alt

সম্পাদকীয়

ডিএসসিসির খাল পরিষ্কার প্রসঙ্গে

: বৃহস্পতিবার, ০৬ জানুয়ারী ২০২২

রাজধানীর খালগুলো পরিষ্কার করার অভিযান শুরু করছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। পূর্বে রাজধানীর এসব খাল ছিল ঢাকা ওয়াসার নিয়ন্ত্রণে। অবৈধ দখল এবং বর্জ্যে খালগুলো ভরে যায়। এমনকি কিছু কিছু খালের অস্তিত্বই বিলীন হয়ে যায়। শুধু কাগজে-কলমেই নাম খুঁজে পাওয়া যায়। দখল-দূষণের পর জলাবদ্ধতার ভোগান্তি পোহাতে হয় নগরবাসীকে। ২০২০ সালের শেষের দিকে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনকে খালগুলো হস্তান্তর করা হয়।

কংক্রিটে আচ্ছাদিত রাজধানী থেকে প্রাকৃতিকভাবে বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ হয়েছে অনেক আগেই। এখন কৃত্রিম ও প্রাকৃতিক- এ দুই ব্যবস্থাপনায় পানি নিষ্কাশন করতে হয়। পানি নিষ্কাশনের পথগুলোর রক্ষণাবেক্ষণের অভাবেই রাজধানীতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। মাত্র কয়েক ঘণ্টার বৃষ্টিতেই শহরের বিভিন্ন অংশ পানিতে ডুবে থাকে। নগরবাসীকে পড়তে হয় অবর্ণনীয় দুর্ভোগে।

অভিযোগ আছে, খালগুলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ সুষ্ঠুভাবে ব্যবস্থাপনা করা হয় না। বর্জ্য পরিষ্কার করে খাল-নালা-ড্রেনের পাশে রেখে দেয়া হয়। একপর্যায়ে সেগুলো আবার খালে গিয়ে জমা হয়ে পূর্বের অবস্থায় ফিরে আসে। পাশাপাশি নতুন বর্জ্য তো আছেই।

এর আগেও ঢাকা শহরের খাল-নালা বহুবার পরিষ্কার করা হয়েছে। কিন্তু স্থায়ী কোন সুফল মেলেনি। এতে অর্থের যেমন অপচয় হয় তেমনি অভিযানের লক্ষ্য অধরাই থেকে যায়। বর্জ্য পরিষ্কার করার সঙ্গে সঙ্গেই সেগুলো অপসারণ করার ব্যবস্থা করতে হবে। এখন বর্জ্য ব্যবস্থাপনার অনেক অধুনিক যন্ত্রপাতি ও যানবাহন রয়েছে। বর্জ্য খালের তীরে না রেখে সরাসরি এসব যানবাহনে উঠিয়ে সঙ্গে সঙ্গেই অপসারণ করা যায়।

খাল পরিষ্কারের জন্য সমন্বিত কর্মসূচি হাতে নিতে হবে। নগরের বসিন্দারা যাতে খালে বর্জ্য না ফেলেন সেই ব্যবস্থা করেতে হবে। পয়ঃবর্জ্য যেন খালে না যায়, সেটাও নিশ্চিত করতে হবে। তাছাড়া শুধু নালা বা খাল পরিষ্কার করলেই সমস্যার স্থায়ী সমাধান হবে না। একটি পরিকল্পিত নগরের ৩০-৩৫ শতাংশ উন্মুক্ত স্থান, সবুজ এলাকা ও জলাধার থাকে। ঢাকা শহরের তা নেই, যতটুকু আছে তাও বছর বছর কমেছে। এরপরও যতটুকু আছে, ততটুকুর সর্বোত্তম ব্যবহার করা যাচ্ছে না।

রাজধানীর বর্জ্য ব্যবস্থাপনার শুধু দুই সিটি করপোরেশনই নয়; একাধিক সংস্থা যুক্ত। তাই বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বা জলাবদ্ধতা সমস্যার স্থায়ী সমাধানে সমন্বিত পরিকল্পনা দরকার বলে আমরা মনে করি। তাছাড়া নাগরিকদেও যেখানে-সেখানে বর্জ্য ফেলা থেকে বিরত থাকতে হবে। তাদের সচেতন হতে হবে।

ফগলাইট কেনায় দুর্নীতি

ভালো নির্বাচনের উদাহরণ

দিবাযত্ন কেন্দ্র হোক শিশুবান্ধব

পুলিশ কেন নিখোঁজ ব্যক্তিদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে

গ্যাস সিলিন্ডারে বেলুন ফোলানো বন্ধে অভিযান চালান

পাসপোর্ট পেতে কেন ঘুষ দিতে হবে

যাত্রী ছাউনিগুলো ব্যবহারের উপযোগী করুন

উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসকের উপস্থিতি নিশ্চিত করুন

সড়ক দখলের অপসংস্কৃতি

প্রশ্নবিদ্ধ কারাগারের নিরাপত্তা

সেচ প্রকল্পের পুকুর ভরাট প্রসঙ্গে

কারখানা পরিদর্শন : সব পক্ষের পারস্পরিক সহযোগিতা প্রয়োজন

ভবদহের জলাবদ্ধতা : স্থানীয় বাসিন্দাদের আস্থায় নিয়ে কাজ করুন

বিধিনিষেধ ও গণপরিবহনের ভাড়া

হালদা রক্ষায় সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

অনেক শিক্ষার্থী এখনো কেন পাঠ্যবই পায়নি

আতশবাজি ও পটকা : শব্দ দূষণের আরেক রূপ

সড়কে শৃঙ্খলা ফিরবে কবে

রক্ষিত বনের লক্ষ্য অর্জনে বাধা কোথায়

ফেলানী হত্যার বিচার প্রতীক্ষার অবসান ঘটুক

এই কি নিরাময় কেন্দ্র, না টর্চার সেল?

পরিবেশ অধিদপ্তরের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নিন

ইটভাটা চালাতে হবে আইন মেনে

নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের বিরুদ্ধে সবাইকে সোচ্চার হতে হবে

এই যুগে এভাবে কোন কাজে কি জনসমর্থন মেলে?

নদী রক্ষার দায়িত্ব সবাইকেই নিতে হবে

শিক্ষা কর্মকর্তার খামখেয়ালিপনা

দশমিনার চরাঞ্চলে বেড়িবাঁধ নির্মাণ করুন

সড়ক দুর্ঘটনা কমানোর লক্ষ্য কি যথাসময়ে পূরণ হবে

জলদস্যুদের অত্যাচার থেকে জেলেদের রক্ষা করুন

তিস্তায় কেন বিদ্যুৎ প্রকল্প

কৃষিযন্ত্র উদ্ভাবনের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকুক

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপব্যবহার বন্ধে টেকসই ব্যবস্থা নিন

পাহাড়ে ‘ভ্রাতৃঘাতী সংঘর্ষ’ থামছে না কেন

প্রিপেইড গ্যাসের মিটার স্থাপনের পরিকল্পনা যথাসময়ে বাস্তবায়ন করুন

মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের অভিনন্দন, ঝরে পড়াদের কথা ভাবতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

ডিএসসিসির খাল পরিষ্কার প্রসঙ্গে

বৃহস্পতিবার, ০৬ জানুয়ারী ২০২২

রাজধানীর খালগুলো পরিষ্কার করার অভিযান শুরু করছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। পূর্বে রাজধানীর এসব খাল ছিল ঢাকা ওয়াসার নিয়ন্ত্রণে। অবৈধ দখল এবং বর্জ্যে খালগুলো ভরে যায়। এমনকি কিছু কিছু খালের অস্তিত্বই বিলীন হয়ে যায়। শুধু কাগজে-কলমেই নাম খুঁজে পাওয়া যায়। দখল-দূষণের পর জলাবদ্ধতার ভোগান্তি পোহাতে হয় নগরবাসীকে। ২০২০ সালের শেষের দিকে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনকে খালগুলো হস্তান্তর করা হয়।

কংক্রিটে আচ্ছাদিত রাজধানী থেকে প্রাকৃতিকভাবে বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ হয়েছে অনেক আগেই। এখন কৃত্রিম ও প্রাকৃতিক- এ দুই ব্যবস্থাপনায় পানি নিষ্কাশন করতে হয়। পানি নিষ্কাশনের পথগুলোর রক্ষণাবেক্ষণের অভাবেই রাজধানীতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। মাত্র কয়েক ঘণ্টার বৃষ্টিতেই শহরের বিভিন্ন অংশ পানিতে ডুবে থাকে। নগরবাসীকে পড়তে হয় অবর্ণনীয় দুর্ভোগে।

অভিযোগ আছে, খালগুলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ সুষ্ঠুভাবে ব্যবস্থাপনা করা হয় না। বর্জ্য পরিষ্কার করে খাল-নালা-ড্রেনের পাশে রেখে দেয়া হয়। একপর্যায়ে সেগুলো আবার খালে গিয়ে জমা হয়ে পূর্বের অবস্থায় ফিরে আসে। পাশাপাশি নতুন বর্জ্য তো আছেই।

এর আগেও ঢাকা শহরের খাল-নালা বহুবার পরিষ্কার করা হয়েছে। কিন্তু স্থায়ী কোন সুফল মেলেনি। এতে অর্থের যেমন অপচয় হয় তেমনি অভিযানের লক্ষ্য অধরাই থেকে যায়। বর্জ্য পরিষ্কার করার সঙ্গে সঙ্গেই সেগুলো অপসারণ করার ব্যবস্থা করতে হবে। এখন বর্জ্য ব্যবস্থাপনার অনেক অধুনিক যন্ত্রপাতি ও যানবাহন রয়েছে। বর্জ্য খালের তীরে না রেখে সরাসরি এসব যানবাহনে উঠিয়ে সঙ্গে সঙ্গেই অপসারণ করা যায়।

খাল পরিষ্কারের জন্য সমন্বিত কর্মসূচি হাতে নিতে হবে। নগরের বসিন্দারা যাতে খালে বর্জ্য না ফেলেন সেই ব্যবস্থা করেতে হবে। পয়ঃবর্জ্য যেন খালে না যায়, সেটাও নিশ্চিত করতে হবে। তাছাড়া শুধু নালা বা খাল পরিষ্কার করলেই সমস্যার স্থায়ী সমাধান হবে না। একটি পরিকল্পিত নগরের ৩০-৩৫ শতাংশ উন্মুক্ত স্থান, সবুজ এলাকা ও জলাধার থাকে। ঢাকা শহরের তা নেই, যতটুকু আছে তাও বছর বছর কমেছে। এরপরও যতটুকু আছে, ততটুকুর সর্বোত্তম ব্যবহার করা যাচ্ছে না।

রাজধানীর বর্জ্য ব্যবস্থাপনার শুধু দুই সিটি করপোরেশনই নয়; একাধিক সংস্থা যুক্ত। তাই বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বা জলাবদ্ধতা সমস্যার স্থায়ী সমাধানে সমন্বিত পরিকল্পনা দরকার বলে আমরা মনে করি। তাছাড়া নাগরিকদেও যেখানে-সেখানে বর্জ্য ফেলা থেকে বিরত থাকতে হবে। তাদের সচেতন হতে হবে।

back to top