alt

সম্পাদকীয়

বখাটেদের যন্ত্রণা থেকে নারীর মুক্তি মিলবে কীভাবে

: মঙ্গলবার, ১৪ জুন ২০২২

কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জের জঙ্গলবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের উত্ত্যক্ত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। উত্ত্যক্তকারীদের একজন একই বিদ্যালয়ের ছাত্র। বখাটেদের বাধা দেয়ায় উক্ত বিদ্যালয়ের চার নারী শিক্ষক হেনস্তার শিকার হয়েছেন। ঘটনার প্রতিবাদে ও বখাটেদের বিচারের দাবিতে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল করেছে। এ নিয়ে আজ সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

দেশে প্রায়ই ইভটিজিংয়ের ঘটনা ঘটে। উত্ত্যক্তকারীদের কর্মকান্ডের শিকার নারীর স্বাভাবিক জীবন ব্যাহত হয়। অনেক শিক্ষার্থীর শিক্ষাজীবনে ছন্দপতন ঘটে। বখাটেদের উৎপাতে অতিষ্ঠ হয়ে অনেকে আত্মহত্যার পথে পা বাড়ায়। বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার এক হিসাব অনুযায়ী, গত সাড়ে চার বছরে বখাটেদের যন্ত্রণায় আত্মহত্যা করেছেন ৬২ জন নারী। এই সময়ের মধ্যে যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন ৮২১ জন।

ইভটিজিং বা যৌন হয়রানির অনেক ঘটনাই থেকে যায় লোকচক্ষুর আড়ালে। হয়রানির শিকার অনেকেই তাদের সমস্যার কথা এমনকি পরিবারকেও জানায় না। সমাজের উল্লেখযোগ্য একটি অংশই ইভটিজিংকে গুরুতর সমস্যা বলে মনে করে না। একে তারা উঠতি বয়সী ছেলেদের স্বাভাবিক আচরণ হিসেবে গণ্য করে। বখাটেদের অভিভাবকরাও এর প্রতিকার করেন না। ভুক্তভোগী নারীর পক্ষে হয়রানির বোঝা টানা যে কতটা দুরূহ, এতে তার জীবনে কী নেতিবাচক প্রভাব পড়ে সেটা অনেকেই অনুধাবন করে না। দুর্ভাগ্যজনক বিষয় হচ্ছে, ভুক্তভোগী নারীর আপনজনরাও অনেক সময় তাকে ভুল বোঝে।

বখাটেদের উৎপাত বন্ধ করার দাবি উঠেছে। অনেকে বলছেন, এর জন্য পৃথক আইন করতে হবে। প্রশ্ন হচ্ছে, শুধু আইন করে কি সমস্যার টেকসই সমাধান করা সম্ভব। সমাজের মনোভাবে যদি ইতিবাচক পরিবর্তন না আসে তাহলে শুধু আইন দিয়ে অবস্থার খুব বেশি উন্নতি আশা করা যায় না।

বখাটেদের উৎপাত বন্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলা জরুরি। উত্ত্যক্তকারীদের সামাজিকভাবে বয়কট করতে হবে। তাদের অত্যাচার-নিপীড়নের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে হবে। ভিকটিম নারীর পাশে সবাইকে দাঁড়াতে হবে।

পাশাপাশি বখাটেদের আইনের মুখোমুখি করাও জরুরি। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হবে। আইন প্রয়োগে শৈথিল্য আর বিচারের দীর্ঘসূত্রতার অবসান ঘটানো গেলে নারীর সুরক্ষা অনেকটাই নিশ্চিত করা সম্ভব হবে বলে আমরা মনে করি।

কিশোরগঞ্জে শিক্ষার্থী উত্ত্যক্ত ও শিক্ষকদের হেনস্তা করার ঘটনার তদন্ত করে বিচার করতে হবে। বখাটে যে বা যারাই হোক না কেন তাদের ছাড় দেয়া চলবে না। হয়রানির শিকার ছাত্রীদের নিরাপত্তাও নিশ্চিত করতে হবে।

আবাসিক হলগুলোতে শিক্ষার্থী নির্যাতন বন্ধ করুন

বন্যাপরবর্তী পুনর্বাসন কাজে সর্বাত্মক উদ্যোগ নিতে হবে

রাজধানীর খালগুলোকে দখলমুক্ত করুন

ভোজ্যতেলের দাম দেশের বাজারে কেন কমছে না

টিসিবির কার্ড বিতরণে অনিয়ম

রেলের দুর্দশা

ভূমিকম্পে বিপর্যস্ত আফগানিস্তানের পাশে দাঁড়ান

কিশোর-কিশোরী ক্লাবের নামে হরিলুট

চাই টেকসই বন্যা ব্যবস্থাপনা

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো নিয়ে বিতর্ক

ছত্রাকজনিত রোগের চিকিৎসা প্রসঙ্গে

পাহাড় ধসে মৃত্যু থামবে কবে

বজ্রপাতে মৃত্যু প্রতিরোধে জনসচেতনতা বাড়াতে হবে

এবার কি জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে

ফেরির টিকিট নিয়ে দালালদের অপতৎপরতা বন্ধ করুন

বন্যার্তদের সর্বাত্মক সহায়তা দিন

চিংড়ি পোনা নিধন প্রসঙ্গে

টানবাজারের রাসায়নিক দোকানগুলো সরিয়ে নিন

নদীর তীরের মাটি কাটা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মাদক বাণিজ্য বন্ধ করতে হলে শর্ষের ভূত তাড়াতে হবে

শূন্যপদে দ্রুত শিক্ষক নিয়োগ দিন

বন্যাদুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

ডেঙ্গু প্রতিরোধে এখনই সতর্ক হোন

নওগাঁয় আম চাষিদের হিমাগার স্থাপনের দাবি

বস্তিবাসী নারীদের জন্য চাই নিরাপদ গোসলখানা

শিল্পবর্জ্যে বিপন্ন পরিবেশ

বস্তিবাসীর সমস্যার টেকসই সমাধান করতে হবে

শিশু নিপীড়ন রোধের দায়িত্ব নিত হবে সমাজকে

বিজেপির দুই নেতার বিরুদ্ধে ধর্মীয় অবমাননার অভিযোগ প্রসঙ্গে

অনুকরণীয় উদাহরণ

টিলা ধসে মৃত্যু প্রসঙ্গে

বাজেট : মানুষের স্বস্তি আর দেশের উন্নতির বাসনা

খাল অবৈধ দখলমুক্ত করুন

মজুরি বৈষম্যের অবসান চাই

‘ঢলন’ প্রথা থেকে আমচাষিদের মুক্তি দিতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

বখাটেদের যন্ত্রণা থেকে নারীর মুক্তি মিলবে কীভাবে

মঙ্গলবার, ১৪ জুন ২০২২

কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জের জঙ্গলবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের উত্ত্যক্ত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। উত্ত্যক্তকারীদের একজন একই বিদ্যালয়ের ছাত্র। বখাটেদের বাধা দেয়ায় উক্ত বিদ্যালয়ের চার নারী শিক্ষক হেনস্তার শিকার হয়েছেন। ঘটনার প্রতিবাদে ও বখাটেদের বিচারের দাবিতে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল করেছে। এ নিয়ে আজ সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

দেশে প্রায়ই ইভটিজিংয়ের ঘটনা ঘটে। উত্ত্যক্তকারীদের কর্মকান্ডের শিকার নারীর স্বাভাবিক জীবন ব্যাহত হয়। অনেক শিক্ষার্থীর শিক্ষাজীবনে ছন্দপতন ঘটে। বখাটেদের উৎপাতে অতিষ্ঠ হয়ে অনেকে আত্মহত্যার পথে পা বাড়ায়। বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার এক হিসাব অনুযায়ী, গত সাড়ে চার বছরে বখাটেদের যন্ত্রণায় আত্মহত্যা করেছেন ৬২ জন নারী। এই সময়ের মধ্যে যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন ৮২১ জন।

ইভটিজিং বা যৌন হয়রানির অনেক ঘটনাই থেকে যায় লোকচক্ষুর আড়ালে। হয়রানির শিকার অনেকেই তাদের সমস্যার কথা এমনকি পরিবারকেও জানায় না। সমাজের উল্লেখযোগ্য একটি অংশই ইভটিজিংকে গুরুতর সমস্যা বলে মনে করে না। একে তারা উঠতি বয়সী ছেলেদের স্বাভাবিক আচরণ হিসেবে গণ্য করে। বখাটেদের অভিভাবকরাও এর প্রতিকার করেন না। ভুক্তভোগী নারীর পক্ষে হয়রানির বোঝা টানা যে কতটা দুরূহ, এতে তার জীবনে কী নেতিবাচক প্রভাব পড়ে সেটা অনেকেই অনুধাবন করে না। দুর্ভাগ্যজনক বিষয় হচ্ছে, ভুক্তভোগী নারীর আপনজনরাও অনেক সময় তাকে ভুল বোঝে।

বখাটেদের উৎপাত বন্ধ করার দাবি উঠেছে। অনেকে বলছেন, এর জন্য পৃথক আইন করতে হবে। প্রশ্ন হচ্ছে, শুধু আইন করে কি সমস্যার টেকসই সমাধান করা সম্ভব। সমাজের মনোভাবে যদি ইতিবাচক পরিবর্তন না আসে তাহলে শুধু আইন দিয়ে অবস্থার খুব বেশি উন্নতি আশা করা যায় না।

বখাটেদের উৎপাত বন্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলা জরুরি। উত্ত্যক্তকারীদের সামাজিকভাবে বয়কট করতে হবে। তাদের অত্যাচার-নিপীড়নের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে হবে। ভিকটিম নারীর পাশে সবাইকে দাঁড়াতে হবে।

পাশাপাশি বখাটেদের আইনের মুখোমুখি করাও জরুরি। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হবে। আইন প্রয়োগে শৈথিল্য আর বিচারের দীর্ঘসূত্রতার অবসান ঘটানো গেলে নারীর সুরক্ষা অনেকটাই নিশ্চিত করা সম্ভব হবে বলে আমরা মনে করি।

কিশোরগঞ্জে শিক্ষার্থী উত্ত্যক্ত ও শিক্ষকদের হেনস্তা করার ঘটনার তদন্ত করে বিচার করতে হবে। বখাটে যে বা যারাই হোক না কেন তাদের ছাড় দেয়া চলবে না। হয়রানির শিকার ছাত্রীদের নিরাপত্তাও নিশ্চিত করতে হবে।

back to top