alt

সম্পাদকীয়

ফুটপাতকেন্দ্রিক চাঁদাবাজির অবসান চাই

: শুক্রবার, ২৯ এপ্রিল ২০২২

রাজধানীর ফুটপাতে বসা দোকানগুলো থেকে নিয়মিতই চাঁদা তোলা হয়। ঈদকে কেন্দ্র করে চাঁদাবাজির আকার ৫০০ কোটি টাকায় দাঁড়াবে বলে জানা যাচ্ছে। এ নিয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

রাজধানীর ফুটপাতগুলো দখল হয়ে গেছে। ফুটপাতে বসেছে দোকান। এসব দোকান নিয়ে নানা বাণিজ্য হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। ২০১৬ সালে ‘দ্য স্টেইট অব সিটিজ ২০১৬ : ট্রাফিক কনজেশন ইন ঢাকা, সিটি-গভর্ন্যান্স পারসপেক্টিভ’ শিরোনামে এক গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব গভর্ন্যান্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট।

গবেষণা প্রতিবেদন অনুসারে, গবেষণা চলাকালীন সময় প্রতি হকারের কাছ থেকে গড়ে প্রতিদিন ১৯২ টাকা চাঁদা আদায় করা হতো। ঢাকায় তখন আড়াই লাখের বেশি হকার ব্যবসা করত। সেই হিসাবে দুই সিটি করপোরেশনের ফুটপাথের হকারদের কাছ থেকে বছরে এক হাজার ৮২৫ কোটি টাকা চাঁদা আদায় হয়। এই টাকা সেই সময়ের দুই সিটি করপোরেশনের মোট বাজেটের প্রায় সমান ছিল। গত ছয় বছরে বেড়েছে হকারের সংখ্যা। সেই সঙ্গে চাঁদার পরিমাণও বেড়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ফুটপাতকেন্দ্রিক চাঁদাবাজি নিয়ে গণমাধ্যমে প্রায়ই প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। প্রশ্ন হচ্ছে, চাঁদার টাকা কাকে দেয়া হয় বা এর ভাগ কারা পান। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কি চাঁদাবাজির খবর রাখে? ফুটপাতে প্রতিদিন চাঁদাবাজি হচ্ছে কিন্তু সে সম্পর্কে প্রশাসনের কেউ জানে না সেটা বিশ্বাসযোগ্য নয়। প্রশ্ন তোলা যেতে পারে যে, চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন কী ব্যবস্থা নেয়।

কোন কোন গবেষক বলছেন, ফুটপাতকেন্দ্রিক চাঁদাবাজির একটি রাজনৈতিক অর্থনীতি আছে। রাজনৈতিক লোকজন, পুলিশ ও লাইনম্যানরা চাঁদা নেয়। এসব লাইনম্যানকে পুলিশই নিয়োগ দেয় বলে অভিযোগ রয়েছে।

এর আগে সংশ্লিষ্টদের এমন প্রস্তাবও দেয়া হয়েছিল যে, সিটি করপোরেশন ফুটপাতের ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে বৈধভাবে ট্যাক্স নিতে পারে। এতে যেমন চাঁদাবাজি বন্ধ হতো তেমন সরকারের রাজস্বও বাড়ত। প্রস্তাবটি সরকার সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করে দেখতে পারে বলে আমরা মনে করি।

নির্মাণের তিন মাসের মধ্যে সেতু ভাঙার কারণ কী

শিক্ষা খাতে প্রকল্প বাস্তবায়নে ধীরগতি

পরিবেশ দূষণ বন্ধে চাই সমন্বিত পদক্ষেপ

নারীর পোশাক পরার স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ কেন

খাল দখলমুক্ত করুন

সিলেট নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে পরিকল্পিত পদক্ষেপ নিতে হবে

অবরুদ্ধ পরিবারটিকে মুক্ত করুন

নৌপথের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে

সড়ক থেকে তোরণ অপসারণ করুন

ইভটিজিং বন্ধে আইনের কঠোর প্রয়োগ চাই

খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ প্রসঙ্গে

সিলেটে বন্যা : দুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

প্রান্তিক নারীদের ডিজিটাল সেবা প্রসঙ্গে

ভরা মৌসুমে কেন চালের দাম বাড়ছে

রংপুরের আবহাওয়া অফিসে রাডার বসানো হোক

রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনে এখনই উদ্যোগ নিন

সুস্থ গণতন্ত্রের জন্য মুক্ত গণমাধ্যম

নির্বিচারে পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

ভোজ্যতেলের সংকট কেন কাটছে না

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণা বন্ধ করুন

সরকারের সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত

সড়ক ধান মাড়াইয়ের স্থান হতে পারে না, বিকল্প খুঁজুন

পাসপোর্ট অফিসকে দালালমুক্ত করুন

খেলার মাঠেই কেন মেলার আয়োজন করতে হবে

যৌতুক প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে

এমএলএম কোম্পানির নামে প্রতারণা

নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে কাজ করতে হবে সমন্বিতভাবে

টিলা কাটা বন্ধ করুন

করোনায় মৃত্যুর প্রকৃত সংখ্যা নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করুন

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মৌলিক পয়োনিষ্কাশনের পূর্ণাঙ্গ ব্যবস্থা করুন

বিনা টিকিটে রেল ভ্রমণের ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত নিশ্চিত করুন

ঈদযাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনা

ভোজ্যতেলের বাজার ব্যবস্থাপনায় ছাড় নয়

ফল পাকাতে রাসায়নিকের ব্যবহার প্রসঙ্গে

এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে এখনই ব্যবস্থা নিন

ঈদযাত্রায় স্বস্তি

tab

সম্পাদকীয়

ফুটপাতকেন্দ্রিক চাঁদাবাজির অবসান চাই

শুক্রবার, ২৯ এপ্রিল ২০২২

রাজধানীর ফুটপাতে বসা দোকানগুলো থেকে নিয়মিতই চাঁদা তোলা হয়। ঈদকে কেন্দ্র করে চাঁদাবাজির আকার ৫০০ কোটি টাকায় দাঁড়াবে বলে জানা যাচ্ছে। এ নিয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

রাজধানীর ফুটপাতগুলো দখল হয়ে গেছে। ফুটপাতে বসেছে দোকান। এসব দোকান নিয়ে নানা বাণিজ্য হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। ২০১৬ সালে ‘দ্য স্টেইট অব সিটিজ ২০১৬ : ট্রাফিক কনজেশন ইন ঢাকা, সিটি-গভর্ন্যান্স পারসপেক্টিভ’ শিরোনামে এক গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিল ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব গভর্ন্যান্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট।

গবেষণা প্রতিবেদন অনুসারে, গবেষণা চলাকালীন সময় প্রতি হকারের কাছ থেকে গড়ে প্রতিদিন ১৯২ টাকা চাঁদা আদায় করা হতো। ঢাকায় তখন আড়াই লাখের বেশি হকার ব্যবসা করত। সেই হিসাবে দুই সিটি করপোরেশনের ফুটপাথের হকারদের কাছ থেকে বছরে এক হাজার ৮২৫ কোটি টাকা চাঁদা আদায় হয়। এই টাকা সেই সময়ের দুই সিটি করপোরেশনের মোট বাজেটের প্রায় সমান ছিল। গত ছয় বছরে বেড়েছে হকারের সংখ্যা। সেই সঙ্গে চাঁদার পরিমাণও বেড়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ফুটপাতকেন্দ্রিক চাঁদাবাজি নিয়ে গণমাধ্যমে প্রায়ই প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। প্রশ্ন হচ্ছে, চাঁদার টাকা কাকে দেয়া হয় বা এর ভাগ কারা পান। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কি চাঁদাবাজির খবর রাখে? ফুটপাতে প্রতিদিন চাঁদাবাজি হচ্ছে কিন্তু সে সম্পর্কে প্রশাসনের কেউ জানে না সেটা বিশ্বাসযোগ্য নয়। প্রশ্ন তোলা যেতে পারে যে, চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন কী ব্যবস্থা নেয়।

কোন কোন গবেষক বলছেন, ফুটপাতকেন্দ্রিক চাঁদাবাজির একটি রাজনৈতিক অর্থনীতি আছে। রাজনৈতিক লোকজন, পুলিশ ও লাইনম্যানরা চাঁদা নেয়। এসব লাইনম্যানকে পুলিশই নিয়োগ দেয় বলে অভিযোগ রয়েছে।

এর আগে সংশ্লিষ্টদের এমন প্রস্তাবও দেয়া হয়েছিল যে, সিটি করপোরেশন ফুটপাতের ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে বৈধভাবে ট্যাক্স নিতে পারে। এতে যেমন চাঁদাবাজি বন্ধ হতো তেমন সরকারের রাজস্বও বাড়ত। প্রস্তাবটি সরকার সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করে দেখতে পারে বলে আমরা মনে করি।

back to top