alt

সম্পাদকীয়

বেড়েই চলেছে ডেঙ্গুজ্বর

: বৃহস্পতিবার, ২৮ জুলাই ২০২২

ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে গত সোমবার সকাল ৮টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৯৯ জন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হিসাব অনুযায়ী, চলতি বছরের মধ্যে এদিনই সর্বাধিক রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে গত ২৭ জুলাই পর্যন্ত ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে মোট ২ হাজার ৩৬৬ জন। এর মধ্যে ঢাকায় ২ হাজার ৯ জন ও ঢাকার বাইরে ৩৫৭ জন। চিকিৎসা শেষে ছাড়পত্র নিয়েছে ২ হাজার ৪৭ জন। আর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন ৮ জন। এ বছর কক্সবাজার জেলায় সর্বোচ্চ মৃত্যু হয়েছে পাঁচজনের। ঢাকায় মৃত্যু হয়েছে তিনজনের। গত বছরের জানুয়ারি থেকে জুলাই পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছিলেন ২ হাজার ৫০০ জনেরও বেশি মানুষ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার এক জরিপে গত বছরের তুলনায় এ বছর রাজধানীতে মশা বেশি দেখা গেছে। তাই জনস্বাস্থ্যবিদরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন, এ বছর ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়তে পারে, বিশেষ করে জুলাই মাসে। এসব তথ্য ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের সংশ্লিষ্ট দপ্তরে জানানো হয়েছে। সে অনুযায়ী তারা ক্র্যাশ প্রোগ্রামও শুরু করে।

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণের মূলমন্ত্র এডিস মশার বিস্তার রোধ করা। এজন্য ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নিয়মিত মশার ওষুধ ছিটানোর পাশাপশি নানা সচেতনতামূলক কাজ করছে বলে জানা গেছে। তবে সিটি করপোরেশন নানা উদ্যোগের কথা বললেও এসব কতটা কার্যকর, তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। কারণ দিন দিন ডেঙ্গু আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বেড়েই চলছে। তাদের এ কর্যক্রম আরও বাড়াতে হবে, গতিশীল করতে হবে। মশা নিধনে উভয় সিটি করপোরেশনকে চিরুনি অভিযান পরিচালনা করতে হবে।

সাধারণত জুন থেকে সেপ্টেম্বর- এ সময় ডেঙ্গুর প্রকোপ বেশি দেখা যায়। তবে বিশেষজ্ঞরা এই বলে সতর্ক করেছেন যে, এখন ডেঙ্গু রোগের নির্দিষ্ট কোন মৌসুম নেই। সারা বছরই মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হতে পারে। আগে মনে করা হতো ডেঙ্গু নগরকেন্দ্রিক রোগ। কিন্তু নগরের বাইরেও দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে এ রোগে আক্রান্ত ও মৃত্যুর খবর পাওয়া যাচ্ছে। মশা নিধনে সারা বছরই কাজ করা দরকার। শুধু মৌসুম ধরে বিশেষ ব্যবস্থা নিলে নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না। রাজধানীর বাইরের শহরগুলোতেও মাশা নিধনে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে।

ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হলে দেরি না করে চিকিৎসা নিতে হবে। এজন্য ডেঙ্গুজ্বরের লক্ষণ জানা জরুরি। প্রাথমিক পর্যায়ে শনাক্ত হলে ঘরে বসেই চিকিৎসা নেওয়া সম্ভব। সম্পূর্ণ ভালো না হওয়া পর্যন্ত বিশ্রামে থাকতে হবে। যথেষ্ট পরিমাণে পানি, শরবত, ডাবের পানি ও অন্যান্য তরল-জাতীয় খাবার খেতে হবে। শুরুতে যদি ব্যবস্থা না নেওয়া হয় তাহলে জটিল আকার ধারণ করতে পারে। এমনটা হলে তাড়াতাড়ি হাসপাতালে নিতে হবে।

মহাসড়ক দখলমুক্ত করুন

পরিবহন শ্রমিকদের বেপরোয়া মনোভাব বদলাতে প্রশিক্ষণ দিতে হবে

সরকারি গাছ বিক্রিতে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

আশুরা : ন্যায় ও আত্মত্যাগের প্রেরণা

বিএডিসির গুদাম সংকট

গণপরিবহনের ভাড়া বৃদ্ধি বোঝার উপর শাকের আঁটি

জনশক্তি রপ্তানি ও দক্ষ লোকবল

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর এই চাপ মানুষ কি সামলাতে পারবে

ভিজিএফের চাল বিতরণে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করুন

সরকারি কর্তাব্যক্তিদের বিদেশ সফর প্রসঙ্গে

ওয়াশ প্লান্ট ব্যবহারে রেল কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা

জলবায়ু পরিবর্তনজনিত প্রভাব মোকাবিলার চ্যালেঞ্জ

মহাসড়ক প্রশস্ত করুন

হাসি ফুটুক কৃষকের মুখে

খাল রক্ষায় চাই জনসচেতনতা

রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ইসির সংলাপ প্রসঙ্গে

বুড়িগঙ্গার দূষণ রোধে সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

সংখ্যালঘু নির্যাতনের কঠোর বিচার করুন

বাঘ রক্ষা করতে হলে সুন্দরবনকে বাঁচাতে হবে

মানবপাচার বন্ধে নতুন চ্যালেঞ্জ

বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে নজরদারি বাড়ান

চাই সুরক্ষিত রেলক্রসিং

হেপাটাইটিস প্রতিরোধে তৎপরতা বাড়ান

পুলিশের গুলিতে শিশু মৃত্যুর ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হোক

এনআইডি সংশোধন প্রসঙ্গে

পানিতে ডুবে মৃত্যু রোধে সচেতনতা বাড়াতে হবে

রাজধানীর প্রবেশমুখের যানজট নিরসনে ব্যবস্থা নিন

পর্যটকদের এই করুণ মৃত্যু কাম্য নয়

কারাগারে নির্যাতনের অভিযোগ আমলে নিন

ছিনতাইকারী আটক : পুলিশ ও সাধারণ মানুষের ভূমিকা

রেল ক্রসিংয়ে দুর্ঘটনার দায় কর্তৃপক্ষ এড়াবে কীভাবে

সিলেট নগরীর জলাবদ্ধতা

এবার কি সরবে কাওরান বাজার

বিশ্ববিদ্যালয়ে যৌন নিপীড়ন প্রতিরোধে কঠোর হোন

বিএসএফের মহাপরিচালকের বক্তব্য প্রসঙ্গে

অবৈধভাবে কিডনি কেনাবেচা বন্ধে কঠোর হোন

tab

সম্পাদকীয়

বেড়েই চলেছে ডেঙ্গুজ্বর

বৃহস্পতিবার, ২৮ জুলাই ২০২২

ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে গত সোমবার সকাল ৮টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৯৯ জন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হিসাব অনুযায়ী, চলতি বছরের মধ্যে এদিনই সর্বাধিক রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে গত ২৭ জুলাই পর্যন্ত ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে মোট ২ হাজার ৩৬৬ জন। এর মধ্যে ঢাকায় ২ হাজার ৯ জন ও ঢাকার বাইরে ৩৫৭ জন। চিকিৎসা শেষে ছাড়পত্র নিয়েছে ২ হাজার ৪৭ জন। আর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন ৮ জন। এ বছর কক্সবাজার জেলায় সর্বোচ্চ মৃত্যু হয়েছে পাঁচজনের। ঢাকায় মৃত্যু হয়েছে তিনজনের। গত বছরের জানুয়ারি থেকে জুলাই পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছিলেন ২ হাজার ৫০০ জনেরও বেশি মানুষ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার এক জরিপে গত বছরের তুলনায় এ বছর রাজধানীতে মশা বেশি দেখা গেছে। তাই জনস্বাস্থ্যবিদরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন, এ বছর ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়তে পারে, বিশেষ করে জুলাই মাসে। এসব তথ্য ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের সংশ্লিষ্ট দপ্তরে জানানো হয়েছে। সে অনুযায়ী তারা ক্র্যাশ প্রোগ্রামও শুরু করে।

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণের মূলমন্ত্র এডিস মশার বিস্তার রোধ করা। এজন্য ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নিয়মিত মশার ওষুধ ছিটানোর পাশাপশি নানা সচেতনতামূলক কাজ করছে বলে জানা গেছে। তবে সিটি করপোরেশন নানা উদ্যোগের কথা বললেও এসব কতটা কার্যকর, তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। কারণ দিন দিন ডেঙ্গু আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বেড়েই চলছে। তাদের এ কর্যক্রম আরও বাড়াতে হবে, গতিশীল করতে হবে। মশা নিধনে উভয় সিটি করপোরেশনকে চিরুনি অভিযান পরিচালনা করতে হবে।

সাধারণত জুন থেকে সেপ্টেম্বর- এ সময় ডেঙ্গুর প্রকোপ বেশি দেখা যায়। তবে বিশেষজ্ঞরা এই বলে সতর্ক করেছেন যে, এখন ডেঙ্গু রোগের নির্দিষ্ট কোন মৌসুম নেই। সারা বছরই মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হতে পারে। আগে মনে করা হতো ডেঙ্গু নগরকেন্দ্রিক রোগ। কিন্তু নগরের বাইরেও দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে এ রোগে আক্রান্ত ও মৃত্যুর খবর পাওয়া যাচ্ছে। মশা নিধনে সারা বছরই কাজ করা দরকার। শুধু মৌসুম ধরে বিশেষ ব্যবস্থা নিলে নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না। রাজধানীর বাইরের শহরগুলোতেও মাশা নিধনে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে।

ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হলে দেরি না করে চিকিৎসা নিতে হবে। এজন্য ডেঙ্গুজ্বরের লক্ষণ জানা জরুরি। প্রাথমিক পর্যায়ে শনাক্ত হলে ঘরে বসেই চিকিৎসা নেওয়া সম্ভব। সম্পূর্ণ ভালো না হওয়া পর্যন্ত বিশ্রামে থাকতে হবে। যথেষ্ট পরিমাণে পানি, শরবত, ডাবের পানি ও অন্যান্য তরল-জাতীয় খাবার খেতে হবে। শুরুতে যদি ব্যবস্থা না নেওয়া হয় তাহলে জটিল আকার ধারণ করতে পারে। এমনটা হলে তাড়াতাড়ি হাসপাতালে নিতে হবে।

back to top