alt

সম্পাদকীয়

খাল অবৈধ দখলমুক্ত করুন

: বুধবার, ০৮ জুন ২০২২

যশোরের কেবপুর উপজেলার অর্ধশতাধিক খালে বাঁধ দিয়ে অবৈধভাবে মাছ চাষ করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। গত দুই দশকের বেশি সময় ধরে স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিরা মাছ চাষ করে আসছেন। ফলে শুষ্ক মৌসুমে একদিকে যেমন কৃষকের সেচের পানির সংকট দেখা দিচ্ছে, অন্যদিকে বর্ষা মৌসুমে দেখা দিচ্ছে জলাবদ্ধতা। ব্যাহত হচ্ছে কৃষকের চাষাবাদ, নানা দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এলাকার জনসাধারণের। এ নিয়ে গতকাল মঙ্গলবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

দখলের কারণে প্রকৃতি-পরিবেশ বা স্থানীয় জনসাধারণের কী ক্ষতি হলো সেটা দখলদাররা ভাবেন না। দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে এতগুলো খাল দখল হয়ে আছে, অথচ সেটি দেখার কেউ নেই। দেশের আরও অনেক এলাকায়ও এমন দখলের অভিযোগ মেলে। প্রশ্ন হচ্ছে, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কি জেগে জেগে ঘুমায়। কর্তৃপক্ষের নাকের ডগার ওপর দিয়ে সরকারি খাল দখল করে রাখা হয় অথচ এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয় না। এর কারণ কী সেটা আমরা জানতে চাইব। সরকার কৃষি কাজে সেচের জন্যে বিদ্যুৎ সংযোগসহ ভর্তুকি দিচ্ছে। সেই ভূগর্ভস্থ পানি উত্তোলন করে ঘের মালিকরা মাছ চাষ করছে। অথচ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয় না।

সারাদেশেই খাল বা জলাশয় দখলের মহোসৎব চলছে। যার যেমন খুশি সে তেমনভাবে খাল ব্যবহার করছে। সারাদেশ যেন এখন ‘জলাশয় বৈরী’ দেশে পরিণত হয়েছে। কোন জলাশয় রাতারাতি দখল বা ভরাট হয়ে যেতে পারে না। দীর্ঘ সময় ধরে সেটা ঘটে, যেমনটা ঘটেছে যশোরের কেশবপুরে। নিয়মিত নজরদারির ব্যবস্থা থাকলে খাল কোনভাবেই দখল বা ভরাটের শিকার হতে পারে না।

কেশবপুরের খালগুলোকে দখলমুক্ত করতে হবে। দখলমুক্ত হওয়ার পর পুনর্দখল যেন না হয় সেটা নিশ্চিত করা জরুরি। এটা দেশের সব খাল ও জলাশয়ের ক্ষেত্রেও নিশ্চিত করা প্রয়োজন। যে বা যারা এসব দখলের সঙ্গে যুক্ত তাদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে।

পথচারীবান্ধব ফুটপাতের আকাঙ্ক্ষা

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক দ্রুত সংস্কার করুন

সেতু নির্মাণ করে জনদুর্ভোগ লাঘব করুন

পাঠ্যবই ছাপার দরপত্র প্রসঙ্গে

নতুন শ্রমবাজারে নজর দিন

পেঁয়াজের দাম কেন বাড়ছে

নওগাঁয় সড়ক নির্মাণে অনিয়ম

জন্মনিবন্ধনে বাড়তি ফি আদায় বন্ধ করুন

দ্রুত বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ সংস্কার করুন

শিক্ষক লাঞ্ছনা ও শিক্ষক সংগঠনগুলোর ভূমিকা

আবাসিক হলগুলোতে শিক্ষার্থী নির্যাতন বন্ধ করুন

বন্যাপরবর্তী পুনর্বাসন কাজে সর্বাত্মক উদ্যোগ নিতে হবে

রাজধানীর খালগুলোকে দখলমুক্ত করুন

ভোজ্যতেলের দাম দেশের বাজারে কেন কমছে না

টিসিবির কার্ড বিতরণে অনিয়ম

রেলের দুর্দশা

ভূমিকম্পে বিপর্যস্ত আফগানিস্তানের পাশে দাঁড়ান

কিশোর-কিশোরী ক্লাবের নামে হরিলুট

চাই টেকসই বন্যা ব্যবস্থাপনা

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো নিয়ে বিতর্ক

ছত্রাকজনিত রোগের চিকিৎসা প্রসঙ্গে

পাহাড় ধসে মৃত্যু থামবে কবে

বজ্রপাতে মৃত্যু প্রতিরোধে জনসচেতনতা বাড়াতে হবে

এবার কি জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে

ফেরির টিকিট নিয়ে দালালদের অপতৎপরতা বন্ধ করুন

বন্যার্তদের সর্বাত্মক সহায়তা দিন

চিংড়ি পোনা নিধন প্রসঙ্গে

টানবাজারের রাসায়নিক দোকানগুলো সরিয়ে নিন

নদীর তীরের মাটি কাটা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মাদক বাণিজ্য বন্ধ করতে হলে শর্ষের ভূত তাড়াতে হবে

শূন্যপদে দ্রুত শিক্ষক নিয়োগ দিন

বন্যাদুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

ডেঙ্গু প্রতিরোধে এখনই সতর্ক হোন

বখাটেদের যন্ত্রণা থেকে নারীর মুক্তি মিলবে কীভাবে

নওগাঁয় আম চাষিদের হিমাগার স্থাপনের দাবি

tab

সম্পাদকীয়

খাল অবৈধ দখলমুক্ত করুন

বুধবার, ০৮ জুন ২০২২

যশোরের কেবপুর উপজেলার অর্ধশতাধিক খালে বাঁধ দিয়ে অবৈধভাবে মাছ চাষ করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। গত দুই দশকের বেশি সময় ধরে স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিরা মাছ চাষ করে আসছেন। ফলে শুষ্ক মৌসুমে একদিকে যেমন কৃষকের সেচের পানির সংকট দেখা দিচ্ছে, অন্যদিকে বর্ষা মৌসুমে দেখা দিচ্ছে জলাবদ্ধতা। ব্যাহত হচ্ছে কৃষকের চাষাবাদ, নানা দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এলাকার জনসাধারণের। এ নিয়ে গতকাল মঙ্গলবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

দখলের কারণে প্রকৃতি-পরিবেশ বা স্থানীয় জনসাধারণের কী ক্ষতি হলো সেটা দখলদাররা ভাবেন না। দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে এতগুলো খাল দখল হয়ে আছে, অথচ সেটি দেখার কেউ নেই। দেশের আরও অনেক এলাকায়ও এমন দখলের অভিযোগ মেলে। প্রশ্ন হচ্ছে, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কি জেগে জেগে ঘুমায়। কর্তৃপক্ষের নাকের ডগার ওপর দিয়ে সরকারি খাল দখল করে রাখা হয় অথচ এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয় না। এর কারণ কী সেটা আমরা জানতে চাইব। সরকার কৃষি কাজে সেচের জন্যে বিদ্যুৎ সংযোগসহ ভর্তুকি দিচ্ছে। সেই ভূগর্ভস্থ পানি উত্তোলন করে ঘের মালিকরা মাছ চাষ করছে। অথচ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয় না।

সারাদেশেই খাল বা জলাশয় দখলের মহোসৎব চলছে। যার যেমন খুশি সে তেমনভাবে খাল ব্যবহার করছে। সারাদেশ যেন এখন ‘জলাশয় বৈরী’ দেশে পরিণত হয়েছে। কোন জলাশয় রাতারাতি দখল বা ভরাট হয়ে যেতে পারে না। দীর্ঘ সময় ধরে সেটা ঘটে, যেমনটা ঘটেছে যশোরের কেশবপুরে। নিয়মিত নজরদারির ব্যবস্থা থাকলে খাল কোনভাবেই দখল বা ভরাটের শিকার হতে পারে না।

কেশবপুরের খালগুলোকে দখলমুক্ত করতে হবে। দখলমুক্ত হওয়ার পর পুনর্দখল যেন না হয় সেটা নিশ্চিত করা জরুরি। এটা দেশের সব খাল ও জলাশয়ের ক্ষেত্রেও নিশ্চিত করা প্রয়োজন। যে বা যারা এসব দখলের সঙ্গে যুক্ত তাদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে।

back to top