alt

সম্পাদকীয়

সড়ক ধান মাড়াইয়ের স্থান হতে পারে না, বিকল্প খুঁজুন

: বৃহস্পতিবার, ১২ মে ২০২২

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার কাঁচা-পাকা সড়কগুলো বোরোধান মাড়াই ও খড় শুকানোর কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। এতে ব্যাহত হচ্ছে বিভিন্ন যানবাহনসহ পথচারীদের চলাচল। প্রতিদিনই ঘটনছে নানান অনাকাক্সিক্ষত দুর্ঘটনা। গত দুই সপ্তাহের ব্যবধানে সড়কে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। শুধু তাই নয়, প্রাণহানিও ঘটেছে একজনের। এ নিয়ে গতকাল বুধবার সংবাদ-এ সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

সড়ক হচ্ছে যানবাহন ও পথচারীদের চলাচলের জন্য। এর বাইরে অন্য কোন কাজে এর ব্যবহার সঙ্গত নয়। কিন্তু দেশের সড়কগুলো নানাভাবেই ব্যবহৃত হচ্ছে। ব্যস্ততম সড়কে বসছে বাজার, সড়ক দখল করে রাখা হচ্ছে নির্মাণ সামগ্রী। এমনকি দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের সড়কগুলো ব্যবহার হচ্ছে- ধান মাড়াই, পাট শুকানো ও খড় শুকানোর মতো নানান কাজে।

ফলে সড়কে চলাচলে প্রতিবন্ধকতা তৈরি হচ্ছে। প্রায়ই নানান দুর্ঘটনা ঘটছে, প্রাণহাণির খবর পাওয়া যাচ্ছে। সড়কে খড় শুকাতে দেওয়ার কারণে কোথায় গর্ত, উঁচু-নিচু বা স্পিডব্রেকার রয়েছে তা বোঝার উপায় থাকে না। মোটরসাইকেলের আরোহী ছাড়াও ছোট-বড় সব যানবাহন সেই গর্তে পড়ে দুর্ঘটনার শিকার হয়। খড় পিচ্ছিল হওয়াতে সাধারণ মানুষের চলাচলেও বেগ পেতে হয়। বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ মাস থেকেই বৃষ্টিপাতের শুরু হয়। রাস্তায় ফেলে রাখা খড় বৃষ্টির পানিতে ভিজে গেলে বিপদ আরো বাড়ে। মানুষ যেমন জেনে বা না জেনে সড়কের অপব্যবহার করছে, তেমনি সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষও এ অপব্যবহার রোধে উদাসীনতা রয়েছে।

কৃষকরা অপরিকল্পিতভাবে বসতবাড়ি নির্মাণ করছে। বাড়িতে উঠান না রাখায় সড়ক দখল করে ধান মাড়াই, ধান ও খড় শুকানোর কাজে ব্যবহার করছে। কৃষকের উঠান নেই বলেই সড়ক ব্যবহার করে। প্রশ্ন হচ্ছে- সড়ক যদি উঠানের মতো ব্যবহারের সুযোগ থাকে তাহলে কৃষক উঠান রাখবে কীসের জন্য।

সড়কে যেন নির্বিঘ্নে যানবাহন চলাচল করতে পারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে তা নিশ্চিত করতে হবে। সেখানে সব ধরনের দখলের অবসান ঘটাতে হবে। যাদের উঠান নেই তারা কোথায় ধান মাড়াই করবে সেটা একটা সমস্যা। এ সমস্যার সমাধান কীভাবে করা যায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে সেই উপায় খুঁজতে হবে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও কৃষকদের সঙ্গে আলোচনা করে বিকল্প উপায় খুঁজে বের করতে হবে।

বিদ্যালয়ের মাঠ ভাড়া দেয়া প্রসঙ্গে

হালদা নদীর মাছ রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

রাজধানীতে ফ্যামিলি কার্ড দেয়ার কাজে বিলম্ব কেন

হাতিরঝিল রক্ষায় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিন

যানজট নিরসনে স্বল্পমেয়াদি পদক্ষেপগুলোকে ভুললে চলবে না

বন্যাপরবর্তী পানিবাহিত রোগ প্রতিরোধে চাই সচেতনতা

সরকারি হাসপাতালে ওষুধ সরবরাহ স্বাভাবিক করুন

মাঙ্কিপক্স : আতঙ্ক নয় সচেতনতা জরুরি

নির্মাণের তিন মাসের মধ্যে সেতু ভাঙার কারণ কী

শিক্ষা খাতে প্রকল্প বাস্তবায়নে ধীরগতি

পরিবেশ দূষণ বন্ধে চাই সমন্বিত পদক্ষেপ

নারীর পোশাক পরার স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ কেন

খাল দখলমুক্ত করুন

সিলেট নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে পরিকল্পিত পদক্ষেপ নিতে হবে

অবরুদ্ধ পরিবারটিকে মুক্ত করুন

নৌপথের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে

সড়ক থেকে তোরণ অপসারণ করুন

ইভটিজিং বন্ধে আইনের কঠোর প্রয়োগ চাই

খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ প্রসঙ্গে

সিলেটে বন্যা : দুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

প্রান্তিক নারীদের ডিজিটাল সেবা প্রসঙ্গে

ভরা মৌসুমে কেন চালের দাম বাড়ছে

রংপুরের আবহাওয়া অফিসে রাডার বসানো হোক

রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনে এখনই উদ্যোগ নিন

সুস্থ গণতন্ত্রের জন্য মুক্ত গণমাধ্যম

নির্বিচারে পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

ভোজ্যতেলের সংকট কেন কাটছে না

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণা বন্ধ করুন

সরকারের সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত

পাসপোর্ট অফিসকে দালালমুক্ত করুন

খেলার মাঠেই কেন মেলার আয়োজন করতে হবে

যৌতুক প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে

এমএলএম কোম্পানির নামে প্রতারণা

নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে কাজ করতে হবে সমন্বিতভাবে

টিলা কাটা বন্ধ করুন

করোনায় মৃত্যুর প্রকৃত সংখ্যা নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করুন

tab

সম্পাদকীয়

সড়ক ধান মাড়াইয়ের স্থান হতে পারে না, বিকল্প খুঁজুন

বৃহস্পতিবার, ১২ মে ২০২২

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার কাঁচা-পাকা সড়কগুলো বোরোধান মাড়াই ও খড় শুকানোর কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। এতে ব্যাহত হচ্ছে বিভিন্ন যানবাহনসহ পথচারীদের চলাচল। প্রতিদিনই ঘটনছে নানান অনাকাক্সিক্ষত দুর্ঘটনা। গত দুই সপ্তাহের ব্যবধানে সড়কে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। শুধু তাই নয়, প্রাণহানিও ঘটেছে একজনের। এ নিয়ে গতকাল বুধবার সংবাদ-এ সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

সড়ক হচ্ছে যানবাহন ও পথচারীদের চলাচলের জন্য। এর বাইরে অন্য কোন কাজে এর ব্যবহার সঙ্গত নয়। কিন্তু দেশের সড়কগুলো নানাভাবেই ব্যবহৃত হচ্ছে। ব্যস্ততম সড়কে বসছে বাজার, সড়ক দখল করে রাখা হচ্ছে নির্মাণ সামগ্রী। এমনকি দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের সড়কগুলো ব্যবহার হচ্ছে- ধান মাড়াই, পাট শুকানো ও খড় শুকানোর মতো নানান কাজে।

ফলে সড়কে চলাচলে প্রতিবন্ধকতা তৈরি হচ্ছে। প্রায়ই নানান দুর্ঘটনা ঘটছে, প্রাণহাণির খবর পাওয়া যাচ্ছে। সড়কে খড় শুকাতে দেওয়ার কারণে কোথায় গর্ত, উঁচু-নিচু বা স্পিডব্রেকার রয়েছে তা বোঝার উপায় থাকে না। মোটরসাইকেলের আরোহী ছাড়াও ছোট-বড় সব যানবাহন সেই গর্তে পড়ে দুর্ঘটনার শিকার হয়। খড় পিচ্ছিল হওয়াতে সাধারণ মানুষের চলাচলেও বেগ পেতে হয়। বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ মাস থেকেই বৃষ্টিপাতের শুরু হয়। রাস্তায় ফেলে রাখা খড় বৃষ্টির পানিতে ভিজে গেলে বিপদ আরো বাড়ে। মানুষ যেমন জেনে বা না জেনে সড়কের অপব্যবহার করছে, তেমনি সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষও এ অপব্যবহার রোধে উদাসীনতা রয়েছে।

কৃষকরা অপরিকল্পিতভাবে বসতবাড়ি নির্মাণ করছে। বাড়িতে উঠান না রাখায় সড়ক দখল করে ধান মাড়াই, ধান ও খড় শুকানোর কাজে ব্যবহার করছে। কৃষকের উঠান নেই বলেই সড়ক ব্যবহার করে। প্রশ্ন হচ্ছে- সড়ক যদি উঠানের মতো ব্যবহারের সুযোগ থাকে তাহলে কৃষক উঠান রাখবে কীসের জন্য।

সড়কে যেন নির্বিঘ্নে যানবাহন চলাচল করতে পারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে তা নিশ্চিত করতে হবে। সেখানে সব ধরনের দখলের অবসান ঘটাতে হবে। যাদের উঠান নেই তারা কোথায় ধান মাড়াই করবে সেটা একটা সমস্যা। এ সমস্যার সমাধান কীভাবে করা যায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে সেই উপায় খুঁজতে হবে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও কৃষকদের সঙ্গে আলোচনা করে বিকল্প উপায় খুঁজে বের করতে হবে।

back to top