alt

সম্পাদকীয়

ডিএসসিসির খাল পরিষ্কার প্রসঙ্গে

: বৃহস্পতিবার, ০৬ জানুয়ারী ২০২২

রাজধানীর খালগুলো পরিষ্কার করার অভিযান শুরু করছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। পূর্বে রাজধানীর এসব খাল ছিল ঢাকা ওয়াসার নিয়ন্ত্রণে। অবৈধ দখল এবং বর্জ্যে খালগুলো ভরে যায়। এমনকি কিছু কিছু খালের অস্তিত্বই বিলীন হয়ে যায়। শুধু কাগজে-কলমেই নাম খুঁজে পাওয়া যায়। দখল-দূষণের পর জলাবদ্ধতার ভোগান্তি পোহাতে হয় নগরবাসীকে। ২০২০ সালের শেষের দিকে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনকে খালগুলো হস্তান্তর করা হয়।

কংক্রিটে আচ্ছাদিত রাজধানী থেকে প্রাকৃতিকভাবে বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ হয়েছে অনেক আগেই। এখন কৃত্রিম ও প্রাকৃতিক- এ দুই ব্যবস্থাপনায় পানি নিষ্কাশন করতে হয়। পানি নিষ্কাশনের পথগুলোর রক্ষণাবেক্ষণের অভাবেই রাজধানীতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। মাত্র কয়েক ঘণ্টার বৃষ্টিতেই শহরের বিভিন্ন অংশ পানিতে ডুবে থাকে। নগরবাসীকে পড়তে হয় অবর্ণনীয় দুর্ভোগে।

অভিযোগ আছে, খালগুলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ সুষ্ঠুভাবে ব্যবস্থাপনা করা হয় না। বর্জ্য পরিষ্কার করে খাল-নালা-ড্রেনের পাশে রেখে দেয়া হয়। একপর্যায়ে সেগুলো আবার খালে গিয়ে জমা হয়ে পূর্বের অবস্থায় ফিরে আসে। পাশাপাশি নতুন বর্জ্য তো আছেই।

এর আগেও ঢাকা শহরের খাল-নালা বহুবার পরিষ্কার করা হয়েছে। কিন্তু স্থায়ী কোন সুফল মেলেনি। এতে অর্থের যেমন অপচয় হয় তেমনি অভিযানের লক্ষ্য অধরাই থেকে যায়। বর্জ্য পরিষ্কার করার সঙ্গে সঙ্গেই সেগুলো অপসারণ করার ব্যবস্থা করতে হবে। এখন বর্জ্য ব্যবস্থাপনার অনেক অধুনিক যন্ত্রপাতি ও যানবাহন রয়েছে। বর্জ্য খালের তীরে না রেখে সরাসরি এসব যানবাহনে উঠিয়ে সঙ্গে সঙ্গেই অপসারণ করা যায়।

খাল পরিষ্কারের জন্য সমন্বিত কর্মসূচি হাতে নিতে হবে। নগরের বসিন্দারা যাতে খালে বর্জ্য না ফেলেন সেই ব্যবস্থা করেতে হবে। পয়ঃবর্জ্য যেন খালে না যায়, সেটাও নিশ্চিত করতে হবে। তাছাড়া শুধু নালা বা খাল পরিষ্কার করলেই সমস্যার স্থায়ী সমাধান হবে না। একটি পরিকল্পিত নগরের ৩০-৩৫ শতাংশ উন্মুক্ত স্থান, সবুজ এলাকা ও জলাধার থাকে। ঢাকা শহরের তা নেই, যতটুকু আছে তাও বছর বছর কমেছে। এরপরও যতটুকু আছে, ততটুকুর সর্বোত্তম ব্যবহার করা যাচ্ছে না।

রাজধানীর বর্জ্য ব্যবস্থাপনার শুধু দুই সিটি করপোরেশনই নয়; একাধিক সংস্থা যুক্ত। তাই বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বা জলাবদ্ধতা সমস্যার স্থায়ী সমাধানে সমন্বিত পরিকল্পনা দরকার বলে আমরা মনে করি। তাছাড়া নাগরিকদেও যেখানে-সেখানে বর্জ্য ফেলা থেকে বিরত থাকতে হবে। তাদের সচেতন হতে হবে।

স্লুইস গেট সংস্কার করুন

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসের কারণ কী

পদ্মা সেতুর কাছে বালু উত্তোলন প্রসঙ্গে

নিত্যপণ্যের দাম : সাধারণ মানুষের কথা ভাবতে হবে

মহাসড়ক দখলমুক্ত করুন

পরিবহন শ্রমিকদের বেপরোয়া মনোভাব বদলাতে প্রশিক্ষণ দিতে হবে

সরকারি গাছ বিক্রিতে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

আশুরা : ন্যায় ও আত্মত্যাগের প্রেরণা

বিএডিসির গুদাম সংকট

গণপরিবহনের ভাড়া বৃদ্ধি বোঝার উপর শাকের আঁটি

জনশক্তি রপ্তানি ও দক্ষ লোকবল

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর এই চাপ মানুষ কি সামলাতে পারবে

ভিজিএফের চাল বিতরণে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করুন

সরকারি কর্তাব্যক্তিদের বিদেশ সফর প্রসঙ্গে

ওয়াশ প্লান্ট ব্যবহারে রেল কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা

জলবায়ু পরিবর্তনজনিত প্রভাব মোকাবিলার চ্যালেঞ্জ

মহাসড়ক প্রশস্ত করুন

হাসি ফুটুক কৃষকের মুখে

খাল রক্ষায় চাই জনসচেতনতা

রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ইসির সংলাপ প্রসঙ্গে

বুড়িগঙ্গার দূষণ রোধে সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

সংখ্যালঘু নির্যাতনের কঠোর বিচার করুন

বাঘ রক্ষা করতে হলে সুন্দরবনকে বাঁচাতে হবে

মানবপাচার বন্ধে নতুন চ্যালেঞ্জ

বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে নজরদারি বাড়ান

চাই সুরক্ষিত রেলক্রসিং

হেপাটাইটিস প্রতিরোধে তৎপরতা বাড়ান

পুলিশের গুলিতে শিশু মৃত্যুর ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হোক

এনআইডি সংশোধন প্রসঙ্গে

বেড়েই চলেছে ডেঙ্গুজ্বর

পানিতে ডুবে মৃত্যু রোধে সচেতনতা বাড়াতে হবে

রাজধানীর প্রবেশমুখের যানজট নিরসনে ব্যবস্থা নিন

পর্যটকদের এই করুণ মৃত্যু কাম্য নয়

কারাগারে নির্যাতনের অভিযোগ আমলে নিন

ছিনতাইকারী আটক : পুলিশ ও সাধারণ মানুষের ভূমিকা

রেল ক্রসিংয়ে দুর্ঘটনার দায় কর্তৃপক্ষ এড়াবে কীভাবে

tab

সম্পাদকীয়

ডিএসসিসির খাল পরিষ্কার প্রসঙ্গে

বৃহস্পতিবার, ০৬ জানুয়ারী ২০২২

রাজধানীর খালগুলো পরিষ্কার করার অভিযান শুরু করছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। পূর্বে রাজধানীর এসব খাল ছিল ঢাকা ওয়াসার নিয়ন্ত্রণে। অবৈধ দখল এবং বর্জ্যে খালগুলো ভরে যায়। এমনকি কিছু কিছু খালের অস্তিত্বই বিলীন হয়ে যায়। শুধু কাগজে-কলমেই নাম খুঁজে পাওয়া যায়। দখল-দূষণের পর জলাবদ্ধতার ভোগান্তি পোহাতে হয় নগরবাসীকে। ২০২০ সালের শেষের দিকে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনকে খালগুলো হস্তান্তর করা হয়।

কংক্রিটে আচ্ছাদিত রাজধানী থেকে প্রাকৃতিকভাবে বৃষ্টির পানি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ হয়েছে অনেক আগেই। এখন কৃত্রিম ও প্রাকৃতিক- এ দুই ব্যবস্থাপনায় পানি নিষ্কাশন করতে হয়। পানি নিষ্কাশনের পথগুলোর রক্ষণাবেক্ষণের অভাবেই রাজধানীতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। মাত্র কয়েক ঘণ্টার বৃষ্টিতেই শহরের বিভিন্ন অংশ পানিতে ডুবে থাকে। নগরবাসীকে পড়তে হয় অবর্ণনীয় দুর্ভোগে।

অভিযোগ আছে, খালগুলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ সুষ্ঠুভাবে ব্যবস্থাপনা করা হয় না। বর্জ্য পরিষ্কার করে খাল-নালা-ড্রেনের পাশে রেখে দেয়া হয়। একপর্যায়ে সেগুলো আবার খালে গিয়ে জমা হয়ে পূর্বের অবস্থায় ফিরে আসে। পাশাপাশি নতুন বর্জ্য তো আছেই।

এর আগেও ঢাকা শহরের খাল-নালা বহুবার পরিষ্কার করা হয়েছে। কিন্তু স্থায়ী কোন সুফল মেলেনি। এতে অর্থের যেমন অপচয় হয় তেমনি অভিযানের লক্ষ্য অধরাই থেকে যায়। বর্জ্য পরিষ্কার করার সঙ্গে সঙ্গেই সেগুলো অপসারণ করার ব্যবস্থা করতে হবে। এখন বর্জ্য ব্যবস্থাপনার অনেক অধুনিক যন্ত্রপাতি ও যানবাহন রয়েছে। বর্জ্য খালের তীরে না রেখে সরাসরি এসব যানবাহনে উঠিয়ে সঙ্গে সঙ্গেই অপসারণ করা যায়।

খাল পরিষ্কারের জন্য সমন্বিত কর্মসূচি হাতে নিতে হবে। নগরের বসিন্দারা যাতে খালে বর্জ্য না ফেলেন সেই ব্যবস্থা করেতে হবে। পয়ঃবর্জ্য যেন খালে না যায়, সেটাও নিশ্চিত করতে হবে। তাছাড়া শুধু নালা বা খাল পরিষ্কার করলেই সমস্যার স্থায়ী সমাধান হবে না। একটি পরিকল্পিত নগরের ৩০-৩৫ শতাংশ উন্মুক্ত স্থান, সবুজ এলাকা ও জলাধার থাকে। ঢাকা শহরের তা নেই, যতটুকু আছে তাও বছর বছর কমেছে। এরপরও যতটুকু আছে, ততটুকুর সর্বোত্তম ব্যবহার করা যাচ্ছে না।

রাজধানীর বর্জ্য ব্যবস্থাপনার শুধু দুই সিটি করপোরেশনই নয়; একাধিক সংস্থা যুক্ত। তাই বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বা জলাবদ্ধতা সমস্যার স্থায়ী সমাধানে সমন্বিত পরিকল্পনা দরকার বলে আমরা মনে করি। তাছাড়া নাগরিকদেও যেখানে-সেখানে বর্জ্য ফেলা থেকে বিরত থাকতে হবে। তাদের সচেতন হতে হবে।

back to top