alt

সম্পাদকীয়

জনশক্তি রপ্তানি ও দক্ষ লোকবল

: শনিবার, ০৬ আগস্ট ২০২২

মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার খোলা রয়েছে। দেশটির সঙ্গে চুক্তি করা হয়েছে, তারপরও শ্রমিক যাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী। সম্প্রতি রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা জানান।

শুধু মালয়েশিয়ায় নয় যে কোন দেশেই কাজ করতে গেলে নির্দিষ্ট বিষয় প্রয়োজনীয় দক্ষতা ও যোগ্যতা থাকতে হয়। কাজ জানতে হয়। সংশ্লিষ্ট দেশের ভাষা জানতে হয়। কিন্তু এ ক্ষেত্রে ঘাটতি রয়েছে। বিষয়টি প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রীও স্বীকার করেছেন।

শ্রমবাজারগুলোর মধ্যে অন্যতম দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশ মালয়েশিয়া। গত কয়েক বছর ধরেই দেশটির শ্রমবাজারে বাংলাদেশি শ্রমিকদের উপস্থিতি কমে আসছে। ফলে দেশটি থেকে রেমিটেন্স প্রবাহে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। গত অর্থবছরে মালয়েশিয়া থেকে রেমিটেন্স আসা কমেছে ৫০ শতাংশেরও বেশি। গত প্রায় চার বছর ধরে মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি শ্রমিকদের অভিবাসন বন্ধ ছিল। শুধু মালয়েশিয়াই নয়, সিঙ্গাপুরসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে বাংলাদেশের শ্রমিকদের কাজের ক্ষেত্র সংকুচিত হচ্ছে, বাজার সীমাবদ্ধ হচ্ছে। এর বিপরীতে নতুন করে কর্মক্ষেত্র তৈরি হচ্ছে না।

কারণ হিসেবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কারিগরি দক্ষতা ও যোগ্যতাসম্পন্ন কর্মীর অভাব রয়েছে দেশে। আমাদের দেশের খুব কম শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানই রয়েছে যারা পুঁথিগত বিদ্যার বাইরে কারিগরি দক্ষতাসম্পন্ন কর্মী তৈরি করতে পারে। ফলে সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও অনেকেই জাপান, কোরিয়া বা চীনের মতো দেশে চাকরি করার সুযোগ হারান।

শুধু তাই নয়, শিক্ষার্থীরা আশানুরূপ শিক্ষা লাভ করে দেশের উন্নতিতেও অবদান রাখতে পারছে না। দেশের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে প্রযুক্তিতে উন্নত দেশগুলোর সহায়তা নিতে হয়। হোক সেটা মেট্রো রেল বা পদ্মা সেতু, সব ক্ষেত্রেই উন্নত বিশ্বের দেশ থেকে বিশেষজ্ঞ আনা হয় বেশি বিনিয়োগ করে। এর বাইরে বিভিন্ন শিল্প ও কলকারখানায়ও বিদেশে থেকে দক্ষ শ্রমিক এনে কাজ করানো হয়। প্রতিনিয়ত কোটি কোটি টাকা দেশের বাইরে চলে যায়। অথচ দেশের মেধাকে উপযুক্ত শিক্ষার ব্যবস্থা করে দিলে দেশের টাকা দেশেই থেকে যেত।

দেশের রেমিটেন্স প্রবাহ মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুরসহ মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। এসব দেশ যখন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে বা কোন কারণে শ্রমিক কাজ হারায় তখন রেমিটেন্সের পরিমাণ কমে যায়। তাই দেশের শ্রমবাজারকে আন্তর্জাতিক বাজারে বড় করতে হবে। মেধা ও জ্ঞানভিত্তিক দক্ষ জনশক্তি গড়ে তুলতে হবে। শুধু কারিগরি শিক্ষা দিয়ে এই বাজারে প্রবেশ করা বা টিকে থাকা যাবে না। উন্নত বিশ্বের চাহিদা অনুযায়ী দক্ষ শ্রমিক গড়ে তুলতে হবে।

পুরান ঢাকায় আবার অগ্নিকান্ড, প্রাণহানি

মর্মান্তিক এই মৃত্যুর দায় কার

সাইবার অপরাধ দমনে আইনের কঠোর প্রয়োগ ঘটাতে হবে

পাহাড় ধ্বংসের জন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিন

বিআরটিসির বাস চলাচলে বাধা কেন

রাজধানীর পুকুরগুলো সংরক্ষণ করুন

ফ্যামিলি কার্ড বিতরণে অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ আমলে নিন

স্লুইস গেট সংস্কার করুন

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসের কারণ কী

পদ্মা সেতুর কাছে বালু উত্তোলন প্রসঙ্গে

নিত্যপণ্যের দাম : সাধারণ মানুষের কথা ভাবতে হবে

মহাসড়ক দখলমুক্ত করুন

পরিবহন শ্রমিকদের বেপরোয়া মনোভাব বদলাতে প্রশিক্ষণ দিতে হবে

সরকারি গাছ বিক্রিতে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

আশুরা : ন্যায় ও আত্মত্যাগের প্রেরণা

বিএডিসির গুদাম সংকট

গণপরিবহনের ভাড়া বৃদ্ধি বোঝার উপর শাকের আঁটি

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর এই চাপ মানুষ কি সামলাতে পারবে

ভিজিএফের চাল বিতরণে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করুন

সরকারি কর্তাব্যক্তিদের বিদেশ সফর প্রসঙ্গে

ওয়াশ প্লান্ট ব্যবহারে রেল কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা

জলবায়ু পরিবর্তনজনিত প্রভাব মোকাবিলার চ্যালেঞ্জ

মহাসড়ক প্রশস্ত করুন

হাসি ফুটুক কৃষকের মুখে

খাল রক্ষায় চাই জনসচেতনতা

রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ইসির সংলাপ প্রসঙ্গে

বুড়িগঙ্গার দূষণ রোধে সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

সংখ্যালঘু নির্যাতনের কঠোর বিচার করুন

বাঘ রক্ষা করতে হলে সুন্দরবনকে বাঁচাতে হবে

মানবপাচার বন্ধে নতুন চ্যালেঞ্জ

বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে নজরদারি বাড়ান

চাই সুরক্ষিত রেলক্রসিং

হেপাটাইটিস প্রতিরোধে তৎপরতা বাড়ান

পুলিশের গুলিতে শিশু মৃত্যুর ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হোক

এনআইডি সংশোধন প্রসঙ্গে

বেড়েই চলেছে ডেঙ্গুজ্বর

tab

সম্পাদকীয়

জনশক্তি রপ্তানি ও দক্ষ লোকবল

শনিবার, ০৬ আগস্ট ২০২২

মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার খোলা রয়েছে। দেশটির সঙ্গে চুক্তি করা হয়েছে, তারপরও শ্রমিক যাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী। সম্প্রতি রাজধানীতে এক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা জানান।

শুধু মালয়েশিয়ায় নয় যে কোন দেশেই কাজ করতে গেলে নির্দিষ্ট বিষয় প্রয়োজনীয় দক্ষতা ও যোগ্যতা থাকতে হয়। কাজ জানতে হয়। সংশ্লিষ্ট দেশের ভাষা জানতে হয়। কিন্তু এ ক্ষেত্রে ঘাটতি রয়েছে। বিষয়টি প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রীও স্বীকার করেছেন।

শ্রমবাজারগুলোর মধ্যে অন্যতম দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশ মালয়েশিয়া। গত কয়েক বছর ধরেই দেশটির শ্রমবাজারে বাংলাদেশি শ্রমিকদের উপস্থিতি কমে আসছে। ফলে দেশটি থেকে রেমিটেন্স প্রবাহে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। গত অর্থবছরে মালয়েশিয়া থেকে রেমিটেন্স আসা কমেছে ৫০ শতাংশেরও বেশি। গত প্রায় চার বছর ধরে মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি শ্রমিকদের অভিবাসন বন্ধ ছিল। শুধু মালয়েশিয়াই নয়, সিঙ্গাপুরসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে বাংলাদেশের শ্রমিকদের কাজের ক্ষেত্র সংকুচিত হচ্ছে, বাজার সীমাবদ্ধ হচ্ছে। এর বিপরীতে নতুন করে কর্মক্ষেত্র তৈরি হচ্ছে না।

কারণ হিসেবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কারিগরি দক্ষতা ও যোগ্যতাসম্পন্ন কর্মীর অভাব রয়েছে দেশে। আমাদের দেশের খুব কম শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানই রয়েছে যারা পুঁথিগত বিদ্যার বাইরে কারিগরি দক্ষতাসম্পন্ন কর্মী তৈরি করতে পারে। ফলে সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও অনেকেই জাপান, কোরিয়া বা চীনের মতো দেশে চাকরি করার সুযোগ হারান।

শুধু তাই নয়, শিক্ষার্থীরা আশানুরূপ শিক্ষা লাভ করে দেশের উন্নতিতেও অবদান রাখতে পারছে না। দেশের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে প্রযুক্তিতে উন্নত দেশগুলোর সহায়তা নিতে হয়। হোক সেটা মেট্রো রেল বা পদ্মা সেতু, সব ক্ষেত্রেই উন্নত বিশ্বের দেশ থেকে বিশেষজ্ঞ আনা হয় বেশি বিনিয়োগ করে। এর বাইরে বিভিন্ন শিল্প ও কলকারখানায়ও বিদেশে থেকে দক্ষ শ্রমিক এনে কাজ করানো হয়। প্রতিনিয়ত কোটি কোটি টাকা দেশের বাইরে চলে যায়। অথচ দেশের মেধাকে উপযুক্ত শিক্ষার ব্যবস্থা করে দিলে দেশের টাকা দেশেই থেকে যেত।

দেশের রেমিটেন্স প্রবাহ মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুরসহ মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। এসব দেশ যখন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে বা কোন কারণে শ্রমিক কাজ হারায় তখন রেমিটেন্সের পরিমাণ কমে যায়। তাই দেশের শ্রমবাজারকে আন্তর্জাতিক বাজারে বড় করতে হবে। মেধা ও জ্ঞানভিত্তিক দক্ষ জনশক্তি গড়ে তুলতে হবে। শুধু কারিগরি শিক্ষা দিয়ে এই বাজারে প্রবেশ করা বা টিকে থাকা যাবে না। উন্নত বিশ্বের চাহিদা অনুযায়ী দক্ষ শ্রমিক গড়ে তুলতে হবে।

back to top