alt

সম্পাদকীয়

ফেরির টিকিট নিয়ে দালালদের অপতৎপরতা বন্ধ করুন

: শনিবার, ১৮ জুন ২০২২

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের প্রবেশদ্বারখ্যাত দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ফেরির টিকিট পেতে যানবাহন চালকদের ভোগান্তির অভিযোগ দীর্ঘদিনের। সেখানে টিকিট কাটা থেকে শুরু করে ফেরিতে ওঠা পর্যন্ত পদে পদে হয়রানির শিকার হতে হয় চালকদের। দীর্ঘদিন ধরে ঘাটে ফেরির টিকিট কাউন্টার ঘিরে গড়ে উঠেছে শক্তিশালী দালাল চক্র। মূলত এ চক্রের কাছেই জিম্মি রয়েছেন পরিবহন চালকসহ সংশ্লিষ্টরা। এ নিয়ে আজ সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

দালাল চক্র যানবাহনের চালকদের কাছ থেকে টিকিট বাবদ নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে অতিরিক্ত অর্থ নিয়ে থাকে। পাশাপাশি তারা জাল টিকিটও বিক্রি করে। ফলে এসব টিকিট নিয়ে ফেরিতে উঠতে গেলে আরেক দফা ভোগান্তিতে পড়তে হয়। দালাল চক্র বিভিন্ন প্রকার পণ্যবাহী ট্রাকচালকদের থেকে অতিরিক্ত টাকা নিয়ে অনৈতিক সুযোগ করে দেয়। নিয়ম ভেঙে ফেরি পার করার জন্য টাকার বিনিময়ে তারা এসব গাড়ি সামনে নিয়ে যায়। ফলে যানবাহনের বিশৃঙ্খলা তৈরি হয়, উভয় ঘাটে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়। দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া ঘাটে যানজট হওয়ার অন্যতম কারণ এটি।

গোয়ালন্দ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেছেন, দালাল চক্রের শতাধিক সদস্যকে আটক করে মামলা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে শাস্তি দেয়া হয়েছে। তারপরও সম্পূর্ণ বন্ধ করা সম্ভব হয়নি। তবে ফেরির টিকিট অনলাইনে পাওয়া গেলে দালালদের নিয়ন্ত্রণ করা অনেকটা সহজ হয়ে যাবে। এজন্য ই-টিকিটিং ব্যবস্থা চালু করতে হবে।

অন্যদিকে ফেরির টিকিটিংয়ের দালাল চক্র নিয়ন্ত্রণে আইটি বিশেষজ্ঞদের মতামতসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি প্রস্তাবনা প্রেরণ করা হয়েছে বলে গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিস সূত্রে জানা গেছে। আমরা তাদের এ প্রচেষ্টাকে সাধুবাদ জানাই।

দেশে যাত্রী পরিবহনের আকাশ পথে ই-টিকিটিং ব্যবস্থা চালু হয়েছে বহু আগেই। পাশাপাশি সড়ক, রেলপথসহ নৌপথেও ই-টিকিটিংসহ অগ্রীম টিকিটের ব্যবস্থা আছে। এক্ষেত্রে কাক্সিক্ষত সুফলও পাওয়া যাচ্ছে। দেশে ই-টিকিটিংয়ের ব্যবস্থা যেমন নতুন নয়, তেমনি বিষয়টি জটিলও কিছু নয়। দেশের অনেক কিছুই এখন ডিজিটাল পদ্ধতিতে চলছে। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউএ) ফেরি পারাপারে এতদিনেও কেন ই-টিকিটিংয়ের ব্যবস্থা চালু করল না সেটা একটা প্রশ্ন।

আমরা আশা করব, বিআইডব্লিউএ খুব দ্রুত ই-টিকিটিংয়ের ব্যবস্থা চালুর উদ্যোগ গ্রহণ করবে। পাশাপাশি যতদিন এ ব্যবস্থা চালু না হয় ততদিন দালাল চক্রের বিরুদ্ধে পুলিশের তৎপরতা ও অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে। আমরা বিশ্বাস করি, পুলিশ আন্তরিক হলে দালালদের দৌরাত্ম্য সম্পূর্ণভাবে বন্ধ হবে।

আবাসিক হলগুলোতে শিক্ষার্থী নির্যাতন বন্ধ করুন

বন্যাপরবর্তী পুনর্বাসন কাজে সর্বাত্মক উদ্যোগ নিতে হবে

রাজধানীর খালগুলোকে দখলমুক্ত করুন

ভোজ্যতেলের দাম দেশের বাজারে কেন কমছে না

টিসিবির কার্ড বিতরণে অনিয়ম

রেলের দুর্দশা

ভূমিকম্পে বিপর্যস্ত আফগানিস্তানের পাশে দাঁড়ান

কিশোর-কিশোরী ক্লাবের নামে হরিলুট

চাই টেকসই বন্যা ব্যবস্থাপনা

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো নিয়ে বিতর্ক

ছত্রাকজনিত রোগের চিকিৎসা প্রসঙ্গে

পাহাড় ধসে মৃত্যু থামবে কবে

বজ্রপাতে মৃত্যু প্রতিরোধে জনসচেতনতা বাড়াতে হবে

এবার কি জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে

বন্যার্তদের সর্বাত্মক সহায়তা দিন

চিংড়ি পোনা নিধন প্রসঙ্গে

টানবাজারের রাসায়নিক দোকানগুলো সরিয়ে নিন

নদীর তীরের মাটি কাটা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মাদক বাণিজ্য বন্ধ করতে হলে শর্ষের ভূত তাড়াতে হবে

শূন্যপদে দ্রুত শিক্ষক নিয়োগ দিন

বন্যাদুর্গতদের পাশে দাঁড়ান

ডেঙ্গু প্রতিরোধে এখনই সতর্ক হোন

বখাটেদের যন্ত্রণা থেকে নারীর মুক্তি মিলবে কীভাবে

নওগাঁয় আম চাষিদের হিমাগার স্থাপনের দাবি

বস্তিবাসী নারীদের জন্য চাই নিরাপদ গোসলখানা

শিল্পবর্জ্যে বিপন্ন পরিবেশ

বস্তিবাসীর সমস্যার টেকসই সমাধান করতে হবে

শিশু নিপীড়ন রোধের দায়িত্ব নিত হবে সমাজকে

বিজেপির দুই নেতার বিরুদ্ধে ধর্মীয় অবমাননার অভিযোগ প্রসঙ্গে

অনুকরণীয় উদাহরণ

টিলা ধসে মৃত্যু প্রসঙ্গে

বাজেট : মানুষের স্বস্তি আর দেশের উন্নতির বাসনা

খাল অবৈধ দখলমুক্ত করুন

মজুরি বৈষম্যের অবসান চাই

‘ঢলন’ প্রথা থেকে আমচাষিদের মুক্তি দিতে হবে

tab

সম্পাদকীয়

ফেরির টিকিট নিয়ে দালালদের অপতৎপরতা বন্ধ করুন

শনিবার, ১৮ জুন ২০২২

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের প্রবেশদ্বারখ্যাত দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ফেরির টিকিট পেতে যানবাহন চালকদের ভোগান্তির অভিযোগ দীর্ঘদিনের। সেখানে টিকিট কাটা থেকে শুরু করে ফেরিতে ওঠা পর্যন্ত পদে পদে হয়রানির শিকার হতে হয় চালকদের। দীর্ঘদিন ধরে ঘাটে ফেরির টিকিট কাউন্টার ঘিরে গড়ে উঠেছে শক্তিশালী দালাল চক্র। মূলত এ চক্রের কাছেই জিম্মি রয়েছেন পরিবহন চালকসহ সংশ্লিষ্টরা। এ নিয়ে আজ সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

দালাল চক্র যানবাহনের চালকদের কাছ থেকে টিকিট বাবদ নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে অতিরিক্ত অর্থ নিয়ে থাকে। পাশাপাশি তারা জাল টিকিটও বিক্রি করে। ফলে এসব টিকিট নিয়ে ফেরিতে উঠতে গেলে আরেক দফা ভোগান্তিতে পড়তে হয়। দালাল চক্র বিভিন্ন প্রকার পণ্যবাহী ট্রাকচালকদের থেকে অতিরিক্ত টাকা নিয়ে অনৈতিক সুযোগ করে দেয়। নিয়ম ভেঙে ফেরি পার করার জন্য টাকার বিনিময়ে তারা এসব গাড়ি সামনে নিয়ে যায়। ফলে যানবাহনের বিশৃঙ্খলা তৈরি হয়, উভয় ঘাটে তীব্র যানজট সৃষ্টি হয়। দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া ঘাটে যানজট হওয়ার অন্যতম কারণ এটি।

গোয়ালন্দ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেছেন, দালাল চক্রের শতাধিক সদস্যকে আটক করে মামলা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে শাস্তি দেয়া হয়েছে। তারপরও সম্পূর্ণ বন্ধ করা সম্ভব হয়নি। তবে ফেরির টিকিট অনলাইনে পাওয়া গেলে দালালদের নিয়ন্ত্রণ করা অনেকটা সহজ হয়ে যাবে। এজন্য ই-টিকিটিং ব্যবস্থা চালু করতে হবে।

অন্যদিকে ফেরির টিকিটিংয়ের দালাল চক্র নিয়ন্ত্রণে আইটি বিশেষজ্ঞদের মতামতসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি প্রস্তাবনা প্রেরণ করা হয়েছে বলে গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিস সূত্রে জানা গেছে। আমরা তাদের এ প্রচেষ্টাকে সাধুবাদ জানাই।

দেশে যাত্রী পরিবহনের আকাশ পথে ই-টিকিটিং ব্যবস্থা চালু হয়েছে বহু আগেই। পাশাপাশি সড়ক, রেলপথসহ নৌপথেও ই-টিকিটিংসহ অগ্রীম টিকিটের ব্যবস্থা আছে। এক্ষেত্রে কাক্সিক্ষত সুফলও পাওয়া যাচ্ছে। দেশে ই-টিকিটিংয়ের ব্যবস্থা যেমন নতুন নয়, তেমনি বিষয়টি জটিলও কিছু নয়। দেশের অনেক কিছুই এখন ডিজিটাল পদ্ধতিতে চলছে। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউএ) ফেরি পারাপারে এতদিনেও কেন ই-টিকিটিংয়ের ব্যবস্থা চালু করল না সেটা একটা প্রশ্ন।

আমরা আশা করব, বিআইডব্লিউএ খুব দ্রুত ই-টিকিটিংয়ের ব্যবস্থা চালুর উদ্যোগ গ্রহণ করবে। পাশাপাশি যতদিন এ ব্যবস্থা চালু না হয় ততদিন দালাল চক্রের বিরুদ্ধে পুলিশের তৎপরতা ও অভিযান অব্যাহত রাখতে হবে। আমরা বিশ্বাস করি, পুলিশ আন্তরিক হলে দালালদের দৌরাত্ম্য সম্পূর্ণভাবে বন্ধ হবে।

back to top