্ব নিতে হবে সবাইকেই

রেণু চিংড়ি আহরণ বন্ধ করুন

গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব কিসের জন্য

বঙ্গবন্ধু রেল সেতু : যথাসময়ে প্রকল্পের কাজ শেষ করুন

শাবিপ্রবির এ পরিস্থিতির দায় কার

ফগলাইট কেনায় দুর্নীতি

ভালো নির্বাচনের উদাহরণ

দিবাযত্ন কেন্দ্র হোক শিশুবান্ধব

পুলিশ কেন নিখোঁজ ব্যক্তিদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে

গ্যাস সিলিন্ডারে বেলুন ফোলানো বন্ধে অভিযান চালান

পাসপোর্ট পেতে কেন ঘুষ দিতে হবে

যাত্রী ছাউনিগুলো ব্যবহারের উপযোগী করুন

উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসকের উপস্থিতি নিশ্চিত করুন

সড়ক দখলের অপসংস্কৃতি

প্রশ্নবিদ্ধ কারাগারের নিরাপত্তা

সেচ প্রকল্পের পুকুর ভরাট প্রসঙ্গে

কারখানা পরিদর্শন : সব পক্ষের পারস্পরিক সহযোগিতা প্রয়োজন

ভবদহের জলাবদ্ধতা : স্থানীয় বাসিন্দাদের আস্থায় নিয়ে কাজ করুন

বিধিনিষেধ ও গণপরিবহনের ভাড়া

হালদা রক্ষায় সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

অনেক শিক্ষার্থী এখনো কেন পাঠ্যবই পায়নি

আতশবাজি ও পটকা : শব্দ দূষণের আরেক রূপ

সড়কে শৃঙ্খলা ফিরবে কবে

tab

সম্পাদকীয়

যক্ষ্মা ও এইডস রোগ নির্মূল কর্মসূচি প্রসঙ্গে

শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১

চতুর্থ স্বাস্থ্য, জনসংখ্যা ও পুষ্টি সেক্টর কর্মসূচির আওতায় ২০১৭ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত ১ হাজার ৬৫৬ কোটি ৭২ লাখ টাকা ব্যয়ে যক্ষ্মা ও এইডস রোগ নির্মূলে কর্মসূচি গ্রহণ করে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এ কর্মসূচি বাস্তবায়নে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তেমন কোন পরিকল্পনা নেই বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কর্মসূচি বাস্তবায়নের নামে যথাযথ অনুমোদন ছাড়াই দুর্নীতির মাধ্যমে একক উৎস থেকে অতিরিক্ত দামে ওষুধ সংগ্রহেরও অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের উদ্যোগে টিবি-লেপ্রোসি অ্যান্ড এইডস/এসটিডি প্রোগ্রাম শীর্ষক অপারেশনাল প্লান বাস্তবায়ন কমিটির সভায় এসব অভিযোগ উঠে আসে। এ নিয়ে আজ শনিবার গণমাধ্যমে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বের মোট ২২টি দেশে যক্ষ্মার প্রকোপ বেশি। দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ষষ্ঠ। সর্বশেষ ২০২০ সালে দেশে নতুন যক্ষ্মা রোগী শনাক্ত হয় ২ লাখ ৯২ হাজার ৯৪০ জন। সরকারের হিসেবে জানা যায়, প্রতি বছর যক্ষ্মায় দেশে প্রায় ৩৯ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়। সে হিসেবে প্রতিদিন মারা যায় ১০৭ জন।

জাতীয় এইডস নিয়ন্ত্রণ-এসটিডি কর্মসূচির তথ্যমতে, ২০২০ সাল পর্যন্ত দেশে এইডস সংক্রমিত মানুষের অনুমিত সংখ্যা প্রায় ১৪ হাজার। এ পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছে ৮ হাজার ৩২ জন, আর মারা গেছে এক ৩৮৩ জন। এদের মধ্যে ২০২০ সালেই মারা গেছে ১৪১ জন এবং শনাক্ত হয়েছে ৬৫৮ জন। দিন আশঙ্কাজনকভাবে বাড়ছে শনাক্ত ও মৃত্যুর হার।

যক্ষ্মা ও এইডস রোগ নির্মূলে গৃহীত কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রশ্ন হচ্ছে, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট বিভাগ সেটি উপলব্ধি করছে কিনা। কর্মসূচি বাস্তবায়নের বাকি আছে মাত্র ছয় মাস। এখনও চলতি অর্থবছরের পরিকল্পনাই করা হয়নি। সংশ্লিষ্টদের গদাইলস্করি চাল দেখে মনে হয়, দেশ থেকে যক্ষ্মা ও এইডসের মতো ভয়াবহ রোগগুলো নির্মূলে তারা গুরুত্ব দিচ্ছে না। তাদের এমন উদাসীনতা ও অবহেলা জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকি সৃষ্টি করছে। আমরা চাই না কারও উদাসীনতা বা অবহেলায় কর্মসূচিটি বিঘ্নিত হোক।

চলতি অর্থবছরের যতটুক সময় আছে এর মধ্যে পরিকল্পনা করে কর্মসূচি বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিতে হবে। এতদিনেও কেন এই পরিকল্পনা করা হলো না সেটা খতিয়ে দেখে সংশ্লিষ্টদের কাজে স্বচ্ছতা ও জাবাবদিহিতা আদায় করা জরুরি।

back to top