alt

সম্পাদকীয়

ফেলানী হত্যার বিচার প্রতীক্ষার অবসান ঘটুক

: শনিবার, ০৮ জানুয়ারী ২০২২

১১ বছরেও ফেলানী খাতুন হত্যার বিচার হয়নি। হত্যার বিচার ভারতের সর্বোচ্চ আদালতে প্রক্রিয়াধীন আছে। ভারতীয় মানবাধিকার সুরক্ষা মঞ্চ (মাসুম) হত্যার বিচার ও ক্ষতিপূরণের দাবিতে দেশটির সুপ্রিমকোর্টে রিট আবেদন করেছিল। সংগঠনটি এর আগে অভিযোগ করে বলেছিল যে, ‘সমস্যা হচ্ছে ভারত সরকার চায় না এ হত্যাকান্ডের বিচার হোক।’

ফেলানী হত্যার ঘটনায় সমালোচনার মুখে ভারত সীমান্ত হত্যা শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনার কথা বলেছে। ২০১৮ সালে বাংলাদেশ-ভারত দ্বিপাক্ষিক চুক্তিতে সীমান্তে প্রাণঘাতী অস্ত্রের ব্যবহার না করার প্রশ্নে দুই দেশ একমত হয়। বাস্তবে প্রাণঘাতী অস্ত্রের ব্যবহার বন্ধ হয়নি। সীমান্ত হত্যাও বন্ধ হয়নি।

বাংলাদেশের নীতিনির্ধারকরা বলছেন, সীমান্তে হত্যা বাংলাদেশের জন্য দুঃখের, ভারতের জন্য লজ্জার। ভারতের নীতিনির্ধারকরা বলছেন, আত্মরক্ষার জন্য বিএসএফকে গুলি ছুড়তে হয়। তবে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনগুলোর বিভিন্ন সময়ের প্রতিবেদন থেকে জানা যায় যে, বিএসএফের গুলিতে নিরস্ত্র মানুষ মারা যান। ভারতীয় সীমান্ত রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে গ্রেপ্তারকৃত বাংলাদেশি নাগরিকরা নির্যাতনের শিকার হন বলে গুরুতর অভিযোগ রয়েছে।

সীমান্তে নানা অপরাধের কথা বলে ভারত। এ কারণে সীমান্ত হত্যা কমছে না বলে দেশটি মনে করে। আমরা বলতে চাই, অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে বা হয়েছে এমন সন্দেহের প্রেক্ষিতে মানুষ হত্যা করা চলে না। কেউ যদি অপরাধ করেও থাকে তাকে গ্রেপ্তার করে আইনের হাতে সোপর্দ করাই সমীচীন। মানুষের জীবনের অধিকারকে কোন অবস্থাতেই অস্বীকার করা চলে না।

সীমান্ত হত্যা বন্ধ করার জন্য যে প্রতিশ্রুতি ভারত দিয়েছে আমরা তার পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন দেখতে চাই। সীমান্ত হত্যা বন্ধ করা বন্ধুপ্রতীম দুটি দেশের পক্ষে কঠিন কোন কাজ নয়। ভারত আন্তরিকভাবে চাইলে এটা বন্ধ করা সম্ভব। সীমান্তে বাংলাদেশের জন্য দুঃখের বা ভারতের জন্য লজ্জার ঘটনার পুনরাবৃত্তি বন্ধ হবে- এটা আমাদের প্রত্যাশা।

ফেলানী হত্যার দ্রুত বিচার হচ্ছে সেটাও আমরা দেখতে চাই।

ফগলাইট কেনায় দুর্নীতি

ভালো নির্বাচনের উদাহরণ

দিবাযত্ন কেন্দ্র হোক শিশুবান্ধব

পুলিশ কেন নিখোঁজ ব্যক্তিদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে

গ্যাস সিলিন্ডারে বেলুন ফোলানো বন্ধে অভিযান চালান

পাসপোর্ট পেতে কেন ঘুষ দিতে হবে

যাত্রী ছাউনিগুলো ব্যবহারের উপযোগী করুন

উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসকের উপস্থিতি নিশ্চিত করুন

সড়ক দখলের অপসংস্কৃতি

প্রশ্নবিদ্ধ কারাগারের নিরাপত্তা

সেচ প্রকল্পের পুকুর ভরাট প্রসঙ্গে

কারখানা পরিদর্শন : সব পক্ষের পারস্পরিক সহযোগিতা প্রয়োজন

ভবদহের জলাবদ্ধতা : স্থানীয় বাসিন্দাদের আস্থায় নিয়ে কাজ করুন

বিধিনিষেধ ও গণপরিবহনের ভাড়া

হালদা রক্ষায় সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

অনেক শিক্ষার্থী এখনো কেন পাঠ্যবই পায়নি

আতশবাজি ও পটকা : শব্দ দূষণের আরেক রূপ

সড়কে শৃঙ্খলা ফিরবে কবে

রক্ষিত বনের লক্ষ্য অর্জনে বাধা কোথায়

এই কি নিরাময় কেন্দ্র, না টর্চার সেল?

পরিবেশ অধিদপ্তরের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নিন

ডিএসসিসির খাল পরিষ্কার প্রসঙ্গে

ইটভাটা চালাতে হবে আইন মেনে

নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের বিরুদ্ধে সবাইকে সোচ্চার হতে হবে

এই যুগে এভাবে কোন কাজে কি জনসমর্থন মেলে?

নদী রক্ষার দায়িত্ব সবাইকেই নিতে হবে

শিক্ষা কর্মকর্তার খামখেয়ালিপনা

দশমিনার চরাঞ্চলে বেড়িবাঁধ নির্মাণ করুন

সড়ক দুর্ঘটনা কমানোর লক্ষ্য কি যথাসময়ে পূরণ হবে

জলদস্যুদের অত্যাচার থেকে জেলেদের রক্ষা করুন

তিস্তায় কেন বিদ্যুৎ প্রকল্প

কৃষিযন্ত্র উদ্ভাবনের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকুক

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপব্যবহার বন্ধে টেকসই ব্যবস্থা নিন

পাহাড়ে ‘ভ্রাতৃঘাতী সংঘর্ষ’ থামছে না কেন

প্রিপেইড গ্যাসের মিটার স্থাপনের পরিকল্পনা যথাসময়ে বাস্তবায়ন করুন

মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের অভিনন্দন, ঝরে পড়াদের কথা ভাবতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

ফেলানী হত্যার বিচার প্রতীক্ষার অবসান ঘটুক

শনিবার, ০৮ জানুয়ারী ২০২২

১১ বছরেও ফেলানী খাতুন হত্যার বিচার হয়নি। হত্যার বিচার ভারতের সর্বোচ্চ আদালতে প্রক্রিয়াধীন আছে। ভারতীয় মানবাধিকার সুরক্ষা মঞ্চ (মাসুম) হত্যার বিচার ও ক্ষতিপূরণের দাবিতে দেশটির সুপ্রিমকোর্টে রিট আবেদন করেছিল। সংগঠনটি এর আগে অভিযোগ করে বলেছিল যে, ‘সমস্যা হচ্ছে ভারত সরকার চায় না এ হত্যাকান্ডের বিচার হোক।’

ফেলানী হত্যার ঘটনায় সমালোচনার মুখে ভারত সীমান্ত হত্যা শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনার কথা বলেছে। ২০১৮ সালে বাংলাদেশ-ভারত দ্বিপাক্ষিক চুক্তিতে সীমান্তে প্রাণঘাতী অস্ত্রের ব্যবহার না করার প্রশ্নে দুই দেশ একমত হয়। বাস্তবে প্রাণঘাতী অস্ত্রের ব্যবহার বন্ধ হয়নি। সীমান্ত হত্যাও বন্ধ হয়নি।

বাংলাদেশের নীতিনির্ধারকরা বলছেন, সীমান্তে হত্যা বাংলাদেশের জন্য দুঃখের, ভারতের জন্য লজ্জার। ভারতের নীতিনির্ধারকরা বলছেন, আত্মরক্ষার জন্য বিএসএফকে গুলি ছুড়তে হয়। তবে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনগুলোর বিভিন্ন সময়ের প্রতিবেদন থেকে জানা যায় যে, বিএসএফের গুলিতে নিরস্ত্র মানুষ মারা যান। ভারতীয় সীমান্ত রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে গ্রেপ্তারকৃত বাংলাদেশি নাগরিকরা নির্যাতনের শিকার হন বলে গুরুতর অভিযোগ রয়েছে।

সীমান্তে নানা অপরাধের কথা বলে ভারত। এ কারণে সীমান্ত হত্যা কমছে না বলে দেশটি মনে করে। আমরা বলতে চাই, অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে বা হয়েছে এমন সন্দেহের প্রেক্ষিতে মানুষ হত্যা করা চলে না। কেউ যদি অপরাধ করেও থাকে তাকে গ্রেপ্তার করে আইনের হাতে সোপর্দ করাই সমীচীন। মানুষের জীবনের অধিকারকে কোন অবস্থাতেই অস্বীকার করা চলে না।

সীমান্ত হত্যা বন্ধ করার জন্য যে প্রতিশ্রুতি ভারত দিয়েছে আমরা তার পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন দেখতে চাই। সীমান্ত হত্যা বন্ধ করা বন্ধুপ্রতীম দুটি দেশের পক্ষে কঠিন কোন কাজ নয়। ভারত আন্তরিকভাবে চাইলে এটা বন্ধ করা সম্ভব। সীমান্তে বাংলাদেশের জন্য দুঃখের বা ভারতের জন্য লজ্জার ঘটনার পুনরাবৃত্তি বন্ধ হবে- এটা আমাদের প্রত্যাশা।

ফেলানী হত্যার দ্রুত বিচার হচ্ছে সেটাও আমরা দেখতে চাই।

back to top