alt

সম্পাদকীয়

আশুরা : ন্যায় ও আত্মত্যাগের প্রেরণা

: সোমবার, ০৮ আগস্ট ২০২২

মুসলিম বিশ্ব শোকের দিন হিসেবে আশুরা পালন করে থাকে। হিজরি ৬১তম বর্ষের (৬৮০ খ্রিস্টাব্দ) ১০ মহররম দ্বীন ও সত্যের জন্য ইমাম হোসাইন (রা.) এজিদের বিপুল বাহিনীর কাছে মাথা নত না করে যুদ্ধ করে শাহাদতবরণ করেছিলেন তার ৭২ জন সঙ্গীকে নিয়ে। সেদিন ন্যায়-আদর্শের জন্য চরম আত্মত্যাগের দৃষ্টান্ত রেখে গিয়েছেন হযরত ইমাম হোসাইন (রা.)।

ইসলামের আবির্ভাবের অর্থাৎ মহানবী (স.) কর্তৃক ইসলাম প্রচারের বহু আগে থেকেই আশুরা পালিত হয়ে আসছে। ইসলাম ধর্ম অনুযায়ী, পৃথিবীর সর্বপ্রথম মানব আদম (আ.) এ দিনেই জন্মলাভ করেছিলেন। হযরত মোহাম্মদ (স.)-এর কাছে প্রথম অহি নিয়ে ফেরেশতা জিব্রাইল (আ.) পৃথিবীতে এসেছিলেন এই দিনে।

এ দিনকে ঘিরে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ঘটনার সঙ্গে পরবর্তী সময়ে যুক্ত হয়েছে কারবালার মর্মান্তিক ঘটনা। এ মর্মান্তিক ঘটনার স্মরণই এখন পবিত্র আশুরা পালনের মুখ্য বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর একটা বড় কারণ হলো, ধর্মের নাম করে অধর্ম ও অন্যায়ের অশুভ শক্তি সেদিন ইসলামের সত্যবাণী ও ন্যায়-ধর্মকে আঘাত করেছিল। নিয়েছিল প্রতারণার আশ্রয়।

আজকের দিনে যখন আমরা এদেশে আশুরা পালন করছি, তখন একটি গোষ্ঠী ধর্মের নামে অধর্ম ও অসত্যকে আশ্রয় করে দেশ এবং সমাজ জীবন বিষবাষ্পে আচ্ছন্ন করতে উদ্যত। আজ যারা ধর্মের নাম করে সঙ্কীর্ণতা ও ঘৃণা ছড়ায় তারা কারবালা প্রান্তরে হযরত ইমাম হোসাইনের (রা.) দৃঢ়তা, সততা, ধৈর্য ও ধর্মনিষ্ঠা থেকে কিছুই শিক্ষা পায়নি। আশুরার দিনে প্রকৃত ধার্মিক সত্যসেবী ইমানদার মুসলিমদের এই সত্যকে উপলব্ধি করতে হবে, এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। শোকে আত্মহারা হয়ে এই আশুরার দিনে হযরত ইমাম হোসাইনের (রা.) ত্যাগ ও প্রাণ বিসর্জনের প্রকৃত শিক্ষাকে বিস্মৃত হওয়া চলবে না।

ত্যাগ, দুঃখ ও বেদনার মধ্য দিয়ে এবং আত্মাহুতির মাধ্যমে ন্যায়-ধর্মকে উচ্চে তুলে ধরার দীক্ষা নিতে হবে। আশুরার এই শোক দিবসের শিক্ষা হলো- অত্যাচারের কাছে মাথা নত না করা, মিথ্যার কাছে নতি স্বীকার না করা। তাই হযরত ইমাম হোসাইনের (রা.) শাহাদতবরণ একই সঙ্গে শোক ও গৌরবের। তার সেই ত্যাগের গৌরব মুসলিম বিশ্বের অন্তরকে উদ্ভাসিত করুক, অনুপ্রাণিত করুক ঈর্ষা-দ্বেষ-কলুষমুক্ত সমাজ গঠনে। এটাই হবে তাঁর শাহাদতবরণে আমাদের শোক, সত্য-ধর্মের পথে চলার পাথেয়। শুধু শোকের মাতম নয়, ত্যাগের মাহাত্ম্যে আলোকিত হয়ে উঠুক সব মানুষ।

ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে হাল ছাড়লে চলবে না

শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশি সেনাদের আত্মত্যাগ

হাইওয়ের নিরাপত্তা প্রসঙ্গে

জাতীয় গ্রিড বারবার বিপর্যয়ের কারণ কী

সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার নিশ্চিত করতে হবে

সাম্প্রদায়িক হামলার বিচার নিশ্চিত করতে হবে

কেঁচো সারের ব্যবহার বাড়াতে হবে

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষার নামে হরিলুট বন্ধ করুন

পর্যটকদের নিরাপত্তায় কোন ছাড় নয়

কন্যাশিশু নির্যাতনের ভয়াবহ চিত্র

মুহিবুল্লাহ হত্যার সুষ্ঠু বিচার করা জরুরি

অপ্রয়োজনীয় সি-সেকশন প্রসঙ্গে

বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ওপর হামলার বিচার কি হবে

নদী খননে জোর দিন

জ্বালানি নিরাপত্তার স্বার্থে তেল পরিশোধনের সক্ষমতা বাড়ানো জরুরি

বাল্যবিয়ে বন্ধে কাজীদের ভূমিকা

নদী দখল-দূষণ বন্ধে সংশ্লিষ্টদের দায়িত্বশীল হতে হবে

পাহাড় কাটা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে নিয়মের মধ্যে আনা যাচ্ছে না কেন

সুন্দরবনে বিষ দিয়ে মাছ ধরা কঠোরভাবে বন্ধ করুন

নৌকাডুবিতে মর্মান্তিক মৃত্যু

বিদ্যালয়ে কেন ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম

যুদ্ধ নয়, শান্তি চাই

কুয়াকাটায় পর্যটকদের ভোগান্তি কমবে কবে

বন্যপ্রাণীর খাবারের সংকট দূর করতে হবে

রাস্তাটি সংস্কার করুন

মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞা চলাকালে জেলেদের পর্যাপ্ত সহায়তা দিন

টিসিবির পণ্য বিক্রিতে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

কৃষককে কেন ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে

শিশুর সুরক্ষায় সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে

রুখতে হবে বাল্যবিয়ে

দ্রুত রাস্তা নির্মাণ করুন

নারী ফুটবল দলকে অভিনন্দন

খালে বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ বন্ধ করুন

নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নের চ্যালেঞ্জ

অবৈধ গ্যাস সংযোগ প্রসঙ্গে

tab

সম্পাদকীয়

আশুরা : ন্যায় ও আত্মত্যাগের প্রেরণা

সোমবার, ০৮ আগস্ট ২০২২

মুসলিম বিশ্ব শোকের দিন হিসেবে আশুরা পালন করে থাকে। হিজরি ৬১তম বর্ষের (৬৮০ খ্রিস্টাব্দ) ১০ মহররম দ্বীন ও সত্যের জন্য ইমাম হোসাইন (রা.) এজিদের বিপুল বাহিনীর কাছে মাথা নত না করে যুদ্ধ করে শাহাদতবরণ করেছিলেন তার ৭২ জন সঙ্গীকে নিয়ে। সেদিন ন্যায়-আদর্শের জন্য চরম আত্মত্যাগের দৃষ্টান্ত রেখে গিয়েছেন হযরত ইমাম হোসাইন (রা.)।

ইসলামের আবির্ভাবের অর্থাৎ মহানবী (স.) কর্তৃক ইসলাম প্রচারের বহু আগে থেকেই আশুরা পালিত হয়ে আসছে। ইসলাম ধর্ম অনুযায়ী, পৃথিবীর সর্বপ্রথম মানব আদম (আ.) এ দিনেই জন্মলাভ করেছিলেন। হযরত মোহাম্মদ (স.)-এর কাছে প্রথম অহি নিয়ে ফেরেশতা জিব্রাইল (আ.) পৃথিবীতে এসেছিলেন এই দিনে।

এ দিনকে ঘিরে অনেক গুরুত্বপূর্ণ ঘটনার সঙ্গে পরবর্তী সময়ে যুক্ত হয়েছে কারবালার মর্মান্তিক ঘটনা। এ মর্মান্তিক ঘটনার স্মরণই এখন পবিত্র আশুরা পালনের মুখ্য বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর একটা বড় কারণ হলো, ধর্মের নাম করে অধর্ম ও অন্যায়ের অশুভ শক্তি সেদিন ইসলামের সত্যবাণী ও ন্যায়-ধর্মকে আঘাত করেছিল। নিয়েছিল প্রতারণার আশ্রয়।

আজকের দিনে যখন আমরা এদেশে আশুরা পালন করছি, তখন একটি গোষ্ঠী ধর্মের নামে অধর্ম ও অসত্যকে আশ্রয় করে দেশ এবং সমাজ জীবন বিষবাষ্পে আচ্ছন্ন করতে উদ্যত। আজ যারা ধর্মের নাম করে সঙ্কীর্ণতা ও ঘৃণা ছড়ায় তারা কারবালা প্রান্তরে হযরত ইমাম হোসাইনের (রা.) দৃঢ়তা, সততা, ধৈর্য ও ধর্মনিষ্ঠা থেকে কিছুই শিক্ষা পায়নি। আশুরার দিনে প্রকৃত ধার্মিক সত্যসেবী ইমানদার মুসলিমদের এই সত্যকে উপলব্ধি করতে হবে, এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। শোকে আত্মহারা হয়ে এই আশুরার দিনে হযরত ইমাম হোসাইনের (রা.) ত্যাগ ও প্রাণ বিসর্জনের প্রকৃত শিক্ষাকে বিস্মৃত হওয়া চলবে না।

ত্যাগ, দুঃখ ও বেদনার মধ্য দিয়ে এবং আত্মাহুতির মাধ্যমে ন্যায়-ধর্মকে উচ্চে তুলে ধরার দীক্ষা নিতে হবে। আশুরার এই শোক দিবসের শিক্ষা হলো- অত্যাচারের কাছে মাথা নত না করা, মিথ্যার কাছে নতি স্বীকার না করা। তাই হযরত ইমাম হোসাইনের (রা.) শাহাদতবরণ একই সঙ্গে শোক ও গৌরবের। তার সেই ত্যাগের গৌরব মুসলিম বিশ্বের অন্তরকে উদ্ভাসিত করুক, অনুপ্রাণিত করুক ঈর্ষা-দ্বেষ-কলুষমুক্ত সমাজ গঠনে। এটাই হবে তাঁর শাহাদতবরণে আমাদের শোক, সত্য-ধর্মের পথে চলার পাথেয়। শুধু শোকের মাতম নয়, ত্যাগের মাহাত্ম্যে আলোকিত হয়ে উঠুক সব মানুষ।

back to top