alt

সম্পাদকীয়

বন্যাপরবর্তী পুনর্বাসন কাজে সর্বাত্মক উদ্যোগ নিতে হবে

: রোববার, ২৬ জুন ২০২২

সিলেট অঞ্চলে বন্যার পানি কমেছে, তবে সেখানকার মানুষের দুর্ভোগ শেষ হয়নি। অনেক মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘরে ফিরেছে। অভিযোগ উঠেছে, বন্যাদুর্গত অনেক মানুষ প্রয়োজনীয় ত্রাণ পায়নি। বিশেষ করে প্রত্যন্ত অঞ্চলের বাসিন্দাদের কাছে ত্রাণ পৌঁছানো যাচ্ছে না বলে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে। বন্যাদুর্গত অনেক এলাকায় ডায়রিয়াসহ পানিবাহিত রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে।

দুর্গম ও প্রত্যন্ত এলাকায় ত্রাণ পৌঁছানোই বেশি জরুরি। ত্রাণ না পেলে তাদের পক্ষে বিকল্প কোন ব্যবস্থা করা কঠিন হয়ে পড়ে। প্রয়োজনীয় খাদ্য সহায়তা না পাওয়ায় প্রায় দিনই লাখো মানুষকে অনাহারে-অর্ধাহারে থাকতে হয়েছে। এমনকি ত্রাণ শিবিরগুলোতেও খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছিল বলে জানা যাচ্ছে। আমাদের মনে রাখতে হবে যে, আশ্রয়শিবিরের বাইরেও অসংখ্য মানুষ রয়ে গেছে।

দুর্গম এলাকায় ত্রাণ পৌঁছানোর কাজে যেমন দুর্বলতা দেখা গেছে, তেমন কিছু অব্যবস্থাপনার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগ উঠেছে যে, কোন কোন এলাকায় একশ্রেণির মানুষ বরাদ্দের চেয়েও চার-পাঁচগুণ বেশি ত্রাণ পেয়েছে। যদিও প্রশ্ন রয়েছে যে, বন্যা দুর্গতদের প্রয়োজন অনুযায়ী ত্রাণ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে কিনা। ত্রাণ বিতরণে কোন কোন স্থানে বিশৃঙ্খলার খবর মিলেছে। ত্রাণ নিতে গিয়ে কোন কোন স্থানে দুর্গতরা আহত হয়েছে বলেও খবর প্রকাশিত হয়েছে।

ত্রাণ বিতরণে দুর্বলতাগুলো চিহ্নিত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া জরুরি। দুর্গম যেসব এলাকার মানুষ প্রয়োজনীয় ত্রাণ পায়নি তাদের কাছে জরুরিভিত্তিতে সাহায্য পৌঁছাতে হবে। এক্ষেত্রে স্থানীয় প্রশাসনকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে।

এবারের বন্যা বিশেষ করে সিলেট অঞ্চলের বন্যা অনেক বড় আকার ধারণ করেছে। কাজেই সমস্যা-সংকট তীব্র আকার ধারণ করেছে। বন্যাজনিত রোগে ভুগছে সংশ্লিষ্ট এলাকার মানুষ। এসব মানুষের সুচিকিৎসা নিশ্চিত করতে হবে। প্রয়োজনীয় ওষুধ সরবরাহ করতে হবে। কোনো রোগীর অবস্থা সংকটাপন্ন হলে তারা যেন দ্রুত চিকিৎসাকেন্দ্রে যায় সেজন্য তাদের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করা দরকার।

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের দ্রুত পুনর্বাসন করা দরকার। দরিদ্র যেসব মানুষের বসতভিটা থাকবার উপযোগিতা হারিয়েছে তাদের ঘর সংস্কারে সহায়তা দিতে হবে। ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তাঘাট জরুরিভিত্তিতে মেরামত করতে হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে দ্রুততম সময়ে প্রস্তত করতে হবে; যাতে শিক্ষার্থীরা সেখানে পাঠ গ্রহণ করতে পারে। বন্যাপরবর্তী পুনর্বাসন কাজে সর্বাত্মক উদ্যোগ নিতে হবে।

পদ্মা সেতুর কাছে বালু উত্তোলন প্রসঙ্গে

নিত্যপণ্যের দাম : সাধারণ মানুষের কথা ভাবতে হবে

মহাসড়ক দখলমুক্ত করুন

পরিবহন শ্রমিকদের বেপরোয়া মনোভাব বদলাতে প্রশিক্ষণ দিতে হবে

সরকারি গাছ বিক্রিতে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

আশুরা : ন্যায় ও আত্মত্যাগের প্রেরণা

বিএডিসির গুদাম সংকট

গণপরিবহনের ভাড়া বৃদ্ধি বোঝার উপর শাকের আঁটি

জনশক্তি রপ্তানি ও দক্ষ লোকবল

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর এই চাপ মানুষ কি সামলাতে পারবে

ভিজিএফের চাল বিতরণে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করুন

সরকারি কর্তাব্যক্তিদের বিদেশ সফর প্রসঙ্গে

ওয়াশ প্লান্ট ব্যবহারে রেল কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা

জলবায়ু পরিবর্তনজনিত প্রভাব মোকাবিলার চ্যালেঞ্জ

মহাসড়ক প্রশস্ত করুন

হাসি ফুটুক কৃষকের মুখে

খাল রক্ষায় চাই জনসচেতনতা

রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ইসির সংলাপ প্রসঙ্গে

বুড়িগঙ্গার দূষণ রোধে সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

সংখ্যালঘু নির্যাতনের কঠোর বিচার করুন

বাঘ রক্ষা করতে হলে সুন্দরবনকে বাঁচাতে হবে

মানবপাচার বন্ধে নতুন চ্যালেঞ্জ

বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে নজরদারি বাড়ান

চাই সুরক্ষিত রেলক্রসিং

হেপাটাইটিস প্রতিরোধে তৎপরতা বাড়ান

পুলিশের গুলিতে শিশু মৃত্যুর ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হোক

এনআইডি সংশোধন প্রসঙ্গে

বেড়েই চলেছে ডেঙ্গুজ্বর

পানিতে ডুবে মৃত্যু রোধে সচেতনতা বাড়াতে হবে

রাজধানীর প্রবেশমুখের যানজট নিরসনে ব্যবস্থা নিন

পর্যটকদের এই করুণ মৃত্যু কাম্য নয়

কারাগারে নির্যাতনের অভিযোগ আমলে নিন

ছিনতাইকারী আটক : পুলিশ ও সাধারণ মানুষের ভূমিকা

রেল ক্রসিংয়ে দুর্ঘটনার দায় কর্তৃপক্ষ এড়াবে কীভাবে

সিলেট নগরীর জলাবদ্ধতা

এবার কি সরবে কাওরান বাজার

tab

সম্পাদকীয়

বন্যাপরবর্তী পুনর্বাসন কাজে সর্বাত্মক উদ্যোগ নিতে হবে

রোববার, ২৬ জুন ২০২২

সিলেট অঞ্চলে বন্যার পানি কমেছে, তবে সেখানকার মানুষের দুর্ভোগ শেষ হয়নি। অনেক মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘরে ফিরেছে। অভিযোগ উঠেছে, বন্যাদুর্গত অনেক মানুষ প্রয়োজনীয় ত্রাণ পায়নি। বিশেষ করে প্রত্যন্ত অঞ্চলের বাসিন্দাদের কাছে ত্রাণ পৌঁছানো যাচ্ছে না বলে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে। বন্যাদুর্গত অনেক এলাকায় ডায়রিয়াসহ পানিবাহিত রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে।

দুর্গম ও প্রত্যন্ত এলাকায় ত্রাণ পৌঁছানোই বেশি জরুরি। ত্রাণ না পেলে তাদের পক্ষে বিকল্প কোন ব্যবস্থা করা কঠিন হয়ে পড়ে। প্রয়োজনীয় খাদ্য সহায়তা না পাওয়ায় প্রায় দিনই লাখো মানুষকে অনাহারে-অর্ধাহারে থাকতে হয়েছে। এমনকি ত্রাণ শিবিরগুলোতেও খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছিল বলে জানা যাচ্ছে। আমাদের মনে রাখতে হবে যে, আশ্রয়শিবিরের বাইরেও অসংখ্য মানুষ রয়ে গেছে।

দুর্গম এলাকায় ত্রাণ পৌঁছানোর কাজে যেমন দুর্বলতা দেখা গেছে, তেমন কিছু অব্যবস্থাপনার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগ উঠেছে যে, কোন কোন এলাকায় একশ্রেণির মানুষ বরাদ্দের চেয়েও চার-পাঁচগুণ বেশি ত্রাণ পেয়েছে। যদিও প্রশ্ন রয়েছে যে, বন্যা দুর্গতদের প্রয়োজন অনুযায়ী ত্রাণ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে কিনা। ত্রাণ বিতরণে কোন কোন স্থানে বিশৃঙ্খলার খবর মিলেছে। ত্রাণ নিতে গিয়ে কোন কোন স্থানে দুর্গতরা আহত হয়েছে বলেও খবর প্রকাশিত হয়েছে।

ত্রাণ বিতরণে দুর্বলতাগুলো চিহ্নিত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া জরুরি। দুর্গম যেসব এলাকার মানুষ প্রয়োজনীয় ত্রাণ পায়নি তাদের কাছে জরুরিভিত্তিতে সাহায্য পৌঁছাতে হবে। এক্ষেত্রে স্থানীয় প্রশাসনকে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে।

এবারের বন্যা বিশেষ করে সিলেট অঞ্চলের বন্যা অনেক বড় আকার ধারণ করেছে। কাজেই সমস্যা-সংকট তীব্র আকার ধারণ করেছে। বন্যাজনিত রোগে ভুগছে সংশ্লিষ্ট এলাকার মানুষ। এসব মানুষের সুচিকিৎসা নিশ্চিত করতে হবে। প্রয়োজনীয় ওষুধ সরবরাহ করতে হবে। কোনো রোগীর অবস্থা সংকটাপন্ন হলে তারা যেন দ্রুত চিকিৎসাকেন্দ্রে যায় সেজন্য তাদের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করা দরকার।

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদের দ্রুত পুনর্বাসন করা দরকার। দরিদ্র যেসব মানুষের বসতভিটা থাকবার উপযোগিতা হারিয়েছে তাদের ঘর সংস্কারে সহায়তা দিতে হবে। ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তাঘাট জরুরিভিত্তিতে মেরামত করতে হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে দ্রুততম সময়ে প্রস্তত করতে হবে; যাতে শিক্ষার্থীরা সেখানে পাঠ গ্রহণ করতে পারে। বন্যাপরবর্তী পুনর্বাসন কাজে সর্বাত্মক উদ্যোগ নিতে হবে।

back to top