alt

সম্পাদকীয়

উপহারের অ্যাম্বুলেন্সগুলো ফেলে রাখা হয়েছে কেন

: বুধবার, ২৩ নভেম্বর ২০২২

গত বছরের মার্চে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকায় এসেছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সে সময় তিনি বাংলাদেশকে ১০৯টি অ্যাম্বুলেন্স উপহার দেয়ার ঘোষণা দেন। ভারতের দেয়া অ্যাম্বুলেন্সের কোন কোনটি অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে আছে বলে জানা গেছে।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, ১০ মাস আগে দেয়া চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনকে দেয়া একটি অ্যাম্বুলেন্স ব্যবহার করা হয়নি একদিনও। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্সেরও একই অবস্থা। সেখানকার অ্যাম্বুলেন্সটি গত ১১ মাসেও কাজে লাগেনি।

আইসিইউ সুবিধা সম্বলিত এসব অ্যাম্বুলেন্স পড়ে আছে কেন সেটা একটা প্রশ্ন। বলা হচ্ছে, প্রয়োজনীয় লোকবল নেই। এ ধরনের অ্যাম্বুলেন্স পরিচালনা করা বেশ ব্যয়বহুল।

অ্যাম্বুলেন্স অব্যবহৃত থাকায় রোগীরা কাক্সিক্ষত সেবা পাওয়ার সুযোগ থেকে বঞ্ছিত হচ্ছে। প্রয়োজনীয় রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে অ্যাম্বুলেন্স এক পর্যায়ে অকেজো হয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

দেশের সরকারি চিকিৎসাকেন্দ্রে প্রায়ই অ্যাম্বুলেন্স ও বিভিন্ন চিকিৎসা সরঞ্জাম অব্যবহৃত পড়ে থাকে। এমনও খবর পাওয়া যায় যে, বহুমূল্যে আমদানি করা যন্ত্রপাতি বছরের পর বছর ফেলে রাখা হয়। তার প্যাকেটও খোলা হয় না।

দেশে মানসম্মত স্বাস্থ্যসেবার অভাব রয়েছে। এখানে চিকিৎসাসেবাও ব্যয়বহুল। সরকারি পর্যায়ে আইসিইউ সুবিধা সম্বলিত অ্যাম্বুলেন্স ব্যবহার করা হলে মানুষ অল্প খরচে এর সুবিধা পেতে পারে। মানুষকে স্বাস্থ্যসেবা দেয়ার এই কাজ কি খুব বেশ ব্যয়বহুল- এটা একটা প্রশ্ন। প্রতিবেশী দেশ বহুমূল্যের অ্যাম্বুলেন্স উপহার দিয়েছে। অথচ খরচের কথা বলে সেই অ্যাম্বুলেন্স ব্যবহার করা হচ্ছে না। এতে করে রোগীরা সাশ্রয়ে উন্নত সুবিধা পাওয়ার সুযোগ থেকে বঞ্ছিত হচ্ছেন।

অ্যাম্বুলেন্সসেবা চালু করার জন্য দক্ষ ও প্রশিক্ষিত জনবল কেন নিয়োগ দেয়া হচ্ছে না সেটা আমরা জানতে চাইব। রোগীরা কীভাবে উন্নতসেবা পাবে সেটা নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। আবার অ্যাম্বুলন্সে রক্ষণাবেক্ষণও যথাযথভাবে করা হচ্ছে না। এই অবহেলা দেশের স্বাস্থ্য খাতের রুগ্ন দশারই একটি চিত্র।

আমরা বলতে চাই, জনস্বার্থে দ্রুত ওই অ্যাম্বুলেন্স সেবা চালু করতে হবে। এজন্য প্রয়োজনী লোকবল নিয়োগ দিতে হবে। অ্যাম্বুলেন্সগুলো যথার্থভাবে রক্ষাণাবেক্ষণ করতে হবে।

বয়স্ক ভাতা প্রসঙ্গে

পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নের পথে বাধা দূর করুন

পদ্মা সেতুর কাছে অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ করুন

ওএমএসের পণ্য : অনিয়ম দুর্নীতি দূর করতে হবে

সেতু না করেই বিল তুলে নেয়া প্রসঙ্গে

রেলক্রসিং কেন অরক্ষিত

আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দাদের দুরবস্থা

অনলাইন সহিংসতা বন্ধে চাই সচেতনতা

অতিরিক্ত খাজনা আদায়ের অভিযোগ আমলে নিন

মানবপাচার সংক্রান্ত মামলা প্রসঙ্গে

সেন্টমার্টিন রক্ষায় সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

মীরসরাইয়ে বিকল্প সেচ ব্যবস্থাপনা চালু করা হোক

ফসলি জমি কেটে বালু তোলা বন্ধ করুন

আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নির্মাণে অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগের সুরাহা করুন

বিদ্যালয়টির নতুন ভবন নির্মাণের উদ্যোগ নিন

তাজরীন ট্র্যাজেডি : বিচার পেতে আর কত অপেক্ষা করতে হবে

বিসিকের শিল্প নগরীতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্লান্ট নেই কেন

সংরক্ষিত বন ধ্বংস করে ইটভাটা নয়

রেল স্টেশন চালুর দাবি

দোকানে শিক্ষার্থীদের পাঠদান প্রসঙ্গে

আলুর বীজ সংকট দূর করুন

অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহার বন্ধ করতে হবে

দুই জঙ্গি ছিনতাই : প্রশ্নবিদ্ধ নিরাপত্তা ব্যবস্থা

সড়ক সংস্কারে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

চাই আর্সেনিকমুক্ত পানি

কক্সবাজারে পরিবেশ ছাড়পত্র ছাড়া হোটেল চলছে কীভাবে

বাড়ছে ঠান্ডাজনিত রোগ, সতর্ক থাকতে হবে

বরগুনা হাসপাতালের নতুন ভবনে কার্যক্রম কবে শুরু হবে

নারী নির্যাতনের উদ্বেগজনক চিত্র

পণ্য পরিবহনে চাঁদাবাজি বন্ধ করুন

বছরের শুরুতে নতুন বই পাওয়া নিয়ে শঙ্কা

সরকারি হাসপাতালগুলোর দুর্দশা

আত্মহত্যা প্রতিরোধে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

যাত্রী ছাউনি দখলমুক্ত করুন

জলাশয়গুলো রক্ষা করুন

সিসার বিষক্রিয়ার ভয়াবহতা

tab

সম্পাদকীয়

উপহারের অ্যাম্বুলেন্সগুলো ফেলে রাখা হয়েছে কেন

বুধবার, ২৩ নভেম্বর ২০২২

গত বছরের মার্চে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকায় এসেছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সে সময় তিনি বাংলাদেশকে ১০৯টি অ্যাম্বুলেন্স উপহার দেয়ার ঘোষণা দেন। ভারতের দেয়া অ্যাম্বুলেন্সের কোন কোনটি অব্যবহৃত অবস্থায় পড়ে আছে বলে জানা গেছে।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, ১০ মাস আগে দেয়া চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনকে দেয়া একটি অ্যাম্বুলেন্স ব্যবহার করা হয়নি একদিনও। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্সেরও একই অবস্থা। সেখানকার অ্যাম্বুলেন্সটি গত ১১ মাসেও কাজে লাগেনি।

আইসিইউ সুবিধা সম্বলিত এসব অ্যাম্বুলেন্স পড়ে আছে কেন সেটা একটা প্রশ্ন। বলা হচ্ছে, প্রয়োজনীয় লোকবল নেই। এ ধরনের অ্যাম্বুলেন্স পরিচালনা করা বেশ ব্যয়বহুল।

অ্যাম্বুলেন্স অব্যবহৃত থাকায় রোগীরা কাক্সিক্ষত সেবা পাওয়ার সুযোগ থেকে বঞ্ছিত হচ্ছে। প্রয়োজনীয় রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে অ্যাম্বুলেন্স এক পর্যায়ে অকেজো হয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

দেশের সরকারি চিকিৎসাকেন্দ্রে প্রায়ই অ্যাম্বুলেন্স ও বিভিন্ন চিকিৎসা সরঞ্জাম অব্যবহৃত পড়ে থাকে। এমনও খবর পাওয়া যায় যে, বহুমূল্যে আমদানি করা যন্ত্রপাতি বছরের পর বছর ফেলে রাখা হয়। তার প্যাকেটও খোলা হয় না।

দেশে মানসম্মত স্বাস্থ্যসেবার অভাব রয়েছে। এখানে চিকিৎসাসেবাও ব্যয়বহুল। সরকারি পর্যায়ে আইসিইউ সুবিধা সম্বলিত অ্যাম্বুলেন্স ব্যবহার করা হলে মানুষ অল্প খরচে এর সুবিধা পেতে পারে। মানুষকে স্বাস্থ্যসেবা দেয়ার এই কাজ কি খুব বেশ ব্যয়বহুল- এটা একটা প্রশ্ন। প্রতিবেশী দেশ বহুমূল্যের অ্যাম্বুলেন্স উপহার দিয়েছে। অথচ খরচের কথা বলে সেই অ্যাম্বুলেন্স ব্যবহার করা হচ্ছে না। এতে করে রোগীরা সাশ্রয়ে উন্নত সুবিধা পাওয়ার সুযোগ থেকে বঞ্ছিত হচ্ছেন।

অ্যাম্বুলেন্সসেবা চালু করার জন্য দক্ষ ও প্রশিক্ষিত জনবল কেন নিয়োগ দেয়া হচ্ছে না সেটা আমরা জানতে চাইব। রোগীরা কীভাবে উন্নতসেবা পাবে সেটা নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। আবার অ্যাম্বুলন্সে রক্ষণাবেক্ষণও যথাযথভাবে করা হচ্ছে না। এই অবহেলা দেশের স্বাস্থ্য খাতের রুগ্ন দশারই একটি চিত্র।

আমরা বলতে চাই, জনস্বার্থে দ্রুত ওই অ্যাম্বুলেন্স সেবা চালু করতে হবে। এজন্য প্রয়োজনী লোকবল নিয়োগ দিতে হবে। অ্যাম্বুলেন্সগুলো যথার্থভাবে রক্ষাণাবেক্ষণ করতে হবে।

back to top