alt

সম্পাদকীয়

বস্তিবাসী নারীদের জন্য চাই নিরাপদ গোসলখানা

: সোমবার, ১৩ জুন ২০২২

রাজধানীর বিভিন্ন বস্তির ৭২ শতাংশ কিশোরী-তরুণী উন্মুক্ত গোসলখানায় নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কায় থাকে। এছাড়া উন্মুক্ত গোসলখানায় যৌন হয়রানির মতো ঘটনাও ঘটে থাকে। সম্প্রতি ‘নিরাপদ গোসলখানা সবার জন্য সবখানে’ স্লোগান নিয়ে রাজধানীর চারটি বস্তিতে প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ পরিচালিত এক জরিপ এমন তথ্য উঠে আসে।

জানা গেছে, জরিপ এলাকার ৯৯ শতাংশ গোসলখানাই উন্মুক্ত। এসব গোসলখানার মাত্র ১৫ শতাংশ মেয়েদের জন্য আলাদা, বাকিগুলো নারী-পুরুষ যৌথভাবেই ব্যবহার করে থাকে। এগুলোর ছাদ ও দেয়াল না থাকায় গোপনীয়তা বলতে কিছুই থাকে না।

দেশে পাঁচ হাজারের মতো বস্তি রয়েছে। বুয়েটের এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, শুধুমাত্র ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন এলাকায় বস্তি রয়েছে ৩ হাজার ৪০০টি। বস্তি এলাকার জীবনমানের মৌলিক ক্ষেত্রগুলোতে গুরুতর ঘাটতি রয়েছে। সেখানকার বাসিন্দারা মৌলিক অনেক সেবাই যথাযথভাবে পায় না। নিরাপদ গোসলখানা না থাকা সেই বঞ্চনারই অংশ।

দেশের বেশিরভাগ বস্তির বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। সাধারণত স্থানীয় ও রাজনৈতিকভাবে প্রভাবশালীরা এসব বস্তি গড়ে তোলে, নিয়ন্ত্রণ করে। তারা বস্তিবাসীর শুধু গোসলখানা নয় কোন সুযোগ-সুবিধার কথাই চিন্তা করেন না। নিয়মিত চাঁদা বা ভাড়া তুললেও বসবাসের ন্যূনতম কোন সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা করে না। বস্তির বাসিন্দাদেরও এমন সঙ্গতি নেই যে, তারা নিজ উদ্যোগে গোসলখানা নির্মাণ করবে। সেখানে যারা বসবাস করে তাদের টিকে থাকাই দায়।

বিভিন্ন সময় বস্তিবাসীর পুনর্বাসনের কথা বলা হয়। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে সহসাই তাদের পুর্নবাসন করা হচ্ছে না বা যাচ্ছে না। বস্তিবাসীর পুনর্বাসনসহ টেকসই সমাধানের পথ খুঁজতে হবে। তবে যতদিন এ সমস্যার সমাধান করা না যায় ততদিন গোসলখানার মতো কিছু জরুরি প্রয়োজনকে উপেক্ষা করা চলে না। প্রশ্ন হচ্ছে, তাদের এ সমস্যার সমাধান করবে কে? ইতোপূর্বে কিছু বেসরকারি সংস্থা এসব সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছে, তারা কিছু কিছু জায়গায় নিরাপদ গেসলখানা নির্মাণ করেছে। কিন্তু সেগুলো প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল।

বেসরকারি সংস্থার পাশাপশি সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলো এগিয়ে আসলে বস্তিবাসীর গোসলখানার মতো সমস্যার সমাধান হতে পারে। বিশেষ করে, রাজধানী ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনকে এ কাজে এগিয়ে আসতে হবে। যেসব বেসরকারি সংস্থা গোসলখানা নির্মাণ করেছে, তাদের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগানো যেতে পারে।

নিরাপদ গোসলখানার ব্যবস্থা করা গেলে বস্তিবাসী কিছুটা হলেও স্বস্তি পাবে, বিশেষ করে সেখানকার নারী বাসিন্দাদের হয়রানির অবসান হবে। তাই নারীদের নিরাপদ গোসলখানার প্রয়োজনীয়তার কথা এখনই ভাবতে হবে।

পথচারীবান্ধব ফুটপাতের আকাঙ্ক্ষা

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক দ্রুত সংস্কার করুন

সেতু নির্মাণ করে জনদুর্ভোগ লাঘব করুন

পাঠ্যবই ছাপার দরপত্র প্রসঙ্গে

নতুন শ্রমবাজারে নজর দিন

পেঁয়াজের দাম কেন বাড়ছে

নওগাঁয় সড়ক নির্মাণে অনিয়ম

জন্মনিবন্ধনে বাড়তি ফি আদায় বন্ধ করুন

দ্রুত বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ সংস্কার করুন

শিক্ষক লাঞ্ছনা ও শিক্ষক সংগঠনগুলোর ভূমিকা

আবাসিক হলগুলোতে শিক্ষার্থী নির্যাতন বন্ধ করুন

বন্যাপরবর্তী পুনর্বাসন কাজে সর্বাত্মক উদ্যোগ নিতে হবে

রাজধানীর খালগুলোকে দখলমুক্ত করুন

ভোজ্যতেলের দাম দেশের বাজারে কেন কমছে না

টিসিবির কার্ড বিতরণে অনিয়ম

রেলের দুর্দশা

ভূমিকম্পে বিপর্যস্ত আফগানিস্তানের পাশে দাঁড়ান

কিশোর-কিশোরী ক্লাবের নামে হরিলুট

চাই টেকসই বন্যা ব্যবস্থাপনা

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো নিয়ে বিতর্ক

ছত্রাকজনিত রোগের চিকিৎসা প্রসঙ্গে

পাহাড় ধসে মৃত্যু থামবে কবে

বজ্রপাতে মৃত্যু প্রতিরোধে জনসচেতনতা বাড়াতে হবে

এবার কি জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে

ফেরির টিকিট নিয়ে দালালদের অপতৎপরতা বন্ধ করুন

বন্যার্তদের সর্বাত্মক সহায়তা দিন

চিংড়ি পোনা নিধন প্রসঙ্গে

টানবাজারের রাসায়নিক দোকানগুলো সরিয়ে নিন

নদীর তীরের মাটি কাটা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মাদক বাণিজ্য বন্ধ করতে হলে শর্ষের ভূত তাড়াতে হবে

শূন্যপদে দ্রুত শিক্ষক নিয়োগ দিন

বন্যাদুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

ডেঙ্গু প্রতিরোধে এখনই সতর্ক হোন

বখাটেদের যন্ত্রণা থেকে নারীর মুক্তি মিলবে কীভাবে

নওগাঁয় আম চাষিদের হিমাগার স্থাপনের দাবি

tab

সম্পাদকীয়

বস্তিবাসী নারীদের জন্য চাই নিরাপদ গোসলখানা

সোমবার, ১৩ জুন ২০২২

রাজধানীর বিভিন্ন বস্তির ৭২ শতাংশ কিশোরী-তরুণী উন্মুক্ত গোসলখানায় নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কায় থাকে। এছাড়া উন্মুক্ত গোসলখানায় যৌন হয়রানির মতো ঘটনাও ঘটে থাকে। সম্প্রতি ‘নিরাপদ গোসলখানা সবার জন্য সবখানে’ স্লোগান নিয়ে রাজধানীর চারটি বস্তিতে প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ পরিচালিত এক জরিপ এমন তথ্য উঠে আসে।

জানা গেছে, জরিপ এলাকার ৯৯ শতাংশ গোসলখানাই উন্মুক্ত। এসব গোসলখানার মাত্র ১৫ শতাংশ মেয়েদের জন্য আলাদা, বাকিগুলো নারী-পুরুষ যৌথভাবেই ব্যবহার করে থাকে। এগুলোর ছাদ ও দেয়াল না থাকায় গোপনীয়তা বলতে কিছুই থাকে না।

দেশে পাঁচ হাজারের মতো বস্তি রয়েছে। বুয়েটের এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, শুধুমাত্র ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন এলাকায় বস্তি রয়েছে ৩ হাজার ৪০০টি। বস্তি এলাকার জীবনমানের মৌলিক ক্ষেত্রগুলোতে গুরুতর ঘাটতি রয়েছে। সেখানকার বাসিন্দারা মৌলিক অনেক সেবাই যথাযথভাবে পায় না। নিরাপদ গোসলখানা না থাকা সেই বঞ্চনারই অংশ।

দেশের বেশিরভাগ বস্তির বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। সাধারণত স্থানীয় ও রাজনৈতিকভাবে প্রভাবশালীরা এসব বস্তি গড়ে তোলে, নিয়ন্ত্রণ করে। তারা বস্তিবাসীর শুধু গোসলখানা নয় কোন সুযোগ-সুবিধার কথাই চিন্তা করেন না। নিয়মিত চাঁদা বা ভাড়া তুললেও বসবাসের ন্যূনতম কোন সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা করে না। বস্তির বাসিন্দাদেরও এমন সঙ্গতি নেই যে, তারা নিজ উদ্যোগে গোসলখানা নির্মাণ করবে। সেখানে যারা বসবাস করে তাদের টিকে থাকাই দায়।

বিভিন্ন সময় বস্তিবাসীর পুনর্বাসনের কথা বলা হয়। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে সহসাই তাদের পুর্নবাসন করা হচ্ছে না বা যাচ্ছে না। বস্তিবাসীর পুনর্বাসনসহ টেকসই সমাধানের পথ খুঁজতে হবে। তবে যতদিন এ সমস্যার সমাধান করা না যায় ততদিন গোসলখানার মতো কিছু জরুরি প্রয়োজনকে উপেক্ষা করা চলে না। প্রশ্ন হচ্ছে, তাদের এ সমস্যার সমাধান করবে কে? ইতোপূর্বে কিছু বেসরকারি সংস্থা এসব সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করছে, তারা কিছু কিছু জায়গায় নিরাপদ গেসলখানা নির্মাণ করেছে। কিন্তু সেগুলো প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল।

বেসরকারি সংস্থার পাশাপশি সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলো এগিয়ে আসলে বস্তিবাসীর গোসলখানার মতো সমস্যার সমাধান হতে পারে। বিশেষ করে, রাজধানী ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনকে এ কাজে এগিয়ে আসতে হবে। যেসব বেসরকারি সংস্থা গোসলখানা নির্মাণ করেছে, তাদের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগানো যেতে পারে।

নিরাপদ গোসলখানার ব্যবস্থা করা গেলে বস্তিবাসী কিছুটা হলেও স্বস্তি পাবে, বিশেষ করে সেখানকার নারী বাসিন্দাদের হয়রানির অবসান হবে। তাই নারীদের নিরাপদ গোসলখানার প্রয়োজনীয়তার কথা এখনই ভাবতে হবে।

back to top