alt

সম্পাদকীয়

দশমিনার চরাঞ্চলে বেড়িবাঁধ নির্মাণ করুন

: মঙ্গলবার, ০৪ জানুয়ারী ২০২২

পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার তেঁতুলিয়া ও বুড়াগৌরাঙ্গ নদীর বুকচিরে জেগে ওঠা চরাঞ্চলে প্রায় ৫০ হাজার মানুষের বসবাস। উপজেলা সদর থেকে বিচ্ছিন্ন এসব ভূখ-ে দীর্ঘ ৫০ বছরেও নির্মাণ করা হয়নি বেড়িবাঁধ। এসব চরাঞ্চল জোয়ারের পানিতে ডুবে, আবার ভাটায় জেগে ওঠে। মাঝখানে দুর্ভোগের শিকার হয় বাসিন্দারা। তাছাড়া প্রতি বছর লাখ লাখ টাকার ফসলহানি তো আছেই। এ নিয়ে গত শনিবার সংবাদ-এ সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, চরবোরহান, চরশাহজালাল, লালচরসহ কয়েকটি চর উপজেলা সদরের সাথে সরাসরি যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন। এসব চরাঞ্চলে বিভিন্ন অঞ্চলের ভাগ্যহারা মানুষ অর্ধশত বছর আগে বসতি স্থাপন করে। বেড়িবাঁধ না থাকায় নদীর জোয়ারের পানি ঢুকে যায়। বর্ষা মৌসুমে জোয়ারে ৩-৪ ফুট পানিতে ডুবে থাকে এসব এলাকা। প্রতি বছর ঝড়-বন্যা-জলোচ্ছ্বাসে চরাঞ্চলের মানুষের ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি হয়। চরের মানুষকে প্রকৃতির সাথে যুদ্ধ করেই বেঁচে থাকতে হয়।

চরাঞ্চলের মানুষ বেড়িবাঁধের জন্য সভা-সমাবেশসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে স্মারকলিপি প্রদান করে আসছে বহু বছর ধরেই। কিন্তু বেড়িবাঁধ নির্মাণের কোন উদ্যোগই চোখে পড়ছে না। সংশ্লিষ্ট কর্তাব্যক্তিদের কাছ থেকে আশ্বাস মিলেছে কয়েক দফা। এরপরও কেন বেড়িবাঁধ নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হচ্ছে না- সেটা একটা প্রশ্ন। আশ্বাস কিংবা প্রতিশ্রুতির ফুলঝুড়ি থেকে বের হয়ে বাঁধ নির্মাণ করা হচ্ছেÑ এমনটা আমরা দেখতে চাই।

শুধু দশমিনার চরাঞ্চলই নয়, এমন আরও অনেক এলাকা অরক্ষিত রয়েছে। সেসব অঞ্চলেও অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বাঁধ নির্মাণের উদ্যোগ নিতে হবে। চরাঞ্চলের মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে। পাশাপাশি এসব বাঁধ নির্মাণে যাতে কোন অনিয়ম ও দুর্নীতি না হয় সেদিকেও নজর দিতে হবে। কারণ অতীতে অনিয়ম-দুর্নীতির তিক্ত অভিজ্ঞতা রয়েছে। একশ্রেণির ঠিকাদার ও প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা মিলে লুটপাটের রাজত্ব কায়েম করার অভিযোগ নতুন নয়। বাঁধের উচ্চতা এবং পুরুত্ব যা হওয়ার কথা তা করা হয় না। যেখানে যে পরিমাণ বা যে ধরনের উপকরণ দেওয়ার কথা তা দেওয়া হয় না। এমন অনিয়ম-অব্যবস্থাপনা-দুর্নীতি যেন না হয় সেটা মনিটর কারতে হবে। জনগণের কষ্টের টাকা যেন বাস্তবিক অর্থে চরের বাসিন্দাদের দুর্ভোগ লাঘবে কাজে লাগেÑ সেটা নিশ্চিত করতে হবে। কোন এলাকার দুর্ভোগকে পুুঁজি করে প্রকল্পের নামে কেউ লুটপাটের রাজত্ব কায়েম করুক সেটা আমরা চাই না।

বায়ুদূষণে শীর্ষে ঢাকা : এই শিরোপা আমরা চাই না

গণপরিবহন শ্রমিকদের মনোজগতে কী ঘটছে

ইমিগ্রেশন পুলিশকে পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হবে

অবৈধ ইটভাটা বন্ধের নির্দেশের বাস্তবায়ন দেখতে চাই

প্রেরণাদায়ী সাফল্য

কিশোর গ্যাং : দায়িত্ব নিতে হবে সবাইকেই

রেণু চিংড়ি আহরণ বন্ধ করুন

গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব কিসের জন্য

বঙ্গবন্ধু রেল সেতু : যথাসময়ে প্রকল্পের কাজ শেষ করুন

শাবিপ্রবির এ পরিস্থিতির দায় কার

ফগলাইট কেনায় দুর্নীতি

ভালো নির্বাচনের উদাহরণ

দিবাযত্ন কেন্দ্র হোক শিশুবান্ধব

পুলিশ কেন নিখোঁজ ব্যক্তিদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে

গ্যাস সিলিন্ডারে বেলুন ফোলানো বন্ধে অভিযান চালান

পাসপোর্ট পেতে কেন ঘুষ দিতে হবে

যাত্রী ছাউনিগুলো ব্যবহারের উপযোগী করুন

উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসকের উপস্থিতি নিশ্চিত করুন

সড়ক দখলের অপসংস্কৃতি

প্রশ্নবিদ্ধ কারাগারের নিরাপত্তা

সেচ প্রকল্পের পুকুর ভরাট প্রসঙ্গে

কারখানা পরিদর্শন : সব পক্ষের পারস্পরিক সহযোগিতা প্রয়োজন

ভবদহের জলাবদ্ধতা : স্থানীয় বাসিন্দাদের আস্থায় নিয়ে কাজ করুন

বিধিনিষেধ ও গণপরিবহনের ভাড়া

হালদা রক্ষায় সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

অনেক শিক্ষার্থী এখনো কেন পাঠ্যবই পায়নি

আতশবাজি ও পটকা : শব্দ দূষণের আরেক রূপ

সড়কে শৃঙ্খলা ফিরবে কবে

রক্ষিত বনের লক্ষ্য অর্জনে বাধা কোথায়

ফেলানী হত্যার বিচার প্রতীক্ষার অবসান ঘটুক

এই কি নিরাময় কেন্দ্র, না টর্চার সেল?

পরিবেশ অধিদপ্তরের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নিন

ডিএসসিসির খাল পরিষ্কার প্রসঙ্গে

ইটভাটা চালাতে হবে আইন মেনে

নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের বিরুদ্ধে সবাইকে সোচ্চার হতে হবে

এই যুগে এভাবে কোন কাজে কি জনসমর্থন মেলে?

tab

সম্পাদকীয়

দশমিনার চরাঞ্চলে বেড়িবাঁধ নির্মাণ করুন

মঙ্গলবার, ০৪ জানুয়ারী ২০২২

পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার তেঁতুলিয়া ও বুড়াগৌরাঙ্গ নদীর বুকচিরে জেগে ওঠা চরাঞ্চলে প্রায় ৫০ হাজার মানুষের বসবাস। উপজেলা সদর থেকে বিচ্ছিন্ন এসব ভূখ-ে দীর্ঘ ৫০ বছরেও নির্মাণ করা হয়নি বেড়িবাঁধ। এসব চরাঞ্চল জোয়ারের পানিতে ডুবে, আবার ভাটায় জেগে ওঠে। মাঝখানে দুর্ভোগের শিকার হয় বাসিন্দারা। তাছাড়া প্রতি বছর লাখ লাখ টাকার ফসলহানি তো আছেই। এ নিয়ে গত শনিবার সংবাদ-এ সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, চরবোরহান, চরশাহজালাল, লালচরসহ কয়েকটি চর উপজেলা সদরের সাথে সরাসরি যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন। এসব চরাঞ্চলে বিভিন্ন অঞ্চলের ভাগ্যহারা মানুষ অর্ধশত বছর আগে বসতি স্থাপন করে। বেড়িবাঁধ না থাকায় নদীর জোয়ারের পানি ঢুকে যায়। বর্ষা মৌসুমে জোয়ারে ৩-৪ ফুট পানিতে ডুবে থাকে এসব এলাকা। প্রতি বছর ঝড়-বন্যা-জলোচ্ছ্বাসে চরাঞ্চলের মানুষের ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি হয়। চরের মানুষকে প্রকৃতির সাথে যুদ্ধ করেই বেঁচে থাকতে হয়।

চরাঞ্চলের মানুষ বেড়িবাঁধের জন্য সভা-সমাবেশসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে স্মারকলিপি প্রদান করে আসছে বহু বছর ধরেই। কিন্তু বেড়িবাঁধ নির্মাণের কোন উদ্যোগই চোখে পড়ছে না। সংশ্লিষ্ট কর্তাব্যক্তিদের কাছ থেকে আশ্বাস মিলেছে কয়েক দফা। এরপরও কেন বেড়িবাঁধ নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হচ্ছে না- সেটা একটা প্রশ্ন। আশ্বাস কিংবা প্রতিশ্রুতির ফুলঝুড়ি থেকে বের হয়ে বাঁধ নির্মাণ করা হচ্ছেÑ এমনটা আমরা দেখতে চাই।

শুধু দশমিনার চরাঞ্চলই নয়, এমন আরও অনেক এলাকা অরক্ষিত রয়েছে। সেসব অঞ্চলেও অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বাঁধ নির্মাণের উদ্যোগ নিতে হবে। চরাঞ্চলের মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে। পাশাপাশি এসব বাঁধ নির্মাণে যাতে কোন অনিয়ম ও দুর্নীতি না হয় সেদিকেও নজর দিতে হবে। কারণ অতীতে অনিয়ম-দুর্নীতির তিক্ত অভিজ্ঞতা রয়েছে। একশ্রেণির ঠিকাদার ও প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা মিলে লুটপাটের রাজত্ব কায়েম করার অভিযোগ নতুন নয়। বাঁধের উচ্চতা এবং পুরুত্ব যা হওয়ার কথা তা করা হয় না। যেখানে যে পরিমাণ বা যে ধরনের উপকরণ দেওয়ার কথা তা দেওয়া হয় না। এমন অনিয়ম-অব্যবস্থাপনা-দুর্নীতি যেন না হয় সেটা মনিটর কারতে হবে। জনগণের কষ্টের টাকা যেন বাস্তবিক অর্থে চরের বাসিন্দাদের দুর্ভোগ লাঘবে কাজে লাগেÑ সেটা নিশ্চিত করতে হবে। কোন এলাকার দুর্ভোগকে পুুঁজি করে প্রকল্পের নামে কেউ লুটপাটের রাজত্ব কায়েম করুক সেটা আমরা চাই না।

back to top