alt

সম্পাদকীয়

ইটভাটা চালাতে হবে আইন মেনে

: বৃহস্পতিবার, ০৬ জানুয়ারী ২০২২

বহুমুখী ক্ষতির প্রভাব ফেলেছে ইটভাটা। একদিকে পরিবেশ দূষণ করছে, অন্যদিকে ধ্বংস হচ্ছে ফসলি জমি। গণমাধ্যমে এ নিয়ে প্রায়ই প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। গত মঙ্গলবার সংবাদ-এ প্রকাশিত সচিত্র প্রতিবেদন থেকে জানা গেল, সাতক্ষীরা জেলার বিভিন্ন ইটভাটায় নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করেই নির্বিচারে পোড়ানো হচ্ছে নিষিদ্ধ ঘোষিত কাঠ ও টায়ার। কালো ধোঁয়ায় বিপন্ন হচ্ছে পরিবেশ, স্থানীয় বাসিন্দারা স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়ছে।

সাতক্ষীরায় ইটভাটা রয়েছে ১৪০টির মতো। যেগুলোর অধিকাংশই নদীর দু’ধারে ফসলি জমিতে গড়ে তোলা হয়েছে। এসব ভাটায় পরিবেশ আইন বা ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) আইন মানা হচ্ছে না।

সংবাদ-এ প্রকাশিত আরেকটি প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, নওগাঁর বদলগাছীতে দু-তিন ফসলি জমির মাটি কেটে ইটভাটায় নিয়ে যাচ্ছে মাটি ব্যবসায়ী ও বালুমহালের ইজারদাররা। ফলে জমির উর্বরতা শক্তি হারিয়ে অনাবাদি হয়ে পড়ছে। কমতে শুরু করেছে ফসলের উৎপাদনও।

মাটি ব্যবসায়ীরা কোন বিধিনিষেধ মানছে না। অভিযোগ আছে, স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে মাটি কেটে অবৈধভাবে নির্মিত ইটভাটায় বিক্রি করছে। তারা স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় জোর করে জমির মালিকদের বাধ্য করছে ইট ভাটায় মাটি বিক্রি করাতে। কেউ বাধা দিলে উল্টো ব্যবসায়ীরা তাদের বিভিন্ন হুমকি-ধমকিও দিচ্ছেন।

শুধু সাতক্ষীরা বা নওগাঁতে নয়, নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে এভাবে সারা দেশেই অনেক ইটভাটা গড়ে উঠেছে। লোকালয় ও ফসলি জমিতে গড়ে ওঠা এসব ভাটায় কয়লার পরিবর্তে ব্যবহার করা হচ্ছে কাঠ বা ক্ষতিকর টায়ার। পরিবেশ দূষণ ও জনস্বাস্থ্যকে হুমকির মুখে ফেলে দেয়া হচ্ছে। আর এর সবকিছুই হচ্ছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলোর নাকের ডগায়। এগুলো নিয়ে তাদের কোন মাথাব্যথা আছে বলে মনে হয় না।

উন্নয়ন ও অগ্রগতির জন্য নানা অবকাঠামো নির্মাণে ইটের প্রয়োজন। এজন্য ইটভাটারও প্রয়োজন আছে। কিন্তু সেটা স্থাপনে বা ইট তৈরিতে নিয়ম-নীতি মানতে হবে। যাতে করে পরিবেশ দূষিত এবং ফসলি জমির ক্ষতি না হয়। দেশে পরিবেশ আইন, ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) আইন রয়েছে। ইটভাটা স্থাপন ও ইট পোড়ানোর সুনির্দিষ্ট বিধি-বিধান রয়েছে। তাছাড়া ইটভাটার জন্য পরিবেশ অধিদপ্তর, জেলা প্রশাসন, বিএসটিআইসহ কয়েকটি দপ্তরের ছাড়পত্রের প্রয়োজন হয়। কিন্তু এ নিয়ম-কানুনের অধিকাংশই মানা হয় না। ইটভাটার মালিকরা যেমন মানেন না, আবার পরিবেশ অধিদপ্তরসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকেও নিয়ম নীতি প্রয়োগ করতে দেখা যায় না।

অবৈধ ইটভাটাগুলো উচ্ছেদ করতে হবে। ভাটায় বেআইনিভাবে কাঠ পোড়ানো এবং ফসলি জমির মাটি কাটা বন্ধে দ্রুত অভিযান চালাতে হবে। আশা করি, সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নিবেন। বিপন্ন পরিবেশ ও প্রাণ-প্রকৃতি রক্ষায় এগিয়ে আসবেন। পরিবেশ অধিদপ্তরসহ স্থানীয় প্রশাসনের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ আছে, সেগুলো খতিয়ে দেখতে হবে।

ফগলাইট কেনায় দুর্নীতি

ভালো নির্বাচনের উদাহরণ

দিবাযত্ন কেন্দ্র হোক শিশুবান্ধব

পুলিশ কেন নিখোঁজ ব্যক্তিদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে

গ্যাস সিলিন্ডারে বেলুন ফোলানো বন্ধে অভিযান চালান

পাসপোর্ট পেতে কেন ঘুষ দিতে হবে

যাত্রী ছাউনিগুলো ব্যবহারের উপযোগী করুন

উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসকের উপস্থিতি নিশ্চিত করুন

সড়ক দখলের অপসংস্কৃতি

প্রশ্নবিদ্ধ কারাগারের নিরাপত্তা

সেচ প্রকল্পের পুকুর ভরাট প্রসঙ্গে

কারখানা পরিদর্শন : সব পক্ষের পারস্পরিক সহযোগিতা প্রয়োজন

ভবদহের জলাবদ্ধতা : স্থানীয় বাসিন্দাদের আস্থায় নিয়ে কাজ করুন

বিধিনিষেধ ও গণপরিবহনের ভাড়া

হালদা রক্ষায় সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

অনেক শিক্ষার্থী এখনো কেন পাঠ্যবই পায়নি

আতশবাজি ও পটকা : শব্দ দূষণের আরেক রূপ

সড়কে শৃঙ্খলা ফিরবে কবে

রক্ষিত বনের লক্ষ্য অর্জনে বাধা কোথায়

ফেলানী হত্যার বিচার প্রতীক্ষার অবসান ঘটুক

এই কি নিরাময় কেন্দ্র, না টর্চার সেল?

পরিবেশ অধিদপ্তরের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নিন

ডিএসসিসির খাল পরিষ্কার প্রসঙ্গে

নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের বিরুদ্ধে সবাইকে সোচ্চার হতে হবে

এই যুগে এভাবে কোন কাজে কি জনসমর্থন মেলে?

নদী রক্ষার দায়িত্ব সবাইকেই নিতে হবে

শিক্ষা কর্মকর্তার খামখেয়ালিপনা

দশমিনার চরাঞ্চলে বেড়িবাঁধ নির্মাণ করুন

সড়ক দুর্ঘটনা কমানোর লক্ষ্য কি যথাসময়ে পূরণ হবে

জলদস্যুদের অত্যাচার থেকে জেলেদের রক্ষা করুন

তিস্তায় কেন বিদ্যুৎ প্রকল্প

কৃষিযন্ত্র উদ্ভাবনের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকুক

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপব্যবহার বন্ধে টেকসই ব্যবস্থা নিন

পাহাড়ে ‘ভ্রাতৃঘাতী সংঘর্ষ’ থামছে না কেন

প্রিপেইড গ্যাসের মিটার স্থাপনের পরিকল্পনা যথাসময়ে বাস্তবায়ন করুন

মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের অভিনন্দন, ঝরে পড়াদের কথা ভাবতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

ইটভাটা চালাতে হবে আইন মেনে

বৃহস্পতিবার, ০৬ জানুয়ারী ২০২২

বহুমুখী ক্ষতির প্রভাব ফেলেছে ইটভাটা। একদিকে পরিবেশ দূষণ করছে, অন্যদিকে ধ্বংস হচ্ছে ফসলি জমি। গণমাধ্যমে এ নিয়ে প্রায়ই প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। গত মঙ্গলবার সংবাদ-এ প্রকাশিত সচিত্র প্রতিবেদন থেকে জানা গেল, সাতক্ষীরা জেলার বিভিন্ন ইটভাটায় নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করেই নির্বিচারে পোড়ানো হচ্ছে নিষিদ্ধ ঘোষিত কাঠ ও টায়ার। কালো ধোঁয়ায় বিপন্ন হচ্ছে পরিবেশ, স্থানীয় বাসিন্দারা স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়ছে।

সাতক্ষীরায় ইটভাটা রয়েছে ১৪০টির মতো। যেগুলোর অধিকাংশই নদীর দু’ধারে ফসলি জমিতে গড়ে তোলা হয়েছে। এসব ভাটায় পরিবেশ আইন বা ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) আইন মানা হচ্ছে না।

সংবাদ-এ প্রকাশিত আরেকটি প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, নওগাঁর বদলগাছীতে দু-তিন ফসলি জমির মাটি কেটে ইটভাটায় নিয়ে যাচ্ছে মাটি ব্যবসায়ী ও বালুমহালের ইজারদাররা। ফলে জমির উর্বরতা শক্তি হারিয়ে অনাবাদি হয়ে পড়ছে। কমতে শুরু করেছে ফসলের উৎপাদনও।

মাটি ব্যবসায়ীরা কোন বিধিনিষেধ মানছে না। অভিযোগ আছে, স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে মাটি কেটে অবৈধভাবে নির্মিত ইটভাটায় বিক্রি করছে। তারা স্থানীয়ভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় জোর করে জমির মালিকদের বাধ্য করছে ইট ভাটায় মাটি বিক্রি করাতে। কেউ বাধা দিলে উল্টো ব্যবসায়ীরা তাদের বিভিন্ন হুমকি-ধমকিও দিচ্ছেন।

শুধু সাতক্ষীরা বা নওগাঁতে নয়, নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে এভাবে সারা দেশেই অনেক ইটভাটা গড়ে উঠেছে। লোকালয় ও ফসলি জমিতে গড়ে ওঠা এসব ভাটায় কয়লার পরিবর্তে ব্যবহার করা হচ্ছে কাঠ বা ক্ষতিকর টায়ার। পরিবেশ দূষণ ও জনস্বাস্থ্যকে হুমকির মুখে ফেলে দেয়া হচ্ছে। আর এর সবকিছুই হচ্ছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলোর নাকের ডগায়। এগুলো নিয়ে তাদের কোন মাথাব্যথা আছে বলে মনে হয় না।

উন্নয়ন ও অগ্রগতির জন্য নানা অবকাঠামো নির্মাণে ইটের প্রয়োজন। এজন্য ইটভাটারও প্রয়োজন আছে। কিন্তু সেটা স্থাপনে বা ইট তৈরিতে নিয়ম-নীতি মানতে হবে। যাতে করে পরিবেশ দূষিত এবং ফসলি জমির ক্ষতি না হয়। দেশে পরিবেশ আইন, ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) আইন রয়েছে। ইটভাটা স্থাপন ও ইট পোড়ানোর সুনির্দিষ্ট বিধি-বিধান রয়েছে। তাছাড়া ইটভাটার জন্য পরিবেশ অধিদপ্তর, জেলা প্রশাসন, বিএসটিআইসহ কয়েকটি দপ্তরের ছাড়পত্রের প্রয়োজন হয়। কিন্তু এ নিয়ম-কানুনের অধিকাংশই মানা হয় না। ইটভাটার মালিকরা যেমন মানেন না, আবার পরিবেশ অধিদপ্তরসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকেও নিয়ম নীতি প্রয়োগ করতে দেখা যায় না।

অবৈধ ইটভাটাগুলো উচ্ছেদ করতে হবে। ভাটায় বেআইনিভাবে কাঠ পোড়ানো এবং ফসলি জমির মাটি কাটা বন্ধে দ্রুত অভিযান চালাতে হবে। আশা করি, সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নিবেন। বিপন্ন পরিবেশ ও প্রাণ-প্রকৃতি রক্ষায় এগিয়ে আসবেন। পরিবেশ অধিদপ্তরসহ স্থানীয় প্রশাসনের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ আছে, সেগুলো খতিয়ে দেখতে হবে।

back to top