alt

সম্পাদকীয়

যাত্রী ছাউনিগুলো ব্যবহারের উপযোগী করুন

: শুক্রবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২২

যাত্রী ছাউনি আগেও ছিল। সেগুলোর পাশাপাশি তিন বছর আগে আরও ৪০টি আধুনিক যাত্রী ছাউনি নির্মাণ করে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। পুলিশের মতামতের ভিত্তিতে নির্মাণ করা এসব যাত্রী ছাউনির উদ্দেশ্য ছিল বাস স্টপেজ এবং যাত্রী ওঠা-নামার কাজে ব্যবহার করা। কিন্তু পুরোনোগুলো যেমন, নতুনগুলোও তেমন অব্যবহৃত রয়ে গেছে। হচ্ছে না সুষ্ঠু রক্ষাণাবেক্ষণও।

যাত্রী সাধারণও ছাউনিতে দাঁড়ান না। সড়কেই গাড়ির জন্য অপেক্ষা করেন। গাড়ি আসলে ছুটাছুটি করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে গাড়িতে ওঠেন। মূলত অনেকটা বাধ্য হয়েই যাত্রীরা এভাবে গাড়িতে ওঠেন। কারণ রাজধানীতে চলাচলরত পরিবহনগুলো কখেনোই নির্ধারিত জায়গায় থামে না। সড়কের মধ্যেই চলতি অবস্থায়ই যাত্রী ওঠা-নামা করায়।

যাত্রী ছাউনিগুলোতে যাত্রীদের অপেক্ষা করা কিংবা অবস্থান করার পরিবেশও নেই। কারণ রাজধানীর অধিকাংশ ব্যবহারযোগ্য নয়। বেশিরভাগই দখল হয়ে গেছে। অনেকগুলো পড়ে রয়েছে অযতœ-অবহেলায়। কোনোটিতে বসেছে দোকান, কোনটি আবার হকারদের দখলে। এমনকি যাত্রীদের বসার বেঞ্চ পর্যন্ত তুলে ফেলা হয়েছে অনেকগুলোর। দোকানপাট, ভাঙাচোরা, নোংরা, মাদকসেবী ও ভবঘুরেদের দখলে থাকায় যাত্রী সাধারণের ব্যবহারের সুযোগ নেই।

যাত্রী ছাউনিগুলো ঠিকমতো রক্ষণাবেক্ষণ করা হচ্ছে না। যাদের দায়িত্ব তারা ঠিকমতো সেটা পালন করছেন না। বাসগুলো যেন নির্ধারিত স্টপেজে দাঁড়ায় সেটা কর্তৃপক্ষই নিশ্চিত করছেন না। যে কারণে যাত্রী ছাউনি অরক্ষিত হয়ে গেছে। প্রয়োজনীয় কাজে অব্যবহৃত থেকে যাচ্ছে। যাত্রী সাধারণের যদি কাজেই না লাগে তাহলে এগুলোর দরকার কী?

প্রখর রোদ কিংবা হঠাৎ বৃষ্টি থেকে বাঁচতে রাজধানীর পথচারীদের জন্য যাত্রী ছাউনি আবশ্যক। তাছাড়া গন্তব্যে পৌঁছানোর গাড়ি না আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করার জন্যও বিশেষ প্রয়োজন। আর এসব যাত্রী ছাউনিগুলো নির্মাণ করাও হয়েছিল বাস স্টপেজ এবং পথচারীদের সুবিধার কথা চিন্তা করে।

যাত্রী ছাউনিগুলোকে সংস্কার করে ব্যবহারের উপযোগী করতে হবে। সেখানে যাত্রীদের বসার, খাওয়ার, পানির সুব্যবস্থা করেতে হবে। সঙ্গে গণশৌচাগার থাকলে ভালো হয়। কোনো ধরনের দোকান, হকার, ভবঘুরে বা মাদকসেবীদের দখলে যেন না থাকে সেটা নিশ্চিত করতে হবে। নিয়মিত দেখভাল ও রক্ষণাবেক্ষণ করতে হবে। নগরে চলাচলরত জনসাধারণের দুর্ভোগ লাঘবে সিটি করপোরেশনকেই এই দায়িত্ব নিতে হবে।

বাসগুলো যেন নির্ধারিত স্টপেজে যাত্রী ছাউনির সামনেই যাত্রী ওঠা-নামা করায় সে ব্যবস্থা করতে হবে। যাত্রীরা যেন ছাউনিতে ফিরে আসে ব্যবস্থা করতে হবে। এতে করে যাত্রীদের ঝুঁকি কমবে। ফলে দুর্ঘটনার হারও কমবে। কিছুটা হলেও সড়কে শৃঙ্খলা ফিরে আসবে।

অপ্রয়োজনে সেতু, প্রয়োজনে নাই

শাবিপ্রবি সংকট : প্রকৃত কারণ কি জানা যাবে

বাঘ রক্ষায় বাংলাদেশের অর্জন কী

প্রশ্নফাঁস চক্রের শেকড় অনুসন্ধান করতে হবে

বায়ুদূষণে শীর্ষে ঢাকা : এই শিরোপা আমরা চাই না

গণপরিবহন শ্রমিকদের মনোজগতে কী ঘটছে

ইমিগ্রেশন পুলিশকে পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হবে

অবৈধ ইটভাটা বন্ধের নির্দেশের বাস্তবায়ন দেখতে চাই

প্রেরণাদায়ী সাফল্য

কিশোর গ্যাং : দায়িত্ব নিতে হবে সবাইকেই

রেণু চিংড়ি আহরণ বন্ধ করুন

গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব কিসের জন্য

বঙ্গবন্ধু রেল সেতু : যথাসময়ে প্রকল্পের কাজ শেষ করুন

শাবিপ্রবির এ পরিস্থিতির দায় কার

ফগলাইট কেনায় দুর্নীতি

ভালো নির্বাচনের উদাহরণ

দিবাযত্ন কেন্দ্র হোক শিশুবান্ধব

পুলিশ কেন নিখোঁজ ব্যক্তিদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে

গ্যাস সিলিন্ডারে বেলুন ফোলানো বন্ধে অভিযান চালান

পাসপোর্ট পেতে কেন ঘুষ দিতে হবে

উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসকের উপস্থিতি নিশ্চিত করুন

সড়ক দখলের অপসংস্কৃতি

প্রশ্নবিদ্ধ কারাগারের নিরাপত্তা

সেচ প্রকল্পের পুকুর ভরাট প্রসঙ্গে

কারখানা পরিদর্শন : সব পক্ষের পারস্পরিক সহযোগিতা প্রয়োজন

ভবদহের জলাবদ্ধতা : স্থানীয় বাসিন্দাদের আস্থায় নিয়ে কাজ করুন

বিধিনিষেধ ও গণপরিবহনের ভাড়া

হালদা রক্ষায় সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

অনেক শিক্ষার্থী এখনো কেন পাঠ্যবই পায়নি

আতশবাজি ও পটকা : শব্দ দূষণের আরেক রূপ

সড়কে শৃঙ্খলা ফিরবে কবে

রক্ষিত বনের লক্ষ্য অর্জনে বাধা কোথায়

ফেলানী হত্যার বিচার প্রতীক্ষার অবসান ঘটুক

এই কি নিরাময় কেন্দ্র, না টর্চার সেল?

পরিবেশ অধিদপ্তরের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নিন

ডিএসসিসির খাল পরিষ্কার প্রসঙ্গে

tab

সম্পাদকীয়

যাত্রী ছাউনিগুলো ব্যবহারের উপযোগী করুন

শুক্রবার, ১৪ জানুয়ারী ২০২২

যাত্রী ছাউনি আগেও ছিল। সেগুলোর পাশাপাশি তিন বছর আগে আরও ৪০টি আধুনিক যাত্রী ছাউনি নির্মাণ করে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। পুলিশের মতামতের ভিত্তিতে নির্মাণ করা এসব যাত্রী ছাউনির উদ্দেশ্য ছিল বাস স্টপেজ এবং যাত্রী ওঠা-নামার কাজে ব্যবহার করা। কিন্তু পুরোনোগুলো যেমন, নতুনগুলোও তেমন অব্যবহৃত রয়ে গেছে। হচ্ছে না সুষ্ঠু রক্ষাণাবেক্ষণও।

যাত্রী সাধারণও ছাউনিতে দাঁড়ান না। সড়কেই গাড়ির জন্য অপেক্ষা করেন। গাড়ি আসলে ছুটাছুটি করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে গাড়িতে ওঠেন। মূলত অনেকটা বাধ্য হয়েই যাত্রীরা এভাবে গাড়িতে ওঠেন। কারণ রাজধানীতে চলাচলরত পরিবহনগুলো কখেনোই নির্ধারিত জায়গায় থামে না। সড়কের মধ্যেই চলতি অবস্থায়ই যাত্রী ওঠা-নামা করায়।

যাত্রী ছাউনিগুলোতে যাত্রীদের অপেক্ষা করা কিংবা অবস্থান করার পরিবেশও নেই। কারণ রাজধানীর অধিকাংশ ব্যবহারযোগ্য নয়। বেশিরভাগই দখল হয়ে গেছে। অনেকগুলো পড়ে রয়েছে অযতœ-অবহেলায়। কোনোটিতে বসেছে দোকান, কোনটি আবার হকারদের দখলে। এমনকি যাত্রীদের বসার বেঞ্চ পর্যন্ত তুলে ফেলা হয়েছে অনেকগুলোর। দোকানপাট, ভাঙাচোরা, নোংরা, মাদকসেবী ও ভবঘুরেদের দখলে থাকায় যাত্রী সাধারণের ব্যবহারের সুযোগ নেই।

যাত্রী ছাউনিগুলো ঠিকমতো রক্ষণাবেক্ষণ করা হচ্ছে না। যাদের দায়িত্ব তারা ঠিকমতো সেটা পালন করছেন না। বাসগুলো যেন নির্ধারিত স্টপেজে দাঁড়ায় সেটা কর্তৃপক্ষই নিশ্চিত করছেন না। যে কারণে যাত্রী ছাউনি অরক্ষিত হয়ে গেছে। প্রয়োজনীয় কাজে অব্যবহৃত থেকে যাচ্ছে। যাত্রী সাধারণের যদি কাজেই না লাগে তাহলে এগুলোর দরকার কী?

প্রখর রোদ কিংবা হঠাৎ বৃষ্টি থেকে বাঁচতে রাজধানীর পথচারীদের জন্য যাত্রী ছাউনি আবশ্যক। তাছাড়া গন্তব্যে পৌঁছানোর গাড়ি না আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করার জন্যও বিশেষ প্রয়োজন। আর এসব যাত্রী ছাউনিগুলো নির্মাণ করাও হয়েছিল বাস স্টপেজ এবং পথচারীদের সুবিধার কথা চিন্তা করে।

যাত্রী ছাউনিগুলোকে সংস্কার করে ব্যবহারের উপযোগী করতে হবে। সেখানে যাত্রীদের বসার, খাওয়ার, পানির সুব্যবস্থা করেতে হবে। সঙ্গে গণশৌচাগার থাকলে ভালো হয়। কোনো ধরনের দোকান, হকার, ভবঘুরে বা মাদকসেবীদের দখলে যেন না থাকে সেটা নিশ্চিত করতে হবে। নিয়মিত দেখভাল ও রক্ষণাবেক্ষণ করতে হবে। নগরে চলাচলরত জনসাধারণের দুর্ভোগ লাঘবে সিটি করপোরেশনকেই এই দায়িত্ব নিতে হবে।

বাসগুলো যেন নির্ধারিত স্টপেজে যাত্রী ছাউনির সামনেই যাত্রী ওঠা-নামা করায় সে ব্যবস্থা করতে হবে। যাত্রীরা যেন ছাউনিতে ফিরে আসে ব্যবস্থা করতে হবে। এতে করে যাত্রীদের ঝুঁকি কমবে। ফলে দুর্ঘটনার হারও কমবে। কিছুটা হলেও সড়কে শৃঙ্খলা ফিরে আসবে।

back to top