alt

সম্পাদকীয়

সুস্থ গণতন্ত্রের জন্য মুক্ত গণমাধ্যম

: রোববার, ১৫ মে ২০২২

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনসহ দেশে এমন অনেক আইন রয়েছে যা স্বাধীন মত প্রকাশের পথে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করছে। সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে কোন কোন আইনের অপপ্রয়োগ ঘটতে দেখা যাচ্ছে। এ কারণে সংবাদ সংগ্রহ বা প্রকাশের ক্ষেত্রে তৈরি হয়েছে ভয়ের পরিবেশ। আগামীতে এমন আরও কিছু আইন তৈরি হতে যাচ্ছে যা স্বাধীন সাংবাদিকতা বা সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে অপব্যবহার হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। গতকাল শনিবার রাজধানীতে সম্পাদক পরিষদ আয়োজিত এক আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেছেন।

গণতন্ত্র ও মুক্ত গণমাধ্যম একে অপরের পরিপূরক। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থায় গণমাধ্যম সত্যিকারের স্বাধীনতা ভোগ করে, ভয়মুক্ত থেকে কাজ করতে পারে। আবার গণমাধ্যম স্বাধীনভাবে কাজ করলে, সত্য প্রকাশ করলে গণতন্ত্রের ভিত আরও মজবুত হয়।

একটি দেশের গণতন্ত্র কতটা শক্তিশালী তার একটি পরিমাপক হতে পারে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা। উন্নত গণতান্ত্রিক দেশগুলোতে গণমাধ্যম তুলনামূলকভাবে অনেক বেশি স্বাধীন বলে মনে করা হয়। গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়ে কাজ করা যেসব আন্তর্জাতিক সংস্থা এ নিয়ে নিয়মিত প্রতিবেদন প্রকাশ করে সেখান থেকে অন্তত এমন ধারণাই পাওয়া যায়।

গণমাধ্যমের স্বাধীনতা সূচকে বাংলাদেশের অবস্থানকে হতাশজনক বললেও কম বলা হয়। রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারসের (আরএসএফ) বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম সূচক অনুযায়ী ২০২২ সালে ১৮০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান হয়েছে ১৬২তম। অথচ এক বছর আগেও এই অবস্থান ছিল ১৫২তম। সূচকের এই অবস্থান বাংলাদেশের গণমাধ্যমের দুরবস্থা প্রকাশের পাশাপাশি দেশের গণতন্ত্রকেও প্রশ্নবিদ্ধ করে।

জরুরি অবস্থার দুই বছর ছাড়া নব্বইয়ের পর থেকে নির্বাচিত সরকারগুলো দেশ পরিচালনা করছে। এই ৩২ বছরে দেশের সংবাদমাধ্যম সংখ্যার বিবেচনায় বড় হয়েছে। কিন্তু স্বাধীন সাংবাদিকতার সূচকে ক্রমাবনতি ঘটছে। এই বৈপরীত্যের কারণ কী, এর দায়ভারই বা কার?

স্বাধীন মতপ্রকাশের পথে যদি বাধা থাকে সেটা চিহ্নিত করে দূর করার দায়িত্ব সরকারের। কারণ সংবিধানে সংবাদ ক্ষেত্রের স্বাধীনতার নিশ্চয়তা দেয়া হয়েছে। গণমাধ্যমের স্বাধীনতাকে সীমাবদ্ধ করা কোন গণতান্ত্রিক সরকারের বৈশিষ্ট্য হতে পারে না। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে নিঃশঙ্ক চিত্তে মতপ্রকাশের পরিবেশ থাকে।

দীর্ঘদিন ধরে বলা হচ্ছে, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনসহ দেশে এমন অনেক আইন রয়েছে যা সাংবাদিকদের জন্য ভয়ের পরিবেশ তৈরি করছে। বিষয়টি সরকারকে আমলে নিতে হবে। স্বাধীন সাংবাদিকতার পথে বাধা তৈরি করছে এমন আইনগুলো সংশোধন বা প্রয়োজনে বাতিল করতে হবে। ভবিষ্যতে এ ধরনের কোন আইন যেন না হয় সে বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে। আমরা বিশ্বাস করি, সুস্থ গণতন্ত্রের জন্য মুক্ত গণমাধ্যম অত্যন্ত জরুরি।

নওগাঁয় সড়ক নির্মাণে অনিয়ম

জন্মনিবন্ধনে বাড়তি ফি আদায় বন্ধ করুন

দ্রুত বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ সংস্কার করুন

শিক্ষক লাঞ্ছনা ও শিক্ষক সংগঠনগুলোর ভূমিকা

আবাসিক হলগুলোতে শিক্ষার্থী নির্যাতন বন্ধ করুন

বন্যাপরবর্তী পুনর্বাসন কাজে সর্বাত্মক উদ্যোগ নিতে হবে

রাজধানীর খালগুলোকে দখলমুক্ত করুন

ভোজ্যতেলের দাম দেশের বাজারে কেন কমছে না

টিসিবির কার্ড বিতরণে অনিয়ম

রেলের দুর্দশা

ভূমিকম্পে বিপর্যস্ত আফগানিস্তানের পাশে দাঁড়ান

কিশোর-কিশোরী ক্লাবের নামে হরিলুট

চাই টেকসই বন্যা ব্যবস্থাপনা

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো নিয়ে বিতর্ক

ছত্রাকজনিত রোগের চিকিৎসা প্রসঙ্গে

পাহাড় ধসে মৃত্যু থামবে কবে

বজ্রপাতে মৃত্যু প্রতিরোধে জনসচেতনতা বাড়াতে হবে

এবার কি জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে

ফেরির টিকিট নিয়ে দালালদের অপতৎপরতা বন্ধ করুন

বন্যার্তদের সর্বাত্মক সহায়তা দিন

চিংড়ি পোনা নিধন প্রসঙ্গে

টানবাজারের রাসায়নিক দোকানগুলো সরিয়ে নিন

নদীর তীরের মাটি কাটা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মাদক বাণিজ্য বন্ধ করতে হলে শর্ষের ভূত তাড়াতে হবে

শূন্যপদে দ্রুত শিক্ষক নিয়োগ দিন

বন্যাদুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

ডেঙ্গু প্রতিরোধে এখনই সতর্ক হোন

বখাটেদের যন্ত্রণা থেকে নারীর মুক্তি মিলবে কীভাবে

নওগাঁয় আম চাষিদের হিমাগার স্থাপনের দাবি

বস্তিবাসী নারীদের জন্য চাই নিরাপদ গোসলখানা

শিল্পবর্জ্যে বিপন্ন পরিবেশ

বস্তিবাসীর সমস্যার টেকসই সমাধান করতে হবে

শিশু নিপীড়ন রোধের দায়িত্ব নিত হবে সমাজকে

বিজেপির দুই নেতার বিরুদ্ধে ধর্মীয় অবমাননার অভিযোগ প্রসঙ্গে

অনুকরণীয় উদাহরণ

tab

সম্পাদকীয়

সুস্থ গণতন্ত্রের জন্য মুক্ত গণমাধ্যম

রোববার, ১৫ মে ২০২২

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনসহ দেশে এমন অনেক আইন রয়েছে যা স্বাধীন মত প্রকাশের পথে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করছে। সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে কোন কোন আইনের অপপ্রয়োগ ঘটতে দেখা যাচ্ছে। এ কারণে সংবাদ সংগ্রহ বা প্রকাশের ক্ষেত্রে তৈরি হয়েছে ভয়ের পরিবেশ। আগামীতে এমন আরও কিছু আইন তৈরি হতে যাচ্ছে যা স্বাধীন সাংবাদিকতা বা সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে অপব্যবহার হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। গতকাল শনিবার রাজধানীতে সম্পাদক পরিষদ আয়োজিত এক আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেছেন।

গণতন্ত্র ও মুক্ত গণমাধ্যম একে অপরের পরিপূরক। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থায় গণমাধ্যম সত্যিকারের স্বাধীনতা ভোগ করে, ভয়মুক্ত থেকে কাজ করতে পারে। আবার গণমাধ্যম স্বাধীনভাবে কাজ করলে, সত্য প্রকাশ করলে গণতন্ত্রের ভিত আরও মজবুত হয়।

একটি দেশের গণতন্ত্র কতটা শক্তিশালী তার একটি পরিমাপক হতে পারে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা। উন্নত গণতান্ত্রিক দেশগুলোতে গণমাধ্যম তুলনামূলকভাবে অনেক বেশি স্বাধীন বলে মনে করা হয়। গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়ে কাজ করা যেসব আন্তর্জাতিক সংস্থা এ নিয়ে নিয়মিত প্রতিবেদন প্রকাশ করে সেখান থেকে অন্তত এমন ধারণাই পাওয়া যায়।

গণমাধ্যমের স্বাধীনতা সূচকে বাংলাদেশের অবস্থানকে হতাশজনক বললেও কম বলা হয়। রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারসের (আরএসএফ) বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম সূচক অনুযায়ী ২০২২ সালে ১৮০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান হয়েছে ১৬২তম। অথচ এক বছর আগেও এই অবস্থান ছিল ১৫২তম। সূচকের এই অবস্থান বাংলাদেশের গণমাধ্যমের দুরবস্থা প্রকাশের পাশাপাশি দেশের গণতন্ত্রকেও প্রশ্নবিদ্ধ করে।

জরুরি অবস্থার দুই বছর ছাড়া নব্বইয়ের পর থেকে নির্বাচিত সরকারগুলো দেশ পরিচালনা করছে। এই ৩২ বছরে দেশের সংবাদমাধ্যম সংখ্যার বিবেচনায় বড় হয়েছে। কিন্তু স্বাধীন সাংবাদিকতার সূচকে ক্রমাবনতি ঘটছে। এই বৈপরীত্যের কারণ কী, এর দায়ভারই বা কার?

স্বাধীন মতপ্রকাশের পথে যদি বাধা থাকে সেটা চিহ্নিত করে দূর করার দায়িত্ব সরকারের। কারণ সংবিধানে সংবাদ ক্ষেত্রের স্বাধীনতার নিশ্চয়তা দেয়া হয়েছে। গণমাধ্যমের স্বাধীনতাকে সীমাবদ্ধ করা কোন গণতান্ত্রিক সরকারের বৈশিষ্ট্য হতে পারে না। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে নিঃশঙ্ক চিত্তে মতপ্রকাশের পরিবেশ থাকে।

দীর্ঘদিন ধরে বলা হচ্ছে, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনসহ দেশে এমন অনেক আইন রয়েছে যা সাংবাদিকদের জন্য ভয়ের পরিবেশ তৈরি করছে। বিষয়টি সরকারকে আমলে নিতে হবে। স্বাধীন সাংবাদিকতার পথে বাধা তৈরি করছে এমন আইনগুলো সংশোধন বা প্রয়োজনে বাতিল করতে হবে। ভবিষ্যতে এ ধরনের কোন আইন যেন না হয় সে বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে। আমরা বিশ্বাস করি, সুস্থ গণতন্ত্রের জন্য মুক্ত গণমাধ্যম অত্যন্ত জরুরি।

back to top